• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৩৭ পূর্বাহ্ন |

এরশাদের নামে চাঁদাবাজি!

Arsad-11ঢাকা: সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নামে কড়াইল বস্তি থেকে অর্ধকোটি টাকা চাঁদাবাজি করা হয়েছে! চাঁদাবাজির অভিযোগের বিষয়টি তদন্তে প্রমাণিত হলে অভিযুক্ত হবেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এসএম ফয়সল চিশতী। তিনি বর্তমানে বহাল তবিয়তে এরশাদের সঙ্গেই রয়েছেন।
হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এ বিষয়টি জানার পর জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) কাজী মাহমুদ হাসানকে তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছিলেন। তদন্ত কমিটি চাঁদাবাজির সত্যতা পায়। সে অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ দেয়। কিন্তু বিষয়টি আর আলোর মুখ দেখেনি। এমনকি সরকারি টিআর কাবিখা লুটপাটেরও প্রমাণ পায় তদন্ত কমিটি। ত্রাণ মন্ত্রণালয় তদন্তের উদ্যোগ নিলেও পরে তা পিছিয়ে যায়।

জাতীয় পার্টির সূত্র জানায়, স্বয়ং এরশাদ বিষয়টি অবগত রয়েছেন। কিন্তু চাঁদার ভাগ পাওয়ায় আর উচ্চবাচ্য করছেন না।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে, কড়াইল বস্তি এলাকায় পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি জমি কেনে। কিন্তু ওই জমি দখলে বাধা হয়ে দাঁড়ান ওই জাপা নেতা। পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি বাধ্য হয়ে দারস্থ হন তৎকালীন স্থানীয় সংসদ সদস্য হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের। এমপি হিসেবে এরশাদের সবকাজের দেখভাল করতেন প্রেসিডিয়াম সদস্য এসএম ফয়সল চিশতী।

চিশতী পরে বিষয়টি মধ্যস্থতার দায়িত্ব নেন। আর এরশাদকে দেওয়ার জন্য এক কোটি টাকা চাঁদা দাবি করেন। কিন্তু পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্স শেষ পর্যন্ত ৫১ লাখ ৫০ হাজার টাকা তুলে দেন চিশতীকে।

এই টাকা পুরোটাই গ্রহণ করেন জাপা নেতা এসএম ফয়সল চিশতী। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে গুলশান থানার তৎকালীন ওসিকে ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা ও জাপার কয়েকজন নেতাকে ২০ থেকে ১ লাখ টাকা করে দেন ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার জন্য।

চাঁদাবাজির ঘটনা প্রকাশ হয়ে পড়লে স্বয়ং এরশাদ বিগ্রেডিয়ার জেনারেল (অব.) কাজী মাহমুদ হাসানকে তদন্তের দায়িত্ব দেন। কাজী মাহমুদ হাসান সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে কথা বলে রিপোর্ট তৈরি করেন।

তদন্ত রিপোর্ট হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের হাতে তুলে দেন। কথা ছিল এরশাদ পরবর্তী ব্যবস্থা নেবেন। কিন্তু রহস্যজনক কারণে পরবর্তীতে আর কোনই ব্যবস্থা নেন নি এরশাদ। কেউ কেউ বলেন, এরশাদ নিজেও ভাগ পাওয়ায় আর বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন নি।

তদন্ত কমিটির কাছে যুব সংহতির নেতা হাসিবুল ইসলাম জয় নিজেই স্বীকার করেছেন চাঁদাবাজির কথা। ৫১ লাখ ৫০ হাজার টাকা ফয়সল চিশতীকে দেওয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন বলে স্বীকার করেন। তিনি জানান, রাজধানীর বনানীতে অবস্থিত ‘সুইট ড্রিম’ হোটেলে এই টাকা লেনদেন হয়।

অন্যান্য সাক্ষীও এরশাদের নামে চাঁদাবাজির বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তদন্ত সম্পন্ন হওয়ার পর জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন। কিন্তু পরে তা আর আলোর মুখ দেখেনি।

ফয়সল চিশতী বলেন, আমার কোন মন্তব্য নেই। আমি কিছু জানি না। আপনারা যা খুশি লেখেন। বলেই ফোন রেখে দেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ