• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১০:৫৯ অপরাহ্ন |

অনিয়মের অভিযোগে বেসিক ব্যাংকের ৬ কর্মকর্তা সাসপেন্ড

Bank Basikসিসি ডেস্ক: বেসিক ব্যাংকের সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকার ঋণ অনিয়মের অভিযোগে ব্যাংকটির সহকারী ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি)সহ ছয় কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত (সাসপেন্ড) করেছে কর্তৃপ। বৃহস্পতিবার এ সংক্রান্ত একটি অফিস আদেশ জারি করা হয়েছে। বরাখাস্তকৃত অন্যরা হলেন, ব্যাংকটির মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ আলী, খন্দকার শামীম, জয়নাল আবেদীন, সহকারী মহাব্যবস্থাপক সেতারা আহমেদ ও সহকারী ব্যবস্থাপক জাহিদ হাসান।
এ বিষয়ে বেসিক ব্যাংকের ডিএমডি মোনায়েম খান জানিয়েছেন, তার অপরাধ কী তাই তিনি জানেন না। তিনি দাবি করেন, তিনি তো কোনো অনিয়ম করেননি। কিন্তু কেন তার বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা এ বিষয়ে তিনি জানান, কোনো কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা নেয়ার আগে কিছু নিয়ম পরিপালন করতে হয়। প্রথমে ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়। তারপর আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়। উপযুক্ত ব্যাখ্যা দিতে না পারলে তবেই কর্তৃপক্ষ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে থাকে। কিন্তু তার বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষ এর আগে কোনো অভিযোগ বা কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়নি। এ কারণে তিনি জানেন না আসলে তার অপরাধ কী। তিনি জানান, তার বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষ যে ব্যবস্থা নিয়েছে এর প্রতিবাদে তিনি আইনি পদক্ষেপ নেবেন।
বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ছয় কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্তের মাধ্যমে বেসিক ব্যাংক প্রকান্তরে তাদের দায় স্বীকার করে নিলো। ওই কর্মকর্তা জানান, দীর্ঘ দিন ধরে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ব্যাংকটির বিরুদ্ধে ঋণ কার্যকম থেকে শুরু করে নানা অনিয়মের অভিযোগ পেয়ে আসছিল। বাংলাদেশ ব্যাংকের একাধিক তদন্ত প্রতিবেদনেও নানা অনিয়েমের তথ্য বের হয়ে আসছিল। বিভিন্ন গণমাধ্যমে এ নিয়ে বিভিন্ন প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয়েছিল। বরাবরই বেসিক ব্যাংক কর্তৃপক্ষ তাদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে আসছিল। কিন্তু আজ বৃহস্পতিবার বেসিক ব্যাংকের ছয় ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেয়ার মাধ্যমে নানা অনিয়মের দায় তারা স্বীকার করে নিলো। এখন বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ব্যাংক কোম্পানি আইন অনুযায়ী ব্যাংকটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া সহজ হবে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের অন্য এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ইতোমধ্যে আমানতকারীদের স্বার্থ রার্থে বা জনস্বার্থে বেসিক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) কাজী ফখরুল ইসলামকে নোটিশ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। জানা গেছে, কর্তৃপক্ষ সে নোটিশের জবাব দিলেও বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে তা গ্রহণযোগ্য হয়নি। এ কারণে কেন্দ্রীয় ব্যাংক যেকোনো সময় ব্যাংকটির বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিতে পারে।
এই কর্মকর্তা জানিয়েছেন, আইনের ৪৬ ধারায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান, পরিচালক বা প্রধান নির্বাহীকে অপসারণের মতা দেয়া আছে বাংলাদেশ ব্যাংককে।
প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকার ঋণ অনিয়ম : এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন তদন্তের মাধ্যমে বেসিক ব্যাংকের বিরুদ্ধে প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকার ঋণ অনিয়ম শনাক্ত করেছে। এগুলো অর্থ মন্ত্রণালয়ে লিখিতভাবে ও অর্থমন্ত্রীর সাথে একাধিক বৈঠকে তুলে ধরা হয়। এর অনেকগুলো ঋণের েেত্র কেন্দ্রীয় ব্যাংক সরাসরি এমডির সংশ্লিষ্টতা পায়। এর আগে কেন্দ্রীয় ব্যাংক নানা অনিয়মের কারণে বেসিক ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ ও ব্যবস্থাপনা কর্তৃপকে দিয়ে একটি সমঝোতা স্মারকে স্বার করিয়ে নেয়। যে সমঝোতাতে ঋণ বিতরণসহ বিভিন্ন েেত্র বেশ কিছু সীমা আরোপ করা হয়। যদিও এই সমঝোতা স্মারকের শর্তও মানছে না ব্যাংকটি।
গত মার্চে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে এমডির বিরুদ্ধে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়ার সময় তার বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পায়। এমডির বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো গুলশান শাখার মা ট্যাক্সের ঋণ অনিয়ম। বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এটি কাগুজে প্রতিষ্ঠান। একইভাবে গুলশান শাখাতে আরো কাগুজে প্রতিষ্ঠান রয়েছে এসপিএন ও ইএফএস এন্টারপ্রাইজ। এই তিন প্রতিষ্ঠানেরই প্রকৃত সুবিধাভোগী হচ্ছেন জনৈক শামীম চিস্তি। এই প্রতিষ্ঠান তিনটির ১৭২ কোটি টাকা ঋণ দিতে ব্যাংকের গুলশান শাখা কোনো সুপারিশ করেনি। শুধু প্রস্তাবটি পাঠিয়ে দেয়ার পরের দিনই ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ ঋণ অনুমোদন করে।
এর আগে অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো বাংলাদেশ ব্যাংকের বিভিন্ন প্রতিবেদনে পর্ষদের বিরুদ্ধেও গুরুতর অভিযোগ আনা হয়েছিল। তাতে বলা হয়েছিল, প্রধান কার্যালয়ের ঋণ যাচাই কমিটি বিরোধিতা করলেও পর্ষদ ঋণ অনুমোদন করে। বলা হয়েছে, ‘৪০টি দেশীয় তফসিলি ব্যাংকের কোনোটির ক্ষেত্রেই পর্ষদ কর্তৃক এ ধরনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়া পরিলতি হয় না।’
পর্ষদের ১১টি সভায় ঋণ অনুমোদন করা হয়েছে তিন হাজার ৪৯৩ কোটি ৪৩ লাখ টাকা, যার বেশির ভাগ ঋণই গুরুতর অনিয়ম করে দেয়া হয়েছে। এই ঋণ পরিশোধ বা আদায় হওয়ার সম্ভাবনা কম বলে মত দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
৬ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ : বেসিক ব্যাংকের অফিস আদেশে বলা হয়েছে, ১৫ এপ্রিলে ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভায় আলোচ্য ছয় কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু সংশ্লিষ্ট সূত্র অভিযোগ করেছে, বেসিক ব্যাংকের ওই দিনের পর্ষদ সভায় এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত ছিল না। কিন্তু কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে বড় ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হতে পারে এমন একটি আঁচ করতে পেরে তড়িঘড়ি করে গতকাল ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আলোচ্য ছয় কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে। এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, তারাও বিষয়টি জানতে পেরেছেন। প্রকৃত ঘটনা বের করা হবে। তবে সে যাই হোক না কেন এর মাধ্যমে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ তাদের দায় স্বীকার করে নিয়েছে। এখন বাংলাদেশ ব্যাংক যেকোনো ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে পারে। বেসিক ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট এক সূত্র জানিয়েছে, প্রকৃত অপরাধীদের বাঁচাতে এ ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে কি না সে বিষয়টি খতিয়ে দেখা উচিত। ওই সূত্র জানিয়েছে, ব্যাংকের আপামর কর্মকর্তাদের দাবি হলো, নানা অনিয়ম দূর করে ব্যাংকটি সুস্থ ধারায় ফিরে আসুক। উৎস: নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ