• শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০২:০৮ পূর্বাহ্ন |

সুখ সাগর পেঁয়াজ আবাদে চাষিদের সুখ

Piaj -Onionকৃষি ডেস্ক: ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানিতে দেশীয় পেঁয়াজের দর কমে যাওয়ায় লোকসানের আশংকা করছেন মেহেরপুরের পেঁয়াজ চাষিরা। তবে চাষি ও কৃষি বিভাগ বলছে উচ্চ ফলনশীল সুখ সাগর জাতের পেঁয়াজ সারা দেশে চাষ করতে পারলে আমদানি বন্ধ করে বিদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি করা সম্ভব হবে। এতে চাষিরা বেশি লাভবান হবেন। অবশ্য সেলক্ষ্যে মসলা গবেষণা কেন্দ্রে গবেষণাও চলছে।
সুখ সাগর ও তাহেরপুরি জাতের পেয়াঁজের চাষ করে থাকেন মেহেরপুরের চাষীরা। তবে সুখ সাগর জাতের চাষ বেশি। বছর দশেক আগে ভারত থেকে সুখ সাগর পোঁজের বীজ সংগ্রহ করে মুজিবনগর উপজেলার কৃষকরা চাষ শুরু করেছিলেন। গত কয়েক বছর ধরে এ জেলার কৃষকরা নিজস্ব প্রযুক্তিতেই সুখ সাগর পেঁয়াজের বীজ তৈরী করে চাষ সম্প্রসারণ করেছেন। দেশীয় পেঁয়াজের চেয়ে আকারে দুই থেকে তিন গুন বড় এই পেঁয়াজ। বিঘায় ফলন ১৫০-২০০ মণ। পেঁয়াজের মৌসূমে জেলার চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন বাজার দখল করে মেহেরপুরের সুখ সাগর পেঁয়াজ। প্রতি বছর ভারত থেকে যে পেঁয়াজ আমদানি করা হয় তার বেশির অংশ এই সুখ সাগর জাতের।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসেব মতে, চলতি মৌসূমে পেঁয়াজ চাষ হয়েছে প্রায় ২ হাজার ৫৫ হেক্টর জমিতে। যার লক্ষ্যামাত্রা ছিল ১ হাজার ৭শ ৩১ হেক্টর। আবাদ হওয়া জাতের মধ্যে সুখ সাগর বেশি।
এদিকে সুখ সাগর জাতের পেঁয়াজ আবাদ দেশব্যাপি ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে আঞ্চলিক মসলা গবেষণা কেন্দ্র, বারি গাজিপুরে গবেষণা চলছে। গবেষণা কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, দেশে শীতকালীন পেঁষাজ চাষ বেশি। গ্রীষ্মকালে পেঁয়াজ যে পরিমাণে চাষ হয় তাতে চাহিদা পুরুণ হয় না। তাই সুখ সাগর জাতের পেঁয়াজের সাথে অন্যজাত সঙ্করায়ণ করে গ্রীষ্মকালে চাষের উপযোগি করার লক্ষ্যে গবেষণা চলছে। বারি পেয়াজ-২, ৩ ও ৫ জাতের ফসল একমাসের বেশি স্টোরেজ করা যায়না। তাই যদি দুই থেকে তিন মাস ধরে স্টোরেজ করে রাখার মত জাত উদ্ভাবন করা যায় তাহলে সংকটের সময় চাহিদা পুরুণ সম্ভব হবে।
ওই কেন্দ্রের উর্দ্ধতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা শৈলেন্দ্রনাথ মজুমদার আরনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমককে জানান, দেশীয় তাহেরপুরী জাতের সাথে সুখ সাগর পেঁয়াজের সঙ্করায়ণ করে উচ্চ ফলনশীল জাত সৃষ্টির জন্য গবেষণা চলছে। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামি দুই বছরের মধ্যে ওই জাত পরীক্ষামূলকভাবে আবাদ সম্ভব হবে।
তিনি আরো বলেন, সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত পেঁয়াজের সংকট থাকে। ওই সময়টাতে চড়া দামে পেঁয়াজ কিনতে হয়। তাই উচ্চ ফলনশীল জাতের পেঁষাজ আবাদ দেশব্যাপি ছড়িয়ে দেয়া এবং গ্রীষ্মকালিন পেঁয়াজ আবাদ বৃদ্ধি করতে পারলে দেশের চাহিদা মেটানো সম্ভব।
মুজিবনগর উপজেলার মানিকনগর গ্রামের সুখ সাগর পেঁয়াজ চাষী জাকির হোসেন জানান, নতুন পেঁয়াজ ওঠার সময় যদি ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ থাকে তাহলে চাষিদের নায্য মূল্য নিশ্চিত হয়। কিন্তু প্রতি বছর এ সমস্যায় চাষিরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। তিনি আরো বলেন, সুখ সাগর জাতের পেঁয়াজ চাষ সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে পারলে পেঁয়াজ আমদানি করতে হবে না। উপরন্ত বিদেশে রপ্তানি করা সম্ভব হবে।
কৃষকদের দাবির সাথে একাত্মত্বা প্রকাশ করে মুজিবনগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোফাখখারুল ইসলাম সরকারীভাবে বিশেষ প্রকল্প গ্রহণের মাধ্যমে এ জাত সম্প্রসারণ করার দাবি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ