• রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:১৫ পূর্বাহ্ন |

লালমনিরহাটে সেচের অভাবে নষ্ট হচ্ছে বোরো ক্ষেত

Hatibandha Pic-02হাসান মাহমুদ, লালমনিরহাট: ক্ষেতগুলোতে ধানের শীষ আসতে শুরু করেছে । কিছু দিনের মধ্যে গোলায় উঠবে সোনালী ফসল । এমন স্বপ্ন নিয়ে যখন দিন-রাত অকান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে কৃষক-কৃষানী। ঠিক তখনই সেই স্বপ্নকে দুঃস্বপ্নে পরিনত করেছে জমিতে সেচের জন্য ব্যবহৃত একমাত্র বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমারটি। প্রায় সাত দিন আগে বিকল হওয়া ট্রান্সফরমারটি মেরামত বা প্রতিস্থাপন না হওয়ায় লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার তিন গ্রামের হাজারও কৃষক দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। এতে করে বোরো ক্ষেতগুলো নষ্ট হতে বসলেও সংশ্লিষ্ট বিদ্যুৎ বিভাগের ঘুম ভাঙছে না। উল্টো বিদ্যুৎ বিভাগের কর্র্র্তৃপক্ষ ট্রান্সফরমার চালু করতে কৃষকদের কাছে মোটা অংকের চাঁদা আদাঁয় করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
গ্রামবাসীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার পশ্চিম বেজগ্রাম (একাংশ), পশ্চিম নওদাবাস ও শ্যামের বাজার এলাকার জন্য ব্যবহৃত একমাত্র বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমারটি গত শুক্রবার বিকেলে হঠাৎ করেই নষ্ট হয়ে যায়। বিষয়টি তাৎক্ষনিক ভাবে স্থানীয় বিদ্যুৎ অফিসে জানানো হলেও বুধবার পর্যন্ত ট্রান্সফরমারটি মেরামত করা হয়নি। এনিয়ে বিদ্যুৎ বিভাগের দাবি আনুযায়ি খরচের টাকা দিয়েও কোন ফল মিলছে না । গ্রামবাসী আরো জানায়, বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মচারীরা মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে অবৈধভাবে সংযোগ প্রদান করায় অতিরিক্ত সংযোগের ফলে ট্রান্সফরমারটি নষ্ট হয়ে গেছে।
নাম প্রকাশ্যে অনিশ্চুক স্থানীয় এক কৃষক জানান, বিদুৎ অফিসের চাহিদা মতো তাঁরা শ্রেনী ভেদে ২‘শ থেকে ৫‘শ টাকা করে চাঁদা তুলেছেন। এভাবে প্রায় ৩৫ হাজার টাকা স্থানীয় বিদ্যুৎ বিভাগের এক কর্মকর্তার হাতে তুলে দেয়া হয়েছে ।
পশ্চিম বেজগ্রামের জাহাঙ্গীর আলম রিকো বলেন, “প্রায় সাত দিন ধরে অন্ধকারে পড়ে আছি। সেকারণে বিকল ট্রান্সফরমার চালু করতে আমি ২‘শ টাকা চাঁদা দিয়েছি।
একই এলাকার মিঠু মিয়া বলেন, সেচের অভাবে তাঁর বোরো ক্ষেত নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। তাই ফসল বাঁচাতে তিনিও ৫‘শ টাকা চাঁদা দেয়ার কথা জানান।
বুধবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ওই তিন গ্রামের শত শত একর বোরো ক্ষেত সেচের অভাবে শুকিয়ে খা খা ভুমিতে পরিণত হয়েছে। স্বচ্ছল কৃষকদের কেউ কেউ শ্যালো মেশিন দিয়ে সেচের ব্যবস্থা করলেও সিংহভাগ কৃষক তা থেকে বঞ্চিত।
পশ্চিম নওদাবাস এলাকার কৃষক নুর ইসলাম জানান, এবছর এক একর জমিতে তিনি বোরো চাষ করেছেন। ক্ষেতে ইতোমধ্যে ধানের শীষ আসা শুরু করেছে। ট্রান্সফরমার নষ্ট হওয়ার কারণে বিদ্যুৎ না থাকায় প্রায় ৬ দিন ধরে সেচ দিতে পারছেন না তিনি। ফলে তাঁর ক্ষেতগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে বলে জানান নুর ইসলামের। শুধু নুর ইসলামই নন একই কথা বলেন, ওই এলাকার সামশুল হক, মতিন, বাবলু রঞ্জনসহ অসংখ্য কৃষক। এই গ্রামে প্রায় কয়েক হাজার একর জমির ফসল সেচের অভাবে নষ্ট হয়ে যেতে পারে বলে কৃষকরা ধারনা করছেন।
এ বিষয়ে হাতীবান্ধা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, ‘এই মুহুর্তে বোরো ক্ষেতে পানির কোন বিকল্প নেই। তাই সময় মতো ওই ক্ষেতগুলোতে সেচ দেয়া না হলে ফসলের ক্ষতি হবে”।
হাতীবান্ধা আবাসিক বিদ্যূৎ প্রকৌশলী আব্দুল মতিন বলেন, ‘বিকল ট্রান্সফরমার মেরামতে প্রায় ১৫ দিন সময় লাগে। এরপরেও কৃষকদের জন্য একটি ট্রান্সফরমারের ব্যবস্থা করতে তিনি  বুধবার দুপুরে বিভাগীয় অফিস রংপুরে যাচ্ছেন বলে জানান। কৃষকদের কাছে টাকা নেয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ট্রান্সফরমার মেরামতে  আন অফিশিয়ালি ভাবে কিছু টাকা পয়সা খরচ হয়”।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ