• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন |

নির্যাতিতদের পাশে নেই বিএনপি, সুযোগ নিচ্ছে জামায়াত

bnp-jamat2রাজনীতি ডেস্ক: জাতীয় নির্বাচনের আগে-পরে দেশের বিভিন্ন স্থানে সংঘটিত সহিংসতা, নেতাকর্মীদের ওপর নির্যাতন, বিচারবহির্ভূত হত্যা, গুম, হামলা ও নির্যাতিতদের তদন্তে দেশব্যাপী টিম গঠন ও তদন্ত করেই দায়িত্ব শেষ করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি। এখন পর্যন্ত কেন্দ্রীয়ভাবে নির্যাতিত নেতাকর্মীদের পাশে না দাঁড়ানোয় তৃণমূলে বাড়ছে ক্ষোভ ও হতাশা। আর এই সুযোগকেই কাজে লাগাচ্ছে ১৮ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক জামায়াতে ইসলামী। তারা বিভিন্ন কৌশলে এসব নির্যাতিতের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টার মাধ্যমে তৃণমূল বিএনপির সমর্থনকে কাজে লাগানোর পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছে।
অপরদিকে নিরপেক্ষ নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে এবং ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বর্জনের আন্দোলনে ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণে দলের পক্ষ থেকে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের সঙ্গে স্থানীয় নেতাদের হিসাবের গরমিল পাওয়া গেছে। অনেক জেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের দেয়া তথ্যের সঙ্গে তদন্ত কমিটির তথ্যের মিল খুঁজে পাওয়া যায়নি।
এর কারণ হিসেবে স্থানীয় নেতারা জানান, তদন্ত কমিটির দায়িত্বশীলরা অনেক ক্ষেত্রে ২০০৯ সাল থেকে নেতাকর্মী নিহত ও গুমের তালিকা তৈরি করেছেন, আবার অনেক ক্ষেত্রে ২০১৩-এর ২৬ অক্টোবর আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের পর থেকে প্রতিবেদন তৈরি করেছেন। বাস্তবে এ প্রতিবেদন তৈরির ক্ষেত্রে কোন নীতি অনুসরণ করা হয়নি বলে এ ধরনের অভিযোগ উঠেছে। কুমিল্লা, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর ও চট্টগ্রাম জেলার তদন্ত টিমের অন্যতম সদস্য অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার জানান, আমরা ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে নির্বাচনকালীন সরকারের সময় থেকে জোটের নিহত ও গুমের পরিসংখ্যান তুলে ধরেছি। কিন্তু লক্ষ্মীপুর জেলায় তাদের তৈরি প্রতিবেদনের বাস্তব তথ্যে বিস্তর ফারাক রয়েছে। একই চিত্র দেখা গেছে চাঁদপুর জেলার ক্ষেত্রেও।
এসব বিষয়ে বিএনপির এক নেতা জানান, কেন্দ্রের নির্দেশে অল্প সময়ের ব্যবধানে তদন্ত কমিটি বিভিন্ন জেলা সফর করে প্রতিবেদন তৈরি করায় হিসাবের গরমিল হতে পারে। এছাড়া নিজ এলাকা থেকে স্থানীয় নেতাদের বিচ্ছিন্ন থাকার কারণে এমন গরমিল হচ্ছে। আন্দোলনে এসব নেতার অংশগ্রহণ না থাকায় মাঠপর্যায়ের ক্ষয়ক্ষতি সম্পর্কে তাদের সঠিক তথ্য জানা নেই।
বিএনপি নেতাকর্মীরা জানান, তদন্ত টিমের প্রতিবেদনে যাই থাকুক না কেন, এতে আমাদের কোনো লাভ-ক্ষতি নেই। তবে নির্যাতিতদের পাশে কেন্দ্রীয় নেতারা না দাঁড়ানোয় ভবিষ্যতে আন্দোলনে বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে। নেতাকর্মীরা জানান, গত ৬ এপ্রিল বাগেরহাট জেলার মোরেলগঞ্জ উপজেলার জিলবুনিয়া ইউনিয়ন বিএনপির নেতা খেলাফত হোসেন খসরুকে সরকারদলীয় সমর্থকরা কুপিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে। জরুরিভিত্তিতে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে স্থানান্তরের পরামর্শ দেন। কিন্তু অ্যাম্বুলেন্সের খরচ জোগানোর জন্য উপজেলা বিএনপি নেতা ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী কাজী খায়রুজ্জামান শিপনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও বিভিন্ন অযুহাত তুলে সাহায্য করেননি বলে পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়। এ সময় পরিবারের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয় জেলা বিএনপির অন্য নেতাদের সঙ্গেও। কিন্তু কোনো ফল আসেনি। তাই ধার-দেনা করে এমনকি আওয়ামী লীগ নেতাদের দেয়া সাহায্য সহযোগিতা নিয়ে তাকে চিকিৎসা ব্যয় মেটাতে হচ্ছে বলে জানান খেলাফত হোসেন খসরু। নিজের কর্মস্থলের সুবাদে যোগাযোগ করা হয় পিরোজপুর জেলা বিএনপির সঙ্গে। কিন্তু সেখান থেকেও কোনো আশার বাণী পাওয়া যায়নি।
নেতাকর্মীরা জানান, এভাবেই নির্যাতিত তৃণমূল নেতাকর্মীরা নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা একে অপরকে দেখিয়ে দেন। আর কর্মীরাও ছুটে বেড়ান এক নেতার দুয়ার থেকে অন্য নেতার দুয়ারে। আর এই সুযোগকেই কাজে লাগানোর চেষ্টা করছে জামায়াতে ইসলামী।
অপরদিকে বিভিন্ন মামলায় গ্রেফতার হওয়া বিএনপি নেতাকর্মীদের কারাগারে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা প্রদান করে এবং খোঁজ খবর নিয়ে জামায়াত-শিবির নিজেদের দল ভারি করার চেষ্টা করছেন বলে বিএনপি ও জামায়াত সূত্র থেকে জানা গেছে। এ বিষয়ে জামায়াতের এক নেতা জানান, কারাগারগুলোতে আমাদের সংগঠনের দাওয়াতী কাজ প্রচারের উত্তম জায়গা। আর সময়ও পাওয়া যায় অফুরন্ত। এখানে অল্পতেই বিভিন্ন দলের নেতাকর্মী ও সাধারণ কয়েদিদের মধ্যে নিজেদের আদর্শ তুলে ধরা যায়।
বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা এসব বিষয় অবগত হয়ে সম্প্রতি দেশের সব কারাগারে আটক নেতাকর্মীদের তালিকা তৈরিসহ বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতা দেয়া শুরু করেছেন। এর মধ্যে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার ও গাজীপুর হাই সিকিউরিটি কারাগারে আটক নেতাকর্মীদের মামলা পরিচালনা ও হাত খরচ বাবদ বিএনপির কেন্দ্রীয় তহবিল থেকে এবং ঢাকা মহানগর বিএনপির পক্ষ থেকে আর্থিক অনুদান দেয়া হয়েছে বলে দলীয় সূত্র থেকে জানা গেছে।
তৃণমূল নেতাকর্মীরা অভিযোগ করে জানান, কেন্দ্রের নির্দেশে জীবন বাজি রেখে আন্দোলন করে নির্যাতনের শিকার হলেও সামান্যতম সান্ত্ব—না পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। দলের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া এসব ঘটনা তদন্তের জন্য টিম গঠন করলেও এখন পর্যন্ত তা প্রকাশ করা হয়নি। উপরন্তু জেলা পর্যায়ের নেতাদের পাশ কাটানোর মনোভাবের কারণে হতাশ হয়ে পড়ছেন তারা। কোনো সাহায্য-সহযোগিতা এমনকি নেতাদের সঠিক সময়ে কাছে পাওয়া যাচ্ছে না বলে তারা অভিযোগ করেন।
দলীয় সূত্র জানায়, ২২ জানুয়ারি বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া পেশাজীবী নেতাদের সঙ্গে এক বৈঠকের পর তাদের সমন্বয়ে চারটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে ও পরে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন ও সহিংসতা, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মানবাধিকার লঙ্ঘন ও বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের ওপর হামলার ঘটনা তদন্তের জন্য এসব টিম গঠন করা হয়। গঠিত তদন্ত কমিটি ঘটনাগুলো কিভাবে ঘটেছে, কারা দোষী- এসব চিহ্নিত করে প্রতিবেদন তৈরি করে গুলশান কার্যালয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সনের কাছে জমা দেন।
এসব প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, কমিটির সদস্যরা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন ও ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করে প্রতিবেদন তৈরি করেছেন। এর মধ্যে বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা এএসএম আবদুল হালিমের নেতৃত্বে নীলফামারী, দিনাজপুর ও ঠাকুরগাঁওয়ের সংশ্লিষ্ট এলাকা, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকারের নেতৃত্বে সিরাজগঞ্জ, বগুড়া ও গাইবান্ধা জেলা, বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা শওকত মাহমুদের নেতৃত্বে কুমিল্লা, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর ও চট্টগ্রাম জেলা এবং সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক রুহুল আমিন গাজীর নেতৃত্বে সাতক্ষীরা, যশোর, কুষ্টিয়া ও মেহেরপুর জেলার ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করে এই তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন।
এসব তদন্ত কমিটির দেয়া প্রতিবেদন অনুযায়ী সারাদেশে আন্দোলনে ১৮ দলীয় জোটের ২৩৫ জন নিহত এবং ৬৬ জন নেতাকর্মী গুম বা নিখোঁজ রয়েছেন। এর মধ্যে শুধুমাত্র ঢাকা মহানগরেই বিএনপির ২১ জন নেতাকর্মী নিখোঁজ বা গুম হয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ রয়েছে। কিন্তু বিএনপির পক্ষ থেকে এসব নেতাকর্মীর পরিবার ও পরিজনদের কোনো খোঁজ খবর নেয়া হয়নি। তবে সম্প্রতি ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকা নিখোঁজ নেতাকর্মীদের বাসায়-বাসায় গিয়ে সান্ত্বনা ও আর্থিক অনুদান দিচ্ছেন বলে দলীয় সূত্র থেকে জানা গেছে। কিন্তু দলটির কেন্দ্রীয়ভাবে এবং দলের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে এসব পরিবারকে সান্ত্বনা ও খোঁজ খবর নেয়া হয়নি বলে তৃণমূলে ক্ষোভ ও হতাশা বাড়ছে।
প্রতিবেদন অনুযায়ী সারাদেশে নেতাকর্মীদের ওপর নির্যাতন ও হয়রানির তালিকায় শীর্ষে রয়েছে লক্ষ্মীপুর জেলা। এ জেলায় ১৮ দলীয় জোটের ২৯ জন নেতাকর্মী নিহত ও ৬ জন নেতাকর্মী গুম হয়েছে। এর পরের অবস্থানে রয়েছে সাতক্ষীরা জেলা। এ জেলায় ২৯ জন নেতাকর্মী নিহত ও ৫ জন নেতাকর্মী গুম হয়েছে। এছাড়া চাঁদপুরে ২৩ জন নিহত, কক্সবাজারে ১৯ জন নিহত, নোয়াখালীতে ১৮ জন নিহত, সিরাজগঞ্জে ১৫ জন নিহত, নীলফামারীতে ৬ জন নিহত ও ৯ জন নিখোঁজ, গাইবান্ধায় ৬ জন নিহত ও ১১ জন নিখোঁজ, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১৩ জন নেতাকর্মী নিহত হয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।
কিন্তু বিএনপির পক্ষ থেকে গঠিত এ তদন্ত টিমের প্রতিবেদনের সঙ্গে স্থানীয় জেলা পর্যায়ের নেতাদের পরিসংখ্যানে গরমিল পাওয়া গেছে। লক্ষ্মীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল খায়ের ভূঁইয়া জানান, ২৬ অক্টোবর ২০১৩ থেকে ১৮ দলীয় জোটের আন্দোলনে ১১ জন নেতাকর্মী নিহত এবং ৬ জন নিখোঁজ হয়েছে। কিন্তু ২০০৯ সাল থেকে হিসাব করলে ২৯ জন নেতাকর্মী প্রতিপক্ষ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে নিহত হয়েছে।
একইভাবে চাঁদপুর জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের পর থেকে এই জেলায় ১১ জন নেতাকর্মী নিহত এবং ২০০৯ সাল থেকে হিসাব করলে ২৩ জন নেতাকর্মী নিহত হয়েছে।
গাইবান্ধা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গউছুল আজম ডলার জানান, আন্দোলনে তার জেলায় ৬ জন জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীসহ একজন যুবদল কর্মী নিহত এবং জোটের ৬ জন নেতাকর্মী নিখোঁজ রয়েছেন। তবে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীসহ ১৪ জন নিখোঁজ রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
নীলফামারী জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মো. শামসুজ্জামান (জামান) জানান, আমাদের ৩ জন নেতাকর্মী গুম হয়েছেন। এর মধ্যে ১ জনের লাশ বগুড়া জেলা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। অপরদিকে জেলা বিএনপির তৎকালীন সভাপতি আহসান আহম্মদ (হাসান) জানান, আন্দোলনে জোটের ৪ জন নেতাকর্মী নিহত এবং ৭ থেকে ৮ জন নেতাকর্মী নিখোঁজ রয়েছেন।

উৎসঃ   মানবকন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ