• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৯:৩৭ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি জিতু গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ শ্রেণিকক্ষে রাবি শিক্ষিকাকে মারতে গেলেন ছাত্র! অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযােগ এনজিও’র দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার জলঢাকায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কর্মশালা ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার

ছাগল খাচ্ছিল সাপটি

sanekসিসি নিউজ: এগারো ফুট লম্বা একটা ময়ালের মুখ থেকে আস্ত একটি ছাগল কেড়ে নিলেন একদল গ্রামবাসী। ময়ালটিকে রক্ষা করতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন বনকর্মীরাও।
ডুয়ার্সের মরাঘাট রেঞ্জের খুট্টিমারি বনাঞ্চলের বনবস্তি লাগোয়া জঙ্গলের ধার থেকেই ছাগলটিকে শিকার করেছিল ময়ালটি। ময়ালটির ওজন হবে কম করে ৪০ কেজি। ছাগলটির ১৮ কেজি। প্রায় তিন ফুট লম্বা ছাগলটির মুখ নিজের মুখে পুরে ফেলে ময়ালটা। তার পরে লেজ দিয়ে জড়িয়ে ধরে ছাগলটিকে চাপ দিতে থাকে। রবিবার বিকেলে আচমকাই এই দৃশ্য দেখতে পান বনবস্তির কিছু বাসিন্দা। তাঁদের কাছ থেকে খবর পেয়ে ছুটে আসেন গ্রামের আরও লোকজন। রে রে করে তেড়ে আসেন তাঁরা। গত এক বছরে এলাকার দু’টি ছাগল ময়ালের পেটে গিয়েছে। গ্রামবাসীদের একাংশ তখন ময়ালটির গায়ে বালি ছুড়তে শুরু করেন।
কিছু পরে সেখানে বনকর্মীদের নিয়ে পৌঁছে যান বন দফতরের স্থানীয় রেঞ্জ অফিসার গৌরচন্দ্র দে। তিনি সাপটিকে ঘিরে রাখেন। কিন্তু ছাগলটিকে ময়ালের মুখ থেকে বার করতে উত্তেজিত জনতা বালি ছুড়তেই থাকে।
রেঞ্জ অফিসারের মুখেও বালি ছিটিয়ে দেওয়া হয়। লাগাতার বালি ছেটানোয় ময়ালটি শেষ পর্যন্ত ছাগলটি উগড়ে গভীর জঙ্গলে ঢুকে যায়। ছাগলটি অবশ্য ততক্ষণে মারা গিয়েছে।
এ ভাবে ময়ালের মুখের গ্রাস কেড়ে নেওয়া নিয়ে গ্রামবাসী এবং পরিবেশপ্রেমীদের মধ্যে চাপানউতোর শুরু হয়েছে। পরিবেশপ্রেমীদের বক্তব্য, জঙ্গলের মধ্যে ছাগল গেলে তা ময়াল খেতেই পারে। তা বলে তার মুখের গ্রাস ওই ভাবে কেড়ে নেওয়া যায় না। সেই সঙ্গে বন দফতর কেন গ্রামবাসীদের নিরস্ত করতে পারল না, তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। ওই এলাকার বাসিন্দারা অবশ্য জানান, ছাগলটিকে বাঁচাতেই ময়ালটির গায়ে বালি ছোড়া হয়। ছাগলের মালিক বাবলু ওঁরা পেশায় দিনমজুর।
তিনি বলেন, “আমি সাপটার গায়ে বালি দিইনি। আমার ক্ষতিপূরণ পেলেই হল। কে বালি দিয়েছে, তা আমি জানি না।”
বন দফতর অবশ্য বালি ছেটানোর আড়ালে চোরাশিকারিদের হাত রয়েছে বলে সন্দেহ করছে। কারণ আগের দু’টি ঘটনায় বন দফতর ছাগলের মালিককে ক্ষতিপূরণও দিয়েছে। তা হলে কেন বালি ছেটানোর চেষ্টা হল? কেনই বা রেঞ্জ অফিসারকে সেখান থেকে সরানোর চেষ্টা হল, তা নিয়ে তদন্তে নেমেছে বন দফতর। উত্তরবঙ্গের মুখ্য বনপাল বিপিন সুদ বলেছেন, “ছাগল বাঁচানোর চেষ্টা হয়েছিল এটা বিশ্বাস করা মুশকিল। কিছু লোক ময়ালটি ধরার ছক কষে ঝামেলা সৃষ্টি করে। তা ছাড়া, ছাগলের মালিক তো সব সময় ক্ষতিপূরণ পেয়ে থাকেন। তা হলে কেন এমন হল, সেটা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।”
বন দফতরের সাম্মানিক ওয়ার্ডেন সীমা চৌধুরীও বিষয়টি নিয়ে খোঁজখবর নিয়েছেন। তিনি বলেছেন, “কিছু বাসিন্দা নেশাগ্রস্ত ছিলেন বলে মনে হয়েছে। তারাই রেঞ্জ অফিসারের মুখে বালি ছেটান। বনকর্মীরা পাহারা দিয়ে না রাখলে অনেক আগেই ছাগলটিকে তাঁরা সাপের মুখ থেকে বের করে নিত।”


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ