• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৫৭ পূর্বাহ্ন |

লাদেন সম্পর্কে পাকিস্তান জানত

Ladenমূল : কার্লোটা গল ॥ অনুবাদ : এনামুল হক :
[আলকায়েদা প্রধান ওসামা বিন লাদেন ২০১১ সালের মে মাসে এ্যাবোটাবাদে পাকিস্তানের শীর্ষ সামরিক একাডেমি থেকে মাত্র কয়েকশ’ গজ দূরে উঁচু প্রাচীরঘেরা এক অট্টালিকায় মার্কিন কমান্ডো অভিযানে নিহত হন। সেই বাড়িতে ছয়টি বছর তিনি আত্মগোপন করেছিলেন। এটা কি সম্ভব যে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী বা সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই ওখানে তাঁর অবস্থান সম্পর্কে কিছুই জানত না? নিউইয়র্ক টাইমসের রিপোর্টার কার্লোটা গল এক অনুসন্ধানী রিপোর্টে দেখিয়েছেন, পাকিস্তান বিন লাদেন সম্পর্কে কতটা কি জানত। দেখিয়েছেন, আইএসআইয়ের শীর্ষ মহল কিভাবে লাদেনকে আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছিল। তাঁর সেই অনুসন্ধানী বিবরণ এখানে তুলে ধরা হলো।]
১১ সেপ্টেম্বরের হামলার কিছুদিন পর আমি নিউইয়র্ক টাইমসের পক্ষ থেকে আফগানিস্তান থেকে প্রতিবেদন পাঠানোর জন্য সেখানে গিয়েছিলাম। তালেবানরা ক্ষমতা থেকে উৎখাত হবার পর পরবর্তী ১২ বছরের বেশিরভাগ সময় আমি সেখানে কাটিয়েছি তালেবান শাসন অবসানের পর যে স্বাধীনতা ও সমৃদ্ধির প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিল তাতে আমি রোমাঞ্চিত বোধ করেছি এবং তারপর সেই আশা প্রত্যাশার ধীরে ধীরে অপমৃত্যু ঘটতে দেখেছি। নতুন সংবিধান প্রণীত হলো, দুদফা নির্বাচন হলো। কিন্তু তাতে সাধারণ আফাগানদের জীবন যাত্রার কোন উন্নতি হলো না। তালেবানরা নতুন করে সংগঠিত হলো এবং তাদের গেরিলা কর্মকা-কাণ্ডের পক্ষে ক্রমবর্ধমান সংখ্যক সমর্থক পেয়ে গেল। তারা আফগানিস্তানের দক্ষিণাঞ্চল পুনর্দখলের জন্য উচ্চাভিলাষী আক্রমণাভিযান চালাল এবং একশত বেশি আত্মঘাতী বোমাবাজ লেলিয়ে দিল। ২০০৬ সাল নাগাদ পরিষ্কার হয়ে গেল যে এক ভয়ঙ্কর ও সংকল্পদৃঢ় প্রতিপক্ষ শক্তিমত্তায় বেড়ে চলেছে, দুর্বল হচ্ছে না। নবজাগ্রত তালেবানদের বোমা বিধ্বস্ত এলাকা ও রণাঙ্গনগুলো সফরকালে আমাকে আফগানরা সেই একই কথা বলতে থাকে। তাহলো তালেবান সন্ত্রাসীদের সংগঠকরা পাকিস্তানে বিশেষ করে পশ্চিমাঞ্চলীয় জেলা কোয়েটায় রয়েছে। পুলিশী তদন্তেও দেখা যেতে লাগল যে বোমাবাজদের অনেকে পাকিস্তান থেকে আসছে।
২০০৬ সালের ডিসেম্বর মাসে আমি বিমানে করে কোয়েটায় যাই। সেখানে কয়েকজন পাকিস্তানী রিপোর্টার ও একজন ফটোগ্রাফারের সঙ্গে আমার দেখা হয়। আমরা একত্রে এমন সব পরিবারের দেখা পেলাম যারা এই ধারণাকে আঁকড়ে ধরে আছে যে তাদের ছেলেরা আফগানিস্তানে আত্মঘাতী বোমার বিস্ফোরণে উড়ে গেছে। কেউ কেউ আবার এমন সংবাদ বিশ্বাস করবে কি-না সে সম্পর্কে নিশ্চিতও ছিল না। খরবগুলো তাদেরকে জানানো হয়েছিল অজ্ঞাত পরিচয় কোন ব্যক্তির টেলিফোন কল থেকে কিংবা সমাজের কোন একজনের মাধ্যমে দ্বিতীয় হাত ঘুরে। তাদের ছেলেরা কিভাবে মারা গিয়েছিল, কে তাদের রিক্রুট করেছিল একথা বলতে তাদের সবাই শঙ্কিতবোধ করছিল। তারা ভয় পাচ্ছিল যে পাকিস্তানের প্রধান গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই সদস্যরা তাদের ঝামেলায় ফেলতে পারে।
কোয়েটায় আমাদের প্রথম দিনের সংবাদ পরিবেশনার পর আমরা লক্ষ্য করলাম মোটরবাইক আরোহী এক গোয়েন্দা এজেন্ট আমাদের পিছু নিয়েছে। আমরা যাদের সাক্ষাতকার নিয়েছিলাম তাদের প্রত্যেকের কাছে পরে আইএসআই এজেন্টরা গিয়ে হাজির হয়েছিল। আমরা পশতুনাবাদ বা পশতুদের শহর নামে এক এলাকা পরিদর্শনে যাই। ওটা ছিল প্রধানত আফগান অধ্যুষিত সঙ্কীর্ণ অলিগলির এক ঘনসংবদ্ধ মহল্লা। এই শরণার্থীরা কয়েক বছরে পাহাড়ের পাশে ছড়িয়ে পড়ে কাদামটি ও খড়কুটো দিয়ে একচালা বাড়ি বানিয়ে বাস করছিল। মানুষগুলো মেহনতি শ্রেণীর : মুটে মজুর বাস ড্রাইভার ও দোকানদার। এই মহল্লায় বেশ কয়েকজন তালেবান সদস্যেরও আবাস যারা উঁচু প্রাচীরঘেরা বড় বড় বাড়িতে বাস করে। প্রায় ক্ষেত্রেই বাড়িগুলো তাদের পরিচালিত মসজিদ ও মাদ্রাসার পাশে অবস্থিত।
রাস্তার পাশে অন্যতম একটি মাদ্রাসা জামিয়া ইসলামিয়া। এর ছোট ও পরিচ্ছন্ন প্রবেশপথ দেখে প্রতিষ্ঠানটির সাইজ বুঝে ওঠার উপায় নেই। ভিতরে ইট ও কংক্রিটের তৈরি তিনতলা উঁচু ভবন। মাঝখানে আঙ্গিনা ও ক্লাসরুম যেখানে ২৮০ জন ছাত্রের স্থান সঙ্কুলান হতে পারে। আমরা যেসব আত্মঘাতী বোমাবাজের খোঁজ খবর করছিলাম তাদের অন্তত তিনজন এখানকার ছাত্র ছিল। আরও অনেকেই ছাত্র ছিল বলে খবর পাওয়া গিয়েছিল। পাকিস্তানের ধর্মীয় দলগুলোর সিনিয়র নেতৃবৃন্দ এবং প্রাদেশিক সরকারের কর্মকর্তারা প্রায়ই এখানে আসতেন এবং তালেবান সদস্যরাও অনেক সময় রাতের আঁধারে এসইউভি’র বহরে করে আসতেন।
আমরা এক সাক্ষাতকার নিতে চাইলাম। বলা হলো মহিলা সাংবাদিককে ভেতরে যেতে দেয়া হবে না। তাই আমি আমার সঙ্গে থাকা পাকিস্তানী রির্পোটারকে কিছু প্রশ্ন চালান করে দিলাম। সে এবং ফটোগ্রাফারটি ভেতরে চলে গেল। কোন জঙ্গীকে সেখানে ট্রেনিং দেয়া হয়েছে বা জিহাদের জন্য জবরদস্তি করে কাউকে রিক্রুট করা হয়েছে একথা মাদ্রাসার উপপ্রধান অস্বীকার করলেন। বললেন যে “আমরা ছাত্রদের কোরান শিক্ষায় শিক্ষিত করছি এবং কোরানে লেখা আছে যে জিহাদে অংশ নেয়া প্রত্যেক মুসলমানের দায়িত্ব। কোরানে কি লেখা আছে আমরা শুধু সে কথাই তাদের বলছি। তারপর জিহাদে যাওয়া না যাওয়া তাদের দায়িত্ব।” তিনি কথাবার্তা শেষ করলেন। ক্লাস শেষ হয়ে এসেছিল। ছাত্রদের ক্লাসরুম থেকে হুড়োহুড়ি করে বের হয়ে আসার সেই কলরব শুনতে পেলাম। ছেলেরা গেট থেকে বেরিয়ে রাস্তায় নেমে এলো। একজনের পেছনে একজন ছুট লাগাল কেউ পায়ে, কেউবা সাইকেলে চেপে ঢিলেঢালা পোশাক ও টুপি মাথায় তাদের লম্বা ও কৃশ দেখাচ্ছিল।
রিপোর্টার ও ফটোগ্রাফার মাদ্রাসার বাইরে আমার সঙ্গে যোগ দিল। জানাল সে ভেতরের প্রাঙ্গণে মাদ্রাসার পৃষ্ঠপোষক এক পাকিস্তানী ধর্মভিত্তিক দলের নেতা ও তালেবানপ্রধান মোল্লা মোহাম্মদ ওমরের প্রশস্তি করে বেশ কিছু দেয়ালের লিখন আঁকা। পাকিস্তানে অনেক মাদ্রাসার মতো এই মাদ্রাসাটি তালেবানদের পুনরুত্থানের উৎস, সে পুনরুত্থানের সম্পর্কে প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাই ও অন্যান্য আফগান নেতা অনেক আগে থেকেই হুঁশিয়ার করে দিয়ে আসছিলেন। কোয়েটার এক গরিব তল্লাটে বিচিত্র ধরনের মাদ্রাসাটি হলো সীমান্ত অঞ্চল জুড়ে বিরাজমান শত শত মাদ্রাসার একটি। এই মাদ্রাসাতেই তালেবান ও পাকিস্তানের ধর্মীয় দলগুলো জঙ্গীবাদের একটি বাহিনী গড়ে তোলার জন্য একযোগে কাজ করছিল। ঐ এলাকার এক পশতু সাংসদ আমার কাছে বলেছেন, “মাদ্রাসাগুলো হলো খোলস একটা আবরণমাত্র যার ছায়ার আড়ালে লুকিয়ে আছে আইএসআই।”
প্রেসিডেন্ট পারভেজ মোশারফ ও তার গোয়েন্দা প্রধান লে জেনারেল আশফাক পারভেজ কায়ানীর অধীনে পাকিস্তান সরকার তালেবানদের পালছিল ও রক্ষা করছিল। উদ্দেশ্য ছিল দুটো সে সময় দেশে অবস্থানরত ‘নানা ধরনের জঙ্গী সংগঠনকে নিয়ন্ত্রণ করা এবং আফগানিস্তানের চাপ সৃষ্টি ও শেষ পর্যন্ত সেখানে প্রাধান্য প্রতিষ্ঠার জন্যে তাদেরকে প্রক্সি হিসাবে ব্যবহার করা। এই সূত্রটি এমনভাবে কাজ করছে যে বাইরে থেকে ধরতে পারা কঠিন। তবে এতে পাকিস্তানে যে কৌশলটি গড়ে উঠেছে তা হলো আমেরিকার সন্ত্রাসবাদবিরোধী লড়াইয়ে সহযোগিতা দেখানো এবং অন্যদিকে গোপনে তালেবান, কাশ্মীরি ও বিদেশি আলকায়েদার সঙ্গে যুক্ত জঙ্গীদের সাহায্য করা ও তাদের মধ্যে সমন্বয় সাধন করা। এই দ্বিমুখী ও কখনও কখনও বাহ্যত পরস্পরবিরোধী কৌশলের অপরিহার্য অংশ হলো অইএসআই। এই সংস্থার মধ্য দিয়েই চরমপন্থী জঙ্গীদের সঙ্গে পাকিস্তানের প্রকৃত সম্পর্ক নির্ণয় করা যেতে পারে। এই সত্যটি উপলব্ধি করতে যুক্তরাষ্ট্র মন্থরতার পরিচয় দিয়েছে এবং পরবর্তীকালে একটি শক্তিশালী মুসলিম রাষ্ট্রের সঙ্গে বৃহত্তর সংঘাতে জড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় দেশটা এই বাস্তবতাকে সরাসরি মোকাবেলা করতে অস্বীকৃতি জানায়। -সৌজন্যে দৈনিক জনকণ্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ