• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:৩৯ পূর্বাহ্ন |

পার্বতীপুরে হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষের অভিযোগ

Takaপার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: পার্বতীপুরে জাতীয়করণকৃত ৮৪ বেসরকারী রেজিঃ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩২৪ শিক্ষকের বেতন ছাড় করতে শিক্ষক প্রতি ১ হাজার ও বিদ্যালয় প্রতি ৫’শ হিসেবে ৩লাখ ৬৬ হাজার টাকা উৎকোচ নেওয়ার অভিয়োগ উঠেছে উপজেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। শিক্ষক নেতাদের মাধ্যমে উপজেলা  হিসাবরক্ষণ কর্মকতা গোলাম কিবরিয়াকে টাকা দিতে শিক্ষকদের বাধ্য করেন বলে ভুক্ত ভোগী শিক্ষকরা জানিয়েছেন।
জানা গেছে, গত ২০১২ সালের ৯ জানুয়ারী সারা দেশের প্রায় ২৬ হাজার বেঃ রেজিষ্ট্রার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয় করনের ঘোষনা দেন সরকার। তা কার্যকর  হয় ২০১৩ সালের ১ জানুয়ারী থেকে। এতে পার্বতীপুর উপজেলার ৮৪টি বে-সরকারি রেজিষ্ট্রার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয় সরকারী করনের আওতায় আসে। শুরু হয় ৩২৪ জন শিক্ষকের সরকারি স্কেলে বেতন প্রদান প্রক্রিয়া। এ কারণে পূর্বের স্কেলে ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত বেতন উত্তোলনের পর থেকে স্থগিত হয়ে যায় ওই সব শিক্ষকের বেতন। ফলে এত দিন চরম দূর্ভোগে দিন কাটে স্বল্প আয়ের এসব শিক্ষক পরিবারের। নানা দাপ্তরিক প্রক্রিয়া শেষ করার পর গত ২৪মার্চ থেকে পার্বতীপুরের জাতীয়করণকৃত শিক্ষকদের পূর্বের বকেয়া, মহার্ঘভাতা, ইনক্রিমেন্ট ও এরিয়ার বিল ছাড়াই এ বছরের জানুয়ারী- মার্চ মাসের প্রারম্ভিক বেতন ছাড়ের কাজ শুরু করে উপজেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা। সরকারি করণের কারণে বর্তমান পর্যায়ে বেতন উত্তোলনের জন্য প্রায় ২০ ধরণের নথিপত্র প্রয়োজন পড়ে। এসব কাগজ পত্র যোগাড় করতে শিক্ষকদের আরো দীর্ঘ সময়ের প্রয়োজন পড়ে। শিক্ষকরা জানান, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এসব কাগজ পত্রের ভিত্তিতে প্রথম দফায় শিক্ষকদের বেতন শীট বিল আকারে প্রস্তুুত করে হিসাবরক্ষন কর্মকর্তার অফিসে পাঠালে প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র ও ত্রুটির অজুহাতে তিনি সেগুলো প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে ফেরত পাঠান। এর পর উপজেলা হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা শিক্ষক প্রতি ১ হাজার টাকা ও স্কুল প্রতি ৫’ শত টাকা দাবি করেন। বাধ্য হয়ে শিক্ষক নেতা মতিয়ার রহমান, খাদেমুল ইসলাম, মনোয়ার হোসেন ও করুনা কান্তি বিশ্বাস প্রথম পর্যায়ে ১০৫ জন শিক্ষকের কাছে  ১লাখ ৫হাজার টাকা হিসাব রন কর্মকর্তাকে দেওয়ার উদ্দ্যেশ্যে তোলেন। তাতেও কাজ না হওয়ায় শিক্ষকদের দূর্ভোগের কথা বিবেচনা করে অন্যান্য শিক্ষক নেতা মোজাম্মেল হক সরদার, সন্তোষ কুমার, মোকারম হোসেন, বিকাশ কান্তি রায় ও আনোয়ার হোসেন এগিয়ে এসে সম্মিলিত ভাবে ৮৪ বিদ্যালয়ের ফিসহ ৩২৪ জন শিক্ষকের নিকট ৩লাখ ৬৬ হাজার টাকা আদায় করেন। পরে ওই টাকার কিছু অংশ নিজেদের মধ্যে রেখে সমুদয় টাকা তুলে দেন উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তাকে।
উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, টাকা পাওয়ার পর হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা শিক্ষকদের বেতন ছাড় করেছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকটি স্কুলের শিক্ষকরা জানান, অনেকদিন ধরে বেতন ভাতা নেই। তাই নির্বিঘ্নে যাতে বেতন তুলতে পারি সেজন্য অনেকটা বাধ্য হয়েই তারা শিক্ষক নেতাদের মাধ্যমে হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তাকে এক হাজার করে টাকা দিয়েছেন। বকেয়া বিলের জন্য পরে আরও ৫০০ টাকা করে দিতে হবে বলে তারা জানান। এ ব্যাপারে শিক্ষক নেতারা টাকা তুলে হিসাব রক্ষন কর্মকর্তাকে দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, টাকা ছাড়া তো কাজ করতে গেলে অযথা কাগজে ভূল ধরা পড়ে। এ কারনে টাকা দিয়ে শিক্ষকদের বেতন ছাড় করে নেওয়া হয়েছে। তবে  টাকার পরিমান অত বেশি নয়। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষাকর্মকর্তা হাসান আতিকুর রহমান বলেন, তিনিও শিক্ষকদের কাছ থেকে টাকা তোলার কথা বিভিন্ন জনের কাছ থেকে শুনেছেন। তবে তাকে কেউ অভিযোগ করেনি।
তবে অভিযোগের ব্যাপারে উপজেলা হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়া দাবি করেন, এ ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ