• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১০:০৪ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি জিতু গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ শ্রেণিকক্ষে রাবি শিক্ষিকাকে মারতে গেলেন ছাত্র! অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযােগ এনজিও’র দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার জলঢাকায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কর্মশালা ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার

পানির হিস্যা আদায়ে আন্দোলন আরও জোরদার করা হবে

IMG_2327হাসান মাহমুদ ও সোহানা শাহী, তিস্তা ব্যারেজ থেকে: তিস্তাসহ অভিন্ন সব নদীর পানির হিস্যা আদায়ে চলমান আন্দোলন আরও জোরদার করার ঘোষণা দিয়েছে গণতান্ত্রিক বাম মোর্চা। এ আন্দোলন আরও বেগবান করতে আগামী ১৬ এপ্রিল ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিমুখে বিক্ষোভ কর্মূসূচি এবং মে মাসের যেকোনো দিন (পরে তারিখ ঠিক করবে)ঢাকায় জাতীয় কনভেনশন করার ঘোষণা দিয়েছে আন্দোলনকারীরা।

 তিন দিনব্যাপী তিস্তা ব্যারেজ  অভিমুখে রোডমার্চের বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টায় তিস্তা ব্যারেজ সংলগ্ন লালমনিরহাটের দোয়ারী বাজারে সমাপনী সমাবেশে বাম মোর্চার সমন্বয়কারী অধ্যাপক আব্দুস সাত্তার এসব কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

 অধ্যাপক আব্দুস সাত্তার বলেন, তিস্তায় পানি নেই দায় ভারত সরকারের। অন্যদিকে বাংলাদেশের সরকার তিস্তার পানি নিয়ে কোনো দরকষাকষি করেনি। ৪২ বছরে ঘুরে ফিরে যারা ক্ষমতায় এসেছে, তারা সবাই তোষণ নীতি করেছে। তারা শুধু পারে বাংলাদেশের সম্পদ বিদেশিদের হাতে তুলে দিতে।

তিস্তার পানি সমবন্টনের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, নদীর ৩৫ ভাগ পানি রেখে সমঅংশদারিত্বের ভিত্তিত্বে উভয় দেশের মধ্যে ভাগাভাগি করতে হবে। শুকনো মওসুমে তিস্তার মূল মুখে ন্যূনতম ৮ হাজার কিউসেক পানি তিস্তা ব্যারেজের জন্য নিশ্চিত করতে হবে। একইভাবে উজানের নদীর গতিপ্রবাহ রোধকারী সব স্থাপনা অপসারণ ও প্রকল্পসমূহ সরিয়ে নিতে হবে।

অন্যদিকে অবিলম্বে বাংলোদেশ সরকারকে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক নদী সংক্রান্ত কনভেনশনে স্বক্ষর করার দাবি জানান তিনি।

বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারন সম্পাদক সাইফুল হক বলেন, হাসিনা ভারতের কাছে দাসখত দিয়েছে। আমরা কারও কাছে দাসখত দেই নাই। ভারত গত ৫ জানুয়ারির অবৈধ নির্বাচনে অধিষ্ঠিত সরকারকে সমর্থন দিয়েছে।

তিনি বলেন, এই শতাব্দীতে পানির জন্য একটি যুদ্ধ হবে। বাংলাদেশের মানুষকেও আরও একটি যুদ্ধ করতে হবে। আর তা হলো পানির হিস্যা আদায়ের যুদ্ধ।

তিনি বলেন, প্রমত্তা তিস্তা এখন ধূ ধূ বালুচর। কৃষকের মুখ ফেটে চৌচির। তিস্তার পানির অধিকার আদায়ে আন্দোলন জোরদার করার কথা বলেন তিনি।

গনসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি বলেন, স্বাধীনতাত্তর সময়ে ভারত বাংলাদেশের উপর আগ্রাসী চালিয়েছে কিন্তু দেশের কোনো সরকারই এর প্রতিবাদ করেনি। ভারত যখন যা চায় বাংলাদেশ তা দিচ্ছে,বিনিময়ে আমরা কিছুই পাচ্ছি না। সমুদ্রে গ্যাস ব্লক, সুন্দরবন ধ্বংস করে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র ভারতকে দেওয়া হয়েছে।সীমান্তে প্রতিনিয়ত বিএসএফ গুলি করে মানুষ মারছে। অথচ বাংলাদেশ সরকার এর দায় নিচ্ছে না। তিস্তাসহ অভিন্ন নদীর পানির হিস্যা থেকে আমাদের বঞ্চিত করছে।

তিনি বলেন, গদি রক্ষা করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত যা চাইছে তাই দিচ্ছে। অন্যদিকে নরেন্দ্র মোদি ভারতের ক্ষমতায় যাবে বলে বিএনপি-জামায়াত তাকে সমর্থন দিচ্ছে।

 জোনায়েদ সাকি বলেন, শুধু তিস্তার পানির জন্য আমাদের লড়াই নয়। বাংলাদেশের শাসক দালালদের বিরুদ্ধেও আমাদের লড়াই। তাদের উৎখাতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

 গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু বলেন, ভারত বাংলাদেশে রাজনৈতিক কর্তৃত্ব করায়ত্ব করতে চায়। পানির হিস্যা না দিয়ে আ্মাদের না খেয়ে মারতে চায়। আমরা তা হতে দেব না।

 সমাবেশে কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতারা বক্তব্য রাখেন।

এর আগে সকাল পৌনে ১০টায় রংপুর থেকে রোডমার্চের গাড়িবহর তিস্তা ব্যারেজ অভিমুখে রওয়ানা দেয়। পথে রংপুরের পাগলাপীর ও নীলফামারীর জলঢাকায় সমাবেশ করে করে বিকেল পৌনে ৫টায় তিস্তা ব্যারেজ এলাকায় পৌছে।

গত মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে তিস্তা ব্যারেজ অভিমুখে যাত্রা শুরু করে রোডমার্চের গাড়িবহর। প্রথম দিন বগুড়া এবং দ্বিতীয় দিন রংপুরে রাত্রীযাপন করে বাম মোর্চার নেতাকর্মীরা। পথে বিভিন্নস্থানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে তারা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ