• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৬:০৮ পূর্বাহ্ন |

সাঈদীর আগামী সপ্তাহে, নিজামীর রায় চলতি মাসেই

 

Crime Tribunal সিসি ডেস্ক: জামায়াতে ইসলামীর সিনিয়র নায়েবে আমির মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর আপিল মামলার বিচার কার্যক্রম আগামী সপ্তাহেই শেষ হচ্ছে। সুপ্রিমকোর্টের বিধান অনুযায়ী আপিল বিভাগ আবেদন তাৎক্ষণিকভাবে সাঈদীর আপিল খারিজ করে দিলে তার মৃত্যুদণ্ড বহাল থাকবে। আর আসামি পক্ষের আপিল খারিজ না করে রায় ঘোষণার জন্য একটি দিন ধার্য করতে পারে আপিল বিভাগ। এই দুটি পদ্ধতির কোনটি গ্রহণ করা হবে তা আগামী সপ্তাহেই চূড়ান্ত হবে। সুপ্রিমকোর্ট গ্রীষ্মকালীন অবকাশে থাকায় ১৬ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত এই মামলাটির শুনানি হয়নি। আজ আবারও মামলাটির আপিলের শুনানি শুরু হবে। তিন থেকে চার দিন শুনানি হতে পারে। এরপর আসামিপক্ষ পাল্টা যুক্তি উপস্থাপন করবেন। এভাবেই শেষ হবে সাঈদীর বিচার প্রক্রিয়া।
এদিকে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১-এ জামায়াতের আমির মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ রয়েছে। চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে এই মামলার রায় ঘোষণা করা হতে পারে। গত ২৪ মার্চ তৃতীয় দফা যুক্তিতর্ক শেষে মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ রাখা হয়। রায় অপেক্ষমাণ রাখার পর রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি মোহাম্মদ আলী সাংবাদিকদের বলেন, নিজামীর বিরুদ্ধে ১৬টি অভিযোগের মধ্যে ১৫টির ওপর যুক্তি উপস্থাপন করা হয়েছে। ৫ নম্বর অভিযোগের বিষয়ে আমরা কোনো সাক্ষ্য-প্রমাণ দেইনি। ১৫টি অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি। আমরা আসামির সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড দাবি করেছি। অন্যদিকে নিজামীর আইনজীবী তাজুল ইসলাম জানান, রাষ্ট্রপক্ষ নিজামীর বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ প্রমাণ করতে পারেনি।
আপিল বিভাগ সাঈদীর আপিল খারিজ করে দিলেও পূর্ণাঙ্গ রায় ঘোষণা করতে কিছুদিন সময় নিতে পারে। এর আগে জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল কাদের মোল্লার আপিলের শুনানি শেষ হয় গত বছরের ১ আগস্ট। কিন্তু রায় দেয়া হয় ১৭ সেপ্টেম্বর। আর পূর্ণাঙ্গ রায় দেয়া হয় আরও অনেক পরে ৫ ডিসেম্বর। পূর্ণাঙ্গ রায় না পাওয়া পর্যন্ত কাদের মোল্লা রিভিউ পিটিশন দায়ের করতে পারেননি। রিভিউ পিটিশনের শুনানি শেষে ১২ ডিসেম্বর তা খারিজ করে দেয় সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ। ওই দিনই সুপ্রিমকোর্টের রায় অনুযায়ী কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকর করা হয়। এবারও জামায়াতের নায়েবে আমির মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর রায় ঘোষণার জন্য একটি সুনির্দিষ্ট তারিখ ঘোষণা করতে পারে আপিল বিভাগ। সেক্ষেত্রে আপিলের রায় ঘোষণা করা হলেও পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের আগ পর্যন্ত ঝুলে থাকবে সাঈদীর রায় কার্যকরের বিষয়টি। রায়ের বিরুদ্ধে সাঈদী রিভিউ পিটিশন দায়ের করবেন কিনা, তা এখনও স্পষ্ট নয়। সাধারণত মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত কোনো আসামি রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন করে থাকেন। এক্ষেত্রেও এর কোনো ব্যতিক্রম হবে বলে মনে হচ্ছে না। তাই রিভিউ শেষ না হওয়া পর্যন্ত সাঈদীর মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হচ্ছে না।
অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সাংবাদিকদের বলেন, আপিলের শুনানি শেষ পর্যায়ে রয়েছে। আগামী সপ্তাহের মধ্যেই মামলাটির রায় চলে আসতে পারে। তিনি বলেন, সাঈদীর সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড আশা করছি। কারণ, ইতোমধ্যেই আমরা অভিযোগগুলো প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি। অন্যদিকে আসামি পক্ষের আইনজীবী এস এম শাজাহান বলেছেন, সরকার পক্ষের যুক্তিতর্কের পর আমরা পাল্টা যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করব। এরপর রায় দেয়ার জন্য আপিল বিভাগ একটা তারিখ নির্ধারণ করবে বলে আশা করছি।
যে দুটি অভিযোগে সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ড দেয় ট্রাইব্যুনাল: সাঈদীর বিরুদ্ধে আনীত ২০টি অভিযোগের মধ্যে অভিযোগ-৮ ও ১০ এ তাকে সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। ৮ নম্বর অভিযোগে বলা হয়, একাত্তর সালের ৮ মে বিকাল ৩টায় সাঈদীর নেতৃত্বে তার সাঙ্গপাঙ্গরা পাকবাহিনীর সহায়তায় সদর থানার চিথলিয়া গ্রামের মানিক পসারীর বাড়িতে হানা দিয়ে তার ভাই মফিজ উদ্দিন এবং ইব্রাহিম কুট্টিসহ দু’ব্যক্তিকে ধরে নিয়ে যায়। সেখানে পাঁচটি বাড়িতে কেরোসিন ঢেলে আগুন জ্বালিয়ে দেয়া হয়। পাকসেনা ক্যাম্পে ফেরার পথে সাঈদীর প্ররোচনায় ইব্রাহিমকে হত্যা করে লাশ ব্রিজের কাছে ফেলে দেয়া হয়। মফিজকে ক্যাম্পে নিয়ে নির্যাতন করা হয়। পরে সাঈদী ও অন্যদের আগুনে পারের হাটবন্দরে হিন্দু সমপ্রদায়ের বাড়িঘরে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। সাঈদী সরাসরি অপহরণ, খুন, নির্যাতনের মতো মানবতাবিরোধী অপরাধে যুক্ত ছিলেন। অভিযোগ-১০: একইদিন সকাল ১০টায় সাঈদীর নেতৃত্বে তার সশস্ত্র সহযোগীরা ইন্দুরকানি থানার উমেদপুর গ্রামের হিন্দুপাড়ায় হানা দিয়ে ২৫টি ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়। যার মধ্যে চিত্তরঞ্জন তালুকদার, হরেণ ঠাকুর, অনিল মণ্ডল, বিসাবালি, সুকাবালি, সতিশবালার ঘর রয়েছে। সাঈদীর ইন্ধনে তার সহযোগীরা বিসাবালীকে নারকেলগাছের সঙ্গে বেঁধে গুলি করে হত্যা করে। বেসামরিক মানুষের বসবাসের বাড়িতে আগুন দেয়া নিপীড়নের শামিল। সাঈদী বাড়িঘর পোড়ানো, বিসাবালিকে হত্যার মাধ্যমে মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছেন। এ দুটি অভিযোগে ট্রাইব্যুনাল তাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়ে রায় ঘোষণা করে। দুটি অভিযোগে সর্বোচ্চ সাজা হওয়ায় বাকি ছয়টি অভিযোগে তাকে কোনো সাজা দেয়নি ট্রাইব্যুনাল-১।
উৎসঃ   বর্তমান


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ