• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০৯:৫৮ অপরাহ্ন |

পানি আল্লাহর নেয়ামত

Paniনাজীর আহমদ: ‘অবিশ্বাসীরা কি ভেবে দেখে না যে, আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবী মিশে ছিল ওতপ্রোতভাবে, অতঃপর আমরা তাদের পৃথক করেছি এবং আমরা প্রাণবান সব কিছু সৃষ্টি করলাম পানি থেকে, তবুও কি তারা বিশ্বাস করবে না’? (সূরা আম্বিয়া: ৩০)।
‘এবং তিনিই পানি থেকে সব কিছু সৃষ্টি করেছেন, অতঃপর এর বংশীয় ও বৈবাহিক সম্বন্ধ স্থাপন করেছেন এবং তোমার প্রতিপালক শক্তিশালী।’ (সূরা ফোরকান)।
রাসূল সা: হতে একটা হাদিস আছে, ‘আল্লাহ তখন ভাসমান ছিলেন পানিতে তাঁর মহান আরশের উপর। এরপর এ পানি হতেই সৃষ্টি উপকরণ, তৈয়ার করলেন।’
ইমরান ইবনে হুসাইন (রা:) হতে বর্ণিত। নবী সা: বলেন, ‘আদিতে একমাত্র আল্লাহই ছিলেন এবং তিনি ছাড়া আর কিছুই ছিল না। অতঃপর পানির ্পর তাঁর আরশ স্থাপিত হলো। পরে আল্লাহ ‘জিকরের আধারে’ প্রত্যেক জিনিসের বিবরণ লিপিবদ্ধ করলেন এবং আসমান-জমিন সৃষ্টি করলেন।’ (বুখারি শরীফ)।
কুরআন ও হাদিসের উল্লিখিত বর্ণনা হতে আমরা বলতে পারি যে, জীবন্ত সব কিছুই সৃষ্টি হয়েছে পানি হতে, অর্থাৎ সৃষ্টির কাজে পানিই হলো অপরিহার্য উপাদান। এ কথাটি বৈজ্ঞানিক তত্ত্ব দ্বারা প্রতিষ্ঠিত ও সামঞ্জস্যপূর্ণ।
বর্তমান জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের মতে, আদিতে আকাশ, নক্ষত্র, সূর্য, পৃথিবী প্রভৃতি পৃথক পৃথক সত্তা ছিল না। তখন মহাবিশ্ব ছিল অসংখ্য গ্যাসীয় কণার সমষ্টি যাকে বলা হয় ‘নীহারিকা’। কালক্রমে এই নীহারিকা বহু খণ্ডে বিভক্ত হয়ে পড়ে। এসব খণ্ড ক্রমশ ঘনীভূত হয়ে নক্ষত্রপুঞ্জ, সূর্য, পৃথিবী ও অন্যান্য গ্রহের সৃষ্টি হয়। এর মধ্যে যাদের প্রাণ আছে তাদের সৃষ্টি হয় বৃষ্টির পানি থেকে।
জীববিজ্ঞানীদের মতে, সাগরের অভ্যন্তরে অর্থাৎ পানিতেই প্রটোপ্লাজম বা জীবনের আদি ঘনীভূত উপাদান এই প্রটোপ্লাজম থেকেই জীবের সৃষ্টি। আবার যাবতীয় জীবদেহ কোষ দ্বারা গঠিত এবং প্রত্যেকটি কোষের অন্যতম মূল উপাদান হচ্ছে পানি যা আল্লাহর ইচ্ছায় বৃষ্টি থেকে পাওয়া যায়। মানুষের জন্ম যে শুক্রকীট থেকে তা-ও হচ্ছে পানি।
পবিত্র কুরআনে এ ‘পানি’ শব্দটি ৩২ বার ব্যবহার করা হয়েছে। ইবনে আব্বাসের মতে আকাশমণ্ডলী, পৃথিবী বন্ধা ছিল, বৃষ্টি বর্ষণ হতো না। মাটিও বন্ধা ছিল। তাতে বৃক্ষ, তরুলতা প্রভৃতি অঙ্কুরিত হতো না। আল্লাহ যখন পৃথিবীতে মানুষ আবাদ করলেন, তখন আকাশে মেঘের সৃষ্টি, মেঘ থেকে বৃষ্টি এবং মাটির উৎপাদন ক্ষমতা খুলে দিলেন।
আল্লাহ বলেন ‘তোমরা যে পানি পান কর তার দিকে লক্ষ্য করে দেখ না যে, আমি কোনো বিশেষ ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে মেঘ তৈরি করি এবং তার থেকে পানি বর্ষাই। এই নিয়ম পদ্ধতিতে কি তোমরা মেঘ তৈরি করে পানি বর্ষাতে পারো? নাকি আমি তা করে থাকি।’ (সূরা ওয়াকেয়া : ৬৮-৬৯)।
আল্লাহ পানি সম্পর্কে যে চিন্তাভাবনা করতে বলেছেন তা শুধু এক ব্যাপারেই নয়, বরং পানি সম্পর্কে চিন্তা করলে আরো বহু বিষয় মানুষের জ্ঞানে ধরা পড়বে। যেমন প্রত্যেক তরল পদার্থ জমাট বাধলে তা ভারী হয়, কিন্তু একমাত্র পানিই জমে বরফ হলে তা হালকা হয় এবং পানির ওপর ভাসে।
তাই আল্লাহ বলেন, ‘হে চিন্তাশীলগণ! তোমরা চিন্তাভাবনা করো, দেখো তোমার চিন্তায় কি ধরা পড়ে।’ সমুদ্রের পানিতে লবণের ভাণ্ডার। লবণ ছাড়া আমরা চলতে পারি না। আল্লাহ বলেন, ‘যদি আমি ইচ্ছা করতাম তাহলে সমুদ্রের ভেতর থেকে লোনা পানি বাষ্পাকারে তুলে নিয়ে লোনাপানির মেঘ বানাতে পারতাম এবং বৃষ্টির পানিকে লোনা করে দিতে পারতাম। তোমাদের ক্ষতি হবে বলে তা করি না। তবু তোমরা আমার শুকরিয়া আদায় করো না।’ (সূরা ওয়াকেয়া: ৭০)। এখানে চিন্তার বিষয় আল্লাহ কেন সমুদ্রের পানির মধ্যে লবণকে সংরক্ষণ করলেন?
প্রাকৃতিক পানির মধ্যে বৃষ্টির পানিই সবচেয়ে বিশুদ্ধ। পান করার জন্য, সাধারণ ব্যবহারের জন্য ও ওষুধপত্র তৈরির জন্য এ পানি অত্যন্ত নির্ভরশীল। শুধু তাই নয়, বৃষ্টির পানি উদ্ভিদ ও তরুলতার প্রাণ। এ জন্যই রাসূল সা: এ পানিকে কল্যাণকর পানি বলেছেন। যেমন, ‘হে আল্লাহ! আমাদের ওপর কল্যাণকর পানি বর্ষণ করো।’ মেঘে মেঘে সংঘর্ষণে যে বিদ্যুৎ কণার সৃষ্টি হয় তা সঙ্কেত ধ্বনি বা ধ্বংস ধ্বনি নয়। লক্ষ যোজন মাইলব্যাপী তা প্রসারিত হয়ে পড়ে এবং আকাশে নাইট্রিক ক্ষরণ করে। ফলে বিচ্ছিন্ন হাইড্রোজেন ও অক্সিজেন কণা একত্র হয়ে পানির সৃষ্টি করে। যা জীবজন্তু ও গাছপালার প্রাণ। আল্লাহ তাই বলেন, ‘তুমি কি লক্ষ করছো না যে, আল্লাহ আকাশ হতে সলিল অবতীর্ণ করেন। পরে তদ্বারা তিনি বিবিধ বর্ণের ফল উৎপাদন করেন।’  (সূরা ফাতির: ৪২৭)।
আমরা পূর্বে উল্লেখ করেছি যে, ‘সৃষ্টির আদিতে আল্লাহর আরশ পানির ওপর ছিল।’ হিন্দু ধর্মগ্রন্থে বলা হয়েছে, ‘আদিতে নারায়ণ পানির ওপর নিদ্রিত ছিলেন।’ খ্রিষ্টান ধর্মগ্রন্থ অনুযায়ী, ‘আদিতে ঈশ্বর পানির ওপর অবস্থান করছিলেন।’ হাদিস অনুযায়ী বোঝা যায় যখন আল্লাহ আসমান, জমিন, মহাবিশ্ব এবং মানবজাতি সৃষ্টির ইচ্ছা করলেন তখন সেই বিপুল পানির কেন্দ্রস্থলে একটি বুদবুদ প্রকাশ পায়। হিন্দু ধর্মমতে নারায়ণ যখন সৃষ্টি করার ইচ্ছা করলেন তখন একটি ডিম পানির মধ্যে সৃষ্টি হলো। সেই ডিমের মধ্য থেকে প্রথম প্রকাশিত হলেন ব্রহ্মা। খ্রিষ্টান ধর্মানুযায়ী ঈশ্বর যখন সৃষ্টি করার ইচ্ছা করলেন তখন আদেশ দিয়েছিলেন জলের মধ্যে গম্বুজ হোক, তা জলকে দু’ভাগ করল, ঊর্ধ্বজল এবং অধঃজল।
হাদিস থেকে আমরা বলতে পারি বিপুল পানির কেন্দ্রে সৃষ্ট বুদবুদ চতুর্দিকে সম্প্রসারিত হচ্ছিল। আল্লাহ সৃষ্টি করতে ইচ্ছা করলেন মহাবিশ্ব আর তৈরি হলো একটা বুদবুদ কেন, তা আমাদের বুঝতে হবে। জ্ঞান দিয়ে চিন্তা করতে হবে। চিন্তাশীলদের চিন্তার খোরাক কুরআন ও হাদিস। আল্লাহ মহাবৈজ্ঞানিক, আর কুরআন তাই বিজ্ঞানময়।
পৃথিবীতে পানির উপস্থিতি বিজ্ঞানের কাছে সত্যিই এক বিস্ময়। পৃথিবীসংলগ্ন অন্যান্য গ্রহ উপগ্রহে পানি নেই, জীবনের জন্য যা অপরিহার্য। তাহলে পৃথিবীতে এত পানি কোথা থেকে এলো? এর বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা আজো পাওয়া যায়নি।
বিজ্ঞানীরা হিসাব করে বলেছেন, আমাদের এই পৃথিবীতে মোট পানির পরিমাণ ১৪০ কোটি ঘন কিলোলিটার। তার অবশ্য প্রায় ৯৮ শতাংশ সমুদ্রের লোনাপানি। ওজন হবে প্রায় ১৩৭ কোটি ঘন কিলোলিটার। আর প্রায় তিন কোটি ঘন কিলোলিটার পানি রয়েছে এন্টার্কটিকা বা দক্ষিণ মেরুর পুরো বরফের স্তূপে আটকা। মানুষ সরাসরি চাষবাস, কলকারখানা বা খাওয়ার জন্য কাজে লাগাতে পারে মাত্র দুই লাখ ঘন কিলোলিটারের মতো পানি। এগুলো রয়েছেÑ নদীতে, হ্রদে, মাটিতে ও হাওয়ায়। আজ পৃথিবীতে সুপেয় পানির বিপজ্জনক অভাব দেখা দিচ্ছে। বাংলাদেশের মতো পানির এত প্রাচুর্য পৃথিবীর অনেক দেশেই নেই। তার পরও পানি নিয়ে এত সঙ্কটের কারণ এর অপরিকল্পিত ব্যবহার। সহজলভ্য পানির মূল্য আমরা কখনোই দিইনি। পানি এখন অনেক এলাকায় পানির দরে পাওয়া যাচ্ছে না। কিনতে হচ্ছে নগদ মূল্যে। দুঃখজনক হলো কিছু দেশ পানি নিয়ে নোংরা রাজনীতি শুরু করেছে। যার ফলে পৃথিবীতে পানি নিয়ে যত যুদ্ধবিগ্রহ ঘটেছে, ধর্ম নিয়ে এত ঘটেনি। পানি পরিণত হচ্ছে সবচেয়ে বড় মারণাস্ত্রে।
বিশ্বের কমপক্ষে ২০০ কোটি লোক কোনো-না-কোনোভাবে বর্তমানে পানিসঙ্কটে আক্রান্ত। রাসূল সা: বলেছেন, ‘তুমি নদীর তীরে বসে অজু করলেও প্রয়োজনের অতিরিক্ত পানি অপচয় করো না।’ পানি দিয়েই সৃষ্টির সূচনা, আর পানির সাহায্যে সৃষ্টিজগৎ টিকে আছে। তাই বলা যায়, জীবনের জন্য পানি আল্লাহর দেয়া শ্রেষ্ঠ নেয়ামত। এ জন্য পানির অপর নাম বলা হয় জীবন।
লেখক : প্রবন্ধকার


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ