• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৫:১৩ পূর্বাহ্ন |

ছাত্রী হোস্টেলে প্রাইভেট পড়ছে ছাত্ররা

OLYMPUS DIGITAL CAMERAসিসি ডেস্ক: বরগুনা সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের বেগম ফজিলাতুন্নেসা ছাত্রী হোস্টেলে ছাত্রদের প্রাইভেট পড়ানোর অভিযোগ উঠেছে। এ কাজটি করছেন স্বয়ং হোস্টেল সুপার লিয়াকত হোসেন।
এতে হোস্টেলে ছাত্রীরা নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে। এসব বিষয়ে হোস্টেল সুপারের স্ত্রীর কারণে ছাত্রীরা মুখ খুলতে পারেন না। কিন্তু ভেতরে ভেতরে তারা ক্ষুব্ধ।
হোস্টেল সুপার লিয়াকত হোসেনের স্ত্রী শেখ এ্যানি বলেন, ‘এ হোস্টেলের মেয়েরা আমার কথামত চলে না। অধিকাংশ মেয়ে খুবই খারাপ।’
অন্যদিকে, ছাত্রীদের অভিযোগ, হোস্টেলের সুপার লিয়াকত স্যার। কিন্তু ম্যাডাম ছাত্রীদের ওপর অনধিকার চর্চা করেন। এ নিয়ে ছাত্রীদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।
বরগুনা সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের বেগম ফজিলাতুন্নেসা মহিলা হোস্টেলে শতাধিক ছাত্রী পড়াশোনা করছেন। দূরত্বের কারণে পাথরঘাটা, বামনা বেতাগী মঠবাড়িয়াসহ আশপাশের এলাকার ছাত্রীরা এ হোস্টেলে থেকে পড়ালেখা করে।
শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, মেয়েদের নিরাপত্তা রক্ষা ও দেখাশোনার দায়িত্বে থাকা হোস্টেল সুপার লিয়াকত হোসেন নিজেই এখানে ছেলেদের এনে প্রাইভেট পড়িয়ে হোস্টেলকে অনিরাপদ করছেন।
বরগুনা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মহিলা হোস্টেলে গিয়ে দেখা যায়, হোস্টেল সুপার লিয়াকত হোসেন ছাত্রী হোস্টেলের একটি কক্ষে ৭/৮জন ছেলেকে প্রাইভেট পড়াচ্ছেন।
মেয়েদের হোস্টেল কক্ষে ছেলেদের প্রাইভেট পাড়নো বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, এখানে ছেলেদের পড়ানো বৈধ। সবাই বাসায় প্রাইভেট পড়ান। আমিও আমার আবাসস্থলে পড়াচ্ছি।’
নিরাপত্তা নিয়ে ছাত্রীদের অভিযোগ বিষয়ে লিয়াকত হোসেন বলেন, ‘এখানে আমি স্ত্রীসহ আছি। নিরাপত্তাহীনতার কিছু নেই। স্বামী-স্ত্রী দুজন মিলেই মেয়েদের দেখভাল করি।’
হোস্টেল সুপারের সঙ্গে আলাপের সময় উপস্থিত হন তার স্ত্রী। স্বামীর কাছে জানতে চান এরা কারা, এখানে কি চায়? এ সময় হোস্টেল সুপারের স্ত্রী ও নিজেকে টুঙ্গীপাড়ার শেখ পরিবারের মেয়ে পরিচয় দিয়ে শেখ এ্যানি বলেন, ‘আপনারা এখানে কেন এসেছেন? প্রিন্সিপাল স্যার মেয়েদের দেখাশোনা করতে বলেছেন। আমার কথামতই হোস্টেল চলবে।’
তিনি বলেন, ‘এ হোস্টেলের অধিকাংশ মেয়ে খুবই খারাপ। তাদের শাসন না করলে আরও নষ্ট হয়ে যাবে। আমি শাসন করব, আপনার যা ইচ্ছে লিখতে পারেন।’
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হোস্টেলের একাধিক ছাত্রী বলেন, ‘স্যারের মিসেস যা বলেন আমাদের তাই শুনতে হয়। ছাত্রীদের সঙ্গে যা ইচ্ছে ব্যবহার করেন তিনি। তাকে খুশি করাতে না পারলে এ হোস্টেলে কেউ টিকতে পারে না।’
ছাত্রীরা জানায়, মিসেসের কথার অবাধ্য হলে তাকে নানা কৌশলে এমনকি বহিরাগত ছেলেদের প্ররোচনা দিয়ে হয়রানি করে হোস্টেল থেকে বের করে দেয়া হয়। হোস্টেলের মেয়েদের জন্য বুয়া রাখা হলেও তিনি তার বাসায় তাকে কাজে লাগান।
এ সময় ছাত্রীরা অভিযোগ করে, সম্প্রতি সীমা রানী নামের এক ছাত্রীকে জোর করে হোস্টেল থেকে বের করে দেয়া হয়েছে। সীমার অপরাধ, তার কক্ষের জানালা বহিরাগতরা ইট মেরে কাঁচ ভেঙেছিল। বাইরের কে বা কারা ইট মেরেছে এতেই সীমাকে বের করে দেন ম্যাডাম। আমরা অনুরোধ করেও ফেরাতে পারিনি।
হলরুমে টিভি দেয়া হয়েছে। অথচ ম্যাডামের ইচ্ছে ছাড়া কাউকে টিভি দেখতে দেয়া হয় না। পত্রিকা পড়তে পর্যন্ত ওনার অনুমতি দরকার হয়। একটু পান থেকে চুন খসলেই মিসেস আমাদের অকথ্য গালিগালাজ করেন।
ছাত্রীরা জানায়, হোস্টেল সুপার আমাদের হোস্টেলে ছেলেদের প্রাইভেট পড়ান। বহিরাগত ছেলেদের প্রবেশ নিষিদ্ধ থাকলেও স্যারের কাছে ছেলেরা আসে প্রাইভেট পড়তে। এতে আমাদের সমস্যা হয়। কিন্তু হোস্টেল থেকে বের করে দেয়ার ভয়ে সবাই তা মুখ বুজে সহ্য করে।
বরগুনা সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) মো. আবদুস সালাম বলেন, ‘মেয়েদের অভিযোগের বিষয়টি আমার কানে এসেছে। মূলত হোস্টেলের মেয়েদের দেখাশোনার জন্য সুপারের স্ত্রীকে মৌখিকভাবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। যেহেতু মেয়েরা অভিযোগ করেছে, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।’
উৎসঃ   আরটিএনএন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ