• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৪:৩৬ পূর্বাহ্ন |

হিটলারের প্রেতাত্মার নবরুপ রাজনীতিবিদ ইমরান খান?

Imran Khanসিসি ডেস্ক: এক সময় ছিলেন সারা ক্রিকেট দুনিয়ার মডেল। ক্রিকেট ছাড়ার পরে হয়ে গেলেন পুরোদস্তুর রাজনীদিবিদ। দেশকে দূর্নীতিমুক্ত করতে রাজনীতিবিদদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা দিয়ে গঠন করলেন তেহরিক ই ইনসাফ। রাজনীতিবিদ হিসেবে একদিকে জনপ্রিয়তা লাভ করেছেন, অন্যদিকে অর্জন করেছেন পাকা পাকিস্তানি রাজনৈতিক নেতার গুণাবলীও। যা দূর্নীতিবিরোধী ইমরান খানকে তৈরি করেছে দূর্নীতির আশ্রয়দাতায়। আবার বিরোধীদের মত প্রকাশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী ইমরান খান সরকার গঠন করেই হয়ে গেলেন মত প্রকাশ ও সমালোচনার চরম বিরোধী। খাইবার পাখতুন প্রদেশে কোয়ালিশন সরকার গঠন করেছে ইমরান খানের দল তেহরিক ই ইনসাফ ও মুসলিম লীগ-নওয়াজ। পাঁচ মাস বয়সী ইমরান খান সরকারের বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ তুলেছে বিরোধীরা। একই সাথে সরকারের সফলতা নিয়েও প্রশ্ন আসে বিরোধীদের মধ্যে। পার্লামেন্টে সমালোচনাও করছে তারা। কিন্তু বিরোধীদের কোন ধরণের সমালোচনাই মেনে নিচ্ছেন না ইমরান খান। বরং কোন ধরণের সমালোচনা করলে কোয়ালিশন সরকার ভেঙ্গে খাইবার পাখতুনকে অশান্ত করার হুমকি দিচ্ছেন তিনি। আর ইমরান খানের এমন অগণতান্ত্রিক আচরণকে স্বেচ্ছাচারী ও স্বৈরাচারী শাসকের প্রতিমূর্তি বলেই আখ্যা দিচ্ছে তার বিরোধীরা। তালেবান ও পাকিস্তানের বিভিন্ন জঙ্গি গোষ্ঠীর সাথে ইমরান খানের সুসম্পর্কের বিষয়টি সর্বজনবিদিত। তালেবানদের সাথে সুসম্পর্কের ফলাফলও পেয়েছেন ইমরান। পাকিস্তানের সর্বশেষ নির্বাচনে আফগানিস্তানের সীমান্তবর্তী ও সন্ত্রাসীদের অভয়রণ্য খাইবার পাখতুন প্রদেশে জয় লাভ করেন ইমরান খান ও তার দল। দল জয়ী হলেও সরকার গঠনের মত আসন লাভ করতে পারেননি ইমরান খান। ইমরান খানকে সরকার গঠনের জন্য সমর্থন দেয় কেন্দ্রীয় সরকার গঠনকারী দল মুসলিম লীগ-নওয়াজ। সরকার গঠনের পর বিরোধী দলের ভূমিকা নেয় দলটি। সরকার গঠন করলেও গত পাঁচমাসে উল্লেখযোগ্য কোন সাফল্য পাননি ইমরান। বরং তার দলের নেতারা প্রদেশটিকে দূর্নীতির আখড়ায় পরিণত করেছে। স্বাভাবিকভাবেই তার সরকারের সফলতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিরোধীরা। কিন্তু বিরোধীদের সমালোচনা মেনে নেননি ইমরান খান। বরং বিরোধীরা করার কারণে সরকার ভেঙ্গে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন তিনি।
একই সাখে তালেবান অধ্যুষিত প্রদেশে কেন্দ্রীয় সরকারের কোন ধরণের হস্তক্ষেপেরও বিরোধিতা করে ইমরান খান। সাবেক এই ক্রিকেট তারকা ও পাকিস্তানের পক্ষে বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক জানিয়ে দেন, কেন্দ্রীয় সরকার খাইবার পাখতুনে কোন ধরণের অভিযান চালাতে না মেনে নেবে না তেহরিক ই ইনসাফ। এছাড়া ইমরান খান ও তার সরকারের সফলতা বা ব্যর্থতা নিয়ে কোন ধরণের প্রশ্ন তুললেও তিনি সরকার ভেঙ্গে দেওয়ার ঘোষণা দেয় ইমরান খান। এরই ধারাবাহিকতায় ইমরান খান ও তার দলের সদস্যরা পদত্যাগ পত্র নিয়ে হাজির হয় প্রদেশটির স্পিকারের কাছে। যদিও পরে তা প্রত্যাহারও করে নেন তিনি। রাজনৈতিকভাবে কোন সমস্যা সমাধানের চেষ্টা না করে পদত্যাগের হুমকিকে বিরোধীরা দেখছেন স্বেচ্ছাচারী আচরণ হিসেবে। পাকিস্তান জামায়াত উলেমা-ই-ইসলামের প্রাদেশিক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জলিল জান ইমরান খানের হুমকি প্রসঙ্গে বলেন, ‘ইমরান খানের এমন চিন্তাধারা ও হুমকি কোনভাবেই গণতন্ত্রের সাথে যায় না।’ ইমরান খানের এমন হুমকি ও সরকার পরিচালনায় স্বেচ্ছাচারীতা পাকিস্তানের গণতান্ত্রিক চেতনার জন্যও ক্ষতিকর বলেই মত দেন এই নেতা।
সাবেক প্রাদেশিক তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী ন্যাশানল পার্টি নেতা মিলান ইফতেখার হুসাইন বলেন, ইমরান খান কোনভাবেই কোয়ালিশন সরকার থেকে পদত্যাগ করবে না। বরং সরকারের ব্যর্থতা, দলীয় নেতাদের দূর্নীতিকে ঢাকতে এটাকে তুরুপের তাস হিসেবে ব্যবহার করছে। ইমরান খান দূর্নীতিবিরোধী অবস্থানের কারণেই আজকের এখানে। এখন যদি তার দলের দূর্নীতি প্রকাশ হয়, তাহলে ভবিষ্যতে ভরাডুবি হবে ইমরান খানের।
ইমরান খানের বক্তব্য ও হুমকি সম্পর্কে পাকিস্তান পিপলস পার্টির সংসদ সদস্য নিঘাত ওরাকজাই বলেন, কেবলমাত্র প্রাদেশিক সরকারেরই নয়, বিচার বিভাগেরও উচিত ইমরান খানের এমন হুমকির বিষয়কে আমলে নেওয়া। দলটির প্রধান সমস্যা সমাধানে আলোচনা না করে, পদত্যাগের হুমকিকে তিনি দেখছেন স্বৈরাচারী আচরণ হিসেবে। অবশ্য বাকীরা বিরোধী দল ইমরান খানকে স্বৈরাচার ভাবলেও তা নিয়ে ভাবছেন না ইমরান খান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ