• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৮:১২ পূর্বাহ্ন |

চিত্ত যখন নৃত্য করে সত্য বলার উল্লাসে!

Roniগোলাম মাওলা রনি: কয়েক দিন ধরেই জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামকে নিয়ে ভাবছি। তার একটি বিশেষ গানের কয়েকটি শব্দ আমার ভাবনার জগৎকে এলোমেলো করে দিচ্ছে। গানটি হয়তো অনেকেই জানেন ‘আমায় নহে গো ভালোবাসো শুধু, ভালোবাসো মোর গান…।’ এই গানের কথামালার মধ্যে এক জায়গায় কবি লিখেছেন ‘সবাই তৃষ্ণা মেটায় নদীরও জলে’ কি তৃষ্ণা জাগে সে নদীর হিয়া তলে বেদনার মহাসমুদ্রে কর সন্ধান’ যা কিনা আমি কিছুতেই মেলাতে পারছি না। গানটি রচনার সময়কাল আমার জানা নেই। তবে অবশ্যই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পূর্ববর্তী কোনো সময়ে হয়তো বা হতেও পারে। আমার প্রশ্ন সেটা নয়, প্রশ্ন হলো এইট পাস কবি এ কথা লিখলেন কী করে বা এ কথা জানলেন কী করে?
রবীন্দ্রনাথ কবির চিত্তকে পুণ্যভূমি অর্থাৎ পবিত্র স্থান বলে বর্ণনা করেছেন। মহাকবি বাল্মীকির রামায়ণ রচনার প্রেক্ষাপট বর্ণনা করতে গিয়ে রবীন্দ্রনাথ ওই কথা বলেছিলেন। তার মতে, প্রতিটি কবিহৃদয়ে ঐশ্বরিক প্রাপ্তির সংযোগ থাকে। একটু বিস্তৃতভাবে যদি বলা হয় তবে বলা যায় চিন্তাশীল মানুষ যদি কোনো বিষয় নিয়ে নিবিড়ভাবে ধ্যানজ্ঞান করেন, তবে আল্লাহ পাক সেই ব্যক্তির হৃদয়ে একধরনের হেকমত পয়দা করে দেন। কবির আত্মা হয়তো সে ধরনের কোনো হেকমত পেয়ে থাকে। নয়তো তারা যা বলেন বা চিন্তা করেন কিংবা মানুষকে স্বপ্ন দেখান, তা তো বাস্তব ভেদবুদ্ধির আলোকে কোনো অবস্থাতেই মেলানো যায় না। যেমনটি মেলানো যাচ্ছে না কাজী নজরুল ইসলামের গানের কথামালায়।
নজরুল বলেছেন সারা দুনিয়ার মানুষ নদীর কাছে ছুটে যায় তৃষ্ণা নিবারণ করার জন্য। কিন্তু মানুষ জানে না, প্রতিটি নদীর তলদেশে কী পরিমাণ গরম বিরাজ করে এই প্রচণ্ড গরমের কারণে প্রবহমান নদী তার বিশাল জলরাশি বুকে ধারণ করেও সব সময় তৃষ্ণার্ত থাকে। নদী সাধারণত সাগরে গিয়ে মিশে। নদীর সেই তৃষ্ণার্ত হৃদয়ের খোঁজ করার জন্য কেউ যদি বিশাল সাগরের গভীরে অনুসন্ধান করে তবে সেখানেও দেখতে পারবে বিশাল এক বেদনার মহাসমুদ্র। নদীর তলদেশের তুলনায় সাগরের তলদেশ আরো অনেক অনেক বেশি তৃষ্ণার্ত থাকে। অর্থাৎ সাগরতলদেশ নদীর তলদেশ অপেক্ষা অধিকতর উত্তপ্ত। তেমনি মহাসাগরের তলদেশ সাগরের তলদেশের তুলনায় আরো বেশি উত্তপ্ত। নজরুল তার গানের মাধ্যমে এ কথাটিই বোঝাতে চেয়েছেন। আমার প্রশ্ন জাগছে ঊনবিংশ শতাব্দীর একজন অল্প শিক্ষিত কবি ভূপ্রাকৃতিক জগতের অতলান্তের রহস্য নিয়ে গানের কথামালা রচনা করলেন কিভাবে? তাহলে আমরা যারা কথিত ও দৃশ্যমান জ্ঞান নিয়ে বড়াই করি, তারা মূলত অনেক কিছুরই জ্ঞান রাখি না! আর এখান থেকেই আমার ভাবনার জগৎ এলোমেলো হয়ে যাচ্ছে।
আমাদের দেশ পীর-ফকির, ওলি-আল্লাহ, গাউস-কতুবদের দেশ। সব ধর্মের লোকজনই কম-বেশি ধর্মকর্ম করে। তার চেয়েও বেশি ভয় করে ধর্মকে। ভয় থেকে অনেকের আবার উৎসারিত হয় ভক্তি-শ্রদ্ধা-প্রেম-ভালোবাসা। ফলে এ জগৎ নিয়ে নীতিনিষ্ঠতা যেমন রয়েছে, তেমনি রয়েছে সহজ-সরল মানুষের আবেগ-অনুভূতিকে নিয়ে ব্যবসায়। কবরকে মাজারে রূপান্তর, সাধারণ মানুষকে দয়াল বাবা কেবলা বাবায় রূপান্তর এবং মানুষের মাথার চুলের জট বা জটাকে পূজার আরাধ্য বানিয়ে গ্রামবাংলায় হররোজ কত কী যে হয়, তার হিসাব কেই বা রাখে। আমার শৈশববেলায় এমন সব অদ্ভুত বিষয় দেখেছি, যা আজো কল্পনায় এলে ঘৃণায় শরীর রি রি করে ওঠে। আবার কখনো রাগে অস্থির হয়ে পড়ি যত্ত সব ভণ্ডামি আর নষ্টামি কর্ম ছিল সেই সব, যার নমুনা এখনো চলছে সর্বত্র। কবি ও কবিতা নিয়েও কম ভণ্ডামি হয় না। আসলে শ্রদ্ধা-আবেগ আর ভক্তির জায়গা পেলেই শয়তানেরা তাদের শয়তানি শুরুর পাঁয়তারা করে সর্বশক্তি দিয়ে।
এবার নজরুল প্রসঙ্গে আসি, তার মহতী চিত্ত যে আল্লাহ-প্রদত্ত রহমতে ভরপুর ছিল তা আমরা বুঝতে পারি তার অনবদ্য সত্য বলার শক্তির মাধ্যমে। কোনো মহতী হৃদয় কোনো কালে যেমন মিথ্যার বেসাতি গড়তে পারেনি, তেমনি মিথ্যার ওপর নির্মিত সৌধে পা রাখার পরিবর্তে কবরকেই তারা শ্রেয় মনে করতেন। যাদের চিত্ত সত্যে পরিপূর্ণ থাকে, বিধাতা তাদের মুখমণ্ডলের প্রতিচ্ছায়াতে একধরনের প্রশান্তি এবং প্রফুল্লময় হাসির তটরেখা এঁকে দেন আপন মহিমায়। তারা যদি কথা বলেন মনে হয় বীণায় সুর তুলছেন। তারা যদি গানে সুর তোলেন, মনে হয় আকাশ ফুঁড়ে বৃষ্টি পড়ে চার দিকে ছন্দময় শব্দ তুলে প্রশান্তি ছড়াচ্ছে। নজরুল তার কর্মজীবনের সর্বত্রই এক অসাধারণ বন্ধনহীন বন্ধন অর্থাৎ, বিনিসুতোর মালা গেঁথে মানুষকে একে অপরের সাথে আত্মার বন্ধনে সংযুক্ত করে রেখে গেছেন।
যা বলছিলাম নজরুল এতসব জানলেন কী করে? আমরা পরিণত বয়সে এসে বহু শ্রম ও সাধনা দিয়ে ভূপৃষ্ঠ এবং ভূ-অভ্যন্তরের জটিল গঠনপ্রক্রিয়া সম্পর্কে সামান্য কিছু জ্ঞান অর্জন করে কেউ বা হচ্ছি অধ্যাপক, আবার কেউ বা হচ্ছি বিজ্ঞানী। কিন্তু নিজেদের জ্ঞানের বহর নিয়ে দুই ছত্র পদ্য রচনা করতে পারলাম না যা নিয়ে মানুষ যুগের পর যুগ গবেষণা করবে কিংবা একান্ত অবসরে বসে চিন্তা করবে। আমরা জেনেছি সৌরজগতের সবচেয়ে ঘনত্ববিশিষ্ট গ্রহের নাম পৃথিবী। এটি সূর্য সাম্রাজ্যের আট নম্বর গ্রহ, যা কিনা বড়ত্বের বিবেচনায় পঞ্চম অবস্থানে বসবাস করছে।
আমাদের এই পৃথিবী, যাকে আমরা বলি বসুন্ধরা, তা কিন্তু সৃষ্টি হয়েছিল প্রায় সাড়ে চার শ’ কোটি বছর আগে। আর এতে প্রাণের সঞ্চার হয়েছিল মাত্র এক শ’ কোটি বছর আগে। অর্থাৎ সাড়ে তিন শ’ কোটি বছর ধরে আমাদের বসুন্ধরা ধীরে ধীরে মানবমণ্ডলীর বসবাসের উপযোগী হয়েছে। এই পৃথিবীর ভূ-অভ্যন্তরে এবং নিকটতম আসমানে সংরক্ষণ করা আছে মানুষসহ এই পৃথিবীর সব প্রাণী, উদ্ভিদ, পাহাড়-পর্বত এবং সাগর-মহাসাগরের সব প্রয়োজনীয় বস্তু। কেবল মানুষ ছাড়া অন্য সবার সব প্রয়োজন মিটে যায় স্বয়ংক্রিয়ভাবে আর মানুষকে আলো, বাতাস এবং পানি ছাড়া অপরাপর সব কিছুর জন্য তালাশ ও তদবির করে ফিরতে হয়।
মানুষের জন্য আসমানে রয়েছে মেঘমালা ও বৃষ্টি। রয়েছে আলো-বাতাস। কিছু দুর্লভ ধাতব পদার্থ, যা কিনা পাওয়া যায় উল্কাপিণ্ড বা বজ্রপাতের মাধ্যমে। আরো রয়েছে কিছু মহাজাগতিক রশ্মি ও উত্তাপ। এক মহাজাগতিক চুম্বকশক্তির মাধ্যমে আমাদের বসুন্ধরা এক দিকে যেমন তার সব অধিবাসীকে নিজের বুকে ধারণ করে আছে অন্য দিকে নিজেও সংযুক্ত রয়েছে সৌরপরিবারে। এই বন্ধনের ভিত্তি এবং দূরত্ব যদি কখনো এক সুতো পরিমাণও নড়চড় হয়ে যায় সে দিনই কিয়ামত অবধারিত হয়ে পড়বে বিশ্ববাসীর জন্য।
সাড়ে তিন শ’ কোটি বছর ধরে পৃথিবীর ভূপৃষ্ঠ এবং ভূ-অভ্যন্তর গঠিত হয়েছে সৃষ্টিকুলের উপযোগী করার জন্য। পৃথিবীর শুরুটা ছিল এক ভয়ঙ্কর গর্জন, যাকে বলা হয় বিগব্যাং। তারপর বিন্দু থেকে প্রসারিত হতে হতে বিশাল এক জ্বলন্ত অগ্নিকুণ্ডে রূপান্তর। তারপর সব উত্তাপ গর্ভে ধারণ করে পৃথিবীর উপরিভাগকে শীতলপাটি রূপে সৃষ্টি করা। পৃথিবীর গর্ভের রাগের উত্তাপ নিয়ন্ত্রণ করার জন্য নদীনালা-খালবিল-সাগর-মহাসাগরের মাধ্যমে অসংখ্য পানির প্রবাহ সৃষ্টি হলো। যে অঞ্চলের গর্ভ বেশি গরম সে অঞ্চলে সারা বছর বরফ জমিয়ে রাখার ব্যবস্থা করা হলো। আর যে অঞ্চলের ভূ-অভ্যন্তর তুলনামূলক কম গরম, সে অঞ্চলে তৈরি হয়ে গেল সাহারা মরুভূমি। সবাই বলে, সাহারায় কিভাবে মানুষ থাকে কবি বলেন, ওপরে সাহারা কিন্তু অন্তরে যে প্রশান্তির জলধারা।
এখন প্রশ্ন হলো পৃথিবীর পেটে এত গরম কেন? কারণ একটাই, ভেতরে অনেক মালমসলা। কেয়ামত পর্যন্ত সকল সৃষ্টির সব উপাদান নিজ পেটে ধারণ করছে পৃথিবী এবং অনবরত সেগুলোকে গরম ও টাটকা রাখার জন্য সেখানে আগুনের চুল্লি বসিয়ে নিয়েছে। গ্যাস-আগুন-পাথর-সোনা-রুপা-কয়লাসহ সব উপাদান জ্বলন্ত লাভা রূপে টগবগিয়ে ফুটছে। সুযোগ পেলেই পৃথিবীর ভূপৃষ্ঠ ফুঁড়ে বের হয়ে আসছে আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত হিসেবে। আবার যদি বের হতে না পারে তবে কখনোসখনো প্রচণ্ড ভূমিকম্পের মাধ্যমে পৃথিবীর স্থানবিশেষকে নাড়িয়ে দিচ্ছে, কিন্তু সমুদ্রতলকে ওলটপালট করে দিচ্ছে সুনামির মাধ্যমে।
ভূ-অভ্যন্তরের গলিত উত্তপ্ত, গলিত ও জ্বলন্ত লাভার তাড়নায় ভূপৃষ্ঠে মাঝে মধ্যে দেখা যায় ফাটল আর এসব ফাটলকে কেন্দ্র করে তৈরি হয়ে যায় নদী-সমুদ্র কিংবা মহাসমুদ্র, যাতে ভেতরের গরম বাইরে বের হয়ে আসতে না পারে। পৃথিবীর সবচেয়ে গভীরতম মহাসমুদ্রের নাম প্রশান্ত মহাসগর। এত বড় মহাসাগরের সীমাহীন জলরাশিও কিন্তু সেখানকার ভূপৃষ্ঠ তলদেশের উত্তাল কমাতে পারেনি। এ জন্য অতিরিক্ত নিরাপত্তা হিসেবে তৈরি করা হচ্ছে সুবিশাল পর্বতমালা। বিজ্ঞানীরা এর নাম দিয়েছেন অলিম্পাস, যা কি না উচ্চতায় হিমালয়ের চেয়েও বেশি।
আমার চিন্তাজগৎ এলোমেলো হওয়ার কারণ পৃথিবীর এই অপার রহস্য একজন স্বল্পশিক্ষিত কবি কিভাবে হৃদয়ঙ্গম করলেন! নিশ্চয়ই তার অন্তরে কোনো ঐশী জ্ঞান ভর করেছিল। আর সেই জ্ঞানের আলোকে তিনি মাত্র ২২ বছর বয়সে রচনা করলেন অমর কবিতা ‘বিদ্রোহী’। রচিত হওয়ার পর থেকে আজ অবধি বঙ্গের কোনো পণ্ডিত নজরুলের ‘বিদ্রোহী’ কবিতার মাত্র চারটি লাইনের সর্বসম্মত কোনো ব্যাখ্যা দান করতে পারেনি। যে চিত্ত দিয়ে নজরুল ‘বিদ্রোহী’ রচনা করলেন, সে চিত্তই তাকে প্রেরণা জোগাল বিদ্রোহী হওয়ার জন্য। তিনি বিদ্রোহ করলেন সমাজ, সংসার আর রাষ্ট্র্রের বিরুদ্ধে। এই বিদ্রোহ সত্য বলার বিদ্রোহ, এই বিদ্রোহ অন্যায়কে প্রতিহত করার বিদ্রোহ এবং বসুন্ধরাকে সুন্দর রূপে প্রতিষ্ঠিত করার বিদ্রোহ।
শুধু নজরুল একাই বিদ্রোহ করেননি; বিদ্রোহ করেছিলেন সক্রেটিস, কনফুসিয়াস, ইবনে সিনা, মাওলানা রুমিসহ ওমর খৈয়ামের মতো লোকেরা। আর শেখ সাদি রহ: থেকে শুরু করে জাহেলিয়াত যুগের কবি ইমরুল কায়েসও বিদ্রোহ করেছিলেন। এসব লোক সবার আগে বিদ্রোহ করেছিলেন নিজের বিরুদ্ধে, অর্থাৎ নিজের নফসের বিরুদ্ধে। সত্য বলার জন্য চিত্তকে প্রসারিত ও মজবুত করার ধ্যানে তারা করেননি এমন কোনো কর্ম নেই। তাদের সেহ-মন একাকার হয়ে সত্যের পক্ষে রুখে দাঁড়াত মৃত্যুকে আলিঙ্গন করার জন্য। ফলে পৃথিবীর তাবৎ স্বৈরাচারী, জুলুমবাজ এবং ক্ষমতাসীন রাজা-মহারাজারা কচুপাতার পানির মতো কাঁপত ওইসব ছিন্নবস্ত্র পরিহিত কিংবা দারিদ্র্যপীড়িত মহাপুরুষদের সামনে।
আমি আজো ভেবে পাই না ইমাম আবু হানিফা রহ:-এর চিত্তের সত্য বলার সাহস, শক্তি, বুজুর্গি ও হেকমতের শক্তিমত্তার সীমা-পরিসীমা সম্পর্কে। অর্ধদুনিয়ার বাদশাহ খলিফা মনসুর। আব্বাসীয় বংশের এই খলিফা ৭৫৪ খ্রিষ্টাব্দ থেকে ৭৭৫ খ্রিষ্টাব্দ অবধি দুনিয়ার সবচেয়ে বড় শাহি তখতের অধিকারী ছিলেন। ক্ষমতা, বিত্তবৈভব সব কিছুতেই খলিফার কথা বা হুকুম হলো তখনকার দিনে একমাত্র আইন বা বিধান। সেই খলিফা হুকুম করলেন ইমাম আবু হানিফাকে তার সাম্রাজ্যের প্রধান কাজী বা প্রধান বিচারপতি হওয়ার জন্য। ইমাম সাহেব মুখের ওপর না বলে দিলেন। অপমানিত বাদশাহ ক্রোধে জ্ঞান হারিয়ে ফেললেন।
তিনি হজরত আবু হানিফাকে জেলখানায় ঢোকালেন। ইমাম সাহেব জেলের মধ্যে মহা জুলুমের শিকার হয়ে দিনের পর দিন, মাসের পর মাস এবং বছরের পর বছর সময় অতিবাহিত করার পর এক সময় মারাই গেলেন।
অথচ অন্য একটি উদাহরণে খলিফা মনসুরের সত্য ভাষণ সোনার আগ্রহ ও ধৈর্য দেখে অবাক না হয়ে পারা যাবে না। তিনি তার পাত্র-মিত্রদের হুকুম করলেন এমন কাউকে হাজির করো যে কিনা আমার সামনে সত্য বলতে ভয় পায় না এবং সমাজে সত্যবাদী হিসেবে যার রয়েছে যথেষ্ট সুনাম ও সুখ্যাতি। বাদশাহের লোকেরা অনেক চেষ্টা-তদবিরের পর মদিনার জনৈক আলেমকে হাজির করল। বাদশার সামনে যখন তাকে হাজির করা হলো তখন ঘটনাক্রমে সেখানে মদিনার গভর্নর ও বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী বেদুইন সরদার উপস্থিত ছিলেন। তারা সবাই জরুরি কাজে বহু দূর পাড়ি দিয়ে বাগদাদে খলিফার দরবারে এসেছিলেন। বেদুইন সরদারগণ এসেছিলেন মূলত গভর্নরের বিরুদ্ধে নালিশ জানানোর জন্য।
খলিফা ব্যক্তিগতভাবে সবাইকে চিনতেন, কেবল আলেমকে ছাড়া। অন্য দিকে উপস্থিত সবাই একবাক্যে আলেমকে চিনতেন বলে তিনি ঢোকার সাথে সাথে তাকে লক্ষ করে সালাম দিলেন। বাদশাহ খানিকটা আশ্চর্য হয়ে আলেমকে বসতে বললেন এবং যথারীতি দরবারের কাজ চলতে থাকল। বেদুইন সরদারগণ অকথ্য ভাষায় এবং অতি নির্মমভাবে গভর্নরের বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ করতে লাগলেন। গভর্নরও একটার পর একটা অস্বীকার করতে শুরু করলেন। বাদশা হঠাৎ বেদুইন সরদারগণের পক্ষ অবলম্বন করে গভর্নরকে তিরস্কার শুরু করলেন। অসহায় গভর্নর আলেম ব্যক্তিটির দিকে আঙ্গুলি তুলে বললেন আমিরুল মুমিনিন, এই ব্যক্তির সত্যবাদিতা সবাই স্বীকার করে এবং সমীহ করে। আপনি বেদুইন সরদারদের চরিত্র সম্পর্কে তার কাছে জিজ্ঞেস করুন।
বাদশাহ এবার আলেমকে জিজ্ঞেস করলেন এই লোকগুলো সম্পর্কে আপনার অভিমত কী? আলেম বললেন তারা খুবই বজ্জাত প্রকৃতির লোক। এরা নিজেদের স্বার্থ ছাড়া অন্য কিছু বোঝে না। আর স্বার্থের জন্য পারে না এমন কোনো কর্ম নেই। এরা প্রথমে নিজেরা নিজেরা দ্বন্দ্ব-ফ্যাসাদ করে আবার একটু পরে সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে অন্যের বিরুদ্ধে লড়াই করতে নামে। এরা সবাই মদিনার লোকদের অভিশাপের পাত্র। এরা যদি কারো বিরুদ্ধে লাগে তবে সেই লোকের ভবলীলা সাঙ্গ না করা পর্যন্ত ক্ষান্ত হয় না।
আলেম ব্যক্তিটি যখন এসব কথা বলছিলেন, তখন বেদুইন সরদারগণ মাথা নিচু করে ছিল। তার বক্তব্য শেষ হলে বাদশাহ রাগান্বিত হয়ে সরদারগণকে কিছু বলতে যাচ্ছিলেন। এমন সময় তারা বললেন আমিরুল মুমিনিন, উনি যা বলেছেন সত্য বলেছেন। এখন আপনি তার নিকট থেকে গভর্নর সম্পর্কে কিছু জানুন। বাদশাহ এবার আলেমের দিকে তাকালেন। আলেম বলতে শুরু করলেন, আপনার গভর্নর মদিনার নিকৃষ্টতম প্রাণী। তার অত্যাচার ও অবিচারে মদিনার বাতাস ভারী হয়ে গেছে। প্রশাসনের সর্বত্র স্বজনপ্রীতি, দুর্নীতি ও অনিয়ম বাসা বেঁধেছে। লোকজন অসহায়। তারা কোথাও সুবিচার পায় না। দিনরাত আল্লাহর দরবারে মুনাজাত করে গভর্নরের মৃত্যু কামনা করে। বাদশাহ আলেমের কথা শুনে বড়ই তৃপ্তি পেলেন এবং কৌতুক করে বললেন শুনলে তো, এবার কী বলবে। গভর্নর মাথা নিচু করে বললেন আমিরুল মুমিনিন, এবার আপনি আপনার নিজের সম্পর্কে তাকে কিছু জিজ্ঞেস করুন।
খলিফা আল মনসুর পরম আগ্রহ ভরে আলেমের দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করলেন আমার সম্পর্কে আপনার মূল্যায়ন কী? আলেম উত্তর করলেন আপনিই হলেন সকল নষ্টামি, ভণ্ডামি আর অপরাধের মূল হোতা। আপনি নিজে একটা বড় শয়তান আর হাজার হাজার দুষ্ট শয়তান দ্বারা প্রাসাদসহ নিজের চার পাশ ভরে রেখেছেন। জাহেলিয়াত, জুলুম, অন্যায়-অত্যাচার ও অবিচার আপনার পেশা-নেশা এবং অলঙ্কার হয়ে পড়েছে। আপনি না চাইলে কেউ আপনার কাছে ভিড়তে পারে না। কোনো মজলুমের কান্না কিংবা সাহায্যপ্রার্থীর আবেদন আপনার প্রাসাদের ধারেকাছে আসতে পারে না। আপনি রাজ্য পরিচালনায় অক্ষম এবং ক্ষমতার মোহে অন্ধ, বধির ও উন্মাদ হয়ে গেছেন। বাদশাহ আর শুনতে পারছিলেন না; তিনি আল্লাহর ভয়ে জোরে জোরে চিৎকার করে কান্না শুরু করলেন…।

উৎসঃ   নয়া দিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ