• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৫৯ পূর্বাহ্ন |

বিএনপিকে ব্যবহার করে লক্ষ্যে পৌঁছে গেছে জামায়াত

Jamatসিসি ডেস্ক: উপজেলা নির্বাচনে জামায়াত বিএনপিকে ব্যবহার করে তাদের লক্ষ্যে পৌঁছতে সক্ষম হয়েছে কিন্তু জামায়াতের কাছে বিএনপি ঠিক ধরা খেয়েছে। চেয়ারম্যান পদে বিএনপি জামায়াতের চেয়ে অনেক এগিয়ে থাকলেও ভাইস চেয়ারম্যান পদে ঠিকই তারা জামায়াতের পেছনে পড়েছে। ৪৫৯ উপজেলার মধ্যে ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামায়াত যেখানে ১১৭ উপজেলায় নির্বাচিত হয়েছে, সেখানে বিএনপি জয় পেয়েছে মাত্র ১০৮ উপজেলায়। জানা গেছে, এটা জামায়াতের জন্য একটা বড় সাফল্য মনে করছে দলটি। তবে সার্বিক ফলাফলে আওয়ামী লীগ উভয় পদে এককভাবে জামায়াত ও বিএনপির চেয়ে এগিয়ে আছে। ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ ১৬৭ উপজেলায় জয়লাভ করেছে।
জানা গেছে, উপজেলা নির্বাচনের ফলে বিএনপির মধ্যে হতাশা থাকলেও জামায়াতের মধ্যে তা নেই। বরং ভেতরে ভেতরে এক ধরনের জয়ের আনন্দ কাজ করছে দলটির মধ্যে। কারণ এত প্রতিকূলতার মধ্যে শতাধিক উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে জয় পাওয়ায় জামায়াতের জন্য এক ধরনের বড় সাফল্যই মনে করছে তারা। বিশেষ করে জামায়াত-বিএনপি জোটের শরিক হলেও বিএনপির মতো বড় একটি দলকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যাওয়া জামায়াতের জন্য বড় ব্যাপার। স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত কোন নির্বাচনেও জামায়াত এভাবে সাফল্য পায়নি। আবার যাদের জন্য জামায়াত এভাবে এগিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে সেই বিএনপিই ক্ষেত্র বিশেষে জামায়াতের কারণে খারাপ ফল করতে হয়েছে।
নির্বাচনের প্রথম পর্যায় থেকেই বিএনপি জামায়াতকে কিছুটা ছাড় দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। বিএনপির এ ছাড়ের সুযোগ জামায়াত পুরোপুরি ঘরে তুলতে সক্ষম হয়েছে। তৃতীয় দফার পর যখন বিএনপি খারাপ ফলের দিকে যাচ্ছে তখন জামায়াত বিএনপিকে ব্যবহার করে তাদের জয়ের ধারা অব্যাহত রেখেছে। জানা গেছে, জামায়াত প্রথম থেকে ভাইস চেয়ারম্যান পদের দিকে নজর দেয়। তারা চেয়ারম্যান পদে বিএনপিকে ছাড় দিয়ে বেশিরভাগ এলাকায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপির সমর্থন আদায় করে নেয়। পাশাপাশি তারা যে সব এলাকায় জামায়াত অধ্যুষিত সে সব এলাকায় চেয়ারম্যান পদেও বিএনপির ছাড়ের সুযোগকে কাজে লাগিয়েছে ভালভাবেই।
প্রথম থেকেই তুলনামূলকভাবে জামায়াত চেয়ারম্যান পদে ভাল ফল করলেও ক্রমান্বয়ে চেয়ারম্যান পদে জয়ের ধারা কমে আসতে থাকে। পঞ্চম দফায় তারা মাত্র তিন উপজেলায় জয় পায়। কিন্তু ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রথম থেকেই তারা ভালভাবেই জয়ের ধারা অব্যাহত রাখে। এক্ষেত্রে তারা প্রতি দফায় নির্বাচনে বিএনপির চেয়ে এগিয়ে গেছে। মূলত বিএনপির সমর্থন নিয়েই জয়ের ধারায় অব্যাহত রাখে। কিন্তু বিএনপি জামায়াতের কারণে নিজের সমর্থনের ফলসই ঘরে তুলতে ব্যর্থ হয়েছে।
শেষ দফায় এসে নির্বাচনের ফলে দেখা গেছে জামায়াত চেয়ারম্যান পদে মাত্র তিন উপজেলায় জয় পেলেও ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপির প্রায় দ্বিগুণ জয় পেয়েছে। জামায়াত ভাইস চেয়ারম্যান পদে যেখানে ১৬ উপজেলায় জয় পেয়েছে বিএনপি পেয়েছে মাত্র ৯ উপজেলায়। এছাড়া প্রথম দফা বাদ দিলে প্রায় সব দফায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামায়াত বিএনপির চেয়ে এগিয়ে রয়েছে। তবে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আবার বিএনপি জামায়াত ও আওয়ামী লীগের চেয়েও ভাল করেছে। জানা গেছে, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামায়াতের আগ্রহ অনেক কম ছিল। এ কারণেই তারা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বেশি নজর দেয়নি।
এবারের নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে সবচেয়ে বেশি উপজেলায় জয় পেয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা। তাঁরা এ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত ৪৫৯ উপজেলার মধ্যে ১৬৭ উপজেলায় জয় পেয়েছেন। সেখানে জামায়াত পেয়েছে ১১৭ ও বিএনপি পেয়েছে ১০৮ উপজেলায়। কিন্তু মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আবার বিএনপি এর উল্টো ফল করেছে। সবচেয়ে বেশি উপজেলায় অর্থাৎ ১৮৫ উপজেলায় জয় বিএনপির ঘরে। সেখানে আওয়ামী লীগ পেয়েছে ১৭৪ উপজেলায়। তবে জামায়াত এক্ষেত্রে অন্য দুই দলের চেয়ে পিছিয়ে আছে। তারা জয় পেয়েছে মাত্র ৩৪ উপজেলায়।
যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে নির্বাচন কমিশন আদালতের নির্দেশে জামায়াতের নিবন্ধন বাতিল করলেও স্থানীয় নির্বাচন হওয়ার সুযোগে জামায়াত ব্যাপকভাবে উপজেলা নির্বাচনে সুযোগ লাভ করে। আইন অনুযায়ী উপজেলা নির্দলীয় নির্বাচন। ফলে কমিশনের ভাষায় এ নির্বাচনে ব্যক্তিগতভাবে যে কেউ অংশগ্রহণ করতে পারেন। এ সুযোগ হাতছাড়া করেনি জামায়াত। নির্দলীয় নির্বাচন হওয়ার সুযোগ ভালভাবেই তারা কাজে লাগিয়েছে। পাশে পেয়েছে বিএনপিকে। এ সুযোগে যুদ্ধাপরাধীর ইস্যুতে সম্প্রতি দলটি কোণঠাসা হলেও বিএনপির কাঁধে পা রেখে ঠিকই উপজেলায় পার পেয়ে যাচ্ছে। অথচ যাদের কারণে জামায়াত নির্বাচনে জয়ের ধারায় রয়েছে সেই বিএনপিকেও ছাড় দিতে নারাজ জামায়াত। প্রথম দফায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে সবচেয়ে বেশি জয় পায় বিএনপি। এর পর দ্বিতীয় দফা থেকেই তারা বিএনপির চেয়ে এগিয়ে যেতে থাকে। শেষ পর্যন্ত তারা এ ধারা অব্যাহত রাখে।
উৎসঃ   জনকণ্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ