• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০৯:৪৮ অপরাহ্ন |

নীলফামারীর নদীতে চলছে আবাদ

Kishorgonj News_13.04.14কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) প্রতিনিধি: নীলফামারী  জেলার ৬টি উপজেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত তিস্তা,বুড়ী তিস্তা,চারাল কাটা,বুড়ী খোড়া,চিকলী,দেওনাই ও যবনেশ্বরী সহ প্রভৃতি নদী প্রবাহমান। একসময় এই নদীগুলোতে খর স্রোত পাল তোলা নৌকা বইতো। বনিকেরা বানিজ্য করতে আসত। কালের বিবর্তনে শুধুই স্মৃতি। যমুনেশ্বরী নদীটি এখন আবাদি জমিতে পরিনত হয়েছে। বছরের অধিকাংশ সময় শুকনো আর ধুধু বালুচরে পরিনত হয়ে থাকে বলে নদিটিতে হচ্ছে চাষাবাদ। নদীতে পানি না থাকায় হারিয়ে যাচ্ছে জেলে পরিবার। মহা সংকট দেশী মাছের। এক সময় নদীগুলো জেলেদের জীবন-যাত্রা,জীবিকা নির্বাহের একমাত্র মাধ্যম ছিল। স্থানীয় জেলে পরিবারের কয়েকজনের সাথে এ প্রতিনিধির কথা হলে তারা বলেন, যার জমি আছে তারা চাষাবাদ করে। আমরা কিভাবে চলব নদীতে পানি নাই অর্ধহারে দিনপাত করতে হচ্ছে। হারিয়ে যাচ্ছে দেশী প্রজাতির মাছ। শিশু থেকে সাধারণ মানুষের দেহে সঠিক ভিটামিনের চাহিদা পূরণ হচ্ছেনা।
অন্যদিকে নদীতে পানি না থাকায় ভূ-গর্ভের পানির স্তর নেমে যাচ্ছে। ফলে পরিবেশবিদরা বলেছেন, আবহাওয়ার কারনে এঅবস্থা বিরাজ করছে। ফলে সচেতন মহল মনে করে জেলার সকল নদ-নদীর সরকারী ভাবে ড্রেজিং পূর্ণ খনন করা হয়নি। তাছাড়া প্রতিবছর সীমান্তের ওপার থেকে বয়ে আসা পাহাড়ি ঢলে পলি পড়ে নদীগুলোর নাব্যতা হ্রাস পাচ্ছে। হারিয়ে যাওয়া নদ-নদী গুলো পুনঃউদ্ধার করতে সবার এগিয়ে আাসা প্রয়োজন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ