• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৬:২৮ অপরাহ্ন |

উপজেলা নির্বাচন: নীলফামারীতে বিএনপির চরম বিপর্যয়

BNP Flagবিশেষ প্রতিনিধি: নীলফামারীর ছয় উপজেলায় কোথাও জয়লাভ তো দুরের কথা তীব্র প্রতিদ্বন্ধীতায় আসতে পারেনি দেশের অন্যতম বৃহৎদল বিএনপি বরং ১৯দলের শরীক জামায়াত উপজেলা নির্বাচনে বিএনপিকে পিছনে ফেলে এগিয়ে রয়েছে।
ছয় উপজেলার মধ্যে আওয়ামীলীগ ৪টিতে, জাপা ১টিতে এবং জামায়াত ১টিতে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হলেও বিএনপি মাত্র ২টি উপজেলায় বিজয়ী প্রার্থীর নিকটতম হিসেবে ছিল। তারপরও বিজয়ী প্রার্থীর চেয়ে ৬হাজার থেকে শুরু করে ৩৯হাজার ৪৮ভোটের ব্যবধানে হেরেছেন বিএনপি সমর্থিতরা। হতাশ হওয়ার মত চিত্র দেখা দেখা গেলেও বিএনপি’র ঘরে জমা হয়েছে মাত্র ভাইস চেয়ারম্যানের দুটি পদ। কিশোরগঞ্জ উপজেলায় একজন পুরুষ এবং সৈয়দপুর উপজেলায় একজন নারী ভাইস চেয়ারম্যান পেয়েছেন তারা।
অন্যদিকে তিন উপজেলায় বিজয়ী প্রার্থীর নিকটতম ছিল জামায়াত সমর্থিতরা এছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান নারী পুরুষের চারটি পদে জয়লাভ করে তারা। চেয়ারম্যান পদে বিএনপি সমর্থিত নীলফামারী সদর উপজেলায় আওয়ামীলীগের কাছে হেরেছে ৩৯হাজার ৪৮ভোটে, ডিমলায় হেরেছে ২৯হাজার ৫৯ভোটে, ডোমারে হেরেছে ১০হাজার ৯৩০ভোটে, সৈয়দপুরে হেরেছে ৬হাজার ১১৪ভোটে এবং কিশোরগঞ্জ উপজেলায় হেরেছে ৮হাজার ৯৬৬ভোটে।
তবে শুধুমাত্র সৈয়দপুর উপজেলায় ১৯দলের একক প্রার্থী থাকলেও কিশোরগঞ্জে বিএনপিতে বিদ্রোহী দুইজন, জলঢাকায় জামায়াতের একক, ডিমলায় বিএনপি ও জামায়াত, ডোমারে বিএনপি ও জামায়াত, নীলফামারী সদরে বিদ্রোহীসহ জামায়াতের আলাদা প্রার্থী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন।
বিএনপি নেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, প্রার্থী নির্বাচনে ভুল, দলীয় কোন্দল, একক প্রার্থী না থাকা তথা সরকারী দলের তরফ থেকে ভোটারদের ভয় ভীতি প্রদর্শণ, মামলা মোকদ্দমা এবং জাল ভোট দেওয়া, কেন্দ্র দখলের কারণে বিএনপি সমর্থিতদের হারার পেছনে কারণ রয়েছে।
বিভিন্ন জনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, নীলফামারীতে বিএনপির বিপর্যয়ের কারন হিসেবে সাংগঠনিক দুর্বলতা, নেতৃত্ব নিয়ে বিরোধ, তৃণমুল পর্যায়ে যোগাযোগ এবং মানুষের সাথে সম্পৃক্ত না থাকার প্রভাব পড়েছে ভোটে। তাছাড়া জনপ্রতিনিধিত্ব করার মত প্রার্থী না থাকায় ভোটাররা ভোট দেননি বিএনপি সমর্থীতদের।
বিএনপি নীলফামারী জেলা শাখার যুগ্ম আহবায়ক অধ্যাপক রাজ্জাকুল ইসলাম রাজা জলঢাকা উপজেলার চিত্র দেখিয়ে বলেন, ১৯দলের একক প্রার্থী থাকলে ফলাফল এমন হতো না। তাছাড়া বিদ্রোহী থাকার কারণেও তৃণমুল পর্যায়ে নেতা কর্মীরা দ্বিধাবিভক্ত হওয়ায় ভোটাধিকার প্রয়োগে প্রভাব ফেলেছে। এছাড়া বিএনপি সমর্থকদের হারার পেছনে সরকারী ষড়যন্ত্র রয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
এদিকে বিএনপির বিপর্যয়ে হতাশা প্রকাশ করে স্থানীয়রা মনে করছেন বিএনপির উপর ভর করে জামায়াত তৃণমুল পর্যায়ে সংগঠনকে শক্তিশালী করেছে। ১৯দলে থেকে বিএনপিকে জনগণের কাছ থেকে সরিয়ে দিচ্ছে জামায়াত।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ