• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ০৩:৪২ পূর্বাহ্ন |

৭ ব্যাংকে তদন্তে নেমেছে দুদক

Dudokঅর্থ-বাণিজ্য ডেস্ক: মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানিতে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগে সাতটি ব্যাংকে তদন্তে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। চার রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী, একটি বিদেশী ও দু’টি স্থানীয় বাণিজ্যিক ব্যাংকে এই তদন্ত শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ব্যাংক সাতটির মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির তথ্য সরবরাহ করা হয়েছে। এখন ওই তথ্যের ভিত্তিতে ব্যাংকগুলোতে আমদানির তথ্য খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, গার্মেন্ট, টেক্সটাইল ও বিদ্যুৎ- এই প্রধান তিনটি খাতে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির তথ্য খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, প্রাথমিকভাবে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির নামে মুদ্রাপাচারের আভাস পাওয়া যাচ্ছে। তারা ইতোমধ্যে ব্যাংকগুলো থেকে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির তথ্য সংগ্রহ করে তা দুদককে সরবরাহ করেছে। এসব তথ্যের ভিত্তিতে বিস্তারিত তদন্ত করছে দুদক।
জানা গেছে, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিদায়ী বছরের বেশির ভাগ সময় রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার মধ্যে কেটেছে। নির্দলীয় সরকার প্রশ্নে সরকারি-বিরোধী উভয়ই ছিল অনড় অবস্থানে। সাথে ছিল গ্যাস বিদ্যুৎ সঙ্কট। সব মিলিয়ে বিনিয়োগকারীরা নতুন বিনিয়োগে নিরুৎসাহিত হয়ে পড়েন। কিন্তু এর পরও ওই সময়ে অস্বাভাবিক হারে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির জন্য ঋণপত্র স্থাপন করা হয়। শুধু গত আগস্টেই প্রায় ৪৩ কোটি মার্কিন ডলারের মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির জন্য ঋণপত্র স্থাপন (এলসি) করা হয়, যা আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ২৩ শতাংশ বেশি। এ পরিস্থিতিতে অস্বাভাবিক হারে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির আড়ালে বিদেশে মুদ্রাপাচার করা হচ্ছে কি না তা খতিয়ে দেখার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ও দুদক উদ্যোগ নেয়। প্রথমে বাংলাদেশ ব্যাংক বিষয়টি আমলে নিলে পরে দুদকও বিষয়টি খতিয়ে দেখার সিদ্ধান্ত নেয়। এ জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে বড় অঙ্কের মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির তথ্য চায় দুদক।
বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যান মতে, ২০০৫ সালের পর কোনো একক মাসে কখনো ৪০ কোটি ডলারের ওপরে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির জন্য ঋণপত্র স্থাপন করা হয়নি। ২০১০ সালের আগস্টে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানি হয়েছিল ৩৫ কোটি ৭৭ লাখ ডলারের। ২০১২ সালে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির জন্য এলসি ওপেন হয়েছিল ফেব্রুয়ারিতে ২৩ কোটি ডলারের। কিন্তু বিদায়ী বছরের শুরু থেকেই মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির জন্য ঋণপত্র স্থাপন বেড়ে যায়। গত এপ্রিলে ৪৪ কোটি ৫৪ লাখ মার্কিন ডলারের পণ্য আমদানির জন্য ঋণপত্র স্থাপন করা হয়েছে, যা আগের বছরের একই সময়ের  চেয়ে প্রায় ২২০ শতাংশ বেশি। আর গত আগস্টে প্রায় ৪৩ কোটি ডলারের মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির জন্য ঋণপত্র স্থাপন করা হয়েছে, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৩৫ কোটি ডলারের। বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্টদের মতে, এটা অস্বাভাবিক। কেননা বিনিয়োগের পরিবেশ যখন স্বাভাবিক ছিল তখনো এক মাসে এ পরিমাণ পণ্য কখনো আমদানি হয়নি।
বিনিয়োগ মন্দার সময় মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানি অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়াকে অনেকেই মুদ্রাপাচারের আশঙ্কা করছেন। তাদের মতে, যখন দেশে বিনিয়োগের পরিবেশ ছিল তখনো এক মাসে এ পরিমাণ পণ্য আমদানির জন্য এলসি খোলা হয়নি।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একজন নির্বাহী পরিচালক বলেন, বিষয়টি প্রথমে হালকাভাবে নেয়া হলেও পরে প্রশ্ন ওঠায় এখন শীর্ষ নীতিনির্ধারণীর নির্দেশে কারা এলসি খুলছে, আদৌ এগুলো আমদানির প্রয়োজন আছে কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ওই কর্মকর্তা জানান, বর্তমান পরিবেশে কেউ বিনিয়োগ করতে চাচ্ছেন না। অনেকেই নতুন বিনিয়োগের প্রস্তুতি নিয়ে বসে আছেন। অপেক্ষা করছেন সুদিনের জন্য। পরিবেশ পরিস্থিতি উন্নতি হলেই তারা বিনিয়োগ করবেন। এ মুহূর্তে অধিক হারে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির জন্য এলসি খোলা তাৎপর্য বহন করছে।
এ দিকে দুদকের চাহিদা মোতাবেক মূলধনী যন্ত্রপাতির বড় অঙ্কের আমদানি হয়েছে এমন ব্যাংকের কাছে তথ্য চায় বাংলাদেশ ব্যাংক। প্রাথমিকভাবে বড় অঙ্কের মূলধনী যন্ত্রপাতির আমদানি হয়েছে এমন সাতটি ব্যাংক শনাক্ত করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এসব তথ্য সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে দুদকে সরবরাহ করা হয়েছে। ওই সব তথ্যের ভিত্তিতে দুদক ব্যাংকগুলোতে তদন্ত শুরু করেছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, ইতোমধ্যে দুদকের কর্মকর্তারা বিভিন্ন ব্যাংকে তদন্ত শুরু করেছেন। প্রাথমিকভাবে বেশ কিছু অনিয়মও পাওয়া গেছে বলে তারা জানতে পেরেছেন। প্রকৃত অবস্থা জানা যাবে আরো পরে। সূত্র: নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ