• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৫:০১ অপরাহ্ন |

মহিলা মেম্বরের হাত-পা ভেঙ্গে দিলেন চেয়ারম্যান

News_20051সিসি নিউজ: ভূয়া তালিকার মাধ্যমে অর্ধ শতাধিক লোক দিয়ে অবৈধ ভাবে কর্মসৃজন কর্মসুচীর টাকা  উত্তোলনে বাধা দেয়ায় সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার ৮ নং খাজরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান যুবলীগ নেতা শাহ নেওয়াজ ডালিম ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী এক মহিলা মেম্বরকে পিটিয়ে গুরতর জখম করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
রবিবার সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন খাজরা ইউনিয়নের গদাইপুর গ্রামের রবিউল ইসলামের স্ত্রী মহিলা ইউপি মেম্বর নাসিমা খাতুন।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে নাসিমা খাতুন বলেন, বিগত ২০১১ সালের ২৯ মার্চ  অনুষ্ঠিত আশাশুনি উপজেলার ৮ নং খাজরা ইউপি নির্বাচনে যুবলীগ নেতা শাহ নেওয়াজ ডালিম চেয়ারম্যান এবং সংরক্ষিত ৭, ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডে তিনি মহিলা মেম্বর নির্বাচিত হন। নির্বাচিত হয়ে শাহ নেওয়াজ ডালিম জনগণের কাছে দেয়া ওয়াদা ভুলে গিয়ে অনিয়ম, দূর্ণীতি আর স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে তার পরিষদ চালাতে থাকে। এরই মধ্যে চেয়ারম্যান ডালিম তার নিজের অবস্থান ধরে রাখতে এলাকায় গড়ে তোলে নিজস্ব সন্ত্রসাী বাহিনী। যাদের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে দেশী বিদেশী নান ধরনের অবৈধ অস্ত্র। এই অস্ত্রবাজদের নিয়ে চেয়ারম্যান এলাকায় মহড়া দিয়ে নির্বিঘেœ চালিয়ে যাচ্ছেন নানা অনিয়ম ও দূর্ণীতি। কেউ এসবরে প্রতিবাদ করলে তার উপর নেমে আসে হামালাসহ নানা ধরনের নির্যাতন। ইউনিয়নের উন্নয়ন তো দূরের কথা, কোথাও এক ঝুড়ি মাটিও ফেলেননি  তিনি। উন্নয়ন যা হয়েছে তা খাতা কলমে সীমাবদ্ধ। কোন প্রকল্প বাস্তবায়ন  না করে বরাদ্দ যা এসেছে প্রশাসনকে ম্যানেজ করে সব তিনি লুটেপুটে খেয়ে ফেলেছেন।
তিনি আরও বলেন, গত ২০ মার্চ চেয়ারম্যান শাহ নেওয়াজ ডালিমের ভাড়াটিয়া ভূয়া অর্ধ শতাধিক লোক কর্মসৃজন কর্মসুচীর টাকা উত্তোলনের জন্য আশাশুনি কৃষি ব্যাংকে আসে। তারা কেউ কর্মসৃজন কর্মসুচী প্রকল্পের শ্রমিক নয়। কোন দিন কাজও করেনি। চেয়ারম্যানের সহায়তায় তার সরকারি টাকা আত্মসাতের চেষ্টা করে। বিষয়টি জানতে পেরে আমি অন্যান্য লোকজন নিয়ে ব্যাংকে এসে তাদেরকে ভূয়া শ্রমিক প্রমান করে দিলে টাকা উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায়।  এত ক্ষুদ্ধ হয়ে চেয়ারম্যান শাহ নেওয়াজ ডালিমের ২০/২৫ জন সশস্ত্র সন্ত্রাসী ওই দিন রাতেই তার গদাইপুরস্থ গ্রামের বাড়িতে হামলা চালায়। তারা আমার বসত বাড়ি ভাংচুর করার পাশাপাশি লোহার রড ও হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে আমার বাম হাত ও বাম পা ভেঙ্গে দেয়। এছাড়া শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে পিটিয়ে ও কামড়িয়ে মারাত্মক জখম করে। রাতেই স্থানীয়দের সহায়তায় আমাকে উদ্ধার করে প্রথমে আশাশুনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করায়। আমি এবং আমার স্বামী হাসপাতালে থাকার সুযোগে প্রতি রাতেই বাড়িসহ মৎস্য ঘেরে চুরি হচ্ছে।
নাসিমা খাতুন বলেন, এঘটনায় আমি নিজে বাদী  হয়ে চেয়ারম্যান ডালিমকে ১ নং আসামী করে ১৭ জনের নামে আশাশুনি থানায় একটি মামলা দায়ের করলেও পুলিশ এখন র্পযন্ত ১ জন ছাড়া বাকীদের গ্রেফতার করতে পারেনি। অথচ  আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। প্রায় হাফ ডজন মামলার আসামী ডালিম চেয়ারম্যান এলাকায় সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে চলেছে। তার কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে এলাকার সাধারন জনগণ।
তিনি সন্ত্রাসী ডালিম চেয়ারম্যানসহ তার সশস্ত্র ক্যাডার বাহিনীর সদস্যদের গ্রেফতার করে র্দষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের জন্য প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ