• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৮:০০ পূর্বাহ্ন |

ঘটনাস্থল বিরামপুর: বাবা যখন ধর্ষক !

Dorson-107ক্রাইম ডেস্ক: পিতৃত্বের অভাব পূরণে এক মধ্যবয়সীকে বাবা ডেকেছিলেন এক গৃহবধূ। পেতে চেয়েছিলেন স্নেহ-মমতার স্পর্শ। খানিকটা মায়ায় জড়িয়ে চেয়েছিলেন একটুখানি ভরসার জায়গা পেতে।
কিন্তু বিধি বাম। সেই ভরসার সুযোগ নিয়েই ধর্মবাবা একদিন ধারণ করে অন্যরূপ। কামনা আর লালসার থাবায় ক্ষতবিক্ষত করেন সেই তরুণী গৃহবধূকে। শুধু কি তাই, বিচার চাইতে গিয়ে ধর্মবাবার পরিবারের লোকজনের বেধড়ক লাঠিপেটা খেতে হয়েছে।
ঘটনাটি বিরামপুর উপজেলার রানীনগর গ্রামের। রোববার বিরামপুর থানায় নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছেন ওই গৃহবধূ (২৫)। মামলা দায়েরের পর পুলিশ ওই তাকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়।
মামলায় অভিযুক্ত ব্যক্তি বিরামপুরের বিনাইল ইউনিয়নের রানিনগর গ্রামের মৃত নজর উদ্দীন মণ্ডলের ছেলে মছলে উদ্দীন (৫০) তিন সন্তানের জনক। অভিযোগকারিনী দুই সন্তানের জননী ও একই গ্রামের বাসিন্দা।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কয়েক মাস আগে পিতৃহীন গৃহবধূ বাবা হিসেবে ডাকতে শুরু করেন মছলে উদ্দীনকে। এরপর মেয়ের মতোই পাতানো বাবার বাড়িতে আসা যাওয়া শুরু করেন ওই তিনি। এতে দুই পরিবারের সবার মধ্যে সম্পর্কও গড়ে ওঠে। মেয়ে হিসেবে গৃহবধূর বাড়িতেও প্রায়ই যাতায়াত করতেন মছলে উদ্দীন। এক পর্যায়ে স্বামীর অনুপস্থিতিতে ওই গৃহবধূর বাড়িতে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করেন।
এরপর গৃহবধূ তার ধর্মবাবার বাড়িতে গিয়ে পরিবারের লোকজনকে জানিয়ে বিচার দাবি করেন। এসময় বাড়ির লোকজন তার কথা উড়িয়ে দিয়ে তাকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে আহত করে। অবশেষে থানায় গিয়ে ধর্ষণ মামলা করেন নির্যাতিত গৃহবধূ।

উৎসঃ   বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ