• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:২৭ অপরাহ্ন |

প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা: আশিয়ানের সন্ত্রাসী বাহিনীর তাণ্ডব

Asianঢাকা: আশিয়ানের সন্ত্রাসী বাহিনীর তাণ্ডবে অস্থির হয়ে উঠেছে রাজধানীর দক্ষিণখান থানার আশকোনা, হলান ও বরুয়ার স্থানীয় জনগণ। আশকোনা, হলান, বরুয়া ভূমি মালিক সমিতি সম্প্রতি এসব অভিযোগ করে। তারা নিজেদের ভূমি রক্ষায় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়েছেন।
উল্লেখ্য, বিতর্কিত আশিয়ান সিটির সব কার্যক্রম বন্ধ রাখতে হাইকোর্ট নির্দেশ দিলেও নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে রাজধানীর দক্ষিণখানে পরিবেশ বিধ্বংসী কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে তারা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নাকের ডগায় বিভিন্ন বিতর্কিত কর্মকাণ্ড চললেও প্রশাসন যেন দেখেও না দেখার ভান করছে।
ভূমি মালিক সমিতির সভাপতি জিয়াউদ্দিন জাবেদ বলেন, আশিয়ান সিটি নামক ভূমিদস্যুর মালিক এলাকাটিকে বিরান ভূমিতে পরিণত করেছে। ভূমিখেকো আশিয়ান সিটি এ সময় স্থানীয়দের শত শত স্থাপনা বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেয়। এমনকি গোরস্থানও রক্ষা পায়নি সন্ত্রাসীদের হাত থেকে। এলাকাবাসীকে তাদের পৈতৃক ভিটা ছাড়তে বাধ্য করে আশিয়ান সিটির সন্ত্রাসীরা। বিতর্কিত এ প্রকল্পটির ক্যাডারদের হাত থেকে নারীরাও রেহাই পায়নি। আশিয়ান সিটির সন্ত্রাসীরা এলাকাটিতে কয়েকটি হত্যাকাণ্ডও ঘটিয়েছে।
জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স রুমে সম্প্রতি এক সংবাদ সম্মেলনে এ সব কথা বলা হয়। ওই সময় সেখানে উপস্হিত ছিলেন আশকোনা, হলান, বরুয়া ভূমি মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মর্তুজা হোসেন শাহিন, কোষাধ্যক্ষ আমিনুল ইসলাম, কমান্ডার জাফর আহমেদ, মোস্তফা কামালসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন। আশিয়ান সিটির ভূমিদস্যুতার শিকার কয়েক ভূমি মালিক জানান, ভূমিদস্যুদের হাতে নির্যাতিত হয়েও পুলিশের সহযোগিতা পাননি তারা। উপরন্তু ভূমিদস্যুরাই তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে। পুলিশ ভূমিদস্যুদের পক্ষ নেওয়ায় তারা জীবন নিয়েও শংকিত বলে জানান। থানায় জিডি করতে গেলে ‘আশিয়ানের সঙ্গে আপনারা পারবেন না, তার চেয়ে ভিটে ছেড়ে চলে যান’ বলেও পুলিশ উল্টো পরামর্শ দেয়।
আশিয়ানের ভূমিদস্যুদের শিকার জিয়াউদ্দিন জাবেদ বলেন, নিজ জমিতে আমি ঘর তুললেও আশিয়ানের জাহিদসহ অনেকে আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে আমার সব স্থাপনা ভেঙে দিয়েছে। আমি থানায় মামলা করতে গেলে তিন দিন পর আমার মামলা নিলেও এর কিছুক্ষণ পরে ভূমিদস্যুরাই উল্টো সন্ত্রাসবিরোধী আইনে আমার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে।
পরিবেশবিরোধী বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে আশিয়ান সিটির বিরুদ্ধে ৮টি পরিবেশবাদী সংগঠনের পক্ষ থেকে রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরের ২ জানুয়ারি হাইকোর্ট আশিয়ানের সব কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দেন। হাইকোর্টের আইনের কোনো রকম তোয়াক্কা না করেই আশিয়ান সিটি আবারও পরিবেশ বিধ্বংসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে।
ভূমি মালিকরা আরো জানান, কিছু দিন আগে স্থানীয় ভূমি মালিকরা তাদের জমির মাপ দিতে গেলে আশিয়ানের এক কর্মকর্তার নেতৃত্বে শাহেনুর, মোরশেদ, বাবুলসহ অন্যরা জমির মাপ দিতে বাধা দেন। আশিয়ান সিটির তাণ্ডবে অসহায় এলাকাবাসী এর আগে কয়েকবার সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুনের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছেন। ভূমিদস্যু, প্রতারক চক্র আশিয়ান সিটির জবরদখল, অত্যাচার, নিপীড়নের হাত থেকে বাঁচানোর জন্য ভূমি মালিকরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ