• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৫:০৯ পূর্বাহ্ন |

মাদরাসা শিক্ষা অধিদফতর অনুমোদন পেল

Madrasa-Boardনিউজ ডেস্ক: অবশেষে দেশের সরকারি-বেসরকারি মাদরাসা শিক্ষা পরিচালনায় পৃথক অধিদফতরের কার্যক্রম শুরু হতে যাচ্ছে। মাদরাসা শিক্ষা অধিদফতর নামে এটি পরিচিত হবে। ইতোমধ্যে বিষয়টি চূড়ান্ত করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। বর্তমানে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) অধীনে মাদরাসা শিক্ষা পরিচালিত হচ্ছে । মাদরাসা শিক্ষা অধিদফতরের জন্য প্রায় সব প্রক্রিয়াই সম্পন্ন হয়েছে। জনপ্রশাসন এবং অর্থমন্ত্রণালয় থেকেও অনুমোদন পাওয়া গেছে। নতুন এ অধিদফতরের মাধ্যমে দেশের ১৭ হাজার ৯০৭টি সরকারি-বেসরকারি মাদরাসা পরিচালিত হবে। এ অধিদফতরের জন্য ৫০টি পদও সৃষ্টি করা হয়েছে। মাদরাসা শিক্ষা অধিদফতরের কাজ পরিচালিত হবে শিক্ষা ভবন থেকেই। তবে এর অফিস থাকবে ভবনটির পঞ্চম তলায়। থাকবে আলাদা মহাপরিচালকসহ অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারী।
এ দিকে মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন সূত্রে কথা বলে জানা গেছে, পৃথক মাদরাসা অধিদফতর অনুমোদন ও এটিকে দ্রুত করার মূল লক্ষ্য হচ্ছে দেশের কওমি মাদরাসাকে সরকারের নিয়ন্ত্রণে আনা। কওমি মাদরাসাগুলোকে সরকারি সিলেবাস অনুসরণে বাধ্য করা যাচ্ছে না দীর্ঘদিন থেকেই। এ নিয়ে বর্তমান সরকারের আমলে মাদরাসা শিক্ষার সংস্কারের এবং পৃথক কমিশন করা হলেও তার কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নেয়া যায়নি। বরং নতুন নতুন বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। এখন মাদরাসার জন্য পৃথক অধিদফতর অনুমোদন দেয়া হলে কওমি মাদরাসার মুরুব্বিদের আর কোনো প্রশ্ন থাকবে না বলে ধারণা। তখন কওমিকে সরকারি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসা অনেকটাই সহজ হবে।
অপর দিকে মন্ত্রণালয় ও মাধ্যমিক শিক্ষার সাথে সংশ্লিষ্টরা জানায়, দেশে মাধ্যমিক শিক্ষা অনেকটাই বেহাল দশায় রয়েছে। এখানে পৃথক অধিদফতর অর্থাৎ আলাদা মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতর প্রতিষ্ঠার দাবিতে সরকারি ও বেসরকারি মাধ্যমিক স্কুলের শিক্ষকদের আন্দোলন অনেক আগে থেকেই চলে আসছে। কিন্তু সরকারি কলেজ শিক্ষকদের ও শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তাদের বিশেষ করে বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের যে অ্যাসোসিয়েশন রয়েছে তাদের ঘোর আপত্তি ও বিরোধিতার মুখে তা হচ্ছে না। অথচ পৃথক মাদরাসা অধিদফতরের অনুমোদন তার কার্যক্রম অনেকটাই গোপনে এবং দ্রুত সম্পন্ন করে ফেলার পেছনে অন্য রহস্য রয়েছে বলে সংশয় সংশ্লিষ্টদের।
শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ইতোমধ্যে পৃথক মাদরাসা অধিদফতর প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়া শেষের পথে। এখন হবে মহাপরিচালকসহ অন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়োগের কাজ। মহাপরিচালক হিসেবে নিয়োগ পেতে ইতোমধ্যে শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তাদের মধ্য থেকে বেশ কয়েকজন জোর লবিং শুরু করে দিয়েছেন। নীতিনির্ধারক পর্যায়ে অনেকে যোগাযোগ-তদবিরও চালিয়ে যাচ্ছেন। মাদরাসা অধিদফতরের জন্য যেসব পদ সৃষ্টি করা হয়েছে তার মধ্যে একজন মহাপরিচালক, দুইজন পরিচালক, উপ-পরিচালক তিনজন, সহকারী পরিচালক সাতজন, পরিদর্শক সাতজন, সহকারী প্রোগ্রামার একজন, হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা একজন, লাইব্রেরিয়ান একজন, প্রশাসনিক কর্মকর্তা একজন, ব্যক্তিগত সহকারী তিনজন, স্টোরকিপার একজন, ডাটা এন্ট্রি অপারেটর দুইজন, ক্যাশিয়ার একজন, অফিস সহকারী-কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক একজন, হিসাব সহকারী একজন, ড্রাইভার চারজন, ডেসপাস রাইডার একজন, এমএলএসএস সাতজন, গার্ড/নাইট গার্ড তিনজন ও ঝাড়–দার দুইজন।
সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, মাউশির অধীনে মাদরাসা শিক্ষা পরিচালিত হওয়ায় সাধারণ ও মাদরাসা দু’টিতেই জট সৃষ্টি হয়। এ ছাড়া মাদরাসার শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল স্বতন্ত্র অধিদফতর। শিক্ষা ভবনের দুর্নীতি আর অনিয়মের ঘটনা অনেক পুরনো। বিশেষ করে মাদরাসা শাখায় আরো বেশি। স্বতন্ত্র অধিদফতর হলে মাদরাসা শিক্ষাকে কতটা দুর্নীতিমুক্ত করা যাবে সেটা সময়ই বলে দেবে। সংশ্লিষ্টরা আরো বলেন, নতুন অধিদফতর প্রতিষ্ঠা হলে মাদরাসা শিক্ষায় অনেক গতি আসবে। তাদের যেতে হবে না মাউশির কর্মকর্তাদের কাছে।
মাদরাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবুল কাসেম মিয়া বলেন, বর্তমানে মাউশির অধীনে মাদরাসার কাজ পরিচালিত হয়। স্বতন্ত্র মাদরাসা অধিদফতর প্রতিষ্ঠার জন্য দীর্ঘদিন ধরেই শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা দাবি করে আসছিলেন। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এ বিষয়ে বলেন, স্বতন্ত্র মাদরাসা শিক্ষা অধিদফতর প্রতিষ্ঠার দাবি দীর্ঘদিনের। আমরা সে দাবিটি বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছি। এ নিয়ে ইতোমধ্যে সিদ্ধান্তও হয়েছে। নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ