• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৩২ পূর্বাহ্ন |

তিস্তায় বালু উত্তোলন: আটক ১৩, হোতারা ধরাছোঁয়ার বাইরে

dimla-pic 04-04-14ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি: নীলফামারীর ডিমলায় তিস্তা ব্যারাজের কমান্ড এলাকায় অবৈধভাবে নুড়ী পাথর ও বালি উত্তোলনের সময় ১৩ মজুরকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ্দ করেছে বিজিবি। মূল হোতাকে আটক করতে না পেয়ে নিরীহ দিনমজুরদের আটকের এ ঘটনায় বিজিবি’র ভূমিকা নিয়ে সাধারন মানুষের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।
পুলিশ জানান, তিস্তা নদীর কিসামত ছাতনাই চরে অবৈধভাবে নূড়ী পাথর উত্তোলন করে ৪টি ট্রাক্টর যোগে ডিমলা উপজেলার পূর্ব ছাতনাই কলোনী বাজারে নেয়ার পথে টহলরত বিজিবি সদস্যরা ট্রাক্টর গুলোসহ ১৩জনকে আটক করে পুলিশের সহযোগীতায় থানায় নিয়ে আসে। এ ব্যাপারে বার্নিরঘাট সীমান্ত ফাঁড়ীর (বিজিবি-৭) সেনা নায়েক মোতাহার হোসেন নিজে বাদী হয়ে শুক্রবার রাতে একটি মামলা করে। আসামীরা হলেন, পূর্ব ছাতনাই গ্রামের সাদ্দাম হোসেন (২২), বাবুল হোসেন (২৪), তৈয়বুর রহমান (৪৫), শাজাহান আলম (২৭), রাসেল মিয়া (২০), মাজেদুল ইসলাম (২৪), মোস্তফা (২২), মিজানুর রহমান (১৮), লাল মিয়া (২৫), লিটন ইসলাম (১৮) ও আকাশ কুড়ি গ্রামের সাদেকুজ্জামান (২৬), দোহল পাড়া গ্রামের জাহেদুল ইসলাম (২৫) এবং ডালিয়া গ্রামের অলিয়ার রহমান (৩০)। আটককৃত ৪ ট্রাক্টর চালক ও ৯ দিনমুজুরকে শনিবার জেলাহাজতে প্রেরণ করে পুলিশ।
উল্লেখ্য, দেশের সর্ববৃহৎ সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজের কমান্ড এলাকার একটি প্রভাবশালী চক্র দীর্ঘ দিন থেকে অবৈধভাবে নূরী পাথর ও বালি উত্তোলন করে আসছিলো। এমতবস্থায় গোলাম মোস্তফা নামে জনৈক এক ব্যক্তি বালি-পাথর উত্তোলনে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে কয়েক মাস আগে হাইকোটে একটি রিট মোকদ্দা দায়ের করলে বিজ্ঞ হাইকোট রিট আবেদন মন্জুর করে আদেশ প্রদান করেন। ফলে অধিকাংশ এলাকায় বালি-পাথর উত্তোলন বন্ধ থাকলেও উপজেলার খগাখড়িবাড়ী ইউপি দোহল পাড়া গ্রামের আবুবক্করের ছেলে জেনারুল ইসলাম ও মৃত কাসেম আলীর ছেলে নুর ইসলামসহ একটি প্রভাবশালী মহল দীর্ঘদিন থেকে তিস্তা নদীর কিসামত ছাতনাই চরে বালি-পাথর উত্তোলন করে আসছিলো। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ওই মহলটিকে নিয়ন্ত্রণ করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ