• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১১:৪৫ পূর্বাহ্ন |

এবার পরীক্ষার্থী সাড়ে ১১ লাখ

1320140402151003ঢাকা: চলতি বছর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ১১ লাখ ৪১ হাজার ৩৭৪ শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছেন। কাল বৃহস্পতিবার (৩ এপ্রিল) থেকে ৫ জুন পর্যন্ত তত্ত্বীয় বিষয় এবং ৭ থেকে ১৬ জুনের মধ্যে ব্যবহারিক পরীক্ষা একযোগে অনুষ্ঠিত হবে।

বুধবার দুপুরে সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার বিস্তারিত তথ্য সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন।

মন্ত্রী বলেন, গত বছর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ১০ লাখ ১২ হাজার ৫৮১ জন অংশ নিয়েছিলেন। এই হিসাবে এবার পরীক্ষার্থী বেড়েছে এক লাখ ২৮ হাজার ৭৯৩ জন।
সংসবাদ সম্মেলনে, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ফাহিমা খাতুন, ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক তাসলিমা বেগম, মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ার‌ম্যান অধ্যাপক আবুল কাশেম মিয়াসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তরা উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, এবার ২ হাজার ৩৫২টি কেন্দ্রে আট হাজার ১০৪টি প্রতিষ্ঠানের ১১ লাখ ৪১ হাজার ৩৭৪ পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছেন।  গত বছরের চেয়ে এবার ৩০১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও ৬৪টি পরীক্ষা কেন্দ্র বেড়েছে।

এবার এইচএসসিতে আটটি সাধারণ বোর্ডের অধীনে ৯ লাখ ২৪ হাজার ১৭১ জন, মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে আলিমে ১ লাখ ৭ হাজার ৫৫৭ জন, কারিগরী শিক্ষা  বোর্ডের অধীনে এইচএসসি বিএম/ভোকেশনালে এক লাখ চার হাজার ৬৬৯ জন এবং ডিআইবিএসে চার হাজার ৯৭৭ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দেবে বলে জানান নাহিদ।

এবার মোট পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৬ লাখ ছয় হাজার ২৯৩ জন ছাত্র এবং পাঁচ লাখ ৩৫ হাজার ৮১ জন ছাত্রী রয়েছেন।

শিক্ষামন্ত্রী জানান, এবার বাংলা প্রথম পত্র, রসায়ন, পৌরনীতি, ব্যবসায় নীতি ও প্রয়োগ, জীববিজ্ঞান, পদার্থ বিজ্ঞান, ইতিহাস, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি, হিসাব বিজ্ঞান, ব্যবসায় উদ্যোগ ও ব্যবহারিক ব্যবস্থাপনা, সমাজ বিজ্ঞান এবং কম্পিউটার শিক্ষা প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রসহ মোট ২৫টি বিষয়ে এবার সৃজনশীল পদ্ধতিতে পরীক্ষা হবে। এইচএসসিতে ২০১২ সালে বাংলা প্রথম পত্রের পরীক্ষা সৃজনশীল প্রশ্নে হয়। তবে ২০১৩ সালে বাংলা প্রথম পত্র, রসায়ন প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র, পৌরনীতি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র, ব্যবসায় নীতি ও প্রয়োগ প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রের সৃজনশীল পদ্ধতিতে হয়েছিল।

তিনি বলেন, ছেলেমেয়েদের পেছন থেকে টেনে ধরে রাখবেন না। সৃজনশীল পদ্ধতির সুবিধা অভিভাবকরা উপলব্ধি করছেন। আস্তে আস্তে এটা আয়ত্তে এসে যাবে। এতে পাঠ্যপুস্তক ভালোভাবে জানা হয়ে যায়।

পরীক্ষার খাতা মূল্যায়নে তারতম্য হওয়ার সম্ভাবনা থাকলেও সৃজনশীল পদ্ধতিতে সেই সম্ভাবনা খুব কম জানিয়ে নাহিদ বলেন, এজন্য শিক্ষকদের প্রশিক্ষণও দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, আশা করছি সম্পূর্ণ নকলমুক্ত পরিবেশে পরীক্ষা হবে। পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট ছাড়া কেউই পরীক্ষার সময় কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবেন না।

এবারো দৃষ্টি প্রতিবন্ধী, সেরিব্রাল পালসিজনিত প্রতিবন্ধী এবং যাদের হাত নেই, এমন প্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থীরা শ্রুতিলেখক সঙ্গে নিয়ে পরীক্ষা দিতে পারবেন। এক্ষেত্রে দশম শ্রেণিতে অধ্যয়নরতদের শ্রুতিলেখক নিযুক্ত করা যাবে বলে জানান মন্ত্রী।

তিনি বলেন, শ্রুতিলেখক নিয়ে পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী, বুদ্ধি ও শ্রবণপ্রতিবন্ধীরা অন্য সময়ের মত এবাবো অতিরিক্ত ২০ মিনিট সময় পাবেন।

এবারও পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৬০ দিনের মধ্যে ফল প্রকাশ করা হবে জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা গ্রহণে সবার সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।

মন্ত্রী জানান, দেশের বাইরে বিদেশের পাঁচটি কেন্দ্রে ২০২ শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেবে, এরমধ্যে ৯১ জন ছাত্র এবং ১১১ জন ছাত্রী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ