• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫৬ অপরাহ্ন |

মহানগরের দায়িত্ব পাচ্ছেন খোকা-সোহেল!

Khokaঢাকা: দলের শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা, কারাবরণ, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনসহ নানা কারণে বিএনপির ঢাকা মহানগরের নতুন কমিটি এতদিন আটকে ছিল। এবার শিগগিরই ঘোষণা করা হবে নগর কমিটি। ইতোমধ্যে কমিটিও চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে দলীয় সূত্র জানিয়েছে।
তবে বর্তমান কমিটি নিয়ে আলোচনা সমালোচনা হলেও নগর কাণ্ডারীর দায়িত্বে আসছেন সাদেক হোসেন খোকাকেই। অবশ্য সদস্য সচিব আবদুস সালামকে সরিয়ে দায়িত্ব দেয়া হচ্ছে হাবিব উন নবী খান সোহেলকে।
প্রায় দেড় যুগ ধরে সাদেক হোসেন খোকা ঢাকা মহানগরীর দায়িত্বে রয়েছেন। এই অভিজ্ঞতার সঙ্গে সামনের আন্দোলন ও সংগঠনকে শক্তিশালী করতে যোগ করা হচ্ছে তরুণ নেতৃত্ব হাবিব উন নবী খান সোহেলকে। ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় সভাপতির দায়িত্ব পালন করা এই নেতা দলকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে পারবে বলে মনে করছে দলের হাইকমান্ড।
বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ের সূত্র বাংলামেইলকে জানিয়েছেন, সাদেক হোসেন খোকাকে আহ্বায়ক এবং হাবিব উন নবী খান সোহেলকে সদস্য সচিব করে ঢাকা মহানগরের কমিটি চূড়ান্ত করা হয়েছে। যে কোনো সময় তা ঘোষণা করা হবে।
অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, ঢাকা মহানগরের নতুন কমিটি ঘোষণার পর স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় কমিটিও ঢেলে সাজানো হবে।
এদিকে খোকা মহানগরের আহ্বায়কের পদ থেকে সড়ে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেয়ার পর দলের মধ্যে নানা আলোচনা হলেও তাতে কূল-কিনারা মিলেনি। নতুন কমিটির কাণ্ডারীর পদে অনেকের নাম আসতে শুরু হয়। মহানগরের দায়িত্বের জন্য দলের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আ স ম হান্নান শাহ এবং ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়ার নামও উঠে আসে। তবে হান্নান শাহ দায়িত্ব পালনে আগ্রহ দেখালেও রফিকুল ইসলাম মিয়া বাংলামেইলকে বলেছিলেন, ‘আমরা যাবো কেন? তরুণদের নেতৃত্বে আনতে হবে।’
মহানগরের দায়িত্বের জন্য স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস এবং চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুল আউয়াল মিন্টুর নাম প্রস্তাব করলেও তারাও দায়িত্ব নিতে অনীহা প্রকাশ করেন।
নতুন কমিটি নিয়ে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবু সাঈদ খোকন, আমান উল্লাহ আমান, মো. শাহজাহান, বরকত উল্লাহ বুলু, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আবুল খায়ের ভূঁইয়া, যুব দল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাবেক সংসদ সদস্য ও মহানগর নেতা ‘দৌড়’ সালাহউদ্দিন আহমেদ, মহানগর নেতা কাজী আবুল বাশার ও এমএ কাইয়ুমের নাম আলোচনায় আসে।
তবে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এবং আমান উল্লাহ আমানকে নিয়ে দলের মধ্যে প্রবল সমালোচনা রয়েছে। এই দুই নেতার মধ্যে দ্বন্দ্ব রয়েছে। বিএনপি জোটের ডাকে যখন দেশব্যাপী টানা অবরোধ চলছিল সেই সময় কেরাণীগঞ্জের সরকার দলীয় এমপির সঙ্গে এক টেবিলে বসে গয়েশ্বর রায়ের ভুরি ভোজনের একটি ছবি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া হয়েছিল। আমান উল্লাহ আমানের বিরুদ্ধেও আঁতাতের অভিযোগ রয়েছে। বরকত উল্লাহ বুলুর প্রতিও অনেকের সন্দেহ রয়েছে। বিশেষ করে ১/১১ এর প্রেক্ষিতে তার ভূমিকা ছিল প্রশ্নবিদ্ধ।
সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলালকে নিয়েও অস্বস্তি কম নেই। তার বিরুদ্ধে কমিটি বাণিজ্য, জামায়াত-শিবির প্রীতিসহ নানা অভিযোগ রয়েছে।
এসব কারণে দলের হাইকমান্ড অভিজ্ঞতার ঝুড়ি সাদেক হোসেন খোকাকে স্বপদে রেখে তরুণ নেতা হাবিব উন নবী খান সোহেলকে সদস্য সচিব করে কমিটি চূড়ান্ত করেছে। খোকা-সোহেল নেতৃত্ব দলের কাঙ্ক্ষিত আশা পূরণ করতে পারবে বলেই মনে করা হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ