• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৭:৪১ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

ঘড়ির ভাগ্য নারীর হাতে

11সিসি ডেস্ক: অর্থনৈতিক মন্দার কারণে বিশ্বে ঘড়ির চাহিদা কমেছে। তবে নারীদের তুলনায় পুরুষদের ঘড়ির চাহিদা কম। এ কারণে সুইস ঘড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো মনে করছে যে ঘড়ির ভবিষ্যত নির্ধারণ করবেন নারীরা।
হলিউড অভিনেত্রী নিকোল কিডম্যানের একটি ঘড়ির বিজ্ঞাপন টিভি খুললেই নজর কাড়ে। বিলাসবহুল ঘড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ওমেগা’র এই ঘড়িটি যেমন উন্নত প্রযুক্তির, তেমনি এটি অলংকার হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে, কেননা এটি হীরক খচিত। ঘড়িটির নাম ‘লেডিম্যাটিক’।
নিজের সামাজিক অবস্থান বা পদমর্যাদা বোঝাতে একটা দামি ঘড়ি কিন্তু যথেষ্ট। অন্তত পুরুষরা তাই মনে করেন। আর তাঁদের সেই চাহিদার কথা মাথায় রেখেই ঘড়ি তৈরি করে সুইস ঘড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো। তবে পুরুষদের ঘড়িতে উন্নত প্রযুক্তি, গেজেটের চাহিদা বেশি। আর অর্থনীতির উত্থান পতনের সাথে সাথে তাদের চাহিদাটাও বদলাতে থাকে। চীনে সবচেয়ে বেশি চাহিদা সুইস ঘড়ির। কিন্তু অর্থনৈতিক মন্দার কারণে সম্প্রতি সেখানে পুরুষদের ঘড়ির চাহিদা কমে গেছে।
সুইজারল্যান্ডে ঘড়ির বাজার ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এলভিএমএইচ ঘড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের প্রধান জ্যঁ-ক্লদ বিভার বলেছেন, ‘ওমেনস ওয়াচ বা নারীদের ঘড়ির উপরই তাদের ব্যবসা নির্ভর করছে।
যুগ যুগ ধরে গবেষণায় দেখা গেছে যে, উন্নত প্রযুক্তি, নানা রকম কার্যকারীতা যুক্ত ঘড়ির প্রতি নারীদের আগ্রহ তেমন নেই। যুগের সাথে সাথে ফ্যাশান বদলেছে।
এখন ঘড়িকে গহনা বা অলংকারের সমতুল্য হয়। পুরুষদের ঘড়ির মতো নারীদের মধ্যেও বড় ডায়ালের ঘড়ির এখন ব্যাপক চল। চীনসহ এশিয়ার মধ্যবিত্ত নারীরা গয়নার মতো দেখতে, অর্থাৎ নানারকম পাথর সমৃদ্ধ ঘড়ি পছন্দ করছেন।
ডিজিটাল লাক্সারি গ্রুপ একটি গবেষণা করেছে যেখানে দেখা যাচ্ছে চীনে ২০১৩ সালে লেডিস ঘড়ির বিক্রি বেড়েছে ৭.৫ ভাগ। একই বছরের গবেষণায় দেখা গেছে, নারীদের বিলাসবহুল ঘড়ির চাহিদা ১৯৯৫ সালের চেয়ে ৩৫ ভাগ বেড়েছে।
সোয়াচ গ্রুপের ওমেগা ব্র্যান্ডের কর্ণধার স্টেফেন উর্কুহার্ট বলেছেন, ২০১০ সালে বেইজিং-এ প্রথম লেডিম্যাটিক মডেল বাজারে ছাড়া হয় এবং এটার চাহিদাও ব্যাপক বর্তমানে ঘড়ি নির্মাতা। প্রতিষ্ঠানগুলো তাই উঠে পড়ে লেগেছে কীভাবে নতুন নতুন ডিজাইন দিয়ে নারী ক্রেতাদের মনোযোগ আকর্ষণ করা যায়।
তবে হের্মেস অথবা ডিয়র-এর মতো বিখ্যাত ঘড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো বড় ডায়ালের ঘড়ি তৈরিতে আগ্রহী নয়। হের্মেস ওয়াচ ইউনিটের প্রধান লাক পেরামন্ড মনে করেন সব ব্র্যান্ড যা করছে তার থেকে ভিন্ন কিছু তাদের করা উচিত। এ কারণে কোম্পানিটি ছোট ডায়ালের জুয়েলারি ঘড়ি তৈরি করছেন, যেটা অভিজাত নারীদের পছন্দ হবে বলে মনে করেন তারা।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ