• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১২:২০ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে তথ্যসংগ্রহকারী ও সুপারভাইজারদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত জয়পুরহাট বিনা খরচে আইনের সেবা পেতে সেমিনার শিক্ষক লাঞ্চনা ও হেনস্তার বিরুদ্ধে সৈয়দপুরে উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর প্রতিবাদ সমাবেশ সৈয়দপুরে শহীদ আমিনুল হকের স্মরণসভা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে বিনামূ‌ল্যে বীজ ও সার বিতরণ

এরশাদ খাঁটি বেঈমান-মোনাফেক

সিসি নিউজ: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ দূত হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদকে খাঁটি বেঈমান ও মোনাফেক বলে আখ্যায়িত করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

শনিবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দল ঢাকা মহানগরের ষষ্ঠ সম্মেলন ও জাতীয় কাউন্সিলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এরশাদকে তিনি এ আখ্যা দেন।

বিএনপির চেয়ারপারসন বলেন, এরশাদ হলো খাঁটি বেঈমান-মোনাফেক। তাকে বিশ্বাস করা যায় না। এ জন্য তার দল থেকে লোকজন বের হয়ে আসছে।

এরশারদে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, উনি কী উপদেশ দেবেন? তাকে দেশের কেউ বিশ্বাস করে না। বিদেশিরাও বিশ্বাস করে না। উনি কী দূতিয়ালি করবেন? এরশাদ অনেক দুর্নীতি করেছেন, অনেক মানুষ হত্যা করেছেন। তার বিচার হয়নি। তার সব পাপ জমা রয়েছে।

খালেদা জিয়া বলেন, এরাশাদের জাতীয় পার্টি তিন চার টুকরা হয়ে গেছে। এরশাদ নির্বাচনের আগে বলেছিলো সে রিজাইন করেছে, মনোনয়ন প্রত্যাহার করেছে। তাহলে সে শপথ নেয় কী করে, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হয় কী করে?

সরকার বিরোধী আন্দোলন প্রসঙ্গে খালেদা জিয়া বলেন, নিরবে চোখের জল ফেলা নয়, বিএনপির অস্ত্র জনগণ। তাই সময় হয়েছে অন্যায়, অত্যাচার ও জুলুমকারীদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে সমুচিত জবাব দেয়ার।

খালেদা জিয়া বলেন, সংগঠন গোছানোর কাজ চলছে। জনগণ প্রস্তুত। আমরাও প্রস্তুতি নিচ্ছি। এই অগণতান্ত্রিক সরকারের বিরুদ্ধে বিএনপি অবশ্যই আন্দোলনে নামবে। কারো কথায় নয়, সময় হলেই আন্দোলনের ঘোষণা দেয়া হবে।

সরকার উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, মানুষের ধৈর্যেরও সীমা রয়েছে, মানুষ বেশিদিন অপেক্ষা করবেনা। এখনও সময় আছে সংলাপের মাধ্যমে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের ব্যবস্থা করে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করুন। নয়তো কঠোর পরিণতি ভোগ করতে হবে।

৫ জানুয়ারির নির্বাচন প্রসঙ্গে খালেদা জিয়া বলেন, আওয়ামী লীগের নেতকর্মীরা কোথায় ছিলেন? প্রার্থী বোধ হয় নিজেও নিজের ভোটটা দেয়নি। বিরোধী দলীয় নেতা ও স্পিকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়।

বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে তিনি বলেন, দেশে এখন গণতন্ত্র নেই। গণতন্ত্র মৃত। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রের কবর রচনা করেছেন।

তিনি বলেন, দেশে সিভিল প্রশাসনে কোন শৃঙ্খলা নেই, যাদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে তারা কাজ বোঝে না, কাজ করেও না। প্রশাসন স্থবির হয়ে পড়েছে। ব্যাপক দুর্নীতি ও অনিয়ম চলছে। দুর্নীতিবাজরা এখন ধরা-ছোঁয়ার বাইরে চলে গেছে।

খালেদা জিয়া বলেন, সরকার দেশি-বিদেশি কোনো বিনিয়োগ করাতে পারছে না। বিনিয়োগ আসছে না। এ অবৈধ সরকারের অধীনে বিদেশিরা কোনো বিনিয়োগ করতে চায় না। বিনিয়োগ না থাকায় সমস্যা বাড়ছে। তার জন্য দায়ী এই সরকার।

তিনি বলেন, আমরা প্রতিনিয়ত বন্ধুহীন হয়ে পড়ছি। দেশে যে হারে খুন গুম হচ্ছে। এর সাথে জড়িত আওয়ামী লীগ ও প্রশাসন। এর জন্য তাদের একদিন জবাবদিহিতা করতে হবে।

নিজ দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে খালেদা জিয়া বলেন, জনগণের আস্থা ফিরিয়ে আনতে সংগঠনকে শক্তিশালী করতে হবে। অবৈধ সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আমারা আওয়ামী লীগের মতো সন্ত্রাসে বিশ্বাস করিনা। আওয়ামী লীগ প্রতিদিন মানুষ মারছে। আমাদের শক্তি জনগণ। রোড ফর ডেমোক্রেসিতে জনগণের ভয়ে তারা বাধা দিয়েছে। তাই এই অবৈধ সরকারের বিরুদ্ধে আমরা এখন আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছি। চূড়ান্ত আন্দোলনের মাধ্যমে এই আওয়ামী লীগ সরকারকে বিদায় করে আমরা দেশকে এগিযে নিয়ে যাবো।

উৎসঃ   শীর্ষ নিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ