• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০২:২৮ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

স্বনির্ভরতা অর্জনে ছাগল পালন

Chagolসতীর্থ রহমান: বাংলাদেশের শতকরা ৮০ জন লোক দরিদ্র। অভাবের কারণে তারা মৌলিক চাহিদাগুলো পূরণ করতে পারেন না। দরিদ্র জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এর মধ্যে সবচেয়ে কার্যকর ও জনপ্রিয় কর্মসূচি হলো ছাগল পালনের মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচি। সরকার দারিদ্র্য বিমোচনে তৃণমূল পর্যায় থেকে এ কর্মসূচি শুরু করেছে। অর্থাৎ বাংলাদেশে যত ভূমিহীন, বেকার ও দরিদ্র মানুষ আছেন তাদের সবার কাছে সরকার ছাগল পৌঁছে দেওয়ার চিন্তা করছে, যাতে তারা স্বাবলম্বী হয়ে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে অংশগ্রহণ করতে পারেন।
ছাগল আমাদের অতিপরিচিত গৃহপালিত পশু। গ্রামে প্রায় প্রতিটি পরিবারেই দু-চারটি ছাগল পালন করা হয়। এ জন্য বেশি মূলধন, অনেক জায়গা বা চারণভূমির প্রয়োজন হয় না। এদের রোগবালাইও তুলনামূলকভাবে কম। সাধারণত মাংস ও দুধ উৎপাদনের জন্য ছাগল পালন করা হয়। কোনো কোনো জাতের ছাগলের লোম থেকে উন্নত মানের গরম কাপড় তৈরি করা যায়। বাংলাদেশের ছাগলের চামড়ার মান অত্যন্ত উন্নত। ছাগল পালন খুব লাভজনক। এদের বংশ খুবই দ্রুত বৃদ্ধি পায়। ছাগল ঘাস, লতা-গুল্ম, খড়কুটা, গাছের পাতা, ভুসি ইত্যাদি খেয়ে থাকে। ছাগলের মাংস অত্যন্ত পুষ্টিকর ও উপাদেয় খাদ্য। আট-নয় মাস বয়সে স্ত্রী বাচ্চাকে প্রজনন করাতে হয়। ছাগলের গর্ভধারণকাল সাধারণত পাঁচ মাস। ছাগল বছরে দুবার এবং প্রতিবারে গড়ে দুটি বাচ্চা দেয়। বাচ্চা, গর্ভবতী ছাগল ও পাঁঠার বিশেষভাবে যতœ নিতে হয়। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন জাতের ছাগল পাওয়া যায়। সেরা জাতের কয়েকটি ছাগল হলো : ১. ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল, ২. যমুনাপাড়ি ছাগল, ৩. বিটল ছাগল, ৪. বারবারি ছাগল, ৫. আলপাইন ছাগল, ৬. সানেন ছাগল, ৭. অ্যাংগোরা ছাগল, ৮. অ্যাংলো নোবিয়ান ছাগল ও ৯. কাশ্মীরি ছাগল।
আমরা বিভিন্ন জাতের ছাগল পালন করি। এদের মধ্যে বাংলাদেশে যেটি উৎকৃষ্ট জাত হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে সেটি হলো ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল। ছাগল পালন করে আমরা সহজেই আয়ের পথ সুগম করতে পারি। কেননা ছাগল পালন করা খুব সহজ। এতে তেমন কোনো অর্থ খরচ না করেই ভালো আয় করা যায়। ছাগল পালনে তেমন কোনো জায়গার প্রয়োজন হয় না। ছাগলের মাংস ও দুধ আমাদের প্রোটিনের চাহিদা পূরণ করে। ছাগলের চামড়া আমাদের চামড়াশিল্পকে সচল রাখতে সাহায্য করছে। তাই ছাগলের স্বভাব, জীবনধারণ প্রণালি, আর্থিক সুবিধা ও প্রোটিনের ঘাটতি পূরণের সহজসাধ্যতার জন্য সরকার ছাগল উৎপাদনের মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। বাংলাদেশের সাত কোটি মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করেন। এদের মধ্যে দুই কোটি লোক হলেন খুবই দরিদ্র। দেশের উৎপাদিত প্রায় অর্ধেক ছাগল পালন করেন ভূমিহীন কৃষক ও অন্যান্য দরিদ্র জনগোষ্ঠী। তাই সরকার ছাগলকে দরিদ্র মানুষের গরু বলে অভিহিত করেছে।
বাংলাদেশের একটি উৎকৃষ্ট জাতের ছাগল হলো ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল। এরা খুব শান্ত স্বভাবের বলে এদের পালন করাও খুব সহজ। এরা খুব কষ্টসহিষ্ণু হয়। এদের মধ্যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাটাও বেশি। এরা সহজে রোগে আক্রান্ত হয় না। এদের মাংস খুব সুস্বাদু। এদের চামড়ার মান খুবই ভালো এবং চামড়া কারখানাগুলোতে গ্রহণযোগ্যতাও বেশি। ভূমিহীন দরিদ্র কৃষক ও অসহায় দরিদ্র নারীদের মধ্যে ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল একটি অবলম্বনের নাম। ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগলের জনপ্রিয়তার কারণগুলো হলো : ১. এর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি, ২. এদের লালনপালনে অল্প জায়গা প্রয়োজন, ৩. খাদ্যাভ্যাসের পরিমিতিবোধ, ৪. খর্বাকৃতি ও শান্ত স্বভাবের কারণে সহজেই যতœ নেওয়া যায়, ৫. দরিদ্র অসহায় নারীরা সহজেই আয়ের পথ খুঁজে পান।
আমাদের জাতীয় অর্থনীতিতে ছাগলের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান দেখিয়েছে, পাঁচটি ছাগল নিয়ে একজন লোকের বছরে সাত থেকে ১২ হাজার টাকা আয় হতে পারে। বাংলাদেশের দুধের চাহিদার শতকরা ২৩ ভাগ পূরণ হয় ছাগলের দুধ দিয়ে। আর ২৭ ভাগ মাংসের চাহিদা পূরণ হয় এই ছাগলের মাংস দিয়ে। বাংলাদেশের চামড়াশিল্পের চাহিদা পূরণে ২ দশমিক ৩২ মিলিয়ন স্কয়ার মিটার চামড়া আসে ছাগল থেকে। এতে ১৮০ কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা অর্জিত হয়, যা  দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।
ছাগল পালন করতে গিয়ে বেশ কিছু সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। যেমন : ১. খাদ্যস্বল্পতা বা খাদ্যাভাব, ২. প্রজনন সমস্যা, ৩. দেশি ছাগলের নিম্ন উৎপাদন ক্ষমতা, ৪. সাধারণ লোকের ছাগলের খাদ্য ও স্বাস্থ্যসচেতনতার অভাব, ৫. উচ্চ মৃত্যুহার, ৬. রোগ প্রতিরোধে অজ্ঞতা, অক্ষমতা, ৭. পশু হাসপাতালের অভাব, ৮. দুধ সংগ্রহে অজ্ঞতা, ৯. অপর্যাপ্ত ওষুধ, ১০. প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও দক্ষ পশু চিকিৎসকের অভাব।
ছাগলের উৎপাদন বৃদ্ধিতে আমাদের যা করতে হবে তা হলো : ১. ছাগলের যমজ ও তিনটি বাচ্চা হলে কীভাবে তাদের পালতে হবে সে সম্পর্কে সাধারণ লোককে শিক্ষা দিতে হবে। ২. প্রজনন সমস্যা সমাধানে গ্রামের ভালো ছাগল খুঁজে বের করে প্রজনন করাতে হবে। ৩. ছাগলের খাদ্য সম্পর্কে শিক্ষাদান করতে হবে। ৪. এক জাতের ছাগলের সঙ্গে উন্নত এবং অন্য কোনো জাতের ছাগলের প্রজনন ঘটিয়ে ভালো ফল লাভ করা যায়। ৫. রেডিও, টেলিভিশন ও সংবাদপত্রে নিবন্ধ, নাটিকা-জীবন্তিকা, বুলেটিন প্রচার ও লিফলেটের মাধ্যমে সাধারণ মানুষকে ছাগল পালনে উৎসাহ দিতে হবে। ৬. পশু চিকিৎসায় সাহায্য জোরদার করতে হবে। ৭. পশুসম্পদ খাতকে উন্নত করতে বিভিন্ন এনজিওকে এগিয়ে আসতে হবে।
বাংলাদেশের অর্থনীতিকে সচল করতে ও দারিদ্র্য বিমোচনে ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই সরকারের দারিদ্র্য বিমোচন ও স্বাবলম্বী হওয়ার এ কর্মসূচিকে সহায়তাদানের জন্য বিভিন্ন এনজিওকে এগিয়ে আসতে হবে। দেশের সম্ভাবনাময়  এ পশুসম্পদ খাতকে উন্নত করতে হলে ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল উৎপাদন বৃদ্ধির মাধ্যমে সরকার ও জনগণকে একযোগে কাজ করতে হবে। বিনামূল্যে কিংবা স্বল্পমূল্যে ছাগল বিতরণের মাধ্যমে হতদরিদ্র, বেকার, প্রতিবন্ধী ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে স্বনির্ভর করা সম্ভব।

ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক
নুনসাহার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দিনাজপুর।

উৎস: অর্থনীতি প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ