• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৩:২৩ পূর্বাহ্ন |

আজ সৈয়দপুরে স্থানীয় শহীদ দিবস

Photo, Saidpurসিসি নিউজ: কাল ১২ এপ্রিল। সৈয়দপুরের স্থানীয় শহীদ দিবস। সৈয়দপুরবাসীর জন্য এটি অত্যন্ত শোকাবহ একটি দিন। ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তানী বাহিনীর বুলেটের আঘাতে প্রাণ দিয়েছিলেন সৈয়দপুর শহরের প্রায় দেড় শতাধিক বিভিন্ন শ্রেণী ও পেশার মানুষ। তাই সৈয়দপুরবাসী আজ সেই সব শহীদদের স্মরণ করবেন গভীর শ্রদ্ধাভরে বিভিন্ন কর্মসূচী পালনের মাধ্যমে। দিনটি পালনে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ সন্তানদের সংগঠন প্রজন্ম’৭১ সৈয়দপুর জেলা কমিটির উদ্যোগে দিনব্যাপী বিস্তারিত কর্মসূচী হাতে নিয়েছে।
গোটা দেশে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ মধ্যরাতে স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হলেও সৈয়দপুরে শুরু হয়েছিল ২ দিন আগে অর্থ্যাৎ ২৩ মার্চ। এদিন এখানে শুরু হয় প্রত্য লড়াই। গভীর রাতে পাকিস্তানী বাহিনী ও তাদের এদেশীয় দোসররা সৈয়দপুর শহরের নিরীহ্ বাঙ্গালীদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। চালায় নির্মম হত্যাযজ্ঞ। ফলে সেদিন অনেকে সর্বস্ব ফেলে পরিবার-পরিজন নিয়ে পালিয়ে যান সৈয়দপুর শহর থেকে। আশ্রয় নেন শহরের পার্শ্ববর্তী গ্রামগুলোতে। অনেকে আবার আটকে পরেন শহরে। আটকে পড়া বাঙ্গালীদের ফেলে সেদিন তৎকালীণ প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য (এমএলএ) ডা.জিকরুল হকসহ অনেকে সৈয়দপুর শহর ছাড়তে রাজী হননি।
২৫মার্চ রাতে পাকিস্তানী সেনাদের একটি কনভয় দল ডা. জিকরুল হকসহ প্রায় ১৫০ জনকে আটক করে নিয়ে যায় সৈয়দপুর সেনানিবাসে। এরপর সেখানে ১১এপ্রিল পর্যন্ত তাদের ওপর দীর্ঘ ১৯ দিন চালানো হয় নির্মম শারীরিক অত্যাচার-নির্যাতন। ১২এপ্রিল স্বাধীনতাকামী এসব মানুষকে নিয়ে যাওয়া হয় সৈয়দপুর থেকে ৪০ কি.মি দূরে রংপুর সেনানিবাসের দেিণ উপশহর নিশবেতগঞ্জ এলাকায় ঘাঘট নদীর বালুচরে। সেখানে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করে মেশিনগানের ব্রাশ ফায়ারে নির্মমভাবে তাদের হত্যা করা হয়।
এদের মধ্যে ছিলেন তৎকালীণ প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য ডা. জিকরুল হক, আওয়ামী লীগ নেতা ডা.সামসুল হক, ডা. বদিউজ্জামান, আমিনুল হক, কুদরত-ই-এলাহী, আশরাফ আলী, ডা. আব্দুল আজিজ, সমাজকর্মী তুলশীরাম আগরওয়ালা, রামেশ্বর আগরওয়ালা, রেলওয়ে কর্মকর্তা আয়েজ উদ্দিনসহ নাম না জানা অনেকে।
স্বাধীনতা সংগ্রামের ৯ মাসে সৈয়দপুর শহরে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর হাতে কতজন শহীদ হয়েছিলেন তার সঠিক হিসেব না থাকলেও বিভিন্ন সূত্রমতে এদের সংখ্যা সহস্রাধিক। এ শহরে এমনো অনেক পরিবার রয়েছে যাদের কোন সদস্যকে সেদিন বাঁচতে দেওয়া হয়নি। এদিকে, স্বাধীনতা যুদ্ধে এসব শহীদদের স্মরণে আজও সৈয়দপুর শহরের কোন স্মৃতিসৌধ কিংবা স্মৃতিস্তম্ভ গড়ে উঠেনি। সরকারীভাবে এসব শহীদদের স্মৃৃতিকে ধরে রাখতে নেওয়া হয়নি কোন কার্যকরী উদ্যোগ। ১৯৯৭ সালে প্রজন্ম ৭১’র সৈয়দপুর রাজনৈতিক জেলা শাখার নিজ উদ্যোগে শহরের জিআরপি মোড়ে ‘স্মৃতি অম্লান’ নামে একটি স্মৃতিস্তম্ভ এবং ২০১৩ সালে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার উদ্যোগে কারখানার অভ্যন্তরে স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ রেলওয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের স্মরণে নির্মিত হয় ‘অদম্য স্বাধীনতা’ নামে একটি স্মৃতিসৌধ। এছাড়া শুধুমাত্র ’৭১-এর ১২ এপ্রিল শহীদ সাবেক প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য ডা. জিকরুল হককে তৎকালীণ মতাসীন আওয়ামী সরকার ২০০২ সালে স্বাধীনতা পদক(মরণোত্তর) প্রদান করেন।
এদিকে, আবারও বছর ঘুরে ১২এপ্রিল এসেছে। কাল শনিবার সৈয়দপুরের স্থানীয় শহীদ দিবস। দিনটি সৈয়দপুরবাসী গভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করতে ব্যাপক কর্মসূচী নিয়েছেন। দিবসটি পালনে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ সন্তানদের সংগঠন প্রজন্ম’৭১-এর উদ্যোগে নেয়া হয়েছে দিনব্যাপী নানা কর্মসূচী। তাদের গৃহীত দিনব্যাপী নানা কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে, জাতীয় ও কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারন, পুষ্পমাল্য অর্পণ, শোক মিছিল, মানববন্ধন, মসজিদ, মন্দির-গীর্জায় বিশেষ প্রার্থনা, মিলাদ-মাহফিল ও দোয়া এবং সন্ধ্যায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদে অনুষ্ঠিত হবে স্মরণ সভা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ