• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:২৬ অপরাহ্ন |

গ্রাহক সংকটে নতুন ৯ ব্যাংক

BANKঅর্থ-বাণিজ্য ডেস্ক: গত বছরে নতুন করে যাত্রা শুরু করা নয়টি ব্যাংক বেশ কঠিন সময় পার করছে। একটি সীমিত জনগোষ্ঠীকে লক্ষ্য করে একই সময়ে অনেকগুলো ব্যাংকের অর্থনৈতিক কার্যক্রম পরিচালিত হওয়ায় নতুন ব্যাংকগুলো গ্রাহক টানতে ব্যর্থ হচ্ছে।
২০ ফেব্রুয়ারি তারিখে নতুন নয়টি ব্যাংকের অগ্রিম-আমানতের গড় অনুপাত (এডিআর) ছিল মাত্র ৫৪ শতাংশ। অর্থাৎ ১০০ টাকা জমার বিপরীতে ব্যাংকগুলো ঋণ দিতে পেরেছে মাত্র ৫৪ টাকা। দেশের সামগ্রিক ব্যাংক ব্যবসার এডিআর যেখানে ৭০.৩৫ শতাংশ এবং বাংলাদেশ ব্যাংক যেখানে ৮৫ শতাংশের একটি সীমারেখা বেঁধে দিয়েছে, সেখানে নয়টি ব্যাংকের ৫৪ শতাংশ এডিআর তুলনামূলকভাবে অত্যন্ত কম।
নতুন ব্যাংকগুলোর মধ্যে মাত্র ১৫ শতাংশ এডিআর নিয়ে মধুমতি ব্যাংকের অবস্থা এখন সবচেয়ে খারাপ। এরপরেই পিছিয়ে পড়া ব্যাংকগুলোর তালিকায় রয়েছে যথাক্রমে ২৩.৪৬ শতাংশ ও ২৪.১০ শতাংশ এডিআর নিয়ে দ্য ফারমারস্‌ ব্যাংক এবং এনআরবি ব্যাংক। তথ্য বাংলাদেশ ব্যাংকের।
দেশে বর্তমানে মোট ৫৬টি ব্যাংক আছে এবং গ্রাহক পাওয়ার জন্য ব্যাংকগুলোর মধ্যে যে কী ভীষণ রকমের প্রতিযোগিতা আছে এরই কিছুটা আভাস দিলেন দ্য ফারমারস্‌ ব্যাংকের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।
প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে থাকা ব্যাংক, যাদের বর্তমানে ন্যূনতম ১২টি শাখা আছে, সেগুলো এখন নতুন গ্রাহক টানার জন্য নজর দিচ্ছে মফস্বল শহর ও গ্রামাঞ্চলের দিকে।
বর্তমানে ছয়টি শাখা নিয়ে পরিচালিত হচ্ছে মধুমতি ব্যাংক এবং খুব শিগগিরই আরো ১০টি শাখা খুলতে যাচ্ছে ব্যাংকটি। মধুমতি ব্যাংকের মিজানুর রহমান বলেন, “কঠিন পরিস্থিতি থেকে বের হয়ে আসার চেষ্টা করছি আমরা। চলতি বছরের জুন মাস নাগাদ হয়তো আমাদের আরো ভালো অবস্থানে দেখবেন আপনারা।”
নতুন করে ঋণ নেয়ার আগে সম্ভাব্য গ্রাহকরা পরিস্থিতি যাচাই করে নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন এনআরবি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোখলেসুর রহমান। তিনি জানান, ফেব্রুয়ারি মাসে যেখানে তার ব্যাংকের এডিআর ছিল মাত্র ২৪ শতাংশ, সেখানে চলতি মাসে তা ৫৪ শতাংশে উন্নীত হয়েছে।
এই পরিস্থিতিতে ব্যবসায়িক কৌশল এবং প্রতিবন্ধকতাগুলো নিয়ে আলোচনার জন্য নতুন ব্যাংকগুলোর সঙ্গে একটি বৈঠক ডেকেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আতিউর রহমানের সভাপতিত্বে ওই বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন নতুন ব্যাংকগুলোর চেয়ারম্যান এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালকরা।
অবশ্য সবগুলো নতুন ব্যাংককেই যে প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হতে হচ্ছে, তা নয়। এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংক প্রায় ৮৪ শতাংশের কাছাকাছি এডিআর ইতিমধ্যে অর্জন করে ফেলেছে এবং যেখানে এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকে এডিআরও ৭৪ শতাংশ।
এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল কুদ্দুস বলেন, “আমরা আক্রমণাত্মক হয়ে নয়, বরং সচেতনভাবে কৌশলী হয়েছি।”
দেশে আরো নতুন ব্যাংক খোলার অনুমতি দানের বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছেন সংশ্লিষ্ট অনেক বিশ্লেষকই। তাদের ভাষ্য অনুযায়ী, দেশের এখনই প্রয়োজনের তুলনায় অনেক বেশি ব্যাংক রয়েছে। কিন্তু তারপরেও শুধু রাজনৈতিক বিবেচনা থেকে আরো নয়টি ব্যাংককে অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
অথচ, ভারতের মোট ১২০ কোটি জনগণের অর্ধেকই ব্যাংকের সুবিধা থেকে পুরোপুরি বঞ্চিত হওয়ার পরেও গত সপ্তাহে দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংক মাত্র দুটো নতুন ব্যাংককে অনুমোদন দিয়েছে। বর্তমানে ভারতে ৮৮টি বাণিজ্যিক ব্যাংক নিবন্ধিত রয়েছে। সূত্র: ডেইলি স্টার


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ