• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৭:০৮ অপরাহ্ন |

আলুর ক্ষতি পোষাতে আম চাষ

Mangoরংপুর অফিস: আলুর দাম না পাওয়ায় বিপর্যস্ত রংপুর অঞ্চলের কৃষক ক্ষতি পোষাতে চাইছেন আম চাষের মাধ্যমে। চাঁপাই-রাজশাহীর ফজলির স্বাদ ও গন্ধকে ছাড়িয়ে ‘হাঁড়িভাঙ্গা’ আমের আবাদ বদলে দিতে যাচ্ছে এ অঞ্চলের অর্থনীতির চিত্র। এ অঞ্চলের বিস্তীর্ণ এলাকায় আমের চাষ হয়েছে। তবে কৃষকদের অভিযোগ ভ্রƒক্ষেপহীন কৃষি বিভাগ। ফলে গাছের সব পাতা ছাপিয়ে আসা আমের মুকুল সঠিক নির্দেশনার অভাবে ঝরে যাচ্ছে। অখ্যাত কোম্পানির ওষুধে মিইয়ে যাচ্ছে আমের ‘বাড়ন্ত শরীর’। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আম চাষের এই সম্ভাবনা ধরে রাখতে আধুনিক চাষপদ্ধতির বাস্তবায়ন, গবেষণা কেন্দ্র ও হিমাগার স্থাপন, চাষিদের উদ্বুদ্ধ করার মাধ্যমে ফিবছর এ অঞ্চলে সোয়া ছয় হাজার কোটি টাকার আম উৎপাদন সম্ভব। এ জন্য নিতে হবে ১০ বছর মেয়াদি পরিকল্পনা।
কৃষক ও কৃষিবিদেরা জানিয়েছেন, আলুর ক্ষতি পোষাতে রংপুরে এখন ব্যাপকভাবে আমের আবাদ চলছে, যা কার্যকরভাবে বাস্তবায়ন হলে আমের রাজধানী রাজশাহী চাঁপাইনবাবগঞ্জকেও ছাড়িয়ে যাবে রংপুর অঞ্চল। রংপুরের গ্রামগঞ্জের অনেক কৃষক আমের বাগানভিত্তিক বাণিজ্যিক চাষ শুরু করেছেন। চলতি মওসুমে আমের মুকুলও এসেছে গত কয়েক দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ। আম বিশেষজ্ঞরা এই মুকুলকে ‘আমের অন এয়ার’ বলে দাবি করেছেন।
সরেজমিন রংপুরের মিঠাপুকুরের বালুয়া মাসিমপুর, পাইকারের হাট, তেকানী, বালুয়া, সন্তোষপুর, শাল্টিরহাট, গোপালপুর, বড়বালা, ছড়ান, গুটিবাড়ি, ফুলচকি, কৃষ্ণনগর. পীরেরহাট, মৌলভীগঞ্জ, ময়েনপুর, পদাগঞ্জ, আখিরাহাট, কাশেমপুর, মাদারপুর, দুর্গাপুর, গ্যানারপাড়া, মণ্ডলপাড়া, মাঠেরহাট, জারুল্যাপুর, কদমতলা, শিকারপুর, রুপসী, রানীপুকুর, খোড়াগাছ, শাল্টি, শুকুরের হাট, সদর উপজেলার মমিনপুর, শ্যামপুর, বদরগঞ্জের বৈরামপুর, শংকপুর, ররামনাথপুর, কাঁচাবাড়ি, মধুপুর, লোহানীপাড়া, লালদীঘি, ওসমানপুর, হাজীপুর, বিষ্ণুপুর, কচুয়া, মোসলমারী, সদরের মোমিনপুর, পালিচড়া, অযোদ্ধাপুর, ধাপেরহাট, নয়াপুকুর, রামজীবন, মানজাই, তামফাট, দিনাজপুরের নবাবগঞ্জের বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে, আম চাষে কৃষকদের উৎসাহ-উদ্দীপনার অভাব নেই। এসব এলাকায় যত দূর দেখা যায় শুধুই আমের বাগান। শুধু বাগানভিত্তিকই নয়, ধানের জমিতে তরকারির জমিতেও লাগানো হয়েছে আমের গাছ। আমের সব শাখাতেই এসেছে মুকুল। কৃষকও ব্যস্ত পরিচর্যা নিয়ে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, আমবাগান এলাকায় চাষিদের জন্য কৃষি বিভাগের দৃশ্যমান কার্যক্রম নেই। ফলে এবার গত কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মুকুল এলেও সেগুলো ঝরে যাচ্ছে। ঝরে যাওয়ার কারণ হিসেবে ময়েনপুর এলাকার আমচাষি মোকছেদুল আলম মুকুল জানান, তার বাগানে সাড়ে পাঁচ হাজার আমের গাছ রয়েছে। প্রচুর মুকুলও এসেছে। তিনি জানান, আমের মধ্যে এখন হপার পোকার আক্রমণ হয়েছে। কৃষি বিভাগের লোকজন কখনোই বাগানে আসেন না। তাদের কাছে গিয়েও এ বিষয়ে কোনো সহযেগিতা পাচ্ছি না। ফলে বাজার থেকে যে ওষুধ নিয়ে ব্যবহার করছি, অখ্যাত কোম্পানির হওয়ায় গাছে দেয়ার সাথে সাথেই মুকুল ঝরে যাচ্ছে। একই এলাকার অপর আমচাষি তারিকুজ্জামান মিলন জানান, মুকুলে যে পোকার আক্রমণ হয়েছে তা দূর করতে গ্লোব, সিনজেনটা, ইনতেফা, ইস্টওয়েস্ট, অ্যাথারটন, মার্শাল, গোলজেডসহ বিভিন্ন নামের কোম্পানির ওষুধ ব্যবহার করছি আমরা। কিন্তু পোকা মরলেও গাছ থেকে মাত্রাতিরিক্ত ঝরে যাচ্ছে মুকুল।
হাঁড়িভাঙ্গা আমের আবিষ্কারক আব্দুস সালাম নয়া দিগন্তকে জানান, হাঁড়িভাঙ্গা আম রাজশাহীর চাঁপাই নবাবগঞ্জের ফজলি-ল্যাংড়ার চেয়েও সুস্বাদু ও উচ্চ ফলনশীল। তিনি বলেন, হাঁড়িভাঙা জাতের আমের আবাদ সম্প্রসারণ করা গেলে এ অঞ্চলে প্রতি বছর পাঁচ হাজার কোটি টাকারও বেশি আম উৎপাদন সম্ভব হবে, যা দিয়ে এ অঞ্চলে কাজের অভাব দূর হওয়ার পাশাপাশি কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।
আমচাষি, ব্যবসায়ী ও কৃষিবিদদের তথ্য মতে, এক হেক্টর ফলদায়ক জমিতে আমের পরিচর্যা মুকুল আসা থেকে শুরু করে বাজারজাত করা পর্যন্ত ৩০-৩৫ হাজার টাকা খরচ হয়। এই পরিমাণ জমিতে সাড়ে ১২ টন আমের উৎপাদন হয়, যা থেকে এক লাখ ৭০ হাজার থেকে দুই লাখ টাকা বিক্রি করা সম্ভব। খরচ বাদে প্রতি হেক্টরে কৃষকের লাভ আসে এক লাখ ৩০ থেকে দেড় লাখ টাকা। ফলে কৃষকেরা আমের আবাদ নিয়ে বেশ আশাবাদী।
রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ড. সওয়ারুল হক জানান, মিঠাপুকুরের খোড়াগাছ, ময়েনপুর ও বালুয়ামাসিমপুর ইউনিয়নে আমের আবাদ শুরু করেছেন চাষিরা। চলতি মওসুমে ফলদায়ক ৫৭৫ হেক্টর জমিতে ছোটবড় আমের বাগানে এক লাখ ৮৯ হাজার গাছে আবাদ হয়েছে। গত বছর ৫৫০ হেক্টর জমিতে আবাদ হয়েছিল। কৃষকদের আধুনিক পদ্ধতিতে আম চাষে আগ্রহী করতে গ্রুপ বৈঠকসহ বিভিন্ন ধরনের উৎসাহমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।
আঞ্চলিক কৃষি অফিসের তথ্য মতে, চলতি মওসুমে রংপুর অঞ্চলের আট জেলায় বাগান পর্যায়ে প্রায় ১৩ হাজার বাসাবাড়ি ও ক্ষুদ্র পরিসরে দুই হাজার ৪৫০ হেক্টর জমিতে আমের বাগান হয়েছে। রংপুর বিভাগের আট জেলায় এই আমবাগানের পরিমাণ তিন হাজার ৫০০ হেক্টর। এই পরিমাণ জমিতে প্রায় ৪২ লাখ ৭৪ হাজার ৪০০ গাছ রয়েছে, যা থেকেএক লাখ ৬০ হাজার ৯০০ টন আম উৎপাদন হবে, যার বাজার মূল্য ৮০৪ কোটি ৩৭ লাখ ৫০ হাজার টাকার ওপরে।
রংপুরের বুড়িরহাট হর্টিকালচার সেন্টারের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. হামীম রেজা হাঁড়িভাঙ্গা আম নিয়ে গবেষণা করছেন দীর্ঘ দিন ধরে। তিনি জানান, রংপুরের উৎপাদিত হাঁড়িভাঙ্গা আম স্বাদে-গন্ধে অতুলনীয়। তিনি বলেন, রংপুরের মাটি আম আবাদের জন্য উপযোগী। কৃষি বিভাগের হিসাবে রংপুর অঞ্চলের আট জেলায় প্রায় এক লাখ হেক্টর হাঁড়িভাঙ্গা আম চাষযোগ্য জমি আছে। এতে ১২ লাখ ৫০ হাজার টন আম উৎপাদন সম্ভব। সেখানে আমের আবাদ করলে বছরে সোয়া ছয় হাজার কোটি টাকার আম উৎপাদন সম্ভব হবে। এ জন্য সরকারকে ও কৃষি বিভাগকে যদি ১০ বছর মেয়াদি পরিকল্পনা নিয়ে এ অঞ্চলে হাঁড়িভাঙ্গা আমের চাষ বাস্তবায়ন করতে হবে।
রংপুর আঞ্চলিক কৃষি অফিসের উপপরিচালক আব্দুল জলিল জানান, রংপুরে সরকারিভাবে আম অথবা অন্য কোনো ফলফলাদির ব্যাপারে কোনো বরাদ্দ নেই। উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তারা (এসএএও) নানান কাজে ব্যস্ত থাকায় হয়তো আমচাষিদের মনিটরিং করার সময় পান না। তবে প্রতি বছর এনসিডিপির মাধ্যমে আমরা আম, লিচু ও কাঁঠালের চারা বিতরণ করি। তিনি বলেন, রংপুরে আম চাষের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় পদপে ও বরাদ্দ এলে তা এখানকার অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ