• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৪৩ পূর্বাহ্ন |

পার্বতীপুরে অজ্ঞান পাটির খপ্পরে মা ও ছেলে

PARBATIPUR PICপার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের বৃহৎ রেল জংশন পার্বতীপুর রেল ষ্টেশনের প্লাট ফরমের কর্তব্যরত পুলিশের রহস্যজনক ভূমিকায় অজ্ঞান পাটির খপ্পরে পড়ে মা ও ছেলেকে অজ্ঞান করে মালামালসহ সব কিছু খোয়া যাওয়ার অভিযোগ মিলেছে। দিনাজপুর জেলার আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থার (আইন সহায়তা কেন্দ্র) সিনিয়র সহ-সভাপতি এম এ মজিদ সরকার তাদের উদ্ধার করে পার্বতীপুর হলদীবাড়ী সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করেছে। পুলিশকে অবগত করলে অজ্ঞান হওয়া মা ও ছেলের নাম ঠিকানা নিয়ে পুলিশের দায়িত্ব শেষ। প্রয়োজনীয় কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় সচেতন ট্রেন যাত্রীরা রেল পুলিশের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ।
এম এ মজিদ সরকার জানান, চোরাকারবারীদের চরম উৎপাত ট্রেনযাত্রীরা নাজেহালসহ মালামাল খোয়া যাচ্ছে। রেল স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় পর্শ্চিমে পার্শে তিনটি মদের দোকান ও ৩টি জুয়ার আসরে বসে সর্বশান্ত হয়ে সাধারন ট্রেনযাত্রীদের মালামাল ছিনতাইসহ নানা অপকর্মে জড়িয়ে পড়ে। পুলিশের ভুমিকা রহস্য জনক হওয়ায় প্রায় পার্বতীপুর রেল স্টেশনে এ ধরনের ঘটনা ঘটেই চলছে বলে তিনি উল্লেখ্য করেন। প্রতিদিনেই রেল স্টেশন এলাকায় ট্রেন যাত্রীদের ব্যাগ ও মোবাইল ফোন ছিনতাইয়ের খবর পাওয়া যায়। ট্রেনের যাত্রীরা দুরের হওয়ায় তাদের মালামাল উদ্ধার বা থানায় জিডি করলেও রহস্য জনক কারনে পার্বতীপুর জিআরপি পুলিশ মালামাল উদ্ধারের কোন তৎপর দেখা যায়না।
অপরদিকে, অজ্ঞান হওয়ায় মা নুরজাহান বেগম (৬০) ছেলে হারুন উর রশিদ (২৫) এর বাড়ি লালমনিরহাট জেলার হাতিবান্ধা উপজেলায়। তারা দিনাজপুরের বিরলে যাওয়ার জন্য পার্বতীপুর রেল স্টেশনে অপেক্ষা করছিলেন। বর্তমানে মা ও ছেলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন। এব্যাপারে রেলওয়ে পুলিশ সুপারের সংগে মুঠোফেনে যোগাযোগ করা হলে বডিগার্ড ওবায়দুল হক ফোন রিসিভ করে বলেন, স্যার ব্যস্ত আছেন। পার্বতীপুর রেল থানার অফিসার ইনচার্জ সাজু মিয়া ঘটনাটি অবগত রয়েছেন। এ ব্যাপারে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে জেনারেল ম্যানেজার রাজশাহী আব্দুল আউয়াল ভুইয়া বলেন, বিষয়টি দেখছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ