• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৫:০১ পূর্বাহ্ন |

প্রথম রাষ্ট্রপতি দাবি না করলেই কি হতো না?

Kaderকাদের সিদ্দিকী: লন্ডনে তারেক রহমানের বক্তৃতা দেশবাসীকে বড় বেশি মর্মাহত করেছে। মাতৃভূমি ছেড়ে অনেক দিন নির্বাসনে থাকলে একটা শূন্যতা কাজ করে। অনেক দিন নির্বাসনে থেকে আমিও সেটা মরমে মরমে উপলব্ধি করেছি। তাই একজন সাধারণ মানুষ হিসেবে ধৈর্য ধরে মাটি কামড়ে পড়ে থাকার চেষ্টা করেছি। কিন্তু তারেক রহমান তো আর সাধারণ নন, অসাধারণ। সামরিক ব্যারাকে জন্ম, সেনাবাহিনীর সর্বোচ্চ পদে পিতা চাকরি করেছেন, রাষ্ট্রপতি ছিলেন, মা প্রধানমন্ত্রী, ওসবের গরমে ছেলে গলা ফাটিয়ে বাবাকে প্রেসিডেন্ট বলায় তেমন দোষের কিছু দেখি না। কিন্তু একজন অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ বেশ কয়েকবারের প্রধানমন্ত্রী, কত ঝড়-ঝাপটার মধ্য দিয়ে দলকে বারবার জয়ী করেছেন। তিনি কেন ছেলের অসত্য কথায় মহাযুদ্ধে নেমেছেন? স্ত্রী হিসেবে বেগম খালেদা জিয়া স্বামী জিয়াকে বড় ভাবতেই পারেন। কিন্তু তাই বলে ভিত্তিহীন বড় ভাবার কোনো মানে হয় না। কী করে বীরউত্তম জিয়াউর রহমান প্রথম রাষ্ট্রপতি হবেন? মুক্তিযুদ্ধ কি সামরিক ব্যাপার নাকি রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড? তিনি কি রাজনীতি করতেন? তিনি ‘৭০-এর নির্বাচনে জয়ী হওয়া সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা ছিলেন? এর কোনোটাই তিনি নন। মুক্তিযুদ্ধের সূচনায় ক’টা লোক তাকে চিনত? বঙ্গবন্ধুর পক্ষে তার স্বাধীনতার ঘোষণা যারা অস্বীকার করে, তারা যেমন ঠিক করে না, তেমনি জিয়াউর রহমানই প্রথম রাষ্ট্রপতি এটা বলাও ঠিক না। সত্যিই যদি তিনি প্রথম রাষ্ট্রপতি হতেন তাহলে আবার মেজর বা কর্নেল হলেন কি করে? কোনো রাষ্ট্রপতি ক’দিন পরই আবার মেজর বা কর্নেল হতে পারে না, উপরাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এসবের কাছাকাছি থাকেন- অত নিচে নামেন না। ২৫ মার্চ পর্যন্ত বীরউত্তম জিয়াউর রহমান পাকিস্তানের প্রতি অনুগত ছিলেন। ২৬ মার্চ মুক্তিযুদ্ধে শরিক হন। ২৭ মার্চ আসে বঙ্গবন্ধুর হয়ে তার সেই ঐতিহাসিক ঘোষণা। ১০ অথবা ১৭ এপ্রিল সরকার গঠনের সময় পর্যন্ত যদি জিয়াউর রহমান রাষ্ট্রপতি থাকতেন তাহলে প্রবাসী সরকারের শপথ নেওয়ার সময় তাকেও তো দেখা যেত। কিন্তু দেখা গেল না কেন? বঙ্গবন্ধুকে শুধু দলীয়ভাবে বিচার করে আওয়ামী লীগ যেমন তাকে ছোট করছে, বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান এ তত্ত্ব প্রচার করে জিয়া ভক্তরাও তার চরম সর্বনাশ করলেন। ‘I Mejar Zia, do hearby declear independence of Bangladesh on behalf of our great national leader supreme commander Bangabandu Sheikh Mujibur Rahaman.’ জিয়ার কণ্ঠে এই Declearation শোনার পরও যারা বঙ্গবন্ধুকে মাইনাস করে জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার মূল ঘোষক বানাতে চান তারা হয় উন্মাদ, না হয় জ্ঞানপাপী। জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার ঘোষক বলে বঙ্গবন্ধুর বিরোধীরা কম-বেশি যতটা লাভ করেছিল, তাকে প্রথম রাষ্ট্রপতি বলে লাভের গুড় সবটুকু পিঁপড়ে দিয়ে খাইয়ে ফেললেন? রাষ্ট্রপতি হিসেবে জিয়ার কোনো আদেশ-নির্দেশ, বিশ্বের কাছে কোনো আহ্বান তার প্রিয় ভক্তরা দেখাতে পারবেন না। তাহলে এমন একজন বড়মাপের মুক্তিযোদ্ধার সম্মান নিয়ে টানাহেঁচড়া কেন?

নাসিরউদ্দিন হোজ্জার একটি গল্প বলি, এক শিক্ষক স্কুলে যাওয়ার পথে দুই সের মাংস স্ত্রীর হাতে দিয়ে বলেছিলেন, ভালো করে রান্না কর, স্কুল থেকে ফিরে খাব। শিক্ষকের অত্যন্ত রুচিশীল পরিবার। স্বামী-স্ত্রীতে ভীষণ ভাব। স্বামী স্কুলে গেলে স্ত্রী পরম আগ্রহে মাংস রান্না করে। রান্নায় ভালোবাসার খুশবু ছড়িয়ে পড়ে চারদিকে। গোসল আসল সেরে স্ত্রী স্বামীর অপেক্ষায় ছিল। এমন সময় তার ভাই-বোন, বোনজামাই হাজির। বাবার বাড়ির আত্দীয় দেখে সে পরম খুশি। খাবার সময় বয়ে যাচ্ছিল, স্বামীর ফিরতে দেরি হবে, তাই বাবার বাড়ির আত্দীয়দের খেতে দেন। অন্যান্য খাবার তো ছিলই, তার ওপর ম ম করা খুশবু ছড়ানো মাংস। ভাই-বোন, বোনজামাই খুব তৃপ্তি সহকারে খাচ্ছিল। মাংস খুবই স্বাদের হয়েছিল। ভাই-বোনেরা যখন মাংসের তারিফ করছিল তখন শিক্ষক গৃহিণী গর্ব করে ভাই-বোনদের পাতে আরও মাংস দিচ্ছে। সংসারে বাপের বাড়ির আত্দীয় এলে কম-বেশি সব বউয়েরই পাওয়ার বাড়ে। পাওয়ার দেখাতে গৃহিণী মাংসের পাতিল খালি করে ফেলে। পাতিলে মাংস নেই দেখে গৃহিণীর হুঁশ হয়, হায় হায় এখন উপায়! শাক-সবজি ভাজা, ভাজি, ছোটখাটো মাছ সবই ছিল, তারপরও স্বামী নিজে মাংস দিয়ে গেছে, বাপের বাড়ির ইষ্টিরা সব খেয়ে ফেলেছে_ এখন উপায়! উপায় আর কি? যার কেউ নেই তার আল্লাহ ভরসা। অন্য দিন বাড়ির ভেতরে এলেই হাত-মুখ ধুতে পানি দেয়, তারপর খাওয়ায়। সেদিন পানি, গামছা নিয়ে বাড়ির বাইরে দাঁড়িয়ে থাকেন। স্বামীকে দেখেই পরম তৃপ্তির হাসি হেসে পানির বদনা এগিয়ে দেন। হাত-মুখ ধুয়ে দাঁড়াতেই প্রসারিত হাতে গামছা মেলিয়ে ধরেন। পরম তৃপ্তিতে শিক্ষক খেতে বসে। চমৎকার সব রান্না, ভাজা, ভাজি, ভর্তা, মাছ, মুরগি এসব খেয়ে স্বামী বেচারার কর্মসারা। মাস্টার মানুষ শেষে লজ্জা-শরমের মাথা খেয়ে জিজ্ঞাসা করে এত কিছু খেলাম, কিন্তু একটু মাংস দিলা না? স্বামীকে এক মধুর ঝেংটি মেরে, থাকলে দিতাম না। অবাক মাস্টার, কি বল? সব মাংস খেয়ে ফেলেছ, নাকি তোমার বাপের বাড়ির ইষ্টি দেখলাম তারা খাইছে? অগি্নমূর্তি ধরে বউ বলে, জানি তুমি আমার বাপের বাড়ির লোকদের দেখতে পার না। তারা কি কোনো দিন মাংস খায় না যে, তোমার বাড়ির মাংস খেয়ে ফেলবে? তাহলে কে খেয়েছে? কে আর খাবে। এই যে মিউ মিউ করছে। তোমার এই আদরের বিড়াল খেয়েছে। কি বল? হাড্ডিসার এই বিড়াল দুই সের মাংস খেয়েছে? তবে আর বলি কি? মাস্টার হাতের ভাত ঝাড়া দিয়ে বিড়াল নিয়ে ভোঁ দৌড়। বাইরে গিয়ে দোকানিকে বলে দাঁড়িপাল্লা আর দুই সের পাথর দাও। দোকানি দাঁড়িপাল্লা এবং পাথর এগিয়ে দেয়। এক পাল্লায় বিড়াল, আরেক পাল্লায় পাথর- পাল্লা উঁচু করে দেখে সমান সমান। হাইস্কুলে অঙ্কের ২৫ বছরের শিক্ষক, এমন হিসাব জীবনে দেখেনি। ছুটে যায় বাড়িতে। ছানাবড়া চোখে জিজ্ঞাসা করে, বউগো এটা যদি বিড়াল হয় আমার মাংস কোথায়? আর এটা মাংস হলে আমার বিড়াল কই? দুই সের মাংস খেয়ে বিড়াল যে দুই সেরই থাকে এত বছর অঙ্কের মাস্টারি করলাম এমন অংক তো কখনো পেলাম না। তোমার কাছে কোনো সমাধান আছে নাকি? থাকলে বল তাড়াতাড়ি। জনাব জিয়াউর রহমানই বাংলাদেশের প্রথম প্রেসিডেন্ট এমন করলে এটা প্রমাণ করতে আসল জিয়াই না হারিয়ে যায়। স্বাধীনতার ঘোষক জিয়া, বীরউত্তম মেজর জিয়াকে পেতে গেলে বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যাবে না। তাই ভক্তদের একটু ভাবতে বলছি। কর্তৃত্ব নেতৃত্বহীন দশম সংসদের প্রথম উপনির্বাচন ছিল ২৯ মার্চ, শনিবার। নিজেদের নিজেদের নির্বাচন, তাও কত শান্তি। ৫ জানুয়ারি ভোটারবিহীন, প্রার্থীহীন নির্বাচনে শাজাহান এমপি হয়েছিল। সংসদের প্রথম অধিবেশন ছিল ২৫ জানুয়ারি। বিনা ভোটে সদস্য হয়েও সংসদে বসতে পারেনি। ২০ জানুয়ারি ইহজগৎ ছেড়ে চলে গেছে। সব জীব আত্দাকে মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে। সে করেছে, আমরাও করব। ‘৯৯ সালে আমি পদত্যাগ করায় শূন্য আসনে উপনির্বাচন হয়েছিল। এবার শওকত মোমেন শাজাহানের মৃত্যুজনিত কারণে উপনির্বাচন হলো। একে নির্বাচন বলে না। টিভি ক্যামেরায় জালিয়াতির এতসব নমুনা দেখে স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা দুর্নীতি, চুরি, জোচ্চুরিকে যদি ভালো কাজ বলে মনে করা শুরু করে তাদের দোষ দেব কী করে।

কোনটা রেখে কোনটা লিখি, এখন গিনেস বুকের জোয়ার। আমরা আন্তরিকভাবে এখন আর কোনো কিছু করতে পারি না, সব নাম ফুটানোর চেষ্টা। অনেকে নামাজ পড়ি আল্লাহকে পেতে নয়, লোক দেখাতে। জাতীয় সংগীত গাই দেশপ্রেমে নয়, গিনেস বুকে স্থান পেতে। প্রধান বিরোধী দলের নেতাও এবার গিনেস বুকে নাম তোলার জন্য আন্দোলন করবেন। এখন যাই কোথায়? আমরা গাঁও গেরামের মানুষ, হাটে ঘাটে মাঠে আমাদের চলাফেরা। গিনেস বুক কাকে বলে তা-ই তেমন জানি না। কিন্তু সবাই আছে গিনেস বুকে নাম তোলা নিয়ে। নির্বাচন কমিশন একটি স্বাধীন নিরপেক্ষ প্রতিষ্ঠান। রাজনৈতিক দল আর রাজনীতিবিদদের নিয়ে যাদের কারবার, তারা এ পর্যন্ত রাজনৈতিক দলের সঙ্গে তেমন আলাপ- আলোচনা করেনি। সেদিন ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাচন কমিশনার ন্যক্কারজনকভাবে বলেছেন, ‘নাকে খত দিয়ে বিএনপি আমাদের অধীনে নির্বাচন করছে।’ এমন নিন্দনীয় আত্দমর্যাদাহীন উক্তি অবশ্যই গিনেস বুকে স্থান পাবে। রাজনৈতিক দল নির্বাচন কমিশনের অধীন হবেন কেন? নির্বাচন কমিশন দেশের জনগণের কর্মচারী, That means-Public servant. সোজা কথায় মানুষের চাকর। রাজনৈতিক দল এবং রাজনীতিবিদ Servant বা চাকর নয়, তারা জনগণের সেবক। সেবক আর চাকরের অর্থ এক নয়- এটা বুঝাই কাকে? নির্বাচন কেন্দ্রে জালভোট হচ্ছে, প্রিসাইডিং অফিসাররা নিজেরা সিল মারছে- এগুলো ক্যামেরায় দেখেও কমিশন বলছে, নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে। বড়রা যদি শপথ নিয়ে এমন মিথ্যা বলে তাহলে ছোটরা কী করবে? এসব অতি খারাপ কাজের নিন্দা করছি। যে কমিশনারদের দক্ষতা যোগ্যতা গর্ব করার মতো হওয়ার কথা, যাদের ধৈর্য সহিষ্ণুতা হবে দেখার মতো, রাজনৈতিক খোঁচাখুঁচিতে অবিচল থাকবেন, গণ্ডারের মতো মোটা চামড়া হওয়ার কথা যাদের, তাদের এমন রসুনের চোঁচার মতো চামড়া হলে চলে কী করে? বাজে কথা ছাড়া এরা থাকতেই পারে না। এক পণ্ডিত কমিশনার বলেছেন, তারা শুধু শুধু সমালোচনা শুনবে না, তারাও জবাব দেবেন। মানে ‘ইটকা জবাব পাথ্থরছে মিলেগা’। কি আর বলি, রাস্তার মিসকিনকে কেউ কিছু বললে তারও প্রতিবাদ করার লোক পাওয়া যাবে, কিন্তু জনাবদের রাস্তায় ফেলে কাপড় তুলে থু থু দিলেও কেউ ফেরাতে যাবে না। এমন ভারসাম্যহীন কমিশন থাকলে দেশ ধ্বংস হয়ে যাবে। এখনই এদের বিদায় করা উচিত।

জাতীয় সংগীত গেয়ে গিনেস বুকে নাম তুলতে জনাব আলী যাকের, সারা যাকের, ফেরদৌস হাসান নাভিল, আইরিশ যাকের, আসাদুজ্জামান নূরের মালিকানার এশিয়াটিক মার্কেটিং অ্যান্ড কমিউনিকেশন লিমিটেড শত কোটি টাকার বাণিজ্য করেছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। একটা জিনিস বুঝি না, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশে-বিদেশে আমার কত যত্ন নিয়েছেন, যা একমাত্র মায়ের যত্নের সঙ্গে তুলনা চলে; কিন্তু বছরের পর বছর টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর মাজারে সারা দেশকে টেনে নিতে চেষ্টা করেছি, যতটুকু সহযোগিতা পাওয়ার কথা, আমার অযোগ্যতা বা অন্য যে কোনো কারণেই হোক কোনো দিন পাইনি। ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে ‘আমার সোনার বাংলা’ গাইতে শত কোটি খরচ হয়েছে। তাও আবার লাখ লাখ কণ্ঠ একত্র করতে গিয়ে আড়াই লাখের বেশি করতে পারেনি। যেখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিজে নানাভাবে সহযোগিতা করেছেন। আমাদের প্রিয় সেনাবাহিনী, পুলিশ, বিডিআর সবাই রাত-দিন পরিশ্রম করার পরও এমন হবে কেন? এসব নিয়ে চুপ থাকতে যতই চেষ্টা করি কিন্তু থাকতে পারি না, বড় বেশি কষ্ট হয়। ব্যারিস্টার ইশতিয়াক আহমেদ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ছিলেন। প্রখ্যাত আইনবিদ, অন্যতম সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেনের গণফোরাম প্রতিষ্ঠার অনুষ্ঠানে তাকে না দেখে একদিন প্রশ্ন করেছিলাম, আপনাকে তো সেদিন গণফোরামের জন্মদিনে দেখলাম না? তিনি বলেছিলেন, ভাই, আপনি তো জানেন আমার চলাফেরায় কিছুটা কষ্ট তাই যেতে পারিনি। তার কথা শুনে অবাক হয়ে বলেছিলাম, ঢাকা থেকে টুঙ্গিপাড়া, আরিচা-ফরিদপুর হয়ে আড়াইশ কিলোমিটারের বেশি, সেখানে যেতে পারলেন আর হাইকোর্ট থেকে এক দেড়শ গজ ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউট আপনার কাছে দূর মনে হলো? অট্টহাসি হেসে বলেছিলেন, ভাই, আপনি যোদ্ধা মানুষ, ওসব বুঝবেন না। আপনার আন্তরিকতা এবং চেষ্টায় ঢাকা থেকে টুঙ্গিপাড়া আমার কাছে হাইকোর্ট থেকে ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটের চেয়ে কাছে মনে হয়েছে, গেছি। ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউট দূর ঠেকেছে যেতে পারিনি_ এটার আপনি কী করবেন? বুঝেছিলাম এ দুনিয়ায় আন্তরিকতার চেয়ে বড় কিছু নেই। আমার যে কোনো দোষ নেই, ত্রুটি নেই তা নয়। তা না হলে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুবার্ষিকী পালনে অনেক আওয়ামী নেতাই চার পয়সা দিয়ে সাহায্য করেনি। কিন্তু একদিন ওয়ার্কিং কমিটিতে তখনকার সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান হিসাব দাবি করেছিলেন। মুখপোড়া মানুষ তাই বলেছিলাম, কোনো সহযোগিতা না করে হিসাব চাইলেন? আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক না হলে দেশবাসীর কাছে আপনার ব্যক্তিগত যে অবস্থান তাতে এ হিম্মত দেখাতে পারতেন না। আমি আগেই ১৬-১৭ লাখ টাকার একটা হিসাব আওয়ামী লীগ কমিটি এবং সভানেত্রীকে দিয়েছিলাম। হিসাবটা নাকি জনাব রহমানের চুলচেরা মনে হয়নি। দুই-এক লাখ গরমিল মনে হয়েছে, হতেও পারে। কারণ কোনো কাজে কর্মীদের দেওয়া ছোটখাটো টাকা-পয়সার হিসাব আমি কখনো রাখি না। তাই বড় বড় খরচেরই বয়ান ছিল তাতে। ওই সময় টুঙ্গিপাড়ায় প্রতিদিন হাজার হাজার লোক খেত। আওয়ামী লীগ তখন সেটাকে কাঙালি ভোজ বলত।

আমার কাছে ‘কাঙালি ভোজ’ শব্দটা পছন্দ ছিল না। মনে হতো শেষ পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু কি আমাদের কাঙাল বানিয়ে গেলেন। তাই নাম দিয়েছিলাম গণভোজ। বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর দিনে গণভোজ কেমন হয় বা কেমন শোনায় বলে অনেকে নিন্দা করার চেষ্টা করেছে। বোনেরও কান ভারী করেছে। কিন্তু এখন সেই আওয়ামী লীগই ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুদিনে গণভোজ করে। ছেলেবেলায় শুনেছি, সব মাছেই গু খায়, শুধু নাম পড়ে ঘাইরা মাছের। মানে আমি কিছু করলেই খারাপ, অন্যেরা করলে কিছু না। (চলবে)

লেখক : রাজনীতিক

উৎসঃ   বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ