• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন |

১০০% ভেজাল!

73103_1স্বাস্থ্য ডেস্ক: খবরটি সত্যিই আতঙ্কের। ২০১২ সালে (জানুয়ারি-ডিসেম্বর) দেশের বিভিন্ন কোম্পানির উৎপাদিত ৭২টি জুস ও ফ্রুট ড্রিংকসের নমুনা পরীক্ষা করে সংস্থাটি। এতে শতভাগ নমুনায়ই এসিটিক এসিডের পরিমাণ মাত্রাতিরিক্ত ধরা পড়ে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এসব ভেজাল জুস বা ফ্রুট ড্রিংকস খেয়ে নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ।
২০১২ সালজুড়ে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা ৭২টি জুস ও ফ্রুট ড্রিংকস পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয় জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের ল্যাবরেটরিতে। এতে সব নমুনায়ই এসিটিক এসিডের মাত্রা বেশি পাওয়া যায়। জুস ও ফ্রুট ড্রিংকসে সাধারণত এ উপাদান ১ শতাংশের নিচে থাকার কথা। কিন্তু সব নমুনায়ই ৪-৫ শতাংশ এসিটিক এসিড পাওয়া গেছে।
এদিকে ২০১০ সালে রাজধানীর বিভিন্ন কোম্পানির নয় ধরনের জুসের গুণগত মান পরীক্ষা করে বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদের (বিসিএসআইআর) খাদ্যবিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ইনস্টিটিউট। এতে দেখা যায়, জুসে দ্রবণীয় কঠিন বস্তু রয়েছে ৯ থেকে ১৩ দশমিক ৫ শতাংশ। যদিও এর গ্রহণযোগ্য মাত্রা ২-৫ শতাংশ।
জুস ও ফ্রুট ড্রিংকসে ভেজাল থাকার অভিযোগে ২০১২ সালের ১৩ অক্টোবর ৩১ কোম্পানির বিভিন্ন সার্টিফিকেশন মার্কস (সিএম) লাইসেন্স বাতিল করে দেশের মান নিয়ন্ত্রণ সংস্থা বিএসটিআই। লাইসেন্স বাতিল হওয়া কোম্পানির ফ্রুট ড্রিংকসগুলো ছিল— এগ্রিকালচার মার্কেটিং কোম্পানি লিমিটেডের উৎপাদিত প্রাণ ফ্রুট ড্রিংকস (ম্যাংগো, অরেঞ্জ, লেমন, স্ট্রবেরি, লিচি, আপেল, পাইনঅ্যাপেল, ফ্রুট ককটেল), প্রমি এগ্রো ফুডস লিমিটেডের ফ্রুট ড্রিংকস (লিচি, অরেঞ্জ), মডার্ন ফুড প্রডাক্টস লিমিটেডের মডার্ন ফ্রুট ড্রিংকস, নিউট্রি এগ্রো ফুডসের নিউট্রি ফ্রুট ড্রিংকস (অরেঞ্জ), সাফা কনজিউমার প্রডাক্টস লিমিটেডের ফ্রুট ড্রিংকস (রকস্টার, মিক্সড ফ্রুট), আরএমপি ম্যানুফ্যাকচারিং প্রাইভেট লিমিটেডের আরএমপি ফ্রুট ড্রিংকস ও আরা ফুডস লিমিটেডের ফ্রুট ড্রিংকস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ