• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:১৬ পূর্বাহ্ন |

বিএনপি-জামায়াতের দূরত্ব বাড়ছে !

bnp-jamat2সিসি নিউজ: বিএনপির সাথে জামায়াতে ইসলামীর দূরত্ব বাড়ছে। বিগত সময়ের আন্দোলন কর্মসূচি নিয়ে দু’দলেরই পরস্পরের প্রতি আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে। জামায়াত বলছে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারসহ অন্যান্য ইস্যুতে তাদের আন্দোলনে বিএনপি কোন সহযোগিতা করেনি। অন্যদিকে বিএনপির অনেক নেতা মনে করেন গত বছর ২৯ ডিসেম্বর দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ঘোষিত ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’ কর্মসূচিতে জামায়াতের অংশগ্রহণ ছিল না। এছাড়া গত উপজেলা নির্বাচনেও বিভিন্ন এলাকায় জামায়াতের স্থানীয় নেতাদের অসহযোগিতার কারণে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী পরাজিত হয়েছে। সাতক্ষীরা, চাঁপাই নবাবগঞ্জ, খুলনা, যশোর, রাজশাহী, বগুড়া, ফরিদপুর, লক্ষ্মীপুর, সিলেটসহ অনেক এলাকায় জামায়াত নেতাদের বিরোধের ফলে নির্বাচনে পরাজিত হতে হয়েছে বলে বিএনপির তৃণমূল নেতাদের পক্ষ থেকে অভিযোগও এসেছে। কোন কোন এলাকায় জামায়াত আওয়ামী লীগের সাথে আঁতাত করেও উপজেলা নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছে। নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগ ও জামায়াতের কর্মীরা মিলে ব্যালট পেপারে সিল মারছে এমন ছবিও মিডিয়াতে এসেছে। জামায়াত তাদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সাথে গোপন আঁতাত করছে বলেও বিভিন্ন মহলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। গত উপজেলা নির্বাচনে অনেক স্থানে আওয়ামী লীগের সাথে জামায়াত আঁতাত করে বিজয়ী হয়েছে এমন কথাও রাজনৈতিক অঙ্গনে ঘুরপাক খাচ্ছে। শুধু তাই নয় জামায়াত নিজেদেরকে হামলা মামলা থেকে রক্ষা করতে এবং মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে বিচারাধীন নেতাদের বিচার বিলম্বিত করার কৌশল হিসেবে আওয়ামী লীগের সাথে সমঝোতার হাত প্রসারিত করতে চাচ্ছে। জামায়াতে ইসলামী ইতঃপূর্বে নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষার্থে রাজপথে আন্দোলন করেছে। এই আন্দোলন ধীরে ধীরে সহিংসরূপ নিয়েছে। আন্দোলনের মাধ্যমে টিকে থাকার যে পরিকল্পনা নিয়ে জামায়াত আগাচ্ছিল তাতে সহযাত্রী হিসেবে বিএনপিকে পাবে এমনটাই ছিল প্রত্যাশা। তবে বিএনপি তাদের সে আন্দোলনে মৌন সমর্থন ছাড়া আর কোনরূপ সহযোগিতা করেনি। যার ফলে বিএনপির প্রতি জামায়াতের প্রচ- অভিমান কাজ করছে। আর এই অভিমান থেকে জামায়াত তাদের আন্দোলনের কৌশলও পরিবর্তন করেছে। সরকারি দলের সঙ্গে সমঝোতার মাধ্যমেই জামায়াত তাদের ভবিষ্যৎ রাজনীতির পথে হাঁটতে চাচ্ছে।
বিএনপির মধ্যে মুক্তিযোদ্ধা নেতারা এখন আর জামায়াতের সঙ্গে থাকার পক্ষে না। মানবতাবিরোধী অপরাধসহ জামায়াতে ইসলামীর বিভিন্ন দায়ভার তারা টানতে চান না। বিশেষ করে গত বছর বিভিন্ন ইস্যুতে জামায়াতে ইসলামী রাজপথে যে সহিংস আন্দোলন করেছে তার দায়ভার অনেকাংশেই এখন বিএনপির কাঁধে। জোটের শরিক দল হিসেবে জামায়াতের সহিংস আন্দোলনের দায় আওয়ামী লীগ ইতোমধ্যে বিএনপির কাঁধে কিছুটা হলেও চাপাতে সক্ষম হয়েছে। যে জন্য দেশের সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরাও এ বিষয়ে বিএনপিকে নতুন করে ভাবতে পরামর্শ দিচ্ছেন। সুশাসনের জন্য নাগরিক সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, জামায়াত বিষয়ে বিএনপিকে নতুন করে ভাবা উচিত। গত উপজেলা নির্বাচনে বিএনপির সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ থেকে জামায়াত শক্তি অর্জন করেছে। এখানে বিএনপির ভোটও তাদের বিজয়ে ভূমিকা রেখেছে। বিএনপির ভোট ছাড়া এতসংখ্যক উপজেলায় জামায়াতের বিজয় সম্ভব ছিল না।
সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, উপজেলা নির্বাচনে সরকারীদলের নেতাকর্মীরা ভোটের আগের দিনই সিল মেরে ব্যালট বাক্স ভর্তি করেছে। তারপরও অনেক স্থানে জামায়াতের সাথে সমন্বয়হীনতার কারণে ফলাফল বিপক্ষে গেছে। বিএনপি এবং জামায়াতের নেতারা পলাতক থাকার কারণেও অনেক স্থানে সমন্বয় করা সম্ভব হয়নি।
জামায়াতের সাথে সমঝোতা প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, দলীয়ভাবে জামায়াতের সাথে সমঝোতা ন্যূনতম কোন সম্ভাবনাও নাই। ব্যক্তিগত পর্যায়ে কেউ যদি সখ্যতা করে তাহলে তার দায়দায়িত্ব তাকেই বহন করতে হবে।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, জামায়াতসহ আরও অন্যান্য দলের সঙ্গে বিএনপির রাজনৈতিক জোট এখনো অটুট আছে। জোটগতভাবে আমাদের আন্দোলন সংগ্রাম অব্যাহত থাকবে।
উৎসঃ   ইনকিলাব


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ