• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৯:২৭ অপরাহ্ন |

নাগেশ্বরীর সংগ্রামী আমেনার কথা

Amena-31.03.14খলিলুর রহমান, নাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম): জীবন-জীবিকার তাগিদে এক সংগ্রামী নারী আমেনা বেগমের কথা কেউ ভাবে না। দিন যায় রাত হয় তার অভিরাম চলা শেষ হয় না। রাত পোহালেই তাকে দেখা যায় এ গ্রামে ও গ্রামে ভ্যানগাড়িতে কিছু মালপত্র নিয়ে ছুটে চলতে। আমেনা বেগম জীবন সংগ্রামী এক নারী বয়স প্রায় ৫০-এর ঊর্ধ্বে। ঘরবাড়ি নেই বললেই চলে তিনি থাকেন নাগেশ্বরী পৌরসভার সাতানীপাড়া গ্রামের অন্যের জায়গায় কোনো রকম একটি ঝুপড়ি ঘর তুলে। সন্তান-সন্তানাদি নিয়ে সেখানে তার বসবাস। স্বামী আব্দুর রহমান মারা যাওয়ার পর তিনি বিভিন্ন বাসাবাড়িতে ঝিয়ের কাজ করতেন। কিন্তু পরের বাড়িতে কাজ করার চেয়ে নিজে আতœ নির্ভরশীল হওয়ার মনোভাব নিয়ে তিনি ছোট একটি ব্যবসা শুরু করেন। কাঠের তৈরি ছোট্ট একটি ভ্যানগাড়িতে বিস্কুট, চানাচুর, মসলা, আচার, তেল, মরিচগুড়া, হলুদগুড়া, বিভিন্ন প্রকার ডাল, সাবান ইত্যাদি মালামাল নিয়ে নিজেই ভ্যানগাড়ি চালিয়ে গ্রামে গ্রামে ফেরি করে বিক্রি করেন এসব জিনিসপত্র। তার কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি তার জীবনের দুঃখের ইতিহাস গাঁথা কথাগুলোর বর্ণনা দেন। তার এ ব্যবসা সর্ম্পকে জানতে চাইলে তিনি বলেন ভ্যানগাড়িতে এসব ুদ্র মালামাল নিয়ে প্রতিদিন এ গ্রাম ও গ্রাম ছুটে বেড়াই কিন্তু তেমন বেচা কেনা হয় না। এখন প্রতিটি পাড়া গাঁয়ে রাস্তার মোড়ে কিংবা লোকালয়ে ছোট বড় দোকান পাট গড়ে উঠেছে। তাছাড়া গ্রামের ধনী বড় লোক পরিবারগুলো আমার কাছে খরচ কেনে না। তারা বাজার থেকে অনেক টাকার মালামাল কিনে ঘরে রাখেন। সারাদিন গ্রাম ঘুরে ৩শ থেকে ৪শ টাকার মালা মাল বিক্রি করি এতে সামান্য কিছু লাভ হয় তার। অল্পমুলধন সেটি ঠিক রেখে লাভের অংশের টাকা দিয়ে কোনো মতে সংসার চালাতে হয় তার। তিনি আরও বলেন অন্যের বাড়িতে কাজ করে খাওয়া আর ভিাবৃত্তির চেয়ে ব্যবসায় সম্পৃক্ত হয়ে অভাবের সাথে সংগ্রাম করে বেঁচে থাকা অনেক ভালো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ