• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১১:৩৯ পূর্বাহ্ন |

পানিই মেলেনা, আবার বিদ্যুৎ

Eleসিসি নিউজ: দিল্লিকে খুশি করার জন্য বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের উপর দিয়ে আসাম থেকে বিহারে ৬ হাজার মেঘাওয়াট বিদ্যুৎ স্থানান্তরে ভারতীয় সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছে সরকার।
বৃহস্পতিবার বিদ্যুৎ ব্যবসা সংক্রান্ত যৌথ পরিচালনা কমিটির একটি বৈঠকে এই সিদ্ধান্তটি নেওয়া হয়। বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে আগামী ২০১৭ সালের মধ্যে ভারত সরকার বাংলাদেশের উপর দিয়ে প্রথম ধাপে ৩ হাজার মেঘাওয়াট বিদ্যুৎ স্থানান্তর করবে, পরবর্তীতে এই স্থানান্তরিত বিদ্যুতের পরিমান বাড়বে । তবে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ স্থানান্তরের রুট হিসেবে ব্যবহৃত হলে রুট চার্জ হিসেবে কত মেঘাওয়াট বিদ্যুৎ পাবে সেই বিষয়ে কোন তথ্য দেওয়া হয়নি।
বৈঠকের পর বিদ্যুৎ সচিব বলেন, জলভাগ ব্যবহার করে বেসরকারিভাবে ভারতের অরুনাচল রাজ্যে ৫৩ হাজার মেঘাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হবে এবং বাংলাদেশ ভারতের সেই বিদ্যুৎ গ্রিড থেকে পরবর্তীতে বিদ্যুৎ আমদানি করতে পারবে।
এই বিষয়ে পিডিবির এক কর্মকর্তা বলেন, ভারতের অরুনাচল গ্রিড ব্যবহার করে ভবিষ্যতে নেপাল ও ভুটান থেকে ১ হাজার মেঘাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করতে পারবে বাংলাদেশ।
তবে ভারতের ইচ্ছার উপর বাংলাদেশের বিদ্যুৎ আমদানির বিষয়টি নির্ভর করবে। ২০০৯ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকেই আওয়ামী লীগ সরকার ভারতের সাথে বিভিন্ন রকমের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য চুক্তি, সমঝোতা করেছে, তবে খুব কম ক্ষেত্রেই লাভবান হয়েছে বাংলাদেশ। হাসিনা সরকার বরাবর ভারতকে তাদের স্বার্থের জন্য সকল দ্বার উন্মোচন করে দিয়েছেন, বদৌলতে দিল্লি খুব কমই ঢাকাকে বিনিময় দিয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে বলা যায় বাংলাদেশ বরাবরের মত উপেক্ষিত হয়েছে। এছাড়া নিজেদের ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করা ও শক্তিশালী একটি প্রতিবেশি রাষ্ট্রের অকুন্ঠ সমর্থনের জন্য বর্তমান সরকার ভারতকে সকল বিষয়ে ছাড় দিয়েছে। সমর্থন দিয়ে সরকার টিকিয়ে রাখার বিনিময়ে ছাড় হিসেবে প্রাপ্ত সুুবিধাগুলোর ভালই ব্যবহার করছে ভারত। এই ছাড়ের অংশ হিসেবে চট্রগ্রাম ও মংলা বন্দর ব্যবহার এবং পণ্যপরিবহনের ট্রানজিট হিসেবে আখাউড়া স্থলবন্দরকে নিজের মত ব্যবহার করছে ভারত। তবে বাংলাদেশ সরকার তাদের প্রাপ্ত তিস্ত পানি চুক্তি, অমীমাংসিত সীমানা চুক্তি, সীমান্ত এলাকায় বিএসএফের অবিচারে বাংলাদেশিদের খুন, ভারতে শুল্কমুক্ত বাণিজ্য সুবিধা ইত্যাদি বিষয়ের মত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে নিজেদের দাবী আদায় করতে পারছে না।
অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে আওয়ামী লীগ সরকার বাংলাদেশের চলমান বিদ্যুৎ সংক্রান্ত সংকট নিরসনে ভারতের বিদ্যুৎ স্থানান্তরের বিষয়টি নিয়ে নিজেদের গতানুগতিক অবস্থান অব্যাহত রাখবে। ভুলে গেলে চলবে না যে বিদ্যুৎ সংক্রান্ত সমস্যার সমাধানে সরকারের কুইক রেন্টাল ও ফার্নেস তেল নির্ভর বিদ্যুৎ উৎপাদন সিদ্ধান্তের কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতির বারোটা বেজে গেছে। এছাড়া ক্ষমতাসীন সরকার কিন্তু সরকারিভাবে বিদ্যুৎ উপাদনের উপর জোর দিচ্ছে না এমনকি পাবলিক-প্রাইভেট সমন্বয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদনের বিষয়েও কোন সিদ্ধান্ত নিচ্ছে না সরকার। তাই দায়িত্ব অবহেলার দোষ এড়াতে এবং মুখে উচ্চারিত ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে নিরবিছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের বিষয়ে সরকার নতুন করে কুইক রেন্টালের মত বেসরকারি পর্যায়ে বিদ্যুৎ উৎপাদনের দিকে ঝুঁকে পড়ছে।
অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে সরকারের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক স্বার্থ রক্ষার জন্য জ্বালানী বিভাগ দেশের স্বার্থ উপেক্ষা করছে। তাই এই ধরনের অনিয়ম বন্ধে সমাজের সচেতন ব্যক্তিদের সজাগ হতে হবে। সরকারকে বুঝাতে হবে সাধারণ মানুষকে আর বোকা বানানো যাবে না। নিউএইজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ