• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৯:১৯ অপরাহ্ন |

বদরগঞ্জে যৌথ অভিযানে ১৪টি ইটভাটা বন্ধ

Badarganj Bricks Photo-2সারোয়ার আলম সুমন, বদরগঞ্জ (রংপুর): রংপুরের বদরগঞ্জে উচ্চ আদালতের নির্দেশে যৌথ অভিযান চালিয়ে ১৪টি ইটভাটা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। হাই কোর্টের রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে তদন্তের পর ওই ইট ভাটাগুলি বন্ধ করে দেওয়া হয়। বুধবার রংপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক)) মো.শহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে এ অভিযানে অংশ নেয় বদরগঞ্জ উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার এম জে আরিফ বেগ, রংপুরের ৭ জন ম্যাজিস্ট্রেট, রংপুর জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ওসমান গণি, শতাধিক দাঙ্গা পুলিশ, রংপুর র‌্যাবের একটি দল ও ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট। এ সময় পুলিশের নেতৃত্ব দেন রংপুর জেলার এএসপি হুমায়ূন কবির। র‌্যাবের কমান্ডার এস আই রহমতুল্যাহ। দমকল বাহিনীর দলনেতা ছিলেন আকতার হোসেন। অভিযান চালানোর সময় যৌথ বাহিনীর সদস্যরা প্রথমে অবৈধ ইট ভাটাগুলি সম্ভাব্য প্রতিরোধের আশংকায় পুলিশ ও র‌্যাবের সদস্যরা এলাকা ঘিরে ফেলেন। এসময় ভয়ে পালিয়ে যান ইট ভাটার মালিক, ম্যানেজার ও কর্মরত শ্রমিকেরা। মুহূর্তে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হলে ইট ভাটার আগুন নেভানোর এ দৃশ্য দেখতে জড় হন এলাকার শতশত গ্রামবাসী। শেষে কোন রকম বাধাঁ ছাড়াই ফায়ার সার্ভিসের ইউনিট একসঙ্গে পানি নিপে করে আগুন নিভিয়ে ফেলেন। এ ভাবেই দিনভর অবৈধ ইট ভাটার আগুন নেভাতে অভিযান চালানো হয় উপজেলার মধুপুর ইউনিয়নের কালজানি এলাকার গৌরাঙ্গ কুন্ডুর বিবিএল, আব্দুর রাজ্জাকের এআরবিএল, আতোয়ার রহমানের পিবিএম, রামনাথপুৃরের বিবিসি, মধুপুরের এসবিএলসহ ১৪টি ভাটায়।
জানা গেছে, কৃষি জমি থেকে ইটভাটা উচ্ছেদ ও ভাটার কালো ধোয়ায় পরিবেশের চরম তি হওয়ার কারণে রংপুরের বদরগঞ্জে ৩৭টি ইটভাটা কেন বন্ধ করা হবে না তা জানতে উচ্চ আদালত থেকে রুলনিশি জারি করা হয়। রাষ্ট্রীয় নীতির মৌলিক অধিকার ক্ষুন্ন হওয়ায় হাইকোর্ট বিভাগের আইনজীবি ইকবাল হোসাইন সংুদ্ধ হয়ে ৩৭টি ইটভাটা কেন বন্ধ করা হবে না তার জন্য উচ্চ আদালতে লিখিত আবেদন করেন। ওই আবেদনের প্রেেিত বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট হাইকোর্ট ডিভিশনের মাননীয় বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও মাননীয় বিচারপতি এ বি এম আলতাফ হোসাইনের চেম্বার আদালত থেকে গত ২১ জানুয়ারি ওই রুলনিশি জারি করেন। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি পরিবেশ বিভাগের সচিব, বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের সচিব, পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক, রংপুরের বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের নয়জনকে ওই রুলের জবাব দিতে বলা হয়। এরপর জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করা হলে ১৪টি ইটভাটার লাইসেন্স ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকায় ওই ১৪টি ইটভাটা বন্ধ করে দেওয়া হয়।
বাংলাদেশ ইট প্রস্তুতকারী মালিক সমিতির রংপুর বিভাগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক বলেন, লাইসেন্স না থাকায় প্রশাসন ওইসব ইটভাটা বন্ধ করে দেয়। এতে ভাটা মালিকরা কোটি কোটি টাকা তিগ্রস্থ হবেন।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, উচ্চ আদালতের নির্দেশে বদরগঞ্জের ৩৭টি ইটভাটার মধ্যে ১৪টি ইটভাটা বন্ধ করে দেওয়া হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ