• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৪১ পূর্বাহ্ন |

মেয়েদের দিয়ে চাঁদা আদায়ে তৎপর প্রতারক চক্র

Crimeঢাকা: রাজধানীর বারিধারার পুরোনো ডিওএইচএস এলাকায় একটি প্রতারক চক্র কৌশলে মেয়েদের দিয়ে আপত্তিকর ভিডিও করিয়ে গার্মেন্টস মালিকসহ ধনাঢ্য ব্যবসায়ীদের ব্লাকমেইল করে চাঁদা আদায় করে আসছিল।
চাঁদা না দিলে ওই সব ব্যক্তিকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করিয়ে নিয়ে নানা কৌশলে টাকা আদায় করত এ চক্র।
সোমবার বিকেল সাড়ে ৫টায় র‌্যাব-১-এর কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এভাবেই বলছিলেন এএসপি মোস্তাক আহমদ।
তার বর্ণনায় থেকে জানা যায়, এ প্রতারক চক্রের শিকার খলিলুর রহমানের (৩৯) অভিযোগের ভিত্তিতে রোববার রাতে  ক্যান্টনমেন্ট থানা এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এতে নেতৃত্ব দেন মেজর মো. আসিফ কুদ্দুস।

এএসপি মোস্তাক আহমদের দীর্ঘ বর্ণনায় দেখা যায়, ক্যান্টনমেন্ট থানার অধীন ডিওএইচএস এলাকায় সম্প্রতি কিছু অসাধু ব্যবসায়ী দেশের বিশিষ্ট শিল্পপতিদের সঙ্গে ব্যবসার খাতিরে নিবিড় সম্পর্ক গড়ে তোলেন। পরবর্তী সময়ে তারা শিল্পপতি ও ব্যবসায়ীদের ফাঁদে ফেলে ব্ল্যাকমেইল, সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে ভুক্তভোগীদের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান লিখে নেওয়াসহ মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেয়।
প্রতারক চক্রটি শিল্পপতি ও ব্যবসায়ীদের তাদের অফিসে ডেকে এনে চুক্তিবদ্ধ মেয়েদের কাজে লাগিয়ে আপত্তিকর অবস্থায় ভিডিও ধারণ করত। পরে এগুলো বাজারে প্রচার করে দেওয়া হবে বলে ওই সব ব্যবসায়ীকে ভয় দেখানো হতো। এভাবেই মূলত প্রতারক চক্রটি টাকা আদায় করত।
মোস্তাক আহমদ জানান, রোববার রাতে ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ গুলি, মাদক ও ইলেকট্রনিকস যন্ত্রপাতি উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে একটি ম্যাগাজিন, ৩৮টি ব্লাংক কার্টিজ, দুই বোতল ফেনসিডিল, একটি মোটরসাইকেল এবং বেশ কিছু কম্পিউটার ও ইলেকট্রনিকস যন্ত্রপাতি। সেই সঙ্গে ১২ জন চাঁদাবাজকে আটক করা হয়েছে বলে জানান তিনি।
গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব রাত ১০টার দিকে ক্যান্টনমেন্ট থানাধীন বারিধারার ডিওএইচএস এলাকার ৭ নম্বর রোডের ৪৪৮ নম্বর বাড়ির তৃতীয় তলায় অভিযান চালায়। এ সময় প্রতারক চক্রের সদস্য ওমর ফারুক (২০), আল ইমরান হোসেন (২৪), আতিকুর রহমান রায়হান (২৫), নিহার রঞ্জন দাস (২৫), মোদাচ্ছের রহমান রাজীব (২৩), তুহিন হোসেন (১৮), সাখাওয়াত হোসেন (৩৩), আনোয়ার হোসেন (৩৪), আল আমীন হোসেন (১৭), আইয়ুব আলী (৩৫), মঈনুল ইসলাম (২২) ও মোস্তফাকে (৩১) গ্রেফতার করা হয়।
অভিযানের সময় তল্লাশি চালিয়ে পাঁচটি কম্পিউটার চারটি ল্যাপটপ, একটি আইপ্যাড, একটি স্ক্যানার, একটি নোটবুক, একটি এলসিডি মনিটর, দুটি সিসি ক্যামেরা, ৩৮টি ব্লাংক কার্টিজ, দুটি কিউবি মডেম, সাতটি পেনড্রাইভ, সাতটি বিভিন্ন কোম্পানির মডেম, একটি টর্চলাইট, একটি স্যামসাং স্টিল ক্যামেরা, ১৫টি পাসপোর্ট, একটি ডিভিডি রাইটার, একটি মোটরসাইকেল, ১২ বোতল ফেনসিডিল ও একটি ম্যাগাজিন উদ্ধার করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ