• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫০ পূর্বাহ্ন |

প্রশাসনে রদবদল: দিমেক হাসপাতালে লক্ষণীয় উন্নতি

Dinajpur Hospital Pic-01মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: প্রশাসনে রদবদলের কারণে দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ (দিমেক) হাসপাতালে লক্ষ্যণীয় উন্নতি সাধিত হয়েছে। পাল্টে গেছে বর্তমান হাসপাতালের পুরনো চেহারা। চিকিৎসাসেবার নামে রোগী নিয়ে দালালচক্রের ব্যবসা বন্ধ হয়ে গেছে। বন্ধ হয়ে গেছে বখশিস বাণিজ্য। সেই সাথে হাসপাতাল থেকে রোগী ভাগিয়ে নেয়ার ফ্রি বাণিজ্যও বন্ধ হয়েছে।
অপরদিকে হাসপাতালের চিকিৎসক, কর্মকতা-কর্মচারীদের মধ্যেও সচেতনতা বৃদ্ধি পেয়েছে। তারাও এখন সময়মত অফিসে আসছেন ও সঠিকভাবে দায়িত্ব পালনের অঙ্গীকার করেছেন।
চলতি বছরের মার্চে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক, উপ-পরিচালক ও সহকারী পরিচালক পদে রদবদল করা হয়। ২৩ মার্চ হাসপাতালের পরিচালক হিসেবে বদলী হয়ে আসেন ডা. আব্দুল ওহাব হাওলাদার। এর আগে ২ মার্চ হাসপাতালের উপ-পরিচালক পদে ডা. মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান ও ৫ মার্চ সহকারী পরিচালক হিসেবে যোগদান করেন ডা. মোঃ আমির আলী। নবনিযুক্ত এ পদে নতুন ৩ কর্মকর্তা যোগ দেয়ার পরই দিমেক হাসপাতালের বিভিন্ন অনিয়ম এবং দুর্নীতি দূরীকরণের উদ্যোগ নেন তারা। হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান ২ মার্চ যোগদানের পর পরই তিনি হাসপাতালে শুদ্ধি অভিযান শুরু করেন। তাঁর ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ফসল হিসেবে দিমেক হাসপাতাল এখন একটি গর্ব করার মত প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। আগে এই হাসপাতাল ছিল তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী ও দালাল চক্রের নিয়ন্ত্রণে। রোগীকে ওয়ার্ড থেকে ওটিতে এবং ওটি থেকে ওয়ার্ডে নিয়ে যেতে আসতে, বিভিন্ন পরীা নিরীার জন্য আনা নেয়া করতে কর্মচারীদের বেঁধে দেয়া রেটে বখশিস দিতে হতো।
ঘটনার এখানেই শেষ নয়। আগে রোগী রিলিজ হবার পর মোটা অঙ্কের বখশিস না দিয়ে নিস্তার পাওয়া যেত না। হাসপাতালে ছিল দালালচক্রের একচ্ছত্র আধিপত্য। বহিরাগত দালালরা ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে ঘুরে বেড়াত। রোগীদের ব্রেন ওয়াশ করত। তাদের বুঝাত, হাসপাতালে ভাল চিকিৎসা হবে না। তার জানাশোনা একটি কিনিক আছে। সেখানে ভাল চিকিৎসা হবে। রোগী বা তার অভিভাবককে বুঝিয়ে নিয়ে যেত কিনিকে। তাদের এই অবৈধ, অনৈতিক কর্মকান্ডে বাধা দেয়ার কেউ ছিল না। রোগীদের প্যাথলজিক্যাল টেস্টের বেলাতেও দালালচক্রের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে রোগীদের যেতে হয় বাইরের প্যাথলজিক্যাল ল্যাবে।
চিকিৎসক ও অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যেও ছিল না কোন নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা। চিকিৎসকদের অনেকেই সময়মত আসতেন না। আসলেও বেশীণ থাকতেন না। ওয়ার্ড পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকত না। টয়লেট পরিষ্কার থাকাটা বিস্তর দূরের কথা। রোগীদের বরাদ্দের খাবার পেতেন না এমন নয়, কিন্তু পরিমাণ দেখে সন্দেহের কোন কারণ থাকত না যে, বরাদ্দের অর্ধেকই হাওয়া হয়ে গেছে। ওষুধপত্রের বেলাতেও একই চিত্র বহাল ছিল। মেডিকেল টেস্ট করাতে গেলেও ইনডোর রোগীদের নগদ টাকা দিতে হতো।
দিমেক হাসপাতালে এখন আর কোন দালালের আনাগোনা নেই। বখশিস বাণিজ্য নেই। হসপাতালের ওয়ার্ড থাকছে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন। ডাক্তার, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এখন ডিউটি রোস্টার মেনেই তাদের দায়িত্ব সুচারুরুপে পালন করছেন। সবাই সময় মত অফিসে আসছেন ও সময় মত অফিস ত্যাগ করছেন। হাসপাতাল থাকছে ঝকঝকে, তকতকে। খাবার নিতে কোন অভিযোগ নেই রোগীদের। রোগীদের খুব কম ওষুধই বাইরে থেকে কিনতে হচ্ছে। রোগীরা খুশী। খুশী তাদের অভিভাবকেরা। এই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালকে ঘিরে যে চিকিৎসাসেবার স্বপ্ন দেখেছিলেন দিনাজপুরবাসী, সেটি স্বার্থক হতে দেখে তারা আনন্দিত, উৎফুল্ল। সাধারণ মানুষ আশা করছেন এভাবে সারা বছর হাসপাতালের কার্যক্রম পরিচালিত হলে এই এলাকারবাসির চিকিৎসাসেবার কাংখিত স্বপ্ন পূরন হবে।
এ ব্যাপারে হাসপাতালের নতুন পরিচালক ডা. আব্দুল ওয়াহবাব হাওলাদার ও উপ-পরিচালক ডা. মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান দু’জনের সাথে কথা হলে তারা জানান, সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এই হাসপাতালের চিকিৎসা সেবারমান আরো উন্নত করা সম্ভব। হাসপাতালের সেবারমান উন্নত করতে সবাই প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হলে এই হাসপাতালকে আরো এগিয়ে নেয়া যাবে। সঠিকভাবে মনিটরিং ও সবাই আন্তরিক হলে কম জনবল দিয়েও হাসপাতালে উন্নত সেবা প্রদান সম্ভব। তারা চিকিৎসক, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সংশ্লিষ্ট সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেছেন। পাশাপাশি হাসপাতালের নেতিবাচকের চেয়ে ইতিবাচক দিকগুলো মিডিয়াতে তুলে ধরতে সাংবাদিকদের সহযোগিতা চেয়েছেন তারা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ