• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৯:৪২ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি জিতু গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ শ্রেণিকক্ষে রাবি শিক্ষিকাকে মারতে গেলেন ছাত্র! অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযােগ এনজিও’র দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার জলঢাকায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কর্মশালা ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার

ফুলবাড়ীতে ৩৮১ জন শিক্ষার্থীর উপবৃত্তি অনিশ্চিত

Kurigramফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারীদের গাফলতি এবং দায়িত্বহীনতার কারনে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার ৩৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মোট ৩৮১ জন শিক্ষার্থীর ২০১৩ সালের ২য় কিস্তির উপবৃত্তির টাকা উত্তোলন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। মাদ্রাসা ও উচ্চ বিদ্যালয় সহ এ সকল প্রতিষ্ঠানের ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেনীর ওই শিক্ষার্থীরা ১ম কিস্তির উপবৃত্তির টাকা পেলেও ২য় কিস্তির এ্যাওয়াড শীটে নাম না থাকায় শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও প্রতিষ্ঠান প্রধান শিক্ষকরা হতাশ হয়ে পড়েছেন।
জানা গেছে, ২০১৩ সালে উপজেলার ২৯টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১৮টি মাদ্রাসা ও ১১টি নিম্ন-মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিভিন্ন শ্রেণীর ১৮২৯ জন শিক্ষার্থী যথানিয়মে ১ম কিস্তির (জানুঃ-জুন)উপবৃত্তি উত্তোলন করে। ২য় কিস্তির(জুলাই-ডিসেঃ) বকেয়া উত্তোলনের জন্য তালিকা প্রেরনের সময় কর্মকর্তা কর্মচারীদের গাফলতি এবং দায়িত্বহীনতার কারনে রহস্যজনক ভাবে ৩৮১ জন শিক্ষার্থীর নাম বাদ পড়ে যায়। গত সপ্তাহে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের এ্যাওয়াড শীট প্রকাশিত হলে বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের নজরে আসে। ৩৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন শ্রেণীর মোট ৩৮১ জন শিক্ষার্থীর নাম শীটে না থাকায় সাড়া উপজেলায় তোলপাড় শুরু হয়। গত রোববার প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারীদের বিরুদ্ধে গাফলতি,দায়িত্বহীনতার অভিযোগ এনে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে অভিযোগ করেন।
উত্তর শিমুলবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হামিদুর রহমান,পশ্চিম ফুলমতি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজিজুল হক, কুটিচন্দ্রখানা নি¤œ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম হিরু জানান, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারীরা নিয়মিত অফিস করেন না। পার্শ্ববর্তী অন্যান্য উপজেলায় এমন সমস্যা হয়নি। তাদের গাফলতির কারনে উপজেলার হতদরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীরা উপবৃত্তি সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছে।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জাকির হোসেন জানান, গাফলতি নয়,মাধ্যমিক শিক্ষা খাত উন্নয়ন প্রকল্পের বরাদ্দ না থাকায় হেড অফিস থেকে নাম কেটে দিয়ে এ্যাওয়াড শীট প্রকাশ করেছে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন অভিযোগ প্রাপ্তির সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জাকির হোসেন অসুস্থতার কারনে ছুটিতে আছেন, তারপরও শিক্ষার্থীরা যাতে উপবৃত্তির টাকা পায় সেজন্য চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ