• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৩৬ পূর্বাহ্ন |

অপেক্ষা

Poetসাবিরা ইসলাম: অনেকক্ষন হলো অপেক্ষা করে আছি। ভীষণ বিরক্ত লাগছে! মন, শরীর একসঙ্গে ভেঙ্গে পড়ছে! কিন্তু কিছু করার নেই আমার। কয়েকবার ভাবলাম, সব দায়িত্ব আপাকে বুঝিয়ে দিয়ে চলে যাই। তাছাড়া ঝোঁকের মাথায় রাজি হলেও এখন মনে হচ্ছে, কাজটা ঠিক হচ্ছে না। আমি কিছুতেই এটা পরব না। আবার এও ভাবছি, এছাড়া আমার আর কিই বা করার আছে? এর থেকে বেরোবার পথ যে আমি জানি না। আজ আমায় বাধ্য হতেই হবে। একটু গুছিয়ে নিয়ে নিশ্চয়ই পালাবো আমি। আর কোনোদিন না হয় আসব না এখানে!

বসে আছি অনেকক্ষণ। এখন ভরদুপুর! আপা বলেছেন, তার আসতে একটু দেরী হচ্ছে। কারণ এখন তো অফিস টাইম। কাজ শেষ না করে হুট করে তো সে বেরিয়ে আসতে পারে না। আর তাছাড়া আপার বাসা থেকে ওই ওনার অফিস অনেক দূরে। শহরের এমাথা-ওমাথা! সুতরাং অপেক্ষা করতেই হবে। আপা আমাকে একটু পর পর বোঝাচ্ছেন। দেখো, এই লোককে আমি অনেকদিন ধরে চিনি। খুবই ভালো। আচার-ব্যবহার খুব ভালো। হাতও বেশ খোলা। তুমি যদি তার সঙ্গে ভালো আচরন করো, তাহলে সে বারবার তোমাকে ডাকবে। এতে তোমারই লাভ। তোমার এখনকার ফাইনেন্সিয়াল ক্রাইসিস অনেকটাই কেটে যাবে। আমারো অনেক উপকার হবে। মাথা ঠান্ডা রাখো। সব গুবলেট করে ফেলো না।
আপার কথা শুনে আমার গাল লাল হয়ে যাচ্ছে। লজ্জায় কুঁকড়ে যাচ্ছি আমি। ভেতরটা ক্যামন যে ক্ষয়ে যাচ্ছে বোঝানো যাবে না। অথচ আপা কি নির্বিকার! এতো সহজে কথাগুলো বলছে এবং উৎসাহ জোগাচ্ছে, সাহস দিচ্ছে যেন এটা কোনো ব্যাপারই না! এতে কোনো পাপ নেই, কোনো অন্যায় নেই।
একটা সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠানে আপার সঙ্গে আমার পরিচয়। সমাজের খুব উঁচুস্তরের মানুষ তিনি। অনেক ধড়পাকড় করে ওনার ফোন নাম্বারটা জোগাড় করেছিলাম আমি। তারপর ফোন দিয়ে যোগাযোগ করি। অনেকদিন পর তিনি আমাকে দেখা করার সুযোগ দেন। প্রথমদিনেই হরহর করে নিজের সমস্যার কথা তো আর বলা যায় না। তাই সৌজন্য সাক্ষাত করে চলে আসি। এরপর মাঝে মাঝেই ফোন দিতাম আমি। যদিও ফোন দেয়ার আগে বুক বেশ ঢিপঢিপ করত। এতো বড়মাপের মানুষ! আমার ফোনে না আবার বিরক্ত হন! কিন্তু ঠ্যাকাটা যে আমার! তাই ভয়কে জয় করেই ফোন দিতাম। এভাবেই ক্যামন করে যেন একদিন ওনার কাছাকাছি হওয়ার সুযোগ হয়।
নিজে থেকেই জানতে চান, কোনো কাজ করি কিনা। বললাম, না। আমাকে প্রায় হতভম্ব করে দিয়ে উনি প্রস্তাব দিলেন, যদি চাও তবে তুমি আমার সঙ্গে থাকতে পারো। আমার তো অনেক ব্যস্ততা। অনেক সময় হাঁপিয়ে উঠি। কিছু দায়িত্ব তোমায় বুঝিয়ে দিয়ে একটু রিলিফ পেতে পারি।
এমন প্রস্তাবে আমার রাজী না হওয়ার কোনো কারণ তো দেখি না। আপার সঙ্গে লেগে থাকলে আমার একটা গতি নিশ্চয়ই হবে। উত্তেজনায় রাতে ঘুম আসে না। খুব ভোরে আপার বাসায় গিয়ে হাজির হই। আপা ওঠেননি তখনও। দু’একবার ওই বাসায় যাওয়ায় আপার বাসার সিকিউরিটি, আয়া, বুয়া আমাকে চিনত। ওরা বসতে দিল। চা, বিস্কিট খাওয়ালো।
এগারোটার কিছু পরে আপা ভেতরের রুমে ডেকে পাঠালেন। আমি প্রথমে বুঝতে পারিনি। আমাকে আপা তার ভেতরের ঘরে ডেকে পাঠাচ্ছেন? আমাকে ঠায় বসে থাকতে দেখে বুয়া বলল, ওঠেন না ক্যান? আপা ডাকতাছে আপনারে। আমি হতভম্ব ভাব নিয়ে উঠে দাড়ালাম। দম দেয়া পুতুলের মত বুয়ার পিছু পিছু আপার শোবার ঘরে এসে ঢুকলাম। আপা আমাকে দেখে চমৎকার একটা হাসি দিলেন। বললেন, অনেকক্ষন বসে ছিলে, না? স্যরি, কাল রাতে ফিরতে আমার বেশ দেরী হয়েছিল, তাই উঠতে দেরী হয়ে গেল।
আমার হতভম্ব ভাব কাটেনি তখনও। আপার কথা শুনে শুকনো হাসলাম। আাপার এধরনের ভদ্রতার জবাবে ‘আচ্ছা ঠিক আছে বা এ কি আপা স্যরি বলছেন কেনো’ এ জাতীয় কোনো কথাই বলতে পারলাম না। আপা আবার হাসলেন। বললেন, মুখটা এমন শুকনা লাগছে কেনো? নাস্তা খাওনি বুঝি?
বললাম- চা, বিস্কিট খেয়েছি।
আপা আঁতকে উঠে বললেন, সে কি! এতো বেলা অব্দি শুধু চা, বিস্কিট দিয়েছে? ওদের নিয়ে আর পারা গেলো না। এই সামান্য বিষয়টিও বুঝে করার ক্ষমতা ওদের নেই। সব আমাকে বলে দিতে হবে। একজন মানুষ সেই সকাল থেকে বসে আছে। এখন প্রায় বারোটা বাজে! আর ওরা…
আপা কথা শেষ করলেন না। ইন্টারকমে তুলেছিলেন। ওপাশে কেউ রিসিভ করতেই তাকে ধমকালেন। তারপর খুব দ্রুত দু’জনের নাস্তা দিতে বললেন। আমার চোখে পানি চলে এসেছিল। আমি আল্লাহর কাছে শোকরিয়া আদায় করে বললাম, হে আল্লাহ তুমি আমাকে একেবারে ঠিক মানুষটির কাছে পাঠিয়েছ। আমি এমন একজন মানুষকেই খুঁজছিলাম, যে আমার পাশে বন্ধু ও অভিভাবকের মত দাঁড়াবে। আমার কষ্ট বুঝবে। আমায় ছায়া দেবে।
লেখাপড়া করিনি বেশি। করতে পারিনি। অল্প বয়সে বিয়ে হয়েছিল। টেকেনি সে সংসার! সংসারে বাবা, মা নেই। ভাইদের সংসারের বোঝা এখন আমি। চেহারা সুরত ভালো বলে স্বস্তিতে থাকার উপায়ও নেই। কত জন যে কত রকম ঈশারা করে! আবার বিয়ে করার চাপও আছে। কিন্তু আমার মন আর সায় দেয় না। যার নয়-এ সুখ হয়নি তার কি আর কোনোদিন হবে? শুধু একটা জায়গায় বেঁচে গেছি আমি, ওই ঘরে আমার কোনো সন্তান হয়নি। তাহলে দুর্দশার আর কোনো শেষ থাকত না। ভাইরা আমাকে সহ্য করছে কিন্তু সন্তানসহ আমাকে কি সহ্য করত! ভাইরা করলেও ভাবীরা তো নিশ্চয়ই করত না। ওদের দোষ দিয়েই বা কি হবে? ওদেরও সঙ্গতিও তো খুব ভালো নয়। আফসোস হয়, আর একটু যদি লেখাপড়া জানতাম! তাহলে কোথাও না কোথাও নিশ্চয়ই সম্মানজনক একটা কাজ যুগিয়ে নিতে পারতাম। কিন্তু এখন তো আর সেই সুযোগও নেই। এখন আমাকে পেটের ধান্ধায় ছুটতে হচ্ছে।  নিজের পায়ের তলায় মাটি জোগাতে ছুটতে হচ্ছে।
আপার সঙ্গে আমি ভালোই আছি। ভালো ছিলামও। বিগত কয়েক মাস যাবত আমি আপার সার্বক্ষণিক সঙ্গী। আপা আমার একটা গালভরা নামও দিয়েছেন। আমি নাকি আপার একান্ত সচিব। এর মানে কি, গুরুত্ব কতখানি আমি বুঝি না। তবে আপার প্রতিটি নির্দেশ আমি জান দিয়ে পালনের চেষ্টা করি। পারিও। আমার প্রাতিষ্ঠানিক যোগ্যতা কম হলেও প্রকৃিত আমাকে কিছু যোগ্যতা দিয়ে দিয়েছে যার কারণে আমি সহজেই আমার করণীয় বুঝতে পারি।
আপার সঙ্গে আমি দেশের অনেকগুলো জেলা ঘুরেছি। সমাজের প্রায় সব স্তরের লোকজনকেই আমি কাছ থেকে দেখার সুযোগ পেয়েছি। অনেক নামকরা লোককে দেখেছি, কথা বলেছি, তাদের আন্তরিকতা পেয়েছি। সব আপার জন্য। সত্যি ধন্য আমার জীবন। আপা মাঝে মাঝেই আমার রূপের প্রশংসা করতেন। বলতেন, লোক পাগল করা রূপ নাকি আমার! ইতোমধ্যে অনেকেই নাকি আপার কাছে আমাকে চেয়েছে। আমি আকাশ থেকে পড়ে শুধু বলেছি আপাকে ছেড়ে আমি কোথাও কারো কাছে যেতে চাই না। শুনে আপা রহস্যময় হাসি হেসেছেন। আমি বুঝতে পারিনি এর অর্থ।
আমার বয়স এখন মাত্র বাাইশ। জীবনের পুরো পথটাই পড়ে আছে সামনে। কি করে চলবে আমার? ইচ্ছে করে কাউকে ভালোবাসি। স্বপ্ন দেখি আবার। সাহস হয় না। কাউকে ভালো যে লাগেনি তাও না। কিন্তু আমার যে একবার বিয়ে হয়েছিল, এটা মেনে কেউ কি নেবে আমায়? আমি জানি না। নিজের অজান্তেই দীর্ঘশ্বাস ফেলি। নিজেকে আশ্বস্ত করি এই বলে যে, আপা তো আছে। থাক।
ভাইদের বাসায় এখন আর থাকা হয় না বললেই চলে। ওরা সব জানে। একজন নামকরা মহিলার সঙ্গে আছি, থাকি- তাই আপত্তিও করেনি। আপার সঙ্গে ওদেরও দেখা হয়েছে, আলাপ হয়েছে। আপাকে ওরা ফেরেস্তা মানে। মাঝে মাঝে ওদের দেখতে গেলে এখন খুশিই হয় ওরা। আপা ওদের জন্য ব্যাগভর্তি বাজার করে দেয়।
এলোমেলো অনেক কথা মনে পড়ছে। অভাবের সংসারে বড় হয়েছি আমি। অভাবের কারণেই দ্বিগুণ বয়সী লোকের কাছে বিয়ে দিয়েছিল আমায়। বছর দুয়েক পরই ফিরতে হয়েছে। ওই লোকের আগের ঘরের ছেলেমেয়ে রয়েছে। কেউ আমাকে রাখতে চায়নি। এর তিন বছরের মধ্যে বাবা-মা মরে গেল। ভাইরা বিয়ে করল। ধীরে ধীরে বোঝা হয়ে উঠতে শুরু করলাম আমি। আয়ের আশায় ছোটখাটো কম কাজ তো করিনি। কিন্তু চালে কালি পড়ল না। আমার কাজের দক্ষতা যাচাইয়ের আগেই এমন সব প্রস্তাব আসতে শুরু করত যে, বিষ খেয়ে মরে যেতে ইচ্ছে করত! অনেকেই বলত, সুন্দরী হওয়ার এটাই নাকি মহা যন্ত্রণা!! অনেকেই তাকে চায়। একটি মেয়ে সুন্দরী হলেই তাকে কেন অনেকেই চাইবেÑএর কোনো যুক্তি আমি খুঁজে পেতাম না। ধীরে ধীরে বুঝতে পেরেছিলাম, চেহারা ভালো হওয়াও একজন নারীর জন্য মারাÍক একটি অপরাধ!
যাই হোক আপার সঙ্গে আমি তো ভালোই আছি। এসব বিড়ম্বনার বিষয় নেই। কিন্তু সেদিন আপা বলল তার নাকি খুব বিপদ এবং এর থেকে আমিই নাকি তাকে উদ্ধার করতে পারি। কি করে? শুধু একজন মানুষকে খুশি করতে হবে। সে আমার ছবি দেখেছে। আপার কাছে আমার অনেক কথা শুনেছে। এখন আমার সান্নিধ্য চায় সে। আমি যদি রাজি হই তবে আপার আটকে থাকা একটা কাজ সহজেই সম্পন্ন হবে। আমি আপার মুখের দিকে নির্বিকার তাকিয়ে থাকি। আমার মুখের ছায়ায় কি কোনো গভীর বিষাদ কিংবা বেদনার ছাপ ভেসে উঠেছে? আমি জানি না। কিন্তু বুকটা এমন ভেঙ্গে যাচ্ছে কেনো? চোখও কি ভিজে উঠতে চাইছে?
আপা আমায় কোনো আদেশ দেননি। বাধ্য হতেও বলেননি। কিন্তু আমি আমার প্রকৃত প্রদত্ত অভিজ্ঞতার জোরে বেশ বুঝতে পারছি, আপার কথা আমাকে মানতে হবে। না হলে সমূহ বিপদের সম্ভাবনা আমার। আবার অনিশ্চিত এক যাত্রায় নামতে হবে আমাকে। কিন্তু সে যাত্রায় আপা আমার পাশে থাকবেন না। তার বিশাল ক্ষমতা দিয়ে পদে পদে আমায় আরো বিপর্যস্ত করে তুলবেন।
আমার মাথায় এখন একটাই চিন্তা আপাকে বাঁচাতে হবে। আমারও বাঁচতে হবে। তাই আমি এমন একজনের অপেক্ষায় বসে আছি, যাকে আমি কখনো দেখিনি। যে অপেক্ষায় কোনো আন্তরিকতা নেই, ভালোবাসা নেই, মমতা নেই। শুধু শঙ্কা, ভয়, জড়তা। আপা বলেছেন, তার সঙ্গে আমার ভালো আচরন করতে হবে। যদি সে খুশি হয় তবে আমাদের দু’জনের জন্যই তা ভালো হবে।
সংগৃহিত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ