• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৩:০১ পূর্বাহ্ন |

টাকার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে বিধ্বস্ত গণজাগরণ মঞ্চ

Gonoনিউজ ডেস্ক: চাঁদাবাজির কোটি কোটি টাকার ভাগবাটোয়ারা, নেতৃত্বের দ্বন্দ্ব, রাজনৈতিক উচ্চাভিলাষ ও সরকারের সমর্থন না পাওয়ায় গণজাগরণ মঞ্চ ভেঙে পড়েছে। কয়েক দিন ধরে গণজাগরণ মঞ্চ নিয়ে পাল্টাপাল্টি বক্তব্য পাওয়া যাচ্ছে। জানা গেছে, গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকারের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির কোটি কোটি টাকার আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে মঞ্চ প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই। সম্প্রতি ইমরানের সাথে কয়েকটি রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের দ্বন্দ্ব আরো প্রকট আকার ধারণ করেছে। গত ৩ এপ্রিল রাজধানীর শাহবাগে চেয়ারে বসা নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে। এ নিয়ে বর্তমানে গণজাগরণ মঞ্চের উদ্যোক্তাদের মধ্যে চলছে মানসিক দ্বন্দ্ব। তবে ইমরান এইচ সরকার গণজাগরণ মঞ্চের আড়ালে রাজনৈতিক দল গঠনের অভিলাষ নিয়ে এগোচ্ছেন। এ ছাড়া তিনি বলছেন, ছাত্র সংগঠনগুলোর মধ্যে কিছুটা ভুল বোঝাবুঝি হওয়ায় দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে।
ইমরানের বিরুদ্ধে যত অভিযোগ : মঞ্চের মুখপাত্র ডা: ইমরান এইচ সরকার ইতোমধ্যে চাঁদাবাজির কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচার করে দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। নিজেও দেশ ছাড়ার পরিকল্পনা করছেন। আর আন্দোলনের সাথে জড়িতরা তার কাছে হিসাব চাইছেন। রয়েছে নারী নির্যাতনের অভিযোগও। শুধু ডা: ইমরানই নয়, আন্দোলনের সাথে জড়িত আরো বেশ কয়েকজন শীর্ষ নেতা চাঁদাবাজিতে জড়িত রয়েছেন বলেও অভিযোগ আছে। তারা এখন হিসাব দিচ্ছেন না। এর মধ্যে কয়েকজন সাবেক ছাত্রনেতা ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বও রয়েছেন। গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীদের ওপর গত ৩ এপ্রিল পুলিশ ও ছাত্রলীগের হামলার পর বিষয়টি জোরালোভাবে সামনে এসেছে। গণজাগরণ মঞ্চ পর্দার অন্তরালে বিভিন্ন স্বাধীনতাবিরোধী সংগঠন থেকেও টাকা নিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ছাত্রলীগ নেতারা। এর আগে একই ধরনের অভিযোগ করেন গণজাগরণ মঞ্চের অন্যতম রূপকার শহীদুল হক। টাকার ভাগাভাগি নিয়ে হচ্ছে মিটিংয়ের পর মিটিং।
আরো অভিযোগ রয়েছে, চাঁদাবাজির বেশির ভাগ টাকা ইমরান এইচ সরকারের পকেটে চলে গেছে। মঞ্চের নামে আদায় করা টাকা কোথায় এবং কত টাকা আয় হয়েছে তার হিসাব চাইছেন সংশ্লিষ্ট ছাত্র নেতারা। এ ছাড়া এত ঝামেলা কেন হচ্ছে তা-ও জানতে চাইছেন তারা। বিষয়টি স্বীকার করেছেন মঞ্চের অন্যতম নেতা ও ছাত্রমৈত্রীর সভাপতি বাপ্পাদিত্য বসু।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, কয়েকটি বেসরকারি ব্যাংক, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, এয়ারলাইন্স, হাসপাতাল ও বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা চাঁদাবাজি করে গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা। শীর্ষ নেতাদের বিলাসী জীবন, পাঁচ তারকা হোটেলে মাসের পর মাস অবস্থান, নতুন নতুন জামা-কাপড়, নামীদামি ব্র্যান্ডের মোবাইল ফোন ইত্যাদির ব্যবহার দেখে অন্যরা শুরুতেই প্তি ছিল কিন্তু ভয়ে কিছু বলেনি। চাঁদাবাজির বিষয়টি স্বীকার করেছেন মঞ্চ চলাকালীন সাইবার হামলা প্রতিরোধ আন্দোলনের অন্যতম নেতা শেখ আসলাম। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান শুরুতে স্বতঃস্ফূর্তভাবে টাকা দিলেও পরে দিতে অস্বীকার করলে তাদের প্রতিষ্ঠান ‘রাজাকার’ নিয়ন্ত্রিত এবং সেই তালিকা শাহবাগে টাঙিয়ে দেয়ারও হুমকি দেয়া হয়। সব মিলিয়ে জামায়াতসংশ্লিষ্ট ৩৬টি প্রতিষ্ঠান চিহ্নিত করে লিফলেট বিতরণ করা হয় শাহবাগে। বড় আকারের চারটি ব্যানার টানানো হয় জাগরণ মঞ্চের চার দিকে। নাম ধরে একে একে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে মোটা অঙ্কের চাঁদা তুলেন আন্দোলনের নেতারা।
প্রকাশ্য দ্বন্দ্ব : এ দিকে ইমরানের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ ওঠায় আন্দোলনের শীর্ষ নেতাদের মধ্যে প্রকাশ্যে দ্বন্দ্ব তৈরি হয়েছে। সাধারণ মানুষের মুখরোচক সংবাদে পরিণত হয়েছে বিষয়টি। সাধারণ মানুষ বলছেন, যখন সরকারের প্রয়োজন ছিল তখন গণজাগরণ মঞ্চকে সার্বিক সহায়তা করেছে। এখন প্রয়োজন ফুরিয়েছে বলেই হস্তক্ষেপ করছে। তবে ঘটনা আর যাই হোক, সাধারণ মানুষ যা বোঝার বুঝে গেছে। শুধু তা-ই নয়, বিবিসি বাংলাদেশ সংলাপেও বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন উত্থাপিত হয়েছে।
গণজাগরণ মঞ্চের শুরুতে ছাত্রলীগ আন্দোলন ও চাঁদাবাজিতে জড়িত থাকলেও পরে কেন্দ্রীয় হাইকমান্ডের নির্দেশে সরে পড়ে। এর পর ইমরান ও বিভিন্ন বাম সংগঠনের নেতারা চাঁদাবাজির পথ প্রসারিত করে। এ ছাড়া শাহবাগ এলাকার ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থেকে প্রতি মাসে নির্দিষ্ট হারে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। শাহবাগের গণ্ডি পেরিয়ে আজিজ সুপার মার্কেট এলাকাতেও চাঁদাবাজির হাত প্রসারিত করেছেন ইমরান ও অন্যরা। এসব এলাকা নিয়ন্ত্রণ করে ছাত্রলীগ। এ নিয়ে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন ছাত্রলীগ ও মঞ্চের নেতারা।
সূত্র জানায়, আগামী পয়লা বৈশাখকে কেন্দ্র করে চারুকলার সামনে মঞ্চ বানিয়ে আবারো সভা-সমাবেশ করার পরিকল্পনা করেন ইমরান সরকার। চাঁদাবাজির নতুন রূপরেখা আঁটেন তিনি। কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ায় ছাত্রলীগ। এ নিয়ে মঞ্চের কর্মীদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। গত ৩ এপ্রিল শুক্রবার রাজধানীর শাহবাগে গণজাগরণ মঞ্চের সাথে আন্দোলন চালিয়ে আসা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের রাখা চেয়ারে বসা নিয়ে জাগরণ মঞ্চের কয়েক কর্মীর বাগি¦তণ্ডা ও মারামারির ঘটনা ঘটে। এরপরই মূলত ছাত্রলীগ-যবুলীগসহ সরকার সমর্থিত বিভিন্ন সংগঠন ও বাম ছাত্র সংগঠনগুলোর মর্ধে দূরত্ব তৈরি হয়।
ইমরান সরকারের কঠোর সমালোচনা করেছেন যুবলীগ নেতা নাসিম আল মোমিন রূপক। তিনি বলেন, ইমরান এইচ সরকার দীর্ঘ দিন ধরে ফেইসবুকে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগ ও বর্তমান সরকারকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করছিল। এ ঘটনায়ও ইচ্ছাকৃতভাবে আওয়ামী পরিবারকে জড়ানো হয়েছে।
পাল্টাপাল্টি বক্তব্য : গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকারের অগণতান্ত্রিক এবং অনৈতিক অবস্থানের কারণে গণজাগরণ মঞ্চে ভাঙন দেখা দিয়েছে বলে অভিযোগ সংশ্লিষ্ট পাঁচ বাম ছাত্র সংগঠনের। গতকাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করে ছাত্রমৈত্রী, জাসদ ছাত্রলীগ, ছাত্র আন্দোলন, ছাত্র ঐক্য ফোরাম এবং ছাত্র সমিতি। এ সময় কাউকে রাজনৈতিক দল গঠন করতে হলে মঞ্চের বাইরে গিয়ে করতে হবে বলে জানিয়ে দেন নেতারা।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ছাত্রমৈত্রীর সভাপতি বাপ্পাদিত্য বসু বলেন, সম্মিলিত সিদ্ধান্তের মাধ্যমে কর্মসূচি ও সিদ্ধান্ত উপস্থাপনের দায়িত্ব ইমরান সরকারের ওপর দেয়া হয়েছিল। কিন্তু তার অগণতান্ত্রিক এবং একতরফা সিদ্ধান্ত গ্রহণের কারণে বিভিন্ন পক্ষের মধ্যে ক্ষোভ, অসন্তোষ ও হতাশা সৃষ্টি হয়। আন্দোলনকে এগিয়ে নেয়ার স্বার্থে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করা হয়েছে।
শুক্রবারের সংঘর্ষের কারণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, এভাবে সঙ্ঘাত সংঘর্ষ চলতে থাকলে তা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে রূপ নেবে। যার চূড়ান্ত লাভ যাবে মুক্তিযুদ্ধবিরোধী শক্তির পক্ষে। ইতোমধ্যে জনসাধারণ বিভিন্ন ধরনের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। এসব তুচ্ছ ঘটনায় পুলিশের লাঠিচার্জ এবং গ্রেফতারের ঘটনা তাদের বিস্মিত করেছে।
তিনি আরো বলেন, গণজাগরণ মঞ্চের ওপর হামলার বিষয়ে ছাত্রলীগ ও যুবলীগকে দায়ী করা অযৌক্তিক।
আর্থিক অনিয়মের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে জাসদ ছাত্রলীগের সভাপতি সামছুল ইসলাম সুমন বলেন, আর্থিক অনিয়মের বিষয়ে কোনো প্রমাণ তাদের কাছে নেই।
এ দিকে গণজাগরণ মঞ্চের ব্যাপারে সরকার অবস্থান পাল্টিয়েছে বলে দাবি করে ডা: ইমরান এইচ সরকার বলেছেন, সরকারের নৈতিক অবস্থানের পরিবর্তন এবং বিচারের দীর্ঘসূত্রতার কারণে মঞ্চের সাথে বিরোধ শুরু হয়েছে।
গতকাল রাজধানীর পরিবাগে সাহিত্য বিকাশ কেন্দ্রে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমি সুনির্দিষ্টভাবে সরকারকে দায়ী করব না। তবে সরকারের কয়েকজন দায়িত্বশীল ব্যক্তি মঞ্চকে নিয়ে বিভ্রান্তিকর বক্তব্য দিয়েছেন। একই সাথে সরকারের অঙ্গ সংগঠনের নেতারা  যেসব বক্তব্য দিয়েছেন তা অনভিপ্রেত। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি দাবি করেন এককভাবে কখনো কোনো সিদ্ধান্ত নিইনি। কোনো বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে সবার সাথে আলোচনা করেই নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, একনায়কতান্ত্রিক কোনো বিষয় আমি বিশ্বাস করি না।
গণজারগণ মঞ্চের ঐক্য নিয়ে কোনো জটিলতা তৈরি হয়নি দাবি করে ইমরান বলেন, এমন কোনো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। যেসব বিষয় নিয়ে অভিযোগ উঠেছে তা নিয়ে আলোচনা করে সমাধান করা যাবে।
মঞ্চের বিরুদ্ধে আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, শুরু থেকেই মঞ্চের কর্মী-সমর্থকেরা কাজ করেছেন। যখন যা প্রয়োজন ছিল তা কর্মীরাই ব্যবস্থা করেছেন। এখানে কোনো আর্থিক লেনদেন ছিল না, ভবিষ্যতেও এটাকে অ্যাভোয়েড করব। এ ছাড়া এখানে ব্যক্তি ইমরান বিষয় নয়, মঞ্চের মুখপাত্র হওয়ার কারণে আমাকে সব প্রশ্ন ও বিতর্কের জবাব দিতে হয়। তাই ব্যক্তিকে নয়, মঞ্চকে গুরুত্ব দেয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।
প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আব্দুল কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে এই রায় না মেনে তার এবং সব যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসির দাবিতে শুরু হয় শাহবাগে আন্দোলন। প্রথম দিকে কয়েকজন ব্লগারের নেতৃত্বে আন্দোলন শুরু হলেও পরে রাজনীতি ঢুকে পড়ে সেখানে। বিভিন্ন বাম ছাত্র সংগঠন তাদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করে। এরপর সরকার দলীয় ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগ আন্দোলনের নিয়ন্ত্রণ নেয়। এভাবে শুরু হয় লাগাতার আন্দোলন। সেখানে স্থায়ী মঞ্চ তৈরি করা হয়। পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন সমাবেশেরও আয়োজন করা হয়। নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ