• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১০:১০ অপরাহ্ন |

আমি এই শতকের এক ছাওয়াল

93545228_o_20073
সাহিত্য ডেস্ক: আবদেললতিফ লাবি ফরাসি ভাষায় লেখিয়ে মরক্কোর একজন গুরুত্বপূর্ণ কবি। তিনি ১৯৪২ সালে মরক্কোর ফেজ শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ফরাসি ভাষার শিক্ষক ছিলেন। ১৯৬৬ সালে দ্বিতীয় হাসানের স্বৈরাচারি শাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হন এবঙ অন্যান্য কবিদের সাথে শিল্পসাহিত্যবিষয়ক একটি পত্রিকা প্রকাশ করেন। চিত্রশিল্পী, চলচ্চিত্রনির্মাতা, থিয়েটারঅলা, গবেষক ও চিন্তাবিদদের একত্রিত হবার জন্যে যারা অতি গুরুত্বপূর্ণ মিডিয়া ও শক্তি হিসেবে কাজ করছিলো, তাদের পত্রিকাটি ১৯৭২ সালে নিষিদ্ধ করা হয়। এবং ১৯৭২ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত তিনি কারা ভোগ করেন। তারপর ১৯৮৫ সালে মরক্কো সরকার তাকে জোরপূর্বক প্যারিসে নির্বাসনের পাঠায় এবং বর্তমানে সেখানেই তিনি স্থায়িভাবে বসবাস করছেন। কবিতা লেখার পাশাপাশি তিনি বহু আরবি সাহিত্য ফরাসি ভাষায় অনুবাদ করেন এবং কিছু উপন্যাস ও স্মৃতিকথা লেখেন। তাঁর একগুচ্ছ কবিতা অনুবাদ করেছেন কবি মমিন মানব।
কবিতাবৃক্ষ
আমি একটা কবিতাবৃক্ষ। বিজ্ঞানিরা বলেন, আমি নাকি বিপন্ন প্রজাতির অন্তর্ভুক্ত, কিন্তু সাম্প্রতিককালে লাল ভল্লুক ও আফ্রিকান হাতিগুলো বাঁচাতে আহ্বান জানানো সত্ত্বেও কেউ কিছুতেই কর্ণপাত করছে না।
কিছুদিন জনমনে প্রশ্ন থাকে, কিন্তু আমি বলি এটা স্মৃতির বিভ্রাট। দিনকে দিন যখোন মানুষের স্মৃতি পরিপূর্ণতায় পৌঁছায়, অতিতের ভারি অংশ নিচে জমতে থাকে আর নতুন ভালোবাসার জন্যে জায়গা তৈরি করে।
এখনকারদিনে পুরনো প্রজাতিগুলোতে আগ্রহ দেখায় না। তারা এমোন বৃক্ষ আবিস্কার করে যেগুলো তড়তড়িয়ে বড় হয় এবঙ শুধু জল ও রোদ নিয়ে বাঁচতে পারে, আর যেগুলো শান্ত ও ঝোপঝাড়শূন্য।
আমি একটা কবিতাবৃক্ষ। তারা আমাকে নিপূণভাবে ব্যবহারের চেষ্টা করেছে, কিন্তু তাদের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হলো; আমি নিজেই আমাকে বদলাতে ওস্তাদ। ঋতু ও কালের চক্র পরিবর্তনগুলো আমাকে নিয়ে মাথা ঘামায় না। আমার যে ফলগুলো ধারণ করি সেগুলো কখনোই এক রকম হয় না। কোনো কোনো সময় আমি ওগুলো অমৃত রসে ভরে রাখি, এবঙ অন্যান্য সময় খুব তিতা; এবঙ যখোন আমি দূর থেকে উড়ে আসা পাখিগুলো আশ্রয় দেই, আমি কাঁটা দিয়ে ঢেকে রাখি।
মধ্যে মধ্যে আমি নিজেকে প্রশ্ন করি: আমি কী সত্যিই কোনো বৃক্ষ? তখোন আমি হাঁটতে ভয় পাই, নোঙরা ভাষায় কথা বলতে ভয় পাই। আমি একটা কুঠার মুঠি করি এবঙ আমার গরিব পড়শিটার ধড় নামিয়ে দেই। অতএব আমার সমস্ত শক্তি দিয়ে আমি আমার শিকড় আকড়ে থাকি। ওদের অসীম শিরার ভিতর আমি অনুসরণ করি আদিম কান্না ধ্বনি আর ভেঙে দেই ভাষার গোলকধাঁধা। আমি সুতার মাথাটি আঁকড়ে ধরি এবঙ সেটা টান দেই আলো ও সঙগিতকে মুক্ত করতে। সেটা নিজেই আমার কাছে ছায়া হয়ে আমার কাছে ধরা দেয়। আমি মুকুল বানাই যা আমাকে খুশি করে আর ফুল ফোটার দিকে আগায়। এই সবকিছুই ঘটে রাতের চাদরের তলে, নক্ষত্র ছোঁয়ায় আর বিরল কিছু পাখিদের সুরে যারা বেছে নিয়েছে মুক্তির গান।
আমি একটা কবিতাবৃক্ষ। ক্ষণজিবি ও শাশ্বত সবকিছুর দিকে তাকিয়ে আমি মুখ টিপে টিপে হাসলাম।
আমি এখোনও জীবন্ত।
দারুণ দরবেশ
যখোন দরবেশ লোকটি বুনতে শিখলো বিলেতি সুতা, কাশ্মিরি শাল, এবঙ সিল্কের চাদর, সে ছিঁড়ে ফেললো তার মোটা উলের জোব্বা এবঙ নিজেই নিজেকে বললো: আমি এই কাপড়-চোপড় পড়ে আরও আরাম বোধ করবো। এসব আরও প্রসন্ন করবে আমার আনত জানু। আমি তখোন চুল-দাঁড়ি ছাঁটতে যাই, দিনে তিনবার দাঁত মাজি, জার্মানি ক্যালগ্নি সুগন্ধি লাগাই, আমার ছিঁড়াফাঁড়া জায়নামাজটা ফেলে দিয়ে নিয়ে আসি আসল জেমুর মাদুর। আমার ঈশ্বরের কাছে আমাকে পরিপাটি করে প্রকাশ করি এবঙ এটা বলতেও সাহস পাই যে, আজ প্রার্থনা হবে বিশুদ্ধ। তারপর, আমি আর ভিক্ষবৃত্তির উপর বেঁচে থাকলাম না। আমি সত ও সন্মানজনক জীবিকার খুঁজে বের হলাম। আমি আমার দয়ামায়ার সাথে মিশে যাই, ওদের তন্ময়তার সাথে ঘনিষ্ঠ হই, ওদের ধর্মবিদ্বেষি কথাগুলো খুঁজে বের করি এবঙ পার্থিব রহস্যে ভিতর ঢুকতে শুরু করি, ওদের সাঙসারিক সুফলগুলো ভোগ করি, এবঙ আস্তে আস্তে নিগূঢ় রহস্যের দিকে ফিরিয়ে আনি। সবকিছুর পরে, আমার জীবনে শুধু বাহ্যিক পরিবর্তনই আসেনি, নিগূঢ় রহস্যের দিকে নতুনতর পথের মধ্য দিয়ে আমি এগিয়ে যাই, সেটা-ই হলো দারুণ দরবেশ জীবন।
আমি এই শতকের এক ছাওয়াল
আমি মন খারাপ করা এই শতকের এক ছাওয়াল
যে কোনদিন বেড়ে ওঠেনি
আমি আমতাআমতা করছি
চুলার আগুনে ঠেলে দিতে আমার জিহ্বা
তবু আমার ডানাগুলো পুড়ে
আমি হাঁটি হাঁটি পা পা করে হাঁটতে শিখেছি
তারপর শিখেছি সেটা ভুলে যেতেও
আমি অগুণতি প্রহর পাড় করেছি মরুদ্ধানের ক্লান্তি নিয়ে
আর বিনাশের নেশায় এক পাল উটের ব্যগ্রতা নিয়ে
আমি আজ শুয়ে আছি পথের মধ্যিখানে
ঘুরে দাঁড়িয়েছি প্রাচ্যের দিকে
আর প্রহর গুনছি মরুদেশের মাতাল পদাতিকদলের আশায়
পাণ্ডুলিপি
আমার কোনো ধারণা ছিলো না যে শয়তান- অথবা ইবলিশ তার বন্ধুদের তুলনায় ছিলো খুব বেটে, পরের বদনাম ছড়াতে পারদর্শি ও জোতাচোর।
যখোন সে আসল এবঙ চুপচাপ আমার পাশে বসলো, আমি লেখার টেবিলের বসে ছিলাম। আমি অতি ক্ষমতাবান কেউ নয়, কিন্তু আমার মাথা উচা মানুষ। আমি খুব সহজেই তাকে উপেক্ষা করতে পারতাম, এটাও দোষগুণ লক্ষ না করে। বৃত্তান্ত অনুযায়ী তার নাকটা লম্বা হবার কথা। তার একটা চোখে কোনো পাপড়ি ছিলো না। একটি সাতমাথাঅলা তাঁরার উলকি আঁকা ছিলো তার ঠোঁটের উপর।
এইরকম পরিক্ষানিরিক্ষা ও জানাশোনার পর, আমি ঠাণ্ডামাথায় কাজে ফিরে এলাম। আমি নিজেকে বললাম, ভালো, খুব ভালো, ইবলিশবিষয়ক একটি কবিতা। যে মূহুর্তগুলো আমি এসব ভাবছিলাম, আমার বন্ধুবান্ধব সবাই রেগে গেলো। আমি দেখলাম খুব সরু একটা হাত তার পকেট থেকে বের হয়ে আসলো এবঙ আমার লেখার কাগজের উপর রাখলো। আমি যে যে শব্দ লেখলাম, তার সাথে অন্য একটি করে শব্দ যোগ করলো, আমি অবশ্যই বলতে হবে, এটা ছিলো নামকরণের আসল অনুভূতি। কিন্তু, আমি যদি তার অভিমতগুলো গ্রহণ না করতাম এবঙ সাথে সাথে মুছে দিতাম, তখোন সেও আমার মতো করে জবাব দিতো।
আমরা একবার লেখলাম এবঙ অনেক সময় লাগিয়ে আবারও লেখলাম যতোক্ষণ না ফোনটা বেজে ওঠলো। আমি কলটা ধরলাম আর কেউ কথা বলবে সেই অপেক্ষায় থাকলাম। কিন্তু সেই প্রান্তে কেউ ছিলো না। আমি ধপাস করে ফোনটা রেখে দিলাম।
এই হাস্যকর ঘটনার ফাঁকে ইবলিস তো উধাও, সাথে করে নিয়ে গেছে আমাদের পাণ্ডুলিপিটা।
জ্বালিয়ে দাও দুপুররাতের পিদিম
বছরে চারবার হলেও তুমি অবশ্যই সারারাত জেগে থাকবে।
এর চেয়ে বেশি পাগলামি করার জন্যে আমার আশেপাশে তেমন কেউ নেই। যখোন তুমি একান্ত নিজের, একটা আস্ত ঘুমশূন্য রাত খারাপ কীসের। এসবকিছুতেই কমবেশি অঙশ নিতে হয়। একমাত্র তখোন এই শহর তোমার কাছে খোলাসা হবে মৃত্যুর চিন্তা ভুলিয়ে দিয়ে। বিদঘুটে সবকিছুই ওঁঝার মতোন কাজ করে যায়। মোয়াজ্জিনেরা রাস্তার কোণায় মাতাল হয়ে পড়ে থাকা। একটা দম্পতি যারা বিয়ে করেছিলো ভোরবেলায়, তাদের আঁকা ছবিটা সবসময় থাকতো। কারার ঐ লৌহ কপাট গানের সুরে গরম হয়ে ওঠে পানশালা। শয়তান কথার মধ্যে তার বাম হাত ঢুকিয়ে দেয় আর টোপ ফেলে, হাওয়াকে খেতে দেয় গন্ধম। পা মাড়িয়ে যায় নক্ষত্রের ধনভাণ্ডার। লেবু মাখা সুস্বাদু সামদ্রিক খাবারের মতোন যৌনতার স্বাদ জেগে ওঠে মুখে ।
শোনো, ভবঘুরেরাই শুধু কবি হতে পারে।
আবদেললতিফ লাবি ফরাসি ভাষায় লেখিয়ে মরক্কোর একজন গুরুত্বপূর্ণ কবি। তিনি ১৯৪২ সালে মরক্কোর ফেজ শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ফরাসি ভাষার শিক্ষক ছিলেন। ১৯৬৬ সালে দ্বিতীয় হাসানের স্বৈরাচারি শাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হন এবঙ অন্যান্য কবিদের সাথে শিল্পসাহিত্যবিষয়ক একটি পত্রিকা প্রকাশ করেন। চিত্রশিল্পী, চলচ্চিত্রনির্মাতা, থিয়েটারঅলা, গবেষক ও চিন্তাবিদদের একত্রিত হবার জন্যে যারা অতি গুরুত্বপূর্ণ মিডিয়া ও শক্তি হিসেবে কাজ করছিলো, তাদের পত্রিকাটি ১৯৭২ সালে নিষিদ্ধ করা হয়। এবং ১৯৭২ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত তিনি কারা ভোগ করেন। তারপর ১৯৮৫ সালে মরক্কো সরকার তাকে জোরপূর্বক প্যারিসে নির্বাসনের পাঠায় এবং বর্তমানে সেখানেই তিনি স্থায়িভাবে বসবাস করছেন। কবিতা লেখার পাশাপাশি তিনি বহু আরবি সাহিত্য ফরাসি ভাষায় অনুবাদ করেন এবং কিছু উপন্যাস ও স্মৃতিকথা লেখেন। তাঁর একগুচ্ছ কবিতা অনুবাদ করেছেন কবি মমিন মানব।
কবিতাবৃক্ষ
আমি একটা কবিতাবৃক্ষ। বিজ্ঞানিরা বলেন, আমি নাকি বিপন্ন প্রজাতির অন্তর্ভুক্ত, কিন্তু সাম্প্রতিককালে লাল ভল্লুক ও আফ্রিকান হাতিগুলো বাঁচাতে আহ্বান জানানো সত্ত্বেও কেউ কিছুতেই কর্ণপাত করছে না।
কিছুদিন জনমনে প্রশ্ন থাকে, কিন্তু আমি বলি এটা স্মৃতির বিভ্রাট। দিনকে দিন যখোন মানুষের স্মৃতি পরিপূর্ণতায় পৌঁছায়, অতিতের ভারি অংশ নিচে জমতে থাকে আর নতুন ভালোবাসার জন্যে জায়গা তৈরি করে।
এখনকারদিনে পুরনো প্রজাতিগুলোতে আগ্রহ দেখায় না। তারা এমোন বৃক্ষ আবিস্কার করে যেগুলো তড়তড়িয়ে বড় হয় এবঙ শুধু জল ও রোদ নিয়ে বাঁচতে পারে, আর যেগুলো শান্ত ও ঝোপঝাড়শূন্য।
আমি একটা কবিতাবৃক্ষ। তারা আমাকে নিপূণভাবে ব্যবহারের চেষ্টা করেছে, কিন্তু তাদের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হলো; আমি নিজেই আমাকে বদলাতে ওস্তাদ। ঋতু ও কালের চক্র পরিবর্তনগুলো আমাকে নিয়ে মাথা ঘামায় না। আমার যে ফলগুলো ধারণ করি সেগুলো কখনোই এক রকম হয় না। কোনো কোনো সময় আমি ওগুলো অমৃত রসে ভরে রাখি, এবঙ অন্যান্য সময় খুব তিতা; এবঙ যখোন আমি দূর থেকে উড়ে আসা পাখিগুলো আশ্রয় দেই, আমি কাঁটা দিয়ে ঢেকে রাখি।
মধ্যে মধ্যে আমি নিজেকে প্রশ্ন করি: আমি কী সত্যিই কোনো বৃক্ষ? তখোন আমি হাঁটতে ভয় পাই, নোঙরা ভাষায় কথা বলতে ভয় পাই। আমি একটা কুঠার মুঠি করি এবঙ আমার গরিব পড়শিটার ধড় নামিয়ে দেই। অতএব আমার সমস্ত শক্তি দিয়ে আমি আমার শিকড় আকড়ে থাকি। ওদের অসীম শিরার ভিতর আমি অনুসরণ করি আদিম কান্না ধ্বনি আর ভেঙে দেই ভাষার গোলকধাঁধা। আমি সুতার মাথাটি আঁকড়ে ধরি এবঙ সেটা টান দেই আলো ও সঙগিতকে মুক্ত করতে। সেটা নিজেই আমার কাছে ছায়া হয়ে আমার কাছে ধরা দেয়। আমি মুকুল বানাই যা আমাকে খুশি করে আর ফুল ফোটার দিকে আগায়। এই সবকিছুই ঘটে রাতের চাদরের তলে, নক্ষত্র ছোঁয়ায় আর বিরল কিছু পাখিদের সুরে যারা বেছে নিয়েছে মুক্তির গান।
আমি একটা কবিতাবৃক্ষ। ক্ষণজিবি ও শাশ্বত সবকিছুর দিকে তাকিয়ে আমি মুখ টিপে টিপে হাসলাম।
আমি এখোনও জীবন্ত।
দারুণ দরবেশ
যখোন দরবেশ লোকটি বুনতে শিখলো বিলেতি সুতা, কাশ্মিরি শাল, এবঙ সিল্কের চাদর, সে ছিঁড়ে ফেললো তার মোটা উলের জোব্বা এবঙ নিজেই নিজেকে বললো: আমি এই কাপড়-চোপড় পড়ে আরও আরাম বোধ করবো। এসব আরও প্রসন্ন করবে আমার আনত জানু। আমি তখোন চুল-দাঁড়ি ছাঁটতে যাই, দিনে তিনবার দাঁত মাজি, জার্মানি ক্যালগ্নি সুগন্ধি লাগাই, আমার ছিঁড়াফাঁড়া জায়নামাজটা ফেলে দিয়ে নিয়ে আসি আসল জেমুর মাদুর। আমার ঈশ্বরের কাছে আমাকে পরিপাটি করে প্রকাশ করি এবঙ এটা বলতেও সাহস পাই যে, আজ প্রার্থনা হবে বিশুদ্ধ। তারপর, আমি আর ভিক্ষবৃত্তির উপর বেঁচে থাকলাম না। আমি সত ও সন্মানজনক জীবিকার খুঁজে বের হলাম। আমি আমার দয়ামায়ার সাথে মিশে যাই, ওদের তন্ময়তার সাথে ঘনিষ্ঠ হই, ওদের ধর্মবিদ্বেষি কথাগুলো খুঁজে বের করি এবঙ পার্থিব রহস্যে ভিতর ঢুকতে শুরু করি, ওদের সাঙসারিক সুফলগুলো ভোগ করি, এবঙ আস্তে আস্তে নিগূঢ় রহস্যের দিকে ফিরিয়ে আনি। সবকিছুর পরে, আমার জীবনে শুধু বাহ্যিক পরিবর্তনই আসেনি, নিগূঢ় রহস্যের দিকে নতুনতর পথের মধ্য দিয়ে আমি এগিয়ে যাই, সেটা-ই হলো দারুণ দরবেশ জীবন।
আমি এই শতকের এক ছাওয়াল
আমি মন খারাপ করা এই শতকের এক ছাওয়াল
যে কোনদিন বেড়ে ওঠেনি
আমি আমতাআমতা করছি
চুলার আগুনে ঠেলে দিতে আমার জিহ্বা
তবু আমার ডানাগুলো পুড়ে
আমি হাঁটি হাঁটি পা পা করে হাঁটতে শিখেছি
তারপর শিখেছি সেটা ভুলে যেতেও
আমি অগুণতি প্রহর পাড় করেছি মরুদ্ধানের ক্লান্তি নিয়ে
আর বিনাশের নেশায় এক পাল উটের ব্যগ্রতা নিয়ে
আমি আজ শুয়ে আছি পথের মধ্যিখানে
ঘুরে দাঁড়িয়েছি প্রাচ্যের দিকে
আর প্রহর গুনছি মরুদেশের মাতাল পদাতিকদলের আশায়
পাণ্ডুলিপি
আমার কোনো ধারণা ছিলো না যে শয়তান- অথবা ইবলিশ তার বন্ধুদের তুলনায় ছিলো খুব বেটে, পরের বদনাম ছড়াতে পারদর্শি ও জোতাচোর।
যখোন সে আসল এবঙ চুপচাপ আমার পাশে বসলো, আমি লেখার টেবিলের বসে ছিলাম। আমি অতি ক্ষমতাবান কেউ নয়, কিন্তু আমার মাথা উচা মানুষ। আমি খুব সহজেই তাকে উপেক্ষা করতে পারতাম, এটাও দোষগুণ লক্ষ না করে। বৃত্তান্ত অনুযায়ী তার নাকটা লম্বা হবার কথা। তার একটা চোখে কোনো পাপড়ি ছিলো না। একটি সাতমাথাঅলা তাঁরার উলকি আঁকা ছিলো তার ঠোঁটের উপর।
এইরকম পরিক্ষানিরিক্ষা ও জানাশোনার পর, আমি ঠাণ্ডামাথায় কাজে ফিরে এলাম। আমি নিজেকে বললাম, ভালো, খুব ভালো, ইবলিশবিষয়ক একটি কবিতা। যে মূহুর্তগুলো আমি এসব ভাবছিলাম, আমার বন্ধুবান্ধব সবাই রেগে গেলো। আমি দেখলাম খুব সরু একটা হাত তার পকেট থেকে বের হয়ে আসলো এবঙ আমার লেখার কাগজের উপর রাখলো। আমি যে যে শব্দ লেখলাম, তার সাথে অন্য একটি করে শব্দ যোগ করলো, আমি অবশ্যই বলতে হবে, এটা ছিলো নামকরণের আসল অনুভূতি। কিন্তু, আমি যদি তার অভিমতগুলো গ্রহণ না করতাম এবঙ সাথে সাথে মুছে দিতাম, তখোন সেও আমার মতো করে জবাব দিতো।
আমরা একবার লেখলাম এবঙ অনেক সময় লাগিয়ে আবারও লেখলাম যতোক্ষণ না ফোনটা বেজে ওঠলো। আমি কলটা ধরলাম আর কেউ কথা বলবে সেই অপেক্ষায় থাকলাম। কিন্তু সেই প্রান্তে কেউ ছিলো না। আমি ধপাস করে ফোনটা রেখে দিলাম।
এই হাস্যকর ঘটনার ফাঁকে ইবলিস তো উধাও, সাথে করে নিয়ে গেছে আমাদের পাণ্ডুলিপিটা।
জ্বালিয়ে দাও দুপুররাতের পিদিম
বছরে চারবার হলেও তুমি অবশ্যই সারারাত জেগে থাকবে।
এর চেয়ে বেশি পাগলামি করার জন্যে আমার আশেপাশে তেমন কেউ নেই। যখোন তুমি একান্ত নিজের, একটা আস্ত ঘুমশূন্য রাত খারাপ কীসের। এসবকিছুতেই কমবেশি অঙশ নিতে হয়। একমাত্র তখোন এই শহর তোমার কাছে খোলাসা হবে মৃত্যুর চিন্তা ভুলিয়ে দিয়ে। বিদঘুটে সবকিছুই ওঁঝার মতোন কাজ করে যায়। মোয়াজ্জিনেরা রাস্তার কোণায় মাতাল হয়ে পড়ে থাকা। একটা দম্পতি যারা বিয়ে করেছিলো ভোরবেলায়, তাদের আঁকা ছবিটা সবসময় থাকতো। কারার ঐ লৌহ কপাট গানের সুরে গরম হয়ে ওঠে পানশালা। শয়তান কথার মধ্যে তার বাম হাত ঢুকিয়ে দেয় আর টোপ ফেলে, হাওয়াকে খেতে দেয় গন্ধম। পা মাড়িয়ে যায় নক্ষত্রের ধনভাণ্ডার। লেবু মাখা সুস্বাদু সামদ্রিক খাবারের মতোন যৌনতার স্বাদ জেগে ওঠে মুখে ।
শোনো, ভবঘুরেরাই শুধু কবি হতে পারে।

– See more at: http://rnews24.com/art-literature/2014/03/31/20073#sthash.cJXb1xFd.dpuf

আবদেললতিফ লাবি ফরাসি ভাষায় লেখিয়ে মরক্কোর একজন গুরুত্বপূর্ণ কবি। তিনি ১৯৪২ সালে মরক্কোর ফেজ শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ফরাসি ভাষার শিক্ষক ছিলেন। ১৯৬৬ সালে দ্বিতীয় হাসানের স্বৈরাচারি শাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হন এবঙ অন্যান্য কবিদের সাথে শিল্পসাহিত্যবিষয়ক একটি পত্রিকা প্রকাশ করেন। চিত্রশিল্পী, চলচ্চিত্রনির্মাতা, থিয়েটারঅলা, গবেষক ও চিন্তাবিদদের একত্রিত হবার জন্যে যারা অতি গুরুত্বপূর্ণ মিডিয়া ও শক্তি হিসেবে কাজ করছিলো, তাদের পত্রিকাটি ১৯৭২ সালে নিষিদ্ধ করা হয়। এবং ১৯৭২ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত তিনি কারা ভোগ করেন। তারপর ১৯৮৫ সালে মরক্কো সরকার তাকে জোরপূর্বক প্যারিসে নির্বাসনের পাঠায় এবং বর্তমানে সেখানেই তিনি স্থায়িভাবে বসবাস করছেন। কবিতা লেখার পাশাপাশি তিনি বহু আরবি সাহিত্য ফরাসি ভাষায় অনুবাদ করেন এবং কিছু উপন্যাস ও স্মৃতিকথা লেখেন। তাঁর একগুচ্ছ কবিতা অনুবাদ করেছেন কবি মমিন মানব।
কবিতাবৃক্ষ
আমি একটা কবিতাবৃক্ষ। বিজ্ঞানিরা বলেন, আমি নাকি বিপন্ন প্রজাতির অন্তর্ভুক্ত, কিন্তু সাম্প্রতিককালে লাল ভল্লুক ও আফ্রিকান হাতিগুলো বাঁচাতে আহ্বান জানানো সত্ত্বেও কেউ কিছুতেই কর্ণপাত করছে না।
কিছুদিন জনমনে প্রশ্ন থাকে, কিন্তু আমি বলি এটা স্মৃতির বিভ্রাট। দিনকে দিন যখোন মানুষের স্মৃতি পরিপূর্ণতায় পৌঁছায়, অতিতের ভারি অংশ নিচে জমতে থাকে আর নতুন ভালোবাসার জন্যে জায়গা তৈরি করে।
এখনকারদিনে পুরনো প্রজাতিগুলোতে আগ্রহ দেখায় না। তারা এমোন বৃক্ষ আবিস্কার করে যেগুলো তড়তড়িয়ে বড় হয় এবঙ শুধু জল ও রোদ নিয়ে বাঁচতে পারে, আর যেগুলো শান্ত ও ঝোপঝাড়শূন্য।
আমি একটা কবিতাবৃক্ষ। তারা আমাকে নিপূণভাবে ব্যবহারের চেষ্টা করেছে, কিন্তু তাদের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হলো; আমি নিজেই আমাকে বদলাতে ওস্তাদ। ঋতু ও কালের চক্র পরিবর্তনগুলো আমাকে নিয়ে মাথা ঘামায় না। আমার যে ফলগুলো ধারণ করি সেগুলো কখনোই এক রকম হয় না। কোনো কোনো সময় আমি ওগুলো অমৃত রসে ভরে রাখি, এবঙ অন্যান্য সময় খুব তিতা; এবঙ যখোন আমি দূর থেকে উড়ে আসা পাখিগুলো আশ্রয় দেই, আমি কাঁটা দিয়ে ঢেকে রাখি।
মধ্যে মধ্যে আমি নিজেকে প্রশ্ন করি: আমি কী সত্যিই কোনো বৃক্ষ? তখোন আমি হাঁটতে ভয় পাই, নোঙরা ভাষায় কথা বলতে ভয় পাই। আমি একটা কুঠার মুঠি করি এবঙ আমার গরিব পড়শিটার ধড় নামিয়ে দেই। অতএব আমার সমস্ত শক্তি দিয়ে আমি আমার শিকড় আকড়ে থাকি। ওদের অসীম শিরার ভিতর আমি অনুসরণ করি আদিম কান্না ধ্বনি আর ভেঙে দেই ভাষার গোলকধাঁধা। আমি সুতার মাথাটি আঁকড়ে ধরি এবঙ সেটা টান দেই আলো ও সঙগিতকে মুক্ত করতে। সেটা নিজেই আমার কাছে ছায়া হয়ে আমার কাছে ধরা দেয়। আমি মুকুল বানাই যা আমাকে খুশি করে আর ফুল ফোটার দিকে আগায়। এই সবকিছুই ঘটে রাতের চাদরের তলে, নক্ষত্র ছোঁয়ায় আর বিরল কিছু পাখিদের সুরে যারা বেছে নিয়েছে মুক্তির গান।
আমি একটা কবিতাবৃক্ষ। ক্ষণজিবি ও শাশ্বত সবকিছুর দিকে তাকিয়ে আমি মুখ টিপে টিপে হাসলাম।
আমি এখোনও জীবন্ত।
দারুণ দরবেশ
যখোন দরবেশ লোকটি বুনতে শিখলো বিলেতি সুতা, কাশ্মিরি শাল, এবঙ সিল্কের চাদর, সে ছিঁড়ে ফেললো তার মোটা উলের জোব্বা এবঙ নিজেই নিজেকে বললো: আমি এই কাপড়-চোপড় পড়ে আরও আরাম বোধ করবো। এসব আরও প্রসন্ন করবে আমার আনত জানু। আমি তখোন চুল-দাঁড়ি ছাঁটতে যাই, দিনে তিনবার দাঁত মাজি, জার্মানি ক্যালগ্নি সুগন্ধি লাগাই, আমার ছিঁড়াফাঁড়া জায়নামাজটা ফেলে দিয়ে নিয়ে আসি আসল জেমুর মাদুর। আমার ঈশ্বরের কাছে আমাকে পরিপাটি করে প্রকাশ করি এবঙ এটা বলতেও সাহস পাই যে, আজ প্রার্থনা হবে বিশুদ্ধ। তারপর, আমি আর ভিক্ষবৃত্তির উপর বেঁচে থাকলাম না। আমি সত ও সন্মানজনক জীবিকার খুঁজে বের হলাম। আমি আমার দয়ামায়ার সাথে মিশে যাই, ওদের তন্ময়তার সাথে ঘনিষ্ঠ হই, ওদের ধর্মবিদ্বেষি কথাগুলো খুঁজে বের করি এবঙ পার্থিব রহস্যে ভিতর ঢুকতে শুরু করি, ওদের সাঙসারিক সুফলগুলো ভোগ করি, এবঙ আস্তে আস্তে নিগূঢ় রহস্যের দিকে ফিরিয়ে আনি। সবকিছুর পরে, আমার জীবনে শুধু বাহ্যিক পরিবর্তনই আসেনি, নিগূঢ় রহস্যের দিকে নতুনতর পথের মধ্য দিয়ে আমি এগিয়ে যাই, সেটা-ই হলো দারুণ দরবেশ জীবন।
আমি এই শতকের এক ছাওয়াল
আমি মন খারাপ করা এই শতকের এক ছাওয়াল
যে কোনদিন বেড়ে ওঠেনি
আমি আমতাআমতা করছি
চুলার আগুনে ঠেলে দিতে আমার জিহ্বা
তবু আমার ডানাগুলো পুড়ে
আমি হাঁটি হাঁটি পা পা করে হাঁটতে শিখেছি
তারপর শিখেছি সেটা ভুলে যেতেও
আমি অগুণতি প্রহর পাড় করেছি মরুদ্ধানের ক্লান্তি নিয়ে
আর বিনাশের নেশায় এক পাল উটের ব্যগ্রতা নিয়ে
আমি আজ শুয়ে আছি পথের মধ্যিখানে
ঘুরে দাঁড়িয়েছি প্রাচ্যের দিকে
আর প্রহর গুনছি মরুদেশের মাতাল পদাতিকদলের আশায়
পাণ্ডুলিপি
আমার কোনো ধারণা ছিলো না যে শয়তান- অথবা ইবলিশ তার বন্ধুদের তুলনায় ছিলো খুব বেটে, পরের বদনাম ছড়াতে পারদর্শি ও জোতাচোর।
যখোন সে আসল এবঙ চুপচাপ আমার পাশে বসলো, আমি লেখার টেবিলের বসে ছিলাম। আমি অতি ক্ষমতাবান কেউ নয়, কিন্তু আমার মাথা উচা মানুষ। আমি খুব সহজেই তাকে উপেক্ষা করতে পারতাম, এটাও দোষগুণ লক্ষ না করে। বৃত্তান্ত অনুযায়ী তার নাকটা লম্বা হবার কথা। তার একটা চোখে কোনো পাপড়ি ছিলো না। একটি সাতমাথাঅলা তাঁরার উলকি আঁকা ছিলো তার ঠোঁটের উপর।
এইরকম পরিক্ষানিরিক্ষা ও জানাশোনার পর, আমি ঠাণ্ডামাথায় কাজে ফিরে এলাম। আমি নিজেকে বললাম, ভালো, খুব ভালো, ইবলিশবিষয়ক একটি কবিতা। যে মূহুর্তগুলো আমি এসব ভাবছিলাম, আমার বন্ধুবান্ধব সবাই রেগে গেলো। আমি দেখলাম খুব সরু একটা হাত তার পকেট থেকে বের হয়ে আসলো এবঙ আমার লেখার কাগজের উপর রাখলো। আমি যে যে শব্দ লেখলাম, তার সাথে অন্য একটি করে শব্দ যোগ করলো, আমি অবশ্যই বলতে হবে, এটা ছিলো নামকরণের আসল অনুভূতি। কিন্তু, আমি যদি তার অভিমতগুলো গ্রহণ না করতাম এবঙ সাথে সাথে মুছে দিতাম, তখোন সেও আমার মতো করে জবাব দিতো।
আমরা একবার লেখলাম এবঙ অনেক সময় লাগিয়ে আবারও লেখলাম যতোক্ষণ না ফোনটা বেজে ওঠলো। আমি কলটা ধরলাম আর কেউ কথা বলবে সেই অপেক্ষায় থাকলাম। কিন্তু সেই প্রান্তে কেউ ছিলো না। আমি ধপাস করে ফোনটা রেখে দিলাম।
এই হাস্যকর ঘটনার ফাঁকে ইবলিস তো উধাও, সাথে করে নিয়ে গেছে আমাদের পাণ্ডুলিপিটা।
জ্বালিয়ে দাও দুপুররাতের পিদিম
বছরে চারবার হলেও তুমি অবশ্যই সারারাত জেগে থাকবে।
এর চেয়ে বেশি পাগলামি করার জন্যে আমার আশেপাশে তেমন কেউ নেই। যখোন তুমি একান্ত নিজের, একটা আস্ত ঘুমশূন্য রাত খারাপ কীসের। এসবকিছুতেই কমবেশি অঙশ নিতে হয়। একমাত্র তখোন এই শহর তোমার কাছে খোলাসা হবে মৃত্যুর চিন্তা ভুলিয়ে দিয়ে। বিদঘুটে সবকিছুই ওঁঝার মতোন কাজ করে যায়। মোয়াজ্জিনেরা রাস্তার কোণায় মাতাল হয়ে পড়ে থাকা। একটা দম্পতি যারা বিয়ে করেছিলো ভোরবেলায়, তাদের আঁকা ছবিটা সবসময় থাকতো। কারার ঐ লৌহ কপাট গানের সুরে গরম হয়ে ওঠে পানশালা। শয়তান কথার মধ্যে তার বাম হাত ঢুকিয়ে দেয় আর টোপ ফেলে, হাওয়াকে খেতে দেয় গন্ধম। পা মাড়িয়ে যায় নক্ষত্রের ধনভাণ্ডার। লেবু মাখা সুস্বাদু সামদ্রিক খাবারের মতোন যৌনতার স্বাদ জেগে ওঠে মুখে ।
শোনো, ভবঘুরেরাই শুধু কবি হতে পারে।

– See more at: http://rnews24.com/art-literature/2014/03/31/20073#sthash.cJXb1xFd.dpuf


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ