• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৪:৪৬ পূর্বাহ্ন |

ভারতের নির্বাচনে অপরাধী প্রার্থীর সংখ্যা বাড়ছে

Varotআন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের বৃহৎ গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় অপরাধীরাও রাজনীতির কারবারিদের দৌলতে অবলীলায় জনপ্রতিনিধি হয়ে যাচ্ছেন। জনগণের সেবা করার নাম করে অপরাধীরা দিব্যি গণতন্ত্রকেই ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে। গত কয়েক বছরের খতিয়ান থেকে দেখা গেছে, লোকসভা ও  বিধানসভা সর্বত্রই অভিযুক্ত জনপ্রতিনিধির সংখ্যা বাড়ছে। খুন, ধর্ষণ, দাঙ্গা বাঁধানোর একাধিক অভিযোগ থাকা সত্ত্বেও কেউ মন্ত্রী হচ্ছেন, কেউবা হচ্ছেন চেয়ারম্যান। রাজনৈতিক দলের কাছেও এরা সম্পদ বলে বিবেচিত হন। ফলে ভারতের নির্বাচনে অপরাধীদের বিচরণ রমরমা।  নির্বাচন কমিশন থেকে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, ২০০৪ সালে লোকসভায় অভিযুক্ত এমপির সংখ্যা ছিল ২৪ শতাংশ। আর ২০০৯ সালে তা বেড়ে হয় ৩০ শতাংশ। আর এবারের নির্বাচনে যে অপরাধী প্রার্থীর সংখ্যা অন্যবারের রেকর্ডকে ছাপিয়ে যাবে তা প্রথম পাঁচ দফার প্রার্থী তালিকা থেকেই স্পষ্ট হয়েছে। অথচ অপরাধের সঙ্গে যুক্ত বা অপরাধী সাব্যস্ত হওয়া ব্যক্তিদের প্রার্থী না করার জন্য কোন আবেদনেই রাজনৈতিক দলগুলো কর্ণপাত করেনি। ফলে আম আদমি পার্টির মত দল, যারা স্বচ্ছতার কথা বলে রাজনীতিতে এসেছে, তাদের প্রার্থী তালিকাতেও অপরাধীর সংখ্যা যথেষ্ট। অপরাধীদের এবং দুর্নীতিগ্রস্তদের প্রার্থী করার ক্ষেত্রে যে কোন দলই পিছিয়ে নেই তা ‘অ্যাসোসিয়েশন অন ডেমোক্র্যাটিক  রিফর্মস’ এবং ‘ন্যাশনাল ইলেকশন ওয়াচ’ প্রকাশিত অপরাধীদের তালিকা থেকে স্পষ্ট। কংগ্রেস যেমন কেলেঙ্কারির দায়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা থেকে বহিষ্কৃত দুই মন্ত্রী পবন বনশাল ও সুবোধকান্ত সহায়কে প্রার্থী করে বুঝিয়ে দিয়েছে দুর্নীতির বিরুদ্ধে জেহাদের কথা মুখের কথা মাত্র। তেমনি বিজেপি নেত্রী সুষমা স্বরাজের তীব্র আপত্তি সত্ত্বেও যখন খনি কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত রেড্ডি ভাইদের ঘনিষ্ঠ শ্রী রামালু রেড্ডিকে বিজেপি প্রার্থী করেছে কোন নীতির তোয়াক্কা না করেই। উত্তর প্রদেশে তো বিজেপি এমন চারজনকে প্রার্থী করেছে যাদের বিরুদ্ধে দাঙ্গায় জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে। মহারাষ্ট্রে শিব সেনার ১৪ জন প্রার্থীর মধ্যে ১২ জনের বিরুদ্ধে অপরাধমূলক কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে আদালতে মামলা চলছে। এনসিপির ৮ প্রার্থীর বিরুদ্ধে ফৌজদারি অভিযোগ রয়েছে। এবারের নির্বাচনে প্রথম পাঁচ ধাপের যে প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে তাতে প্রার্থীরা নিজেরাই জানিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে থাকার অপরাধের কথা। প্রথম ৫ দফায় যে ৩৩৫৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তার মধ্যে ৫৫৭ জনই জানিয়েছেন যে তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি অপরাধের মামলা রয়েছে। ৩২৮ জন জানিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে খুন, ধর্ষণ ও রাহাজানির মতো ভয়ঙ্কর অপরাধের অভিযোগ রয়েছে। কংগ্রেস যে ১৯৩ জন প্রার্থী দিয়েছে তার মধ্যে ৪৫ জনের বিরুদ্ধে রয়েছে ফৌজদারি এবং ২১ জনের বিরুদ্ধে রয়েছে ভয়ঙ্কর ধরনের অপরাধ। অন্যদিকে বিজেপি যে ২০২ জন প্রার্থী দিয়েছে তার মধ্যে ৬৮ জনের বিরুদ্ধে রয়েছে ফৌজদারি অপরাধের মামলা আর ৩৬ জনের বিরুদ্ধে খুন ধর্ষণের মামলা। এরপরেই রয়েছে আম আদমি পার্টি। এরা যে ২০২টি আসনে প্রার্থী দিয়েছে তার মধ্যে অপরাধী রয়েছেন ৫১ জন। বহুজন সমাজ পার্টির ২০৭ জন প্রার্থীর মধ্যে অপরাধের অভিযোগ রয়েছে ৬০ জন প্রার্থীর বিরুদ্ধে। বিভিন্ন দলের প্রার্থী তালিকায় অপরাধীদের পাশাপাশি ক্রোড়পতিদের সংখ্যাও এবার অনেক বেড়েছে। এবারের প্রথম পাঁচ দফায় যারা প্রার্থী হয়েছেন তাদের মধ্যে ক্রোড়পতি প্রার্থীর সংখ্যা ৯২১ জন। প্রথম ৫ দফায় দেয়া কংগ্রেসের দেয়া ১৯৩ জন প্রার্থীর মধ্যে ১৬২ জন, বিজেপির ২০২ জনের মধ্যে ১৪৯ জন, আম আদমি পার্টির ২০০ জন প্রার্থীর মধ্যে ৮৬ জন এবং বহুজন সমাজ পার্টির ২০৭ জনের মধ্যে ৬৬ জনই ক্রোড়পতি প্রার্থী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ