• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৩:৫২ পূর্বাহ্ন |

হাসিনাকে ছাড়া অন্তর্বর্তী সরকার

সিসিসিসি নিউজ: সাতটি বাম দলের সমন্বয়ে গঠিত জোট গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার সাবেক সমন্বয়ক সম্পাদক সাইফুল হক বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ছাড়া অন্তর্বর্তী সরকার গঠন করতে হবে। বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয় বলে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনেরও দাবি জানান তিনি। মঙ্গলবার বিকেলে তোপখানা রোডের নির্মল সেন মিলনায়তনে গণতান্ত্রিক বামমোর্চার সংবাদ সম্মেলনে তিনি লিখিত বক্তব্যে এ দাবি জানান।
সাইফুল হক বলেন, এটা স্পষ্ট যে, এই নির্বাচন কমিশন ও তাদের অগণতান্ত্রিক তৎপরতার কারণে তাদের পক্ষে নির্বাচনের ন্যূনতম গণতান্ত্রিক পরিবেশ সৃষ্টির কোনো সুযোগ নেই। বস্তুত দেশে একটি একটি অবাধ, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের যোগ্যতা ও ক্ষমতা নির্বাচন কমিশনের নেই। সে কারণে আমরা নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের দাবি জানাই।
আরপিও সংশোধনের সমালোচনা করে বলেন, নির্বাচন কমিশনের সুপারিশক্রমে গত সোমবার জাতীয় সংসদে গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশের যে সমস্ত সংশোধনী পাশ করানো হয়েছে, তাতে নির্বাচনে কালো টাকার খেলার আইনগত সুযোগকে বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এ আইনের মাধ্যমে তাদের ঘোষিত ‘লেবেল প্লেয়িং ফিল্ড’ সৃষ্টির যে অঙ্গীকার ছিল আরপিও’র সংশোধনী ও তাদের তৎপরতা এর বিরুদ্ধাচারণ। এছাড়াও সংবাদ সম্মেলন থেকে আগামী ১ নভেম্বর বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সরকারের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে সমাবেশের ঘোষণা দেন তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- শ্রমিক কৃষক সমাজবাদী দলের আহ্বায়ক সিদ্দিকুর রহমান, বাংলাদেশের সমাজাতান্ত্রিক দলের (কনভেনশন প্রস্তুতি কমিটির) সদস্য শুভ্রাংশু চক্রবর্তী, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন নান্নু, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের আহ্বায়ক হামিদুল হক ও বাসদের (এমএল) নেতা মহিউদ্দিন চৌধুরী লিটন প্রমুখ।
এদিকে, ভারতের পানি আগ্রাসন ও শাসকদের নতজানু নীতির প্রতিবাদে তিস্তা ব্যারেজ অভিমুখে রোডমার্চ শুরু করেছে গণতান্ত্রিক বাম মোর্চা। মঙ্গলবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে এ রোডমার্চ শুরু হয়। রোডমার্চে অংশ নিয়েছেন বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ), ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগ, গণসংহতি ও বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রী। রোডমার্চ পূর্ব সমাবেশে গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার সমন্বয়ক অধ্যাপক আবদুস সাত্তার বলেন, আমরা পাঁচ হাজার কিউসেক পানি পেতাম। এখন ৩শ’ থেকে ৪শ’ কিউসেক পানি পাচ্ছি। যার কারণে আমার দেশের কৃষকরা বোরো চাষ করতে পারছে না। তিনি আরও বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মহাজোট সরকার ভারতের কাছে আমাদের অনেক স্বার্থ বিক্রি করে দিয়েছে। বিনিময়ে আমরা কিছুই পাইনি। এখন বন্ধুত্বের নামে ভারত আমাদের পানি বন্ধ করে দেবে, আমরা তো চুপ করে বসে থাকতে পারি না।
রোডমার্চ ১০ এপ্রিল তিস্তা ব্যারেজে গিয়ে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হবে বলেও জানান আবদুস সাত্তার। সেখান থেকে পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে জানা গেছে। সমাবেশে আরও উপস্থিতি ছিলেন- বাসদের ফখরুদ্দিন কবির আতিক, জোনায়েদ আলী সাকি, সাইফুল হক, শুধাংশু চক্রবর্তী প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ