• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১০:২০ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি জিতু গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ শ্রেণিকক্ষে রাবি শিক্ষিকাকে মারতে গেলেন ছাত্র! অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযােগ এনজিও’র দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার জলঢাকায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কর্মশালা ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার

গণজাগরণ, হেফাজত, জামায়াত নয়া রাজনীতি

Gonoসিসি নিউজ: রাজনীতির সমীকরণ কখনও কখনও খুবই জটিল। হিসাব মেলানো দুষ্কর। এক বছর আগে গণজাগরণ মঞ্চের উত্থান ছিল নাটকীয়। ক্ষমতাসীনদের সমর্থন আর অংশগ্রহণ ছিল শুরুর দিন থেকেই। ক্ষমতাসীনরা এর নাম দিয়েছিল দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ। গণজাগরণের প্রতিউত্তর হিসেবে মঞ্চে আবির্ভাব ঘটে হেফাজতে ইসলামের। শাপলায় হেফাজত উচ্ছেদ অভিযানে শত ভাগ সাফল্য দেখায় সরকার। জামায়াতের ওপরও গত পাঁচ বছর ধরে খড়গহস্ত আওয়ামী লীগ। কিন্তু গণজাগরণ মঞ্চ, হেফাজত আর জামায়াত ইস্যুতে শোনা যাচ্ছে নয়া রাজনীতির গুঞ্জন। এ নয়া রাজনীতির লাভ-ক্ষতি নিয়েও চলছে হিসাব-নিকাশ। রাজনীতি বিশ্লেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ অবশ্য বলছেন, বিষয়টি জটিল। গণজাগরণ মঞ্চ আর হেফাজতের হিসাব যদিও স্পষ্ট। কয় দিন আগেই হঠাৎ করেই বিভক্তি দেখা দেয় গণজাগরণ মঞ্চে। পাল্টাপাল্টি হামলা আর মামলার ঘটনাও ঘটে। মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকারের বিরুদ্ধে অর্থ তসরুফ আর চাঁদাবাজির অভিযোগ আনা হয়। তার বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় ছাত্রলীগ। স্পষ্টত এখন একটি অংশের নেতৃত্বে রয়েছেন ইমরান এইচ সরকার। অন্য অংশটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন কামাল পাশা চৌধুরী। গণজাগরণ মঞ্চ গোটাতে সরকারি উদ্যোগ যখন স্পষ্ট তখন নাটকীয় ঘোষণা দেন হেফাজত আমীর আল্লামা আহমদ শফী। ১১ই এপ্রিল চট্টগ্রামে তিনি ঘোষণা দেন, হাসিনা সরকার, আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগের সঙ্গে হেফাজতের কোন শত্রুতা নেই, তারা হেফাজতের বন্ধু। সরকারি দলের কোন নেতাই এখন পর্যন্ত আল্লামা শফীর বক্তব্যের প্রতিবাদ করেননি। হেফাজতের বন্ধুত্ব তারা কবুল করেছেন বলেই মনে হয়। অবশ্য হেফাজতকে বাগে আনতে সরকারের চেষ্টার কখনও কমতি ছিল না। সরকারি হেলিকপ্টার বারবার উড়ে গেছে হাটহাজারীতে। দিনের পর দিন চলেছে সমঝোতা প্রচেষ্টা। সে প্রচেষ্টার সফলতার ইঙ্গিত এখন স্পষ্ট। সরকারের সঙ্গে সমঝোতার অন্যতম শর্ত হিসেবে হেফাজতের পক্ষ থেকে গণজাগরণ মঞ্চ গুটিয়ে নেয়ার কথা বলা হয়েছে বলে একটি সূত্র দাবি করেছে। যদিও দুনিয়াবি লেনদেন এই সমঝোতার নিয়ামক শক্তি বলে কেউ কেউ বলেছেন। গণজাগরণ মঞ্চের বিরুদ্ধে সরকারি অ্যাকশনের পেছনে জামায়াতের সঙ্গে সরকারের সমঝোতার গুঞ্জনের বিষয়টিও আলোচিত হচ্ছে। কেউ কেউ বলছেন, ভবিষ্যৎ কোন ইস্যুতে জামায়াতের বিরুদ্ধে গণজাগরণ মঞ্চ যেন কঠোর কোন আন্দোলন গড়ে তুলতে না পারে এ জন্যই মঞ্চ ভেঙে দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে। যদিও জামায়াতের একাধিক সূত্র এ ধরনের সমঝোতার দাবি নাকচ করেছে। তবে এ নয়া রাজনীতি সরকারের জন্য কোন লাভজনক প্রজেক্ট হবে না বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষকরা। গণজাগরণ মঞ্চের পেছনে একটি বিদেশী শক্তির সমর্থনের কথা শুরু থেকে আলোচিত হয়েছিল। এখন সরকার গণজাগরণ মঞ্চের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়ায় ওই শক্তির রুষ্ট হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। কোন কারণে ওই শক্তির সমর্থনে হেরফের ঘটলে বাংলাদেশের পুরো রাজনৈতিক পরিস্থিতিই বদলে যেতে পারে। শাহবাগে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি হিসেবে পরিচিত সব দল ও পন্থার মানুষ সমবেত হয়েছিল। হঠাৎ করে গণজাগরণ মঞ্চের প্রতি সরকারের কঠোর অবস্থান আওয়ামী লীগ পন্থি হিসেবে পরিচিত বুদ্ধিজীবীদেরও হতচকিত করেছে। এ নিয়ে প্রকাশ্য এখনও মুখ না খুললেও তারা ক্ষুব্ধ। সরকারের গণজাগরণ মঞ্চ নীতি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতিকেই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলবে। এ চেতনার ওপর নির্ভর করেই আওয়ামী লীগ অতীতে বহু দুর্যোগময় সময় উতরাতে পেরেছে। হেফাজতের সঙ্গে আওয়ামী লীগের সমঝোতা দলটির নারী নীতিকেও চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলবে। হেফাজতের ১৩ দফা দাবিকে অনেকেই নারী অগ্রগতির পথে বাধা হিসেবে চিহ্নিত করেছিলেন। নারীদের নিয়ে আল্লামা আহমদ শফীর একটি বক্তব্য নিয়ে শুরু হয়েছিল তুমুল বিতর্ক। এখন আওয়ামী লীগের সঙ্গে হেফাজতের বন্ধুত্ব নারীদের নিয়ে আওয়ামী লীগের নীতিকেও সামনে নিয়ে আসবে। নবম সংসদ নির্বাচনের আগে খেলাফত মজলিসের সঙ্গে আওয়ামী লীগের চুক্তি নিয়ে বিপুল বিতর্ক হয়েছিল। হেফাজত-জামায়াতের সঙ্গে সরকারের সমঝোতার গুঞ্জন আর গণজাগরণ মঞ্চ ভেঙে দেয়ার প্রচেষ্টার পেছনে ক্ষমতা দীর্ঘায়িত করার পরিকল্পনা সবচেয়ে বেশি কাজ করছে বলে মনে করেন পর্যবেক্ষকরা। ৫ই জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনের পর সরকার সব কিছু সামলে নিলেও ক্ষমতাসীনদের মধ্যে এক ধরনের অস্বস্তি রয়েছে। হেফাজত এবং জামায়াতের সংঘবদ্ধ শক্তির বিষয়টি সরকারি নীতিনির্ধারকদের চিন্তায় রয়েছে। তবে হেফাজতকে ঘিরে সরকারের সমঝোতা প্রক্রিয়া অনেকটা প্রকাশ্য হলেও জামায়াতের ক্ষেত্রে বজায় রাখা হচ্ছে কঠোর গোপনীয়তা। দলটির বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ এক্ষেত্রে প্রধান কারণ। যদিও জামায়াতের নীতিনির্ধারণী মহলের সঙ্গে সম্পর্কিত একটি সূত্র বলছে, সরকারের সঙ্গে সমঝোতা প্রক্রিয়া নিয়ে জামায়াতের কয়েক দফা আলোচনা হলেও সে আলোচনা কখনওই এগোয়নি। মূলত প্রতিবারই যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত নেতাদের বিষয়টিতেই এসে থেমে গেছে আলোচনা। এক্ষেত্রে সরকার কোন ধরনের ছাড় দিতে রাজি নয়। অন্যদিকে, জামায়াতের বর্তমান নেতারা মনে করছেন, যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত শীর্ষ নেতাদের বাদ দিয়ে তারা কোন সমঝোতা করলেও তৃণমূল নেতা-কর্মীরা তা মেনে নেবেন না। যে কারণে সমঝোতা প্রক্রিয়া এগোতে পারেনি। যদিও জামায়াতেরই একটি অংশ মনে করে, যুদ্ধাপরাধ ইস্যুকে পেছনে ফেলে জামায়াতকে এগিয়ে যেতে হবে। গণজাগরণ মঞ্চ, হেফাজত এবং জামায়াতকে ঘিরে নতুন রাজনীতির আলামত এখন স্পষ্ট। এ রাজনীতি শেষ পর্যন্ত কার জন্য সুফল বয়ে আনে তাই এখন দেখার বিষয়।
উৎসঃ মানব জমিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ