• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৪:৩০ পূর্বাহ্ন |

প্রাথমিক শিক্ষকদের বদলির স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার

PSCসিসি নিউজ: সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বদলির স্থগিতাদেশ ১৫ এপ্রিল থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। আজ ১৬ এপ্রিল থেকে তা কার্যকর হবে। আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত এ প্রত্যাহার আদেশ বহাল থাকবে। এ সময়ের মধ্যে ওই শিক্ষকেরা চলতি নীতিমালার আলোকেই বদলির জন্য আবেদন করতে পারবেন। অর্থাৎ বিদ্যমান নীতিমালার আলোকেই শিক্ষকেরা বদলির জন্য আবেদন করতে পারবেন ও বদলির সুযোগ পাবেন। তবে বদলির নীতিমালা সংশোধনের যে খসড়া প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ পর্যায়ে উপস্থাপন করা হয়েছে তা অনুমোদন করা হয়নি। খসড়া আরো পর্যালোচনা ও সময়োপযোগী করতে ফেরত পাঠানো হয়েছে এবং বিদ্যমান নীতির আলোকে বদলি কার্যক্রম আপাতত চালিয়ে যেতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব (বিদ্যালয়) সন্তোষ কুমার অধিকারী জানান, ১৫ এপ্রিল বদলির স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে। এ সংক্রান্ত আদেশ মঙ্গলবারই জারি করা হয়েছে। নীতিমালার খসড়া আরো পর্যালোচনার প্রয়োজন রয়েছে। তাই বিদ্যমান নীতিমালার আলোকেই এখন বদলি করা যাবে।
প্রসঙ্গত সদ্য সমাপ্ত উপজেলা নির্বাচনের কারণে দেশব্যাপী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বদলি স্থগিত করা হয়েছিল। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনার আলোকেই এ স্থগিতাদেশ দেয়া হয়েছিল। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা প্রতি বছরের জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত সময়ের মধ্যে শুধু বদলির সুযোগ পেয়ে থাকেন। প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত না করার স্বার্থেই দীর্ঘ দিন থেকেই এ আদেশ বহাল রয়েছে।
বদলির স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের যে আদেশ গতকাল দেয়া হয়েছে তাতে বলা হয়েছে, এ স্থগিতাদেশ আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত বহাল থাকবে। ৩০ জুনের পর আর কোনো বদলির আবেদন করা যাবে না। তবে সদ্য জাতীয়করণকৃত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা এখনই বদলির সুযোগ পাবেন না। কারণ জাতীয়করণ প্রক্রিয়া এখনো সমাপ্ত হয়নি। দ্বিতীয় ধাপের কাজ এখন পর্যন্ত চূড়ান্ত রূপ পায়নি। তৃতীয় ধাপের কাজ এখনো প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।
অপর দিকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বদলির নীতিমালায় ব্যাপক সংশোধনের প্রস্তাব করে একটি খসড়া অনুমোদনের জন্য  মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ পর্যায়ে পাঠানো হয়। এ জন্য  মন্ত্রণালয়ের একজন বিদায়ী অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে খসড়া প্রস্তাবনা প্রণয়ন করা হয়েছিল দুই সপ্তাহ আগে। গত জানুয়ারিতে প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন স্কেল ও পদ মর্যাদা বৃদ্ধির ফলে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবং সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসারের পদমর্যাদা সমপর্যায়ের হয়ে পড়ায় বিদ্যমান বদলি নীতিমালায় সংশোধন অপরিহার্য হয়ে পড়ে।
সূত্র জানায়, বদলি নীতিমালার খসড়ায় সব বদলির দায়িত্ব জেলা এবং উপজেলা শিক্ষা অফিসারের হাতে ন্যস্ত করা হয়েছিল। শুধু প্রশাসনিক কারণে বদলির অনুমোদন  মন্ত্রণালয় ও অধিদফতরের কাছে পাঠানোর প্রস্তাব করা হয়েছিল খসড়া প্রস্তাবনায়। কিন্তু তাৎক্ষণিকভাবে খসড়া প্রস্তাব অনুমোদন না দিয়ে তা ফেরত পাঠানো হয়েছে এবং বদলির স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে বিদ্যমান নীতিমালার আলোকেই বদলি কার্যক্রম আপাতত সম্পন্ন করার নির্দেশ দেয়া হয়।
বদলির ব্যাপারে স্থগিতাদেশ বহাল থাকায় মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ পর্যায়ে ব্যাপক চাপ অব্যাহত ছিল উপজেলা নির্বাচন শেষ হওয়ার পর থেকেই। গত ৯ এপ্রিল উপজেলা নির্বাচন সমাপ্ত হয়।
জাতীয়করণকৃত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের ইনক্রিমেন্ট-টাইম স্কেল নিয়ে সমস্যা সদ্য জাতীয়করণকৃত রেজিস্টার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকেরা তাদের প্রাপ্য বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন না। বেতন কাঠামোতে এ ব্যাপারে সুস্পষ্ট নির্দেশনা না থাকায় জেলা-উপজেলা শিক্ষা অফিস এবং হিসাব শাখায় আপত্তি করছেন বলে জানা গেছে। দেশের কোনো কোনো এলাকায় এ নিয়ে জাতীয়করণকৃত প্রধান শিক্ষকেরা হয়রানি ও ভোগান্তির মুখে পড়ছেন। তারা ইনক্রিমেন্ট ও টাইম স্কেল পাচ্ছেন না। এ ব্যাপারে প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো: আমিনুল ইসলাম চৌধুরী মঙ্গলবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রীর কাছে শিক্ষকদের হয়রানি বন্ধের জন্য লিখিত আবেদন করেছেন। উৎস: নয়া দিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ