• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:৪৮ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

জিয়াকে নিয়ে ড. কামালের সেই আলোচিত সাক্ষাতকার

Dr. kamalসিসি ডেস্ক: বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান সম্প্রতি লন্ডনের ওয়েস্ট মিন্সটারের সেন্ট্রাল হলে এক অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে প্রথম ‘অবৈধ প্রধানমন্ত্রী’ বলে উল্লেখ করে আলোচিত ও সমালোচিত হয়েছেন এবং হচ্ছেন। ওই অনুষ্ঠানে তারেক রহমান বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত দিয়ে প্রমাণ করার চেষ্টা করেছেন তার কথার সত্যতা। ওইসব তথ্য সূত্রের একটি ছিল ড. কামাল হোসেনের সাক্ষাৎকার, যা ২৬ আগস্ট ২০১১ সালে ‘সাপ্তাহিক’ পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছিল।

সাপ্তাহিক-এর সঙ্গে আত্মজৈবনিক এই সাক্ষাৎকারে রাজনীতি, ব্যক্তিজীবন, পেশাজীবনের সুদীর্ঘ বর্ণনা দিয়েছেন ড. কামাল হোসেন।
পাঠকদের জন্য ‘সাপ্তাহিক’ এর সৌজন্যে হুবহু সেটি প্রকাশ করা হলো।
ড. কামাল হোসেন। আইনজীবী, রাজনীতিবিদ
কলকাতা থেকে ঢাকায় এসে যে মেধাবী শিক্ষাজীবনের শুরু, আইনজীবী হিসেবে যে যাত্রাপথ, সেই পথে আছে অনেক চড়াই-উৎরাই। আছে অনেক বিপদ ও বিপত্তি। সেই উত্থানপতনকে সঙ্গে নিয়েই জীবনের পথচলা। এ পথেই জড়িয়ে গেছেন এই ভূখন্ডে রাজনীতির সঙ্গে। ইতিহাসের সঙ্গে। রাজনীতিবিদদের সঙ্গে।
হোসেন শহীদ সোহ্রাওয়ার্দী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তাজউদ্দীন আহমদের সান্নিধ্যে ঋদ্ধ ড. কামাল হোসেন জড়িয়ে আছেন বাংলাদেশের জন্ম ইতিহাসের নানান পর্বে। তরুণ আইনজীবী হিসেবে ঐতিহাসিক আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামিদের পক্ষে লড়েছেন। অংশ নিয়েছেন বিখ্যাত রাউন্ডটেবিল কনফারেন্সে।
স্বাধিকার আন্দোলনের সেই উত্তাল দিনগুলোতে সংশ্লিষ্ট থেকেছেন বঙ্গবন্ধু, তাজউদ্দীন আহমদসহ আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের সঙ্গে।
২৫ মার্চ ক্র্যাকডাউন, ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে কথোপকথন, পাকিস্তানি সেনাদের হাতে বন্দি, অতঃপর যুদ্ধ শেষে বঙ্গবন্ধুর সাথেই স্বাধীন দেশে ফিরে আসা। পরবর্তীতে স্বাধীন বাংলাদেশে আইনমন্ত্রী হিসেবে সংশ্লিষ্ট থেকেছেন বাংলাদেশের সংবিধান রচনার কাজে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবেও নতুন দেশের আর্ন্তজাতিক সম্পর্ক গঠনের নানান বাঁকে থেকেছেন সম্পৃক্ত।

সাপ্তাহিক : প্রথমে আপনার শৈশব সম্পর্কে জানতে চাই।

ড. কামাল হোসেন : আমার জন্ম কলকাতায়, ১৯৩৭ সালের ২০ এপ্রিল। যদিও আমাদের পারিবারিক সংযোগ ছিল বরিশালের সঙ্গে। আমার দাদা সৈয়দ সা’দত হোসেন ছিলেন সায়েস্তাবাদের জমিদার। সাদু মিয়া নামেই তিনি পরিচিত ছিলেন। আমার বাবা ডা. আহম্মদ হোসেন ছিলেন এমবিবিএস ডাক্তার। কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজে কয়েকজন মুসলমান ছাত্রের মধ্যে তিনি ছিলেন অন্যতম। ১৯২৯ সালে তিনি ডাক্তারি পাশ করেন। তখন থেকেই কলকাতায় তার প্র্যাকটিস শুরু।

আমার চাচা মুহম্মদ আহসান সাহেব বরিশালেই থেকে গেলেন। উচ্চশিক্ষার দিকে যাননি। বাবা ওখানকার জমিদারি দলিলপত্র করে চাচাকে দেখাশোনার দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়ে বললেন, আপনি জমিদারি, বিষয় সম্পত্তি দেখাশোনা করেন আর আমি শহরে প্র্যাকটিস করি।

বাবা সবসময় আমাকে বলতেন, দেখ আমি ডাক্তার হলাম। আমি সেই জমিদারি নির্ভর জীবন কাটাতে চাইনি। লেখাপড়ার ওপর খুব গুরুত্ব দিয়েছি। আমি চাই তোমরাও যেন জমিদারি নির্ভর হয়ে না থাক। লেখাপড়া কর, জ্ঞান অর্জন কর। নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে একটা সম্মানজনক আত্মনির্ভরশীল পেশাজীবী হিসেবে নিজেকে গড়ে তোল। বাবা এটা একদম অন্তর থেকে বিশ্বাস করতেন এবং নিজে করে দেখিয়েছেন। তাই তিনি সিএসপি পরীক্ষা দিতে আমাদের কখনোই উৎসাহিত করেননি।

সাপ্তাহিক : প্রথম ঢাকা এলেন কবে?

ড. কামাল হোসেন : আমরা প্রথম ১৯৪৭ সালে ঢাকা ভিজিট করলাম। এখানে আসার ব্যাপারে প্রস্তুতি নেয়ার জন্য। চূড়ান্তভাবে এসেছি ‘৪৯-এ। যাওয়া-আসার মধ্যে কিছু সময় গেছে। এখানে এসে বাবা ঢাকা মেডিকেল কলেজে জয়েন করলেন। ঢাকা মেডিকেল কলেজের ডিপার্টমেন্ট অব ইলেকট্রোথেরাপি তার হাতেই গড়া।

সাপ্তাহিক : আপনারা কয় ভাইবোন?

ড. কামাল হোসেন : আমরা এক ভাই এক বোন। বোন আহমদী বেগম। তিনি এখান থেকেই গ্র্যাজুয়েশন করেছিলেন।
সাপ্তাহিক : এখানে এসে কোথায় থাকলেন?

ড. কামাল হোসেন : বেইলি রোডের কাছে গুলফেশান বিল্ডিং প্রতিষ্ঠিত হয় ‘৫০ সালে। তখন আমরা এখানকার বাসিন্দা। এখন যেখানে আমার বাড়ি তখন সেখানটায় আমবাগান ছিল। গুলফেশানে থাকাকালীন বাবা বললেন এখানে কিছু জায়গা-জমি দেখি। ‘৫৪ সালে আমাদের সেই বাড়িটা করা হয়েছে। আর যেখানে এখন আমি থাকি সেটা ‘৫৬-৫৭ সালে করা।

সাপ্তাহিক : যখন বাংলাদেশে আসলেন তখন তো আপনি স্কুলের ছাত্র।

ড. কামাল হোসেন : হ্যাঁ, স্কুলের ছাত্র। আমি এসে সেন্ট গ্রেগরিতে ভর্তি হলাম। ম্যাট্রিক পরীক্ষা দিলাম ‘৫১ সালে।

সাপ্তাহিক : সেই সময়ে আপনার সহপাঠী কারা ছিলেন?

ড. কামাল হোসেন : অধ্যাপক আনিসুজ্জামান সাহেব ছিলেন। আর খুব সম্ভবত অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী সাহেবও থাকতে পারেন। তারপর আমার এক বছরের সিনিয়র ছিলেন শহীদ বুদ্ধিজীবী গিয়াসউদ্দিন সাহেব। কলেজে আমরা আবার একসঙ্গে হলাম।
সেন্ট গ্রেগরি কলেজ পরে নটর ডেম কলেজ হলো। প্রথমে লক্ষ্মীবাজারে একটা ছোট দোতলা বাড়িতে ছিল সেন্ট গ্রেগরি কলেজ। শহীদ গিয়াসউদ্দিন সাহেবও গেলেন আমার এক বছর আগে।
’৫৩ সালে সেন্ট গ্রেগরি কলেজ থেকে আমি ইন্টারমিডিয়েট পরীক্ষা দিলাম। ইউনিভার্সিটিতে আসলাম। আমাকে তারা বলল যে, আমরা তোমাকে স্কলারশিপ দিতে চাই। ফুল স্কলারশিপে তুমি আমেরিকায় যেতে পার। আর দুই বছরে তুমি বিএ অনার্স করতে পার অনায়াসে। এটা খুবই অ্যাট্রাকটিভ প্রোপোজাল ছিল বলে আমি সেটা গ্রহণ করলাম। তখন বয়স ছিল মাত্র ১৬ বছর।
১৬ বছর বয়সে তখনকার ছেলের সাত সমুদ্র পার হওয়া সহজ ছিল না। মা-বাবার একমাত্র ছেলে, এটা তাদের জন্য একটা ঝুঁকিপূর্ণ ব্যাপার ছিল। আমি আমার বাবা-মাকে এখনো ধন্যবাদ দিতে চাই যে, তারা আমাকে এত কম বয়সে ছেড়ে বলেছিলেন যে, তুমি চাইলে যাও।

সাপ্তাহিক : আপনার মা কি কিছু করতেন?

ড. কামাল হোসেন : আমার মা কোনো পেশাজীবী ছিলেন না। কিন্তু তিনি আমাদের গড়ে তুলেছেন সঠিকভাবে। আশ্চর্যের বিষয় হলো, তিনি যে মন এত শক্ত করলেন এবং বললেন, যাও, এটা ভাবাই যায় না। অথচ আমি তার একটিমাত্র ছেলে।
মা-বাবা সবসময় লেখাপড়া এবং আত্মনির্ভরশীল হওয়ার ওপর ভীষণ গুরুত্ব দিয়ে এসেছেন এবং আমিও দিয়ে এসেছি সারাজীবন। আমি তিন বছর মন্ত্রী ছিলাম। এ ছাড়া আমার জীবনে আমি কোনো কাজে বেতন নিই নাই। শুধু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে নিয়েছি। তবে সবসময়ই চেয়েছি স্বাধীনভাবে থাকব।
সাপ্তাহিক : ম্যাট্রিক এবং ইন্টারমিডিয়েটে আপনার রেজাল্ট কেমন ছিল?
ড. কামাল হোসেন : ম্যাট্রিকে আমি বোধহয় ২০-এর মধ্যে ছিলাম। সেহেতু মেরিট স্কলারশিপ নিয়ে কলেজে ভর্তি হয়েছিলাম এবং কলেজে কোনো বেতন দিতে হয় নাই। আর আইএ-তে তো আমি ফার্স্ট হলাম।

সাপ্তাহিক : ম্যাট্রিক পাস করার পর সায়েন্স না পড়ে আর্টসে গেলেন কেন?

ড. কামাল হোসেন : ঐ যে আইনজীবী হব বলে। এটা তো বহু আগে থেকেই আমার ইচ্ছা ছিল। সবসময় ভেবেছি স্বাধীন পেশায় যেতে হবে। স্বাধীনভাবে কিছু করতে হবে।

সাপ্তাহিক : স্বাধীন পেশার ক্ষেত্রে আইন পেশাকেই বেছে নিলেন, কোনো প্রেরণা কি কেউ ছিল?

ড. কামাল হোসেন : আমার মামার দিক থেকে আত্মীয় বিচারপতি ফজলে আকবর ছিলেন সমগ্র পাকিস্তানের সর্বশেষ প্রধান বিচারপতি। ‘৭১-এ উনি রিটায়ার্ড করার পর মারা গেলেন। ব্যারিস্টার হয়েও তিনি ডিস্ট্রিক্ট জজ ছিলেন। ‘৪৭-এর আগে তিনি খুলনার ডিস্ট্রিক্ট জজ ছিলেন। উনি ঢাকা হাইকোর্টের প্রথম রেজিস্ট্রার হলেন।
কলকাতায় এলে তিনি আমাদের বাসায় বসে হাইকোর্টের যত ফাইল, কাগজ ইত্যাদি সংগ্রহ করে বান্ডেল করে রাখতেন। এসব নিয়ে কাজ করতেন। পরে সেগুনবাগিচার নাসিম ভিলায় থাকতেন। ওনাকে দেখে দারুণভাবে অনুপ্রাণিত হয়েছি।
অন্যদিকে বাবার দিক থেকে হোসেন শহীদ সোহ্রাওয়ার্দী সাহেবের সঙ্গে আমাদের একটা আত্মীয়তাও ছিল, আবার বন্ধুত্বও ছিল। উনি চিকিৎসার জন্য বাবার কাছে আসতেন।
ওনাকে দেখেও কিছুটা উৎসাহিত হলাম। উনি এবং আমার মামা দুজনই আমাকে লিংকনস’ইন-এ চিঠি দিয়েছেন যে, এই ছেলেকে ভর্তি করা যেতে পারে।
এই দুইজন খুব অনুপ্রাণিত করেছেন। বাবার মুখে শুনেছি যে, আমাদের বংশের পূর্বপুরুষরা, দাদার দাদারাও নাকি জুডিশিয়াল লাইনেই ছিলেন। এটা মনে হয় একেবারে জেনেটিক ব্যাপার। তাছাড়া সবসময় স্বাধীন পেশা চাইতাম, সেটাও একটা ব্যাপার ।

সাপ্তাহিক : আপনি দেশের বাইরে পড়তে গেলেন। তারপর…

ড. কামাল হোসেন : আমি নটরডেম ইউনিভার্সিটিতে দুই বছরে ইকোনমিক্সে অনার্স করলাম।

সাপ্তাহিক : ইকোনমিক্সে আপনার আগ্রহটা ছিল কেন?

ড. কামাল হোসেন : ওখানে গিয়ে যখন চয়েজ করতে হয়েছে যে আমি ল’ করব, কোন সাবজেক্ট ভালো হবে। তখন যেহেতু একটা আইডিয়া ছিল যে, আমাদের উন্নয়নের প্রয়োজন আছে, ইকোনমিক্সের মধ্য দিয়ে উন্নয়নের ইস্যুগুলো বোঝা যাবে, আলাপ করা যাবে। তখন ইকোনমিক্স আমার কাছে গুরুত্ব পেল।
পড়তে গিয়েও বেশ ভালো লাগল। বেশ ইন্টারেস্টিং। যখন আমি নটরডেমে ভালো রেজাল্ট করলাম, এরপর তারা আমাকে ইউনিভার্সিটি অব মিশিগানে গ্রাজুয়েট স্কুলে এ্যাডমিশন দিল। কিন্তু আমি বলেছি যে, আমি ইংল্যান্ডে অ্যাডমিশন অ্যাপ্লাই করে রেখেছি। ওটা পেলে কিন্তু আমি ‘ল’ পড়তে সেখানে যাচ্ছি।
আমি ইউনিভার্সিটি অব মিশিগানে ইকোনমিক্সে মাস্টার্স কোর্স করলাম। সেখানে থাকতে থাকতে সোশ্যাল সায়েন্স রিসার্চ কাউন্সিলের স্কলারশিপও পেয়েছি। সেটা পাবার পর ওরা আমাকে গ্রাজুয়েট স্টুডেন্টশিপ দিয়েছে যাতে হার্ভার্ডে গিয়ে পিএইচডি করতে পারি। এখানে একটা কনশাস চয়েস করতে হয়েছে যে, আমি হার্ভার্ডে ইকোনমিক্সে পিএইচডি করব, না, স্কলারশিপ পেয়ে ল’ পড়তে যাব অক্সফোর্ডে। এরপরে অক্সফোর্ডে ভর্তি হয়ে গেলাম। সেটা ১৯৫৫ সাল।

সাপ্তাহিক : এটার ব্যাকগ্রাউন্ড কি এরকম হতে পারে যে, সেটা হচ্ছে ‘৩৭ থেকে ‘৫২ এই সময়টাতে বাংলাদেশের রাজনীতি, রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট এগুলো আপনাকে আন্দোলিত করেছে?

ড. কামাল হোসেন : অবশ্যই। ‘৫২ তো আমাদের ওপরে সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলেছে। ভাষা-মতিন সাহেব, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর আমার খালাত ভাই সৈয়দ আলী কবীরের খুব কাছের বন্ধু ছিলেন। তাঁর স্ত্রী সিদ্দিকা কবীর রান্নার অনুষ্ঠানের সুবাদে দেশ বিখ্যাত। ইন্টারমিডিয়েট পড়ার সময় সৈয়দ আলী কবীরের মাধ্যমে আমি মতিন সাহেবের কাছ থেকে কী কী বই পড়া যায় বা পড়া উচিত সে বিষয়ে কিছু পরামর্শ নিতাম। উনি আমাকে রেফারেন্স বইগুলো দিতেন।
যখন ভাষা আন্দোলন চলছিল তখন মতিন সাহেব আমাকে বলতেন যে, দ্যাখ আমরা আন্দোলন করছি, তুমি চিঠিপত্তর পাঠানোর জন্য এই খামগুলো লেখ। ভাষা আন্দোলনে আমার ভূমিকা ছিল মতিন সাহেবের আদেশে কিছু খাম লেখা। এটা নিয়ে আমি খুব গর্ববোধ করি।

সাপ্তাহিক : তখন আপনি নিজেই ঠিক করলেন যে আপনি ল’ পড়তে যাবেন?

ড. কামাল হোসেন : হ্যাঁ, এটা আমার বহু আগে থেকে মনস্থির করা। নটর ডেমে যখন গেছি তখন থেকে চিঠিপত্র অক্সফোর্ডে পাঠাচ্ছি যে, আমি ভর্তি হতে চাই।

সাপ্তাহিক : যখন আপনি গ্রাজুয়েশন নিলেন সে সময় আপনার বন্ধু-বান্ধব কারা ছিলেন? আপনার সহপাঠীদের মধ্যে বিখ্যাত কারা ছিলেন?

ড. কামাল হোসেন : ১৯৫৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম পাকিস্তান স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন গঠন করার একটা উদ্যোগ নেয়া হলো। তখন পুরো যুক্তরাষ্ট্রে বাঙালি ছিল হাতেগোনা মাত্র ৫-৬ জন। সেই কনভেনশনে আমি গেলাম। শিকাগোতে হয়েছিল ওই কনভেনশন। আমার সঙ্গে সেখানে দেখা হলো প্রফেসর নুরুল ইসলামের। উনিও তখন হার্ভার্ডে পড়ছেন। সেখান থেকে উনি এসেছেন। আরেকজন এসেছেন অ্যারিজোনা থেকে তিনি রেজাই করিম পরিবারের সদস্য। আর কনভেনশনে আসেননি কিন্তু ওদের মুখে শুনলাম যে, কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটিতে তখন ছিলেন জি. ডব্লিউ চৌধুরী। আর ছিলেন ঢাকা ইউনিভার্সিটির লাইব্রেরিয়ান আহমাদ হোসেন সাহেব। এই কয়েকজন বাঙালির হিসাব পেলাম, যারা তখন আমেরিকাতে আছেন।

আরও ছিলেন মোয়াজ্জেমুল হক। উনি আর দেশে ফেরেননি। আরেকজন ছিলেন ড. হাবিবুজ্জামান, যার সঙ্গে শিকাগোতে দেখা হলো। উনি দিল্লীতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থায় চাকরি করতেন। বাংলাদেশের এই ৫-৬ জনকেই দেখলাম, আউট অব টু হানড্রেড থ্রি হানড্রেড। পাকিস্তানি যারা ছিলেন, পরে তাদের ভেতর যারা নাম করেছেন তাদেরই একজন মুনীর আহম্মেদ খান। শিকাগোতে তখন তিনি ফিজিক্সের ছাত্র ছিলেন। তিনি পাকিস্তান স্টুডেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের প্রথম প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন। আমিও এই কমিটিতে ছিলাম।

সাপ্তাহিক : সহপাঠী বিখ্যাত আর কে কে ছিলেন?

ড. কামাল হোসেন : ইন্টারেস্টিং বিষয় হলো নটর ডেমে আমেরিকানদের মধ্যে সে সময় যারা ছিল তাদের মধ্যে পরে যে সবচেয়ে বিখ্যাত হলো তার নাম রিচার্ড অ্যালেন। সে আমেরিকার ন্যাশনাল সিকিউরিটি অ্যাডভাইজার হয়েছিলেন।
আমেরিকায় ওদের ডিবেটিং সোসাইটির সদস্য ছিলাম। ইন্টার ইউনিভার্সিটি বিতর্ক প্রতিযোগিতায় যোগদান করেছি, নটর ডেম ইউনিভার্সিটির পক্ষেও ডিবেট করেছি। এভাবে আমেরিকার নানান জায়গায় একটু ঘোরার সুযোগ হয়েছে।
নটর ডেমে আমার খুব ভালো বন্ধু ছিল পিটার। সে গ্রিক। কাজ করছিল ইসলামিক স্টাডিজে, ইসলামিক আর্কিটেকচারে। মিশিগান তো ডেট্রয়েড-এর কাছে। সে সময় ওখানকার পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়েছে লাইসেন্সধারী ছাত্ররা যদি গাড়ি ডেট্রয়েড থেকে ক্যালিফোর্নিয়া পর্যন্ত চালিয়ে নিয়ে যেতে পারে তো তাদের পেট্রোল খরচও দেয়া হবে, আর কিছু লামসামও দেয়া হবে। আমরা সুন্দর একটা সুযোগ পেলাম। আমাদের দুজনেরই ড্রাইভিং লাইসেন্স ছিল। দুজনই লাইসেন্স নিয়ে হাজির হলাম। একটা নতুন ফোর্ড গাড়ি আমাদের দেয়া হলো। সেই গাড়ি চালিয়ে ডেট্রয়েট থেকে ক্যালিফোর্নিয়া প্রায় ২০০০ মাইল গিয়েছি। মিশিগান থেকে ইন্ডিয়ানা, ইন্ডিয়ানা থেকে ইলিনয়, ইলিনয় থেকে মিনেসোটা, কানসাস, নিউ মেক্সিকো, কলেরাডো। আরো কত জায়গা! প্রায় সারা আমেরিকা ঘুরেছি। আমরা প্রতিদিন ৬-৭ ঘণ্টা ড্রাইভ করতাম, তারপর ঘুমাতাম। কখনো আমার বন্ধু, কখনো আমি- এভাবে পালা করে গাড়ি চালাতাম। এটা ছিল খুবই চমৎকার অভিজ্ঞতা। পুরো যাত্রা শেষ করতে ১৪ দিন সময় লেগেছে।

সাপ্তাহিক : এরপর ইংল্যান্ড গেলেন কখন?

ড. কামাল হোসেন : জাহাজ ধরে আটলান্টিক পাড়ি দিয়েছি। জাহাজে পার হয়ে লন্ডন থেকে ফ্লাইট নিয়েছি। সম্ভবত আগস্ট-সেপ্টেম্বর মাসে ইংল্যান্ডে গিয়েছি।
ইংল্যান্ডে তখন প্রফেসর রেহমান সোবহান সাহেব ছিলেন আমাদের সমসাময়িক। উনি ক্যামব্রিজে আর আমি ছিলাম অক্সফোর্ডে। ‘৫৩ থেকে ‘৫৫ সালে ছিলাম আমেরিকা। এরপর ‘৫৫-৫৭ সালে ফার্স্ট ডিগ্রি শেষ করলাম। ‘৫৭-৫৮ বিসিএল পোস্ট গ্রাজুয়েট কোর্স করলাম অক্সফোর্ডে। অক্সফোর্ডে আমি ফার্স্ট ডিগ্রি করার পরে আমাকে প্রস্তাব দেয়া হলো যে, তুমি কুইন্স কলেজের পার্টটাইম টিউটর হয়ে যাও। কুইন্স কলেজে ভালোই সম্মানি পেতাম। দেশ থেকে প্রায় কোনো টাকা নেয়ার প্রয়োজন হতো না। আর বিসিএল করার পরে আমাকে ওখানকার নাফিল কলেজে রিসার্চ স্টুডেন্টশিপ দিল। ওখানে সাধারণত ইকোনমিক্স, পলিটিক্যাল সায়েন্স, স্ট্যাটিসটিক্সের ডিগ্রিধারীরা যায়। কিছু আইনজীবীও তারা নেয়। আমাকে আইনজীবী হিসেবে সিলেক্ট করা হলো। আমার অবস্থার অসাধারণ উন্নতি হলো। থাকা, খাওয়া সবই ফ্রি।

হাতে তখন এত টাকা ছিল যে আমি বাড়িতে বলেছি আমার কোনো টাকার দরকার নেই। আমি বার পরীক্ষা দেব এবং সেটা আত্মনির্ভরশীল হয়ে করব। করেছিও। আমার রিসার্চ স্টুডেন্টশিপ ছিল, কিছু শিক্ষকতাও করেছি। টিউটোরিয়ালের জন্য ছাত্র পাঠানো হতো কুইন্স কলেজ থেকে। সেই কাজগুলো করি আমি ‘৫৮-৫৯-এ। ‘৫৮-এ বিসিএল করলাম। ‘৫৮-৫৯-এ আমার পিএইচডির রিসার্চের প্রথম ধাপ।

সাপ্তাহিক : পিএইচডি করলেন কেন?

ড. কামাল হোসেন : প্রথমত, আমি আত্মনির্ভরশীল হয়ে নিজের খরচায় বার-এট-ল করতে চেয়েছি। বাড়ি থেকে যেন আমাকে টাকা নিতে না হয়। সেটা নিশ্চিত করলাম। আরেকটা হলো যখন এটা পাওয়া যাচ্ছে একটা অভিজ্ঞতা হবে। আর বার-এট-ল করার জন্য তো ওই সময় একটা ফ্রি টাইম থাকে। বার-এট-ল পরীক্ষার জন্য দুই একমাস লাগে। কিন্তু থাকতে হয় এক বছর। কারণ এক বছর এটেন্ডেন্ট দিতে হয় লিংকস-ইন-এ।
মজার ব্যাপার হলো তিনটা টার্ম থাকে, প্রত্যেক সময় খেয়ে খাতা সই করতে হয়। ডাইনিং টার্ম বলে ওটাকে। যেহেতু ডাইনিং টার্ম, খাওয়ার জন্য অনেক সময় নষ্ট হয়। সেই সময়টা আমি কাজে লাগিয়েছি। স্যার হামফ্রি ওয়ালডগ আমার সুপারভাইজার ছিলেন, পরে তিনি ওয়ার্ল্ড কোর্টের প্রেসিডেন্ট হলেন। আমি বললাম যে, দেখেন আমার তো বার-এট-ল হয়ে গেছে, পড়াশোনাও করেছি, জ্ঞান অর্জনও কিছু করেছি।

আমার পিএইচডি’র বিশেষ কোনো প্রয়োজন ছিল না। আমি তো প্র্যাকটিস করব। তিনি বললেন, না না, বল কি তুমি তো ভালো কাজ করছ! ঠিক আছে আমি ব্যবস্থা করে দিচ্ছি। তোমাকে যে ফেলোশিপ দিয়েছে এটাকে তারা খ- খ- দিতে থাকবে। কোর্টে ছুটি হলে দু-তিন মাস তুমি এখানে এসে প্রত্যেক সামারে কাজ করে তিন বছরের মধ্যে পিএইচডি সেরে নিতে পারবে। এত ভালো অফার, তাই আমি এটা গ্রহণ করলাম।

সাপ্তাহিক : পিএইচডি শেষ করলেন কবে?

ড. কামাল হোসেন : ‘৬১-তে বোধহয় সামারের দিকে আমি যাওয়ার উদ্যোগ নিয়েছি কিন্তু সময় করতে পারিনি। ‘৬৩-তে আমি লন্ডনে গিয়েছি। ম্যাটেরিয়াল নিয়ে লেখা শুরু করলাম। ‘৫৯ থেকে তখন প্রায় ৪ বছর হয়ে গেছে। ‘৬৪-এ পাঁচ বছর হয়ে গেছে। তিন বছরের জায়গায় পাঁচ বছর। তখন স্যার হামফ্রি আমাকে লিখলেন যে, দেখ আমি আর পারছি না। আমি ফ্যাকাল্টিকে বলে বলে তোমার ম্যাক্সিমাম যেটা ছুটি দেয়া যায় তা ইতোমধ্যে দেয়া হয়ে গেছে। এখন তুমি এসে ৪-৬ মাস যদি কাটাও তবে থিসিস শেষ করে, সাবমিট করে ডিগ্রি নিয়ে যেতে পার। তাকে বললাম, ঠিক আছে আমি চলে আসব। আমি ‘৬৪-এর এপ্রিল মাসে গিয়েছি। আর সেপ্টেম্বর মাসে থিসিস সাবমিট করেছি। অক্টোবর মাসে ভাইভা পরীক্ষা হয়েছে।

সাপ্তাহিক : পিএইচডির বিষয় কী ছিল?

ড. কামাল হোসেন : স্টেট সভরেন্টি অ্যান্ড ইউনাইটেড নেশনস চার্টার্ড। এটার জন্য আমি স্যার হামফ্রির কাছে কৃতজ্ঞ। উনি যেভাবে আমাকে সুযোগটা করে দিলেন, ভাবাই যায় না।

সাপ্তাহিক : আপনি এরপরে কবে দেশে ফিরে আসলেন, প্র্যাকটিস শুরু করলেন?

ড. কামাল হোসেন : ১৯৫৯ সালের ১৬ নবেম্বর। গত ২০০৯-এ পুরো ৫০ বছর হয়েছে।

সাপ্তাহিক : ‘৫৯-এ এসে কি বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে পরিচয় হলো?

ড. কামাল হোসেন : এটা ‘৬০-৬১ সাল হবে। সোহ্রাওয়ার্দী সাহেব প্রথম যখন আসলেন।

সাপ্তাহিক : আপনি কি নিজেই কাজ শুরু করলেন নাকি কারো সঙ্গে?

ড. কামাল হোসেন : অরিজিন্যাল বলে একটা ফার্ম ছিল। এখনো আছে। সেটা শুরুর দিকের একটা ল’ ফার্ম। ওরা ঊনবিংশ শতাব্দীতে কলকাতায় ল’ ফার্ম করেছিল। ওদের একজন বাঙালি পার্টনার ওখান থেকে উদ্যোগ নিয়ে একটা ফার্ম করলেন। ‘৫৯-এ বোধহয় ২-৩ বছর হয়েছে। ঐ ফার্মে ৫-৬ জন আইনজীবী ছিলেন। আমার সঙ্গে দেখা হলে আবদুল আহমেদ বললেন, তুমি আমার এখানে জয়েন কর না কেন। জয়েন করলাম। ওখানে দুজন ইংলিশ আইনজীবীও ছিলেন। জাস্টিস মোহাম্মদ হোসেনও ছিলেন। খুবই বিখ্যাত একজন মানুষ। যিনি পরে হাইকোর্টের শ্রদ্ধাভাজন জজ হিসেবে স্বীকৃত হলেন। আমরা একই রুমে বসতাম।
ওখানে আমি ১৯৫৯ থেকে ১৯৬২ পর্যন্ত ছিলাম। ওই পিরিয়ডে সোহ্রাওয়ার্দী সাহেবের সঙ্গে দেখা হতো। উনি এখানে এলে শান্তিনগরে মানিক মিয়ার ওখানে উঠতেন। আমি দু-একবার আমার বাবার সঙ্গে এয়ারপোর্টে গিয়েছিলাম উনাকে আনতে। ওনাকে রিসিভ করতেন মুজিব ভাই, মানিক ভাই আর আমার বাবা। আমি গেছি তাদের সঙ্গে। ওই সময়ে সোহ্রাওয়ার্দী সাহেবের সঙ্গে আমার দেখা হতো। তখনকার মুজিব ভাইয়ের সঙ্গে আমার দেখা হতো। ওনার সঙ্গে আমি খুব আগ্রহ নিয়ে কথা বলতাম। জানতাম যে উনি ‘৫৪ সালে যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে শিল্পমন্ত্রী হলেন এবং সেটা স্বেচ্ছায় ছেড়ে দিলেন। মন্ত্রীত্ব ছেড়ে সংগঠক হিসেবে, সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মাঠে ঘুরছেন। আমি ওনার প্রতি খুবই শ্রদ্ধা ও আকর্ষণবোধ করতাম। পরিস্থিতি তো তখন খুবই খারাপ ছিল, মার্শাল ল’ ছিল, রাজনীতি তখন নিষিদ্ধ, পার্টিগুলো নিষিদ্ধ ছিল।

সাপ্তাহিক : এই সময়ের কোনো স্মৃতি কি মনে দাগ কেটে আছে?

ড. কামাল হোসেন : সোহ্রাওয়ার্দী সাহেবের পেছনে এয়ারপোর্ট থেকে টিকটিকি (গোয়েন্দা বাহিনীর লোক) লেগে যেত। উনি একেক সময় বেশ মজা করতেন। বলতেন, পেছনে তো টিকটিকি লেগেছে, টিকটিকিগুলোকে আমরা একটু খেলা দেখাই, ড্রাইভার একটু ডানে কাটো, একটু বামে কাটো, ঘুরিয়ে নাও গাড়িটা, এভাবে করতে করতে শান্তিনগর আসা হতো। মুজিব ভাইকে প্রশ্ন করতাম, মার্শাল ল’ কতদিন চলবে? উনি বলতেন, এখানে মার্শাল ল’ কোনোদিনই চিরস্থায়ী হবে না। এটা পাঁচ বছর, খুব বেশি হলে দশ বছর, তারপর ওদের ছাড়তেই হবে। ‘৬৯-এ আইয়ুব খান যখন বিদায় নিচ্ছেন, তখন মুজিব ভাইকে বলেছিলাম, আপনি কি করে অঙ্ক করে আমাকে ‘৫৯ সালে বলেছিলেন যে, আয়ুবের আয়ু খুব বেশি হলে পাঁচ বছর না হয় ১০ বছর হবে। ঠিক দশ বছরে এসে ‘৬৯-এর মার্চে আইয়ুব খান বাধ্য হয়েছিল মার্শাল ল’ তুলতে।

আরেকটা ঘটনা মনে পড়ে। সোহ্রাওয়ার্দী সাহেব ভিডিও করতেন। ‘৫৪-এর যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন। ক্যামেরার ফ্রেমে অনেক লোক হাত তুলেছে। সোহ্রাওয়ার্দী সাহেব মুজিব ভাইকে বলছেন, এই হাতগুলো কি আবার উঠবে? মুজিব ভাই তখন বলেছিলেন, স্যার আপনি মাঠে নামেন, দেখেন না এর চেয়ে আরো দশগুণ উঠবে। এই যে তাঁর কনফিডেন্স লেভেল, সেটা অসাধারণ। সোহ্রাওয়ার্দী সাহেবকে উনি এভাবে উৎসাহিত করতেন। বলতেন, দেখেন না আমরা মাঠে নামলে কি অবস্থা হয়। সেই স্পিরিটটা আমাকেও খুব উৎসাহিত করেছে।
মাঝেমধ্যে আমরা যেতাম সোহ্রাওয়ার্দী সাহেবের নিজের বাড়িতে। যেটা এখন ‘বিলিয়া’, ধানম-ি ৭নং সড়কে। অনেক পরে, ‘৬৩-তে সোহ্রাওয়ার্দী সাহেব মারা গেলেন। সোহ্রাওয়ার্দী সাহেবের সঙ্গে আমার শেষ দেখা ‘৬৩-এর সেপ্টেম্বরে, লন্ডনে। তাঁর স্মৃতিকথার পা-ুলিপি আমাকে দেখিয়েছিলেন। যেটা অনেক পরে আমরা উদ্ধার করেছি তাঁর ছেলের কাছ থেকে । ৬০-৭০ পাতা ওনার ডিকটেশন ছিল। তাঁর মৃত্যুর পর প্রায় ১শ’ সোয়াশ’ পাতা পেয়েছি। ঢাকা থেকে পরে আমরা এটা বই আকারে প্রকাশ করেছি। তিনি মারা যাবার পর মৃতদেহ এখানে আনা হলে লাখ লাখ মানুষ হয়েছিল। যেটা আমার কাছে একটা স্মরণীয় ব্যাপার।
সোহ্রাওয়ার্দী সাহেবের একটা ঘটনা খুব মনে পড়ে। পাকিস্তান সুপ্রিমকোর্ট লাহোরে বসত কিন্তু এখানে বছরে দুইবার করে আসত। ঢাকায় জগন্নাথ হলে বসত। এটা তখন অ্যাসেম্বলি বিল্ডিং হিসেবে ব্যবহৃত হতো। সোহ্রাওয়ার্দী সাহেবের সঙ্গে শেষ কেস, সেটা খুব সম্ভবত সুপ্রিমকোর্টেরই কেস ছিল। নারায়ণগঞ্জের র্যা লি ব্রাদার্সের নদীর ধারের জমি নিয়ে একটা কেস হয়েছিল। র্যা লি ব্রাদার্সের পক্ষে সোহ্রাওয়ার্দী সাহেব ছিলেন, আমি ছিলাম উনার জুনিয়র হিসেবে। ঘটনাটি ‘৬৩ সালের। উনি বললেন যে, আমি লাহোর যাচ্ছি, ওখানে আমার একটা হিয়ারিং আছে, দু-এক মাসের মধ্যে এখানে আবার আসব। গিয়েই উনি অ্যারেস্টেড হলেন। এটা সম্ভবত তাঁর জীবনের প্রথম গ্রেফতার হওয়া।

সাপ্তাহিক : আপনি তো কিছুকাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়িয়েছেন?

ড. কামাল হোসেন : আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পার্টটাইম শিক্ষকতাও করেছি। ‘৬১ থেকে পার্টটাইম শিক্ষকতা শুরু করি। প্রথমে আমি ইন্টারন্যাশনাল রিলেশন পড়াতাম। হিস্ট্রি অব ইন্টারন্যাশনাল ল’ পড়ানো শুরু করলাম। তার কিছুদিন পরেই জার্মানির একজন বিখ্যাত আন্তর্জাতিক ল-ইয়ার প্রফেসর ডাম এলেন ডিন হিসেবে। আমি খবর পেয়েছি যে, এসেই তিনি আমাকে খুঁজছেন। আমি গেলাম। বললেন, আমি শুনেছি তুমি ইন্টারন্যাশনাল ল’ বিষয়ে রিসার্চ করা লোক, তো তুমি ল’ ফ্যাকাল্টিতে নেই কেন? যদিও আমি ল’ ফ্যাকাল্টিতে যেতে চেয়েছি কিন্তু তখন আমাকে বলা হয়েছিল এই বিভাগে এখন জায়গা নেই। বিচারপতি হামুদুর রহমান তখন ভাইস চ্যান্সেলর। আমাকে বললেন যে, তুমি বিসিএল করেছ। অক্সফোর্ডে ডিগ্রি করেছ, ব্যারিস্টার হয়েছ, ইউনিভার্সিটিতে কেন আসবে?
আমি বললাম, আপনি বুঝতে পারছেন না, আমি তো শিক্ষকতা দেশের বাইরেও করেছি। আমার শিক্ষকতা করার একটা বিশেষ আগ্রহ আছে। বললেনÑ না, না, না তুমি গিয়ে প্র্যাকটিস কর। উনি আমাকে এভাবে দূরে রাখলেন। প্রফেসর ডাম বললেন, ‘না। তুমি স্পেশালাইজড লোক, আমি তোমাকে ল’ ফ্যাকাল্টিতে চাই। আমি দুই সেকশন নেব, তুমি দুই সেকশন নেবে। তারপর আমি ‘৬৮ সাল পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছি।

সাপ্তাহিক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যারয়ের খ্যাতিমান শিক্ষক অধ্যাপক আবদুর রাজ্জাক সাহেবের সঙ্গে আপনার যোগাযোগ কেমন ছিল?

ড. কামাল হোসেন : খুবই ঘনিষ্ঠ ছিলাম তার। খুবই শ্রদ্ধা করতাম। রাজ্জাক সাহেব তো আমাদের সকলের স্যার। ঢাকা ইউনিভার্সিটিতেই তার সঙ্গে আমার প্রথম দেখা হয়েছে। আনিসুজ্জামান, খান সারওয়ার মুরশিদ, মোশারফ হোসেন, মুস্তাফা নূরউল ইসলাম, ড. মল্লিক, জিল্লুর রহমান সিদ্দিকী এঁদের নিয়ে আমাদের একটা ঘনিষ্ঠ সার্কেল ছিল সে সময়।
আনিসুজ্জামানের সঙ্গে আমার ঘনিষ্ঠতা ছিল। আমরা বন্ধু ছিলাম। আনিসের মাধ্যমে স্যারের সঙ্গে পরিচিত হলাম। স্যার বলতেন, তুমি অক্সফোর্ড থেকে বিসিএল করেছ, তোমাকে শিক্ষকতা করতেই হবে। এসব বার-টার বাদ দাও। উনি খুব উৎসাহ দিতেন, বলতেন, পিএইচডি শেষ না করে এসেছ, তোমাকে শেষ করতেই হবে। আমি দেখি তোমার জন্য প্লেনের ব্যবস্থা করে দেব। ট্রাভেল ফেলোশিপ নিয়ে দেব ইত্যাদি। এভাবে সেই ‘৬৪ সালে তার আশীর্বাদ নিয়ে আমি ৬ মাসে পিএইচডি শেষ করে এলাম।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আমাদের এই গ্র“পটা খুবই লাইভলি গ্র“প ছিল। মানে শিক্ষকদের মধ্যে যাদেরকে মনে করা হতো যে, না, এরা মার্শাল ল’ মানে না। তখন আমাদের বিরুদ্ধে রিপোর্টও হয়েছে যে, এরা কমনরুমে বসে মার্শাল ল’এর বিরুদ্ধে কথা বলে। আমাদেরকে সেটা আবার বলাও হয়েছে যে, তোমাদের বিরুদ্ধে রিপোর্ট হচ্ছে।
খান সারওয়ার মুরশিদ সে সময় একটা পত্রিকা বের করতেন ‘নিউ ভ্যালুজ’ নামে। পত্রিকাটা আমাকে আকৃষ্ট করেছিল। কিছু লেখাও দিয়েছি সেখানে। পত্রিকাটিকে কেন্দ্র করে, কমনরুমে ডিসকাশন সার্কেলও ছিল আমাদের। সেখানে রাজ্জাক সাহেবের সঙ্গে সম্ভবত প্রথম পরিচয়। সেটা আনিসুজ্জামানই করিয়ে দেয়। মার্শাল ল’ হওয়ার পর-পর রাজ্জাক স্যার হার্ভার্ডে চলে গিয়েছিলেন ভিজিটিং ফেলো হিসেবে। দেড় বছরের মধ্যে উনি সেখানে বসে পেপার লিখেছেন, ‘ডিফেন্স এ্যান্ড ডেমোক্র্যাসি’ নামে। তিনি বলেছেন, গবেষণাতে দেখা যায় কোনো দেশে মিলিটারি ডিফেন্স বাজেট যখন ৩০-৪০ শতাংশর উপরে চলে যায় তখনই সিভিলিয়ান গভর্নমেন্ট অকেজো হয়ে যায়। তখন ওইসব দেশে মার্শাল ল’ হয়। হার্ভার্ডের এই রিসার্চটা আমাদের ডিসকাশন সার্কেলে পরে দিয়েছিলেন তিনি। গোয়েন্দা সংস্থার কাছে এটা রিপোর্ট হয়েছে। ওনার বিরুদ্ধে বিশেষ করে বলা হলো যে, উনি এসব কাজ করছেন। সেভাবে সবাই একটু সতর্ক হলাম যে, আমাদের ওপর এ রকম একটা নজর রাখা হচ্ছে।

তার খুবই ঘনিষ্ঠ ছিলেন ড. মাজহারুল হক। প্রফেসর মোজাফ্ফর আহমেদ চৌধুরীও ঘনিষ্ঠ ছিলেন। আর তাঁর দাবা খেলার বন্ধু ছিলেন প্রফেসর কাজী মোতাহার হোসেন। আমাদের মুজিব ভাইও বলতেন, উনি তো আমাদের সকলের স্যার, আমারও স্যার।
স্বাধীনতার পর ১৯৭৩ সালে ঢাকা ইউনিভার্সিটি অর্ডিন্যান্স হওয়ার সময় তাদের অবদান ছিল। তারা সব করে দিলেন। মুজিব ভাই তখন বলেছিলেন, এই যে এত অটনমি (স্বায়ত্তশাসন) দেয়া হলো, এটা কি হজম করতে পারবে ইউনিভার্সিটি? এটা তার দূরদর্শিতা। বললেন, স্যাররা করে দিয়েছেন তো আমিও কিছু বলতে পারি না, তোমারও কিছু বলার কথা না। আমি ল’ মিনিস্টার হিসেবে বলেছি, সবই স্যাররা করে দিয়েছেন। আমাদের কী বলার থাকবে? সব ব্যাপারে তো নির্বাচন হয়, হেড অব ডিপার্টমেন্ট, ডিন, ভাইস চ্যান্সেলর। তখন মুজিব ভাই বলেছিলেন, এতগুলো ইলেকশন কি হজম করা যাবে?

সাপ্তাহিক : সোহ্রাওয়ার্দী সাহেবের সঙ্গে তো আপনি কাজও করলেন, কাছে থেকেও দেখেছেন, তার পেশাজীবন সম্পর্কে যদি বলেন।

ড. কামাল হোসেন : প্রথম তো তাকে রোল মডেল হিসেবে দূর থেকে দেখেছি। তিনি বিসিএল করেছেন, আমিও বিসিএল করব। ব্যারিস্টার হয়েছেন, আমিও হব ইত্যাদি। আর তার সার্টিফিকেট নিয়ে ভর্তি হয়েছি ওখানে। উনি যখনই এখানে আসতে লাগলেন আমি অ্যাটেন্ড করতাম। কয়েকটা কেসে তিনি নিজে বলতেন, বিশেষ করে বিনা বিচারে যাদের আটক করা হয়েছে সেসব ক্ষেত্রে। সবচেয়ে স্মরণীয় ঘটনা ছিল মওলানা ভাসানী যখন আটক হলেন। এটা ‘৬১ অথবা ‘৬২ সালের কথা। ভাসানী অনশনে চলে গেলেন। সোহ্রাওয়ার্দী সাহেবকে বলা হচ্ছে যে, আপনি ওনার পক্ষে দাঁড়ান। আমিও অতি আগ্রহের সঙ্গে গেছি। তিনি গেলে তো পাঁচ-দশজন তরুণ এমনিই জুটত। সম্ভবত সেটা শুক্রবার ছিল। তখন তো শুক্রবারে কোর্ট বসত। শনি-রবি ছুটি ছিল।

তিনি খুবই নাটকীয়ভাবে বললেন যে, আমাদের প্রবীণ নেতাকে মার্শাল ল’-এ আটক করেছে ধানম-ির কোনো বাড়িতে। উনি অনশনে আছেন। এখন তো আমি চাই যে, ওনার ইমিডিয়েটলি রিলিজ অর্ডার হয়ে যাক। তার জীবনের ব্যাপারে আমাদের একটা দায়িত্ব আছে। কোর্ট বার বার বলছে যে, দেখুন, আজ তো শুক্রবার, এখন তো প্রায় দুটো বাজে। কি করে আজকে আমরা উনাকে ছেড়ে দিই? রাষ্ট্রপক্ষকে তো কিছু বলার একটা সুযোগ দিতে হবে। একটা দিন তো যেতে হবে, সোমবার প্রথম আওয়ারে দেখা যাবে।

তখন তিনি বললেন, আমি আর কিছুই বলছি না, হয়ত আপনাদের আর কষ্ট করা লাগবে না। সোমবারে আপনারা হয়ত তাঁর জানাজায় যেতে পারবেন! এই কথা শুনে জজ সাহেব খুব অসহায় বোধ করলেন। সোহ্রাওয়ার্দী সাহেব এ রকম কথা বললেন! আমরাও খুব নার্ভাস হয়ে গেলাম। আমি বললাম, না, এটা তো খুব সাংঘাতিক ব্যাপার, মওলানা সাহেব যদি অন্তরীণ অবস্থায় মারা যান? সোহ্রাওয়ার্দী সাহেব বললেন, এটা তো কোর্টে বলেছি। আমি কি মনে করেছি যে উনি মারা যাবেন? না। তবে দেখ এটার ইফেক্ট হবে, কালকেই ওনাকে ছেড়ে দেবে। সেটাই হলো। শনিবারে ভাসানীকে মুক্ত করে দেয়া হলো। মানে ভয় পেয়ে গেল যে, যদি কিছু একটা হয়ে যায় তো সরকারের ওপর এটার দায়িত্ব বর্তাবে।

সাপ্তাহিক : সোহ্রাওয়ার্দী সাহেবের আইন পেশা সম্পর্কে কিছু ঘটনা যদি বলেন?

ড. কামাল হোসেন : অনেকেই মনে করত, তিনি এত ব্যস্ত মানুষ, সারাদিন এত লোক তার কাছে আসছেন, রাজনৈতিক আলোচনা করছেন, তিনি নিজে বিভিন্ন জায়গার দাওয়াত গ্রহণ করছেন, এত ব্যস্ততার মধ্যেও তিনি ওকালতি করতেন কিভাবে? তিনি সাধারণত রাত এগারোটা-বারোটায় ফিরতেন। বলতেন যে, আমার বইগুলো রেখে যাও, ব্রিফগুলো রেখে যাও আমি রাতে পড়ব। সকালে গেছি, আমাকে বলছেন, হ্যাঁ, এই দশটা বই কেন দেয়া হয়েছে? এগুলো তো প্রাসঙ্গিক বই না। দশটার মধ্যে পাঁচটা ভালো, বাকিগুলো আমার খামোখা সময় নষ্ট করেছে, ইত্যাদি।
বুঝতাম যে, উনি বইগুলোর লাইন বাই লাইন পড়েন। কোনটা প্রাসঙ্গিক কোনটা অপ্রাসঙ্গিক, সব উনি পড়েন। তারপর আলাদা করে রাখেন। যখন পড়েন, প্রত্যেক লাইন, দাড়ি, কমা পর্যন্ত মার্ক করেন। আমি নিজে বই পড়ার এই কায়দাটা ওনার কাছ থেকে শিখেছি।

আমাকে বলতেন, বই দিয়ে কেস হয় না, কেস হয় ফ্যাক্ট-এর ওপরে। প্রত্যেক কেসের ফ্যাক্ট ইউনিক। প্রত্যেক কেসের বৈশিষ্ট্য আলাদা। এটার ওপরে আর্গুমেন্ট করবে। তারপর কোন আইনটা প্রাসঙ্গিক সেটা দেখাবে। আর কেসের ফ্যাক্ট বাদ দিয়ে যেই তুমি শুধু বই পড়া শুরু করবে, আসল জিনিস থেকে তোমার দৃষ্টি অন্যদিকে ঘুরে যাবে। আমার পেশাগত জীবনে আমি এই কথার অ্যাপ্লিকেশনটাও দেখেছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ