• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৪:৫২ পূর্বাহ্ন |

বিএনপির জালে পা দিচ্ছে আওয়ামী লীগ!

Awamili Flagসিসি ডেস্ক: রাজনীতিতে এবার নতুন নতুন ইস্যু তৈরি করছে বিএনপি। আর বিএনপির সৃষ্টি করা এসব ইস্যুর জবাব দিতে শুরু করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এর আগে আওয়ামী লীগের সৃষ্টি করা একের পর এক ইস্যুতে দিশেহারা হয়ে পড়েছিল বিএনপি। আওয়ামী লীগ দ্বিতীয় বারের মতো সরকার গঠন করার পর (২০০৯ সাল থেকে ২০১৩ সাল) কোনো ইস্যুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলতে পারেনি বিএনপির নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট।

কিন্তু এবার ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগকেই উল্টো ইস্যুর জালে ফেলে দিচ্ছে বিএনপি। আর সরকারি দলটি এ জালে অনেকটাই ইচ্ছে করে পা দিচ্ছে। সম্প্রতি বিএনপির সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যার তারেক রহমান লন্ডনে থেকে বক্তব্য দিয়ে আওয়ামী লীগকে ব্যস্ত রেখেছেন। ‘জিয়াউর রহমানই বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি’ বক্তব্য দিয়ে আওয়ামী শিবিরে তোলপাড় সৃষ্টি করেছেন তিনি।

এর আগে গত মঙ্গলবার লন্ডনে এক সুধী সমাবেশে তারেক রহমান বলেন, “জিয়াউর রহমানই বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি” এ কথা আবারও উল্লেখ করেন। এর সঙ্গে এবার যুক্ত করেন, শেখ মুজিববুর রহমান বাংলাদেশের ‘প্রথম অবৈধ প্রধানমন্ত্রী’। তারেক রহমানের এ বক্তব্যে আওয়ামী শিবিরে আবারো তোলপাড় সৃষ্টি হয়। তারেক রহমানের এসব বক্তব্যের জবাব দিতে বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে একটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে বিএনপির সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বক্তব্যের তথ্যভিত্তিক জবাব দেওয়া হয়। এছাড়াও সরকারের কিছু মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা বিভিন্ন সভা-সেমিনারে তারেক রহমানের এ বক্তব্যের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন।

সুত্রমতে, ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বিএনপিকে বিভিন্ন ইস্যুতে ব্যস্ত রেখেছে আওয়ামী লীগ। বিশেষ করে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে তার ৪০ বছরের স্মৃতি বিজড়িত বাড়ি থেকে উচ্ছেদ, মহাজোট সরকারের তৎকালীন রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের গাড়িতে ৭০ লাখ টাকা পাওয়ার কিছুদিন পরই বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এম ইলিয়াস আলী গুম হওয়া, মতিঝিল শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলামের অবস্থান উচ্ছেদসহ বিভিন্ন ইস্যু তৈরি হয়েছে। বিশেষ করে সংবিধান থেকে তত্ত্বাধায়ক সরকার পদ্ধতি বাতিল করে বিএনপির জন্য একটি দীর্ঘস্থায়ী ইস্যু সৃষ্টিতে বিএনপি এখনো আন্দোলন করছে।

২০১০ সালে জামায়াতে ইসলামীর আমীর মাওলানা মতিউর রহমার নিজামী, নায়েবে আমীর আল্লমা দেলোওয়ার হোসাইন ও সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদকে গ্রেফতার করে জামায়াতে ইসলামীর নেতাকর্মীদের ব্যস্ত রেখেছিল সরকার। এরপর জামায়াতে ইসলামীর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকমীদের গ্রেপ্তার করে যুদ্ধাপরাধের মামলায় বিচারের আওতায় আনায় এ ইস্যুতেই বেশি ব্যস্ত ছিল জামায়াত। কিন্তু এবার পরিস্থিতি অনেকটা ভিন্ন। এবার উল্টো বিএনপির সৃষ্টি ইস্যুতে পা দিচ্ছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ।

এদিকে, সংসদ অধিবেশনের শেষ কার্যদিবসে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ তারেক রহমানের বক্তব্যের নিন্দা জানান। তোফায়েল আহমেদ তারেককে ইঙ্গিত করে বলেন, ‘‘বাচ্চা ছেলে’, ‘আহাম্মক’ ও লেখাপড়া জানে না। যে ছিল (তারেক রহমান) ক্যান্টনমেন্টে। সে কি ইলেকশান দেখেছে? তিনি বলেন, জিয়াউর রহমানই বলেছিলেন ৭ মার্চের ভাষণ ছিল আমদের জন্য গ্রিন সিগন্যাল। বাংলাদেশের ইতিহাস বিকৃত করার জন্যই এসব বক্তব্য তুলে ধরা হচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এ বিষয়ে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম পরিবতনকে বলেন, “বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধকে বিতর্কিত করতে আইএসআই’র প্রেসক্রিপশনে তারেক রহমানেক দিয়ে অসংলগ্ন কথা বলানো হচ্ছে।”

তিনি বলেন, “মুক্তিযুদ্ধ ও মুজিবনগর সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে খাটো করার জন্য তারেক রহমান আইএসআইয়ের প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী অপপ্রচার চালাচ্ছে। তিনি বলেন, তারেক রহমানের অপপ্রচারকে পাগলের প্রলাপ বলে উড়িয়ে দেয়ার সুযোগ নেই। তার এ মিথ্যাচার বন্ধ করতে না পারলে এটা এক সময় তা সত্যিতে পরিণত হবে।”

দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও ইতিহাস বিকৃত করার অভিযোগ এনে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় তারেক রহমানের বিচার করা সম্ভব বলে সংসদকে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। তিনি পরিবতনকে বলেন, “বর্তমান সংবিধান অনুযায়ীই সেটি সম্ভব। তিনি বলেন, তারেক ও সাবেক অশিক্ষিত প্রধানমন্ত্রীর (খালেদা) সাম্প্রতিক বক্তব্যগুলো সহজভাবে নেয়া উচিত নয়। এর পেছনে গভীর রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র ও দুরভিসন্ধি রয়েছে। তারা পাকিস্তানের আইএসআইয়ের পরামর্শে দেশকে পাকিস্তানের ভাবধারায় ফিরিয়ে নিতে চায়।”

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ পরিবতনকে বলেন, “সৎ সাহস থাকলে দেশে ফিরে আসুন। আদালতে আত্মসমর্পণ করুন।”

তিনি বলেন, “বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বক্তব্য রাষ্ট্রদ্রোহমূলক।” তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে কূটনৈতিক প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।

উৎসঃ   পরিবর্তন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ